স্টুয়ার্ট ম্যাটসিকেনিয়েরি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্টুয়ার্ট ম্যাটসিকেনিয়েরি
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামস্টুয়ার্ট ম্যাটসিকেনিয়েরি
জন্ম (১৯৮৩-০৫-০৩) ৩ মে ১৯৮৩ (বয়স ৩৫)
হারারে, জিম্বাবুয়ে
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫৯)
৪ নভেম্বর ২০০৩ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টেস্ট১১ মার্চ ২০০৫ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৭০)
২৩ নভেম্বর ২০০২ বনাম পাকিস্তান
শেষ ওডিআই১২ মার্চ ২০১০ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৯৯-বর্তমানমনিকাল্যান্ড (ইস্টার্নস)
২০০১-২০০২সিএফএক্স একাডেমি
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ১১২ ১২৪ ২২০
রানের সংখ্যা ৩৫১ ২,২০৫ ৬২৭৮ ৪,৭৪৬
ব্যাটিং গড় ২৩.৪০ ২২.০৫ ৩০.৪৭ ২৫.৩৭
১০০/৫০ ০/২ ০/১৩ ৯/৩৫ ১/২৯
সর্বোচ্চ রান ৫৭ ৯০ ২০১ ১১০*
বল করেছে ৪৮৩ ৯২০ ৪,১৯১ ১,৭৯৪
উইকেট ১৬ ৬৭ ২৯
বোলিং গড় ১৭২.৫০ ৪৮.৬২ ৪২.৬২ ৫০.৭২
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ১/৫৮ ২/২৫ ৫/৪১ ২/২
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৭/– ৩৭/– ৮১/– ৭৬/–
উৎস: Cricinfo, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৩

স্টুয়ার্ট ম্যাটসিকেনিয়েরি (জন্ম: ৩ মে, ১৯৮৩) হারারে এলাকায় জন্মগ্রহণকারী জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করছেন। মূলতঃ তিনি ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে থাকেন। এছাড়াও মাঝে-মধ্যে ডানহাতি অফ ব্রেক বোলিং করে থাকেন তিনি। গালি অঞ্চলে দক্ষ ফিল্ডার হিসেবে পরিচিতি রয়েছে তার।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কাট এন্ড পুলের মাধ্যমে রান সংগ্রহ করেন। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে উচ্চ স্তরের পেস বোলিংয়ে তাকে প্রচণ্ড সংগ্রাম করতে হয়। প্রায়শঃই তিনি লুজ শটে আউট হয়েছেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

জিম্বাবুয়ের অনূর্ধ্ব-১৬ ও অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ের ক্রিকেটে উদীয়মান খেলোয়াড়ের স্বাক্ষর রেখেছেন। নভেম্বর, ২০০২ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। ২০০৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে একটিমাত্র খেলায় অংশগ্রহণ করেন। ঐ বছরের শেষদিকে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ন্যাটওয়েস্ট সিরিজে অংশগ্রহণ করেন। তার লড়াকু ৪৪ রানের ইনিংসে ট্রেন্ট ব্রিজে অবিশ্বাস্য জয়লাভ করে জিম্বাবুয়ে দল।

২০০৬ সালে বোর্ডের সাথে নতুন করে চুক্তিবদ্ধ হতে অস্বীকার করায় তাকে দলের বাইরে থাকতে হয়। তারপর দলে ফিরে আসলে ২০০৭ সালের শুরুতে নিজস্ব হাজারতম ওডিআই রান তোলেন। এরফলে ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে জিম্বাবুয়ে দলের চার খেলোয়াড়ের একজনরূপে এ অর্জনে সক্ষম হন। এছাড়াও ২০০৭ সালের দলটিতে তিনিই একমাত্র খেলোয়াড় ছিলেন যিনি ২০০৩ সালের দলে খেলেছিলেন।

বিশ্বকাপ ক্রিকেট, ২০১৫[সম্পাদনা]

জিম্বাবুয়ের দল নির্বাচকমণ্ডলীর আহ্বায়ক গিভমোর মাকোনি সর্বশেষ ২০১২ সালে আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের পর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে যোগসূত্র না থাকলেও ম্যাটসিকেনিয়েরিকে ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে ১৫-সদস্যের চূড়ান্ত দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Moonda, Firdose (৭ জানুয়ারি ২০১৫)। "Hamilton Masakadza set for first World Cup"espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৫ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]