গ্রেইম ক্রিমার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গ্রেইম ক্রিমার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআলেকজান্ডার গ্রেইম ক্রিমার
জন্ম (1986-09-19) ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৮৬ (বয়স ৩২)
হারারে, জিম্বাবুয়ে
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি লেগ ব্রেক
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৬৭)
৬ জানুয়ারি ২০০৫ বনাম বাংলাদেশ
শেষ টেস্ট৬ নভেম্বর ২০১৬ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০৩)
২৭ জানুয়ারি ২০০৯ বনাম কেনিয়া
শেষ ওডিআই১৫ জুন ২০১৬ বনাম ভারত
ওডিআই শার্ট নং৩০
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ২০)
১৩ অক্টোবর ২০০৮ বনাম কানাডা
শেষ টি২০আই২২ জুন ২০১৬ বনাম ভারত
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৪-২০০৫ম্যাশোনাল্যান্ড
২০০৬-২০০৮নর্দার্নস
২০০৯-বর্তমানমিড ওয়েস্ট রাইনোস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই টি২০আই এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৫ ৬৪ ২৭ ৭৫
রানের সংখ্যা ৪১১ ৫৩৪ ৬৫ ২,৩১০
ব্যাটিং গড় ১৫.২২ ১৬.১৮ ৫.৪১ ২২.০০
১০০/৫০ ১/০ ০/১ ০/০ ১/৯
সর্বোচ্চ রান ১০২* ৫৮ ১৭ ১৭১*
বল করেছে ২,৯২২ ৩,০৩২ ৫৩৪ ১৫,৬৪৩
উইকেট ৩৭ ৭৪ ৩৩ ৩০০
বোলিং গড় ৫২.০০ ৩২.৫৪ ১৮.৮৪ ২৭.৯৭
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৬
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৪ ৬/৪৬ ৩/১১ ৮/৬১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৯/– ২১/– ৬/– ৫৩/–
উৎস: ক্রিকইনফো, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৫

আলেকজান্ডার গ্রেইম ক্রিমার (ইংরেজি: Graeme Cremer; জন্ম: ১৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৮৬) হারারে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী জিম্বাবুয়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারজিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে গ্রেইম ক্রিমার মূলতঃ লেগ স্পিনার হিসেবে অংশগ্রহণ করছেন। অধিনায়কের দায়িত্ব থেকে হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে অব্যহতি দেয়ার পর বর্তমানে তিনি অন্তর্বর্তীকালীন অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

প্রিন্স এডওয়ার্ড স্কুলে অধ্যয়ন করেন ক্রিমার। স্কুল পর্যায়ের ক্রিকেটে দূর্দান্ত খেলা প্রদর্শন করে সকলের নজর কাড়েন। ২০০৬-০৭ মৌসুমে প্রথম শ্রেণীর লোগান কাপে নিজস্ব সর্বোচ্চ ১৭১* রান সংগ্রহ করেন। কিন্তু প্রথম-শ্রেণী ও লিস্ট এ ক্রিকেটে তাঁর ব্যাটিং গড় ২০।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

পল স্ট্র্যাং, অ্যান্ডি হুইটলরে প্রাইসের খেলোয়াড়ী জীবন শেষ হলে আঠারো বছর বয়সে জিম্বাবুয়ে দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে মনোনীত হন। ৬ জানুয়ারি, ২০০৫ তারিখে ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক ঘটে। কিন্তু ঐ খেলায় তার দল হেরে যায়, যার ফলে বাংলাদেশ তাদের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টেস্টে জয়লাভ করে। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকানিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে অংশ নেন। দূর্ভাগ্যবশতঃ জিম্বাবুয়ে টেস্ট ক্রিকেট থেকে স্বেচ্ছায় নির্বাসনে গেলে অনেকের সাথে তারও সম্ভাবনা সীমিত হয়ে আসে।

২০০৭ সালের শেষদিকে একদিনের আন্তর্জাতিক দলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু রে প্রাইস ও প্রসপার উতসেয়ার শক্তিশালী স্পিন আক্রমণ দলে থাকায় তিনি কোন খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাননি। অবশেষে কানাডায় অনুষ্ঠিত আল বারাকা কাপ টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ৩ ওভারে ২/১০ লাভ করেন।

শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত সিরিজগুলো দলের সদস্য থাকলেও প্রায়শই দ্বাদশ ব্যক্তির ভূমিকায় মাঠে নামতেন। জানুয়ারি, ২০০৯ সালে কেনিয়ার বিপক্ষে তার ওডিআই অভিষেক হয়। ঐ প্রতিযোগিতায় ১১.৪৬ গড়ে ৫ খেলায় ১৫ উইকেট নিয়ে শীর্ষ উইকেট লাভকারী হন।

২০১১ সালে জিম্বাবুয়ে টেস্ট ক্রিকেটে ফিরে আসলে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত একমাত্র টেস্টের সিরিজগুলোয় আঘাতের কারণে অংশগ্রহণ করতে পারেননি।[১] ছয় বছর পর জানুয়ারি, ২০১২ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে একমাত্র টেস্টে সর্বশেষ অংশগ্রহণ করেন।[২]

ওডিআইয়ে ৫-উইকেট প্রাপ্তি[সম্পাদনা]

# পরিসংখ্যান খেলা প্রতিপক্ষ মাঠ শহর দেশ সাল
৬/৪৬  কেনিয়া হারারে স্পোর্টস ক্লাব হারারে জিম্বাবুয়ে ২০০৯
৫/২০ ৫৭  আফগানিস্তান শারজাহ ক্রিকেট এ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়াম শারজাহ সংযুক্ত আরব আমিরাত ২০১৫

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Moonda, Firdose (২৪ নভেম্বর ২০১১)। "Vitori and Cremer give Zimbabwe options"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  2. "Zim opener dropped after Aus grade stint"Sydney Morning Herald। ১৩ জানুয়ারি ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]