তাতেন্দা তাইবু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
তাতেন্দা তাইবু
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম তাতেন্দা তাইবু
জন্ম (১৯৮৩-০৫-১৪) ১৪ মে ১৯৮৩ (বয়স ৩৫)
হারারে, জিম্বাবুয়ে
ডাকনাম টিবলি
উচ্চতা ৫ ফুট ৫ ইঞ্চি (১.৬৫ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন ডানহাতি অফ স্পিন/ডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকা উইকেট-কিপার
সম্পর্ক কাদজাই তাইবু (ভাই)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫২)
১৯ জুলাই ২০০১ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট ২৬ জানুয়ারি ২০১২ বনাম নিউজিল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৬৪)
২৩ জুন ২০০১ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১২ বনাম নিউজিল্যান্ড
ওডিআই শার্ট নং ৪৪
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৮-১২ মাউন্টেনিয়ার্স
২০০৮ কলকাতা নাইট রাইডার্স
২০০৬-০৭ নামিবিয়া
২০০৫-০৬ কেপ কোবরাস
২০০০-০৫ ম্যাশোনাল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২৮ ১৫০ ১১৪ ২৩১
রানের সংখ্যা ১,৫৪৬ ৩,৩৯৩ ৬,৮০৪ ৫,৪২৬
ব্যাটিং গড় ৩১.১২ ২৯.২৫ ৩৮.২২ ৩০.৮২
১০০/৫০ ১/১২ ২/২২ ১২/৩৯ ৫/৩৫
সর্বোচ্চ রান ১৫৩ ১০৭* ১৭৫* ১২১*
বল করেছে ৪৮ ৮৪ ৯২৪ ৫৬৯
উইকেট ২২ ১৪
বোলিং গড় ২৭.০০ ৩০.৫০ ১৯.৫৯ ৩০.৭১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/২৭ ২/৪২ ৮/৪৩ ৪/২৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫৭/৫ ১১৪/৩৩ ২৯৫/২৯ ১৯৬/৫৫
উৎস: ক্রিকইনফো, ৪ মে ২০১৭

তাতেন্দা তাইবু (ইংরেজি: Tatenda Taibu; জন্ম: ১৪ মে, ১৯৮৩) হারারে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী জিম্বাবুয়ের সাবেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারজিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলে উইকেট-রক্ষকব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নামতেন। এছাড়াও তিনি ডানহাতে অফ-স্পিন বোলিং করতে পারতেন। ৬ মে, ২০০৪ তারিখে টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়করূপে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দলকে নেতৃত্ব দেন।[১] ১০ জুলাই, ২০১২ তারিখে মাত্র ২৯ বছর বয়সে ক্রিকেট জীবন ত্যাগ করার ঘোষণা দেন ও চার্চের কর্মকাণ্ডে মনোনিবেশ ঘটান।[২][৩]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

১৬ বছর বয়সে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২০০৫ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত নামিবিয়া ক্রিকেট দলের পক্ষে অধিনায়কত্ব করেন। এছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকায় কেপ কোবরাস দলকে নেতৃত্ব দেন। জুলাই, ২০০৭ সালে ভারতের এ-দলের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরি করেন। ২০ জুলাই, ২০০৮ তারিখে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে কলকাতা নাইট রাইডার্স দলের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

২০০১ সালে জাতীয় দলের পক্ষে অভিষেক ঘটে তার। ২০০৩ সালে হিথ স্ট্রিকের নেতৃত্বে ইংল্যান্ড সফরে দলের সহঃ অধিনায়ক মনোনিত হন তিনি। এপ্রিল, ২০০৪ সালে দলের অধিনায়ক নিযুক্ত হন।[৪] এরফলে ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়করূপে রেকর্ড গড়েন। ২০০৫-২০০৭ মেয়াদে দলের বাইরে ছিলেন। জুলাই, ২০০৭ সালে পুণরায় জিম্বাবুয়ে দলে প্রত্যাবর্তন করেন। পরের মাসেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিনটি ওডিআইয়ের সিরিজে অংশ নেন। চূড়ান্ত ওডিআইয়ে তিনি তার ব্যক্তিগত সেরা অপরাজিত ১০৭* রান করেন। এ সেঞ্চুরিটি ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে যে-কোন জিম্বাবুইয়ান ক্রিকেটারের জন্যে প্রথম।

২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৭৩ রানের মূল্যবান ইনিংস খেলেন ও দল ২৬৮ রানে গুটিয়ে যায়। কিন্তু হাশিম আমলাএবি ডি ভিলিয়ার্সের জোড়া সেঞ্চুরিতে জিম্বাবুয়ে দল পরাজিত হয়।[৫] ২০১১ সালে জিম্বাবুয়ে দল স্বেচ্ছা নির্বাসন থেকে টেস্ট ক্রিকেটে ফিরে আসলে তিনি বাংলাদেশের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত একমাত্র টেস্টে অংশ নেন। এছাড়াও, পাকিস্তাননিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তার অসাধারণ ক্রীড়াশৈলী দেশের ক্রিকেট প্রশাসনের বিরুদ্ধে সমুচিত জবাব দেন।[৬] তিন দেশের বিপক্ষেই তিনি অর্ধ-শতক করেছিলেন।[৭]

১০ জুলাই, ২০১২ তারিখে মাত্র ২৯ বছর বয়সে খেলোয়াড়ী জীবনে সমাপ্তি রেখা টানেন।[৩] এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন যে, তার একমাত্র কাজ হচ্ছে চার্চের সাথে যুক্ত থাকা। জিমিকে তাইবু বলেন, “আমি কেবলমাত্র অনুভব করি যে আমার সত্ত্বা প্রভুর কাজের জন্য নিবেদিতপ্রাণ। এছাড়াও আমি সৌভাগ্যবান ও গর্বিত যে আমি দেশের পক্ষে খেলতে পেরেছি। এখন সময় এসেছে ঈশ্বরের কাছে নিজেকে সঁপে দেয়ার।”

কীর্তিগাঁথা[সম্পাদনা]

টেস্টে ১৪৫৬ রান করার পাশাপাশি ৫৭ ক্যাচ ও ৫ স্ট্যাম্পিং করেন। একদিনের আন্তর্জাতিকে ৩৩৮৩ রানসহ ১১৪ ক্যাচ ও ৩৩ স্ট্যাম্পিং করেছেন তিনি।[৩] রানের দিক দিয়ে ওডিআইয়ে দেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক এবং উইকেট-কিপার হিসেবে আউট করার দিক দিয়ে অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের পরেই তার অবস্থান।

২০০৪ সালে শ্রীলঙ্কা দল ৭১৩/৩ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে। তাইবু এ খেলায় কোন বাই রান দেননি। তিনটি উইকেটের সবগুলোই তার হাতে ক্যাচ হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Records: Youngest Test Captain cricinfo Retrieved 22 September 2011
  2. "Tatenda Taibu retires at 29 from cricket to serve God"। ১০ জুলাই ২০১২। 
  3. "Taibu retires, will pursue religion"। Wisden India। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১২ 
  4. "What a waste - May 14 down the years"। CricInfo। সংগ্রহের তারিখ ১৪ মে ২০০৯ 
  5. http://www.cricinfo.com/south-africa-v-zimbabwe-2010/content/current/story/482260.html
  6. "Zimbabwe board upset at Taibu comments"supersport.com। ৩ আগস্ট ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 
  7. "Statistics / Statsguru / T Taibu / Test matches"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
হিথ স্ট্রিক
জিম্বাবুয়ের টেস্ট অধিনায়ক
২০০৩/০৪-২০০৫
উত্তরসূরী
টেরেন্স ডাফিন
পূর্বসূরী
লুইস বার্গার
নামিবিয়া লিস্ট এ অধিনায়ক
২০০৬
উত্তরসূরী
লুইস বার্গার