শিঙ্গিরাই মাসাকাদজা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শিঙ্গিরাই মাসাকাদজা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামশিঙ্গিরাই উইনস্টন মাসাকাদজা
জন্ম (1986-09-04) ৪ সেপ্টেম্বর ১৯৮৬ (বয়স ৩২)
হারারে, জিম্বাবুয়ে
ডাকনামশিঙ্গি
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলিং অল-রাউন্ডার
সম্পর্কহ্যামিল্টন মাসাকাদজা (ভাই)
ওয়েলিংটন মাসাকাদজা (ভাই)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৮৩)
২৬ জানুয়ারি ২০১২ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টেস্ট১২ নভেম্বর ২০১৪ বনাম বাংলাদেশ
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৮–২০০৯ইস্টার্নস
২০০৯–২০১৩মাউন্টেনিয়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই টি২০আই এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৬ ৬১
রানের সংখ্যা ৮৮ ১৭০ ১৮ ১৩৭৮
ব্যাটিং গড় ১১.০০ ২১.২৫ ৪.৫০ ১৭.৮৯
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/০ ১/৫
সর্বোচ্চ রান ২৪ ৪৫* ১০০*
বল করেছে ১০৫৭ ৭৯১ ১১৭ ১১০২৬
উইকেট ১৬ ২৫ ২১১ ২৪৫
বোলিং গড় ৩২.১৮ ৩৫.৬৪ ৫২.৭৫ ২৩.০২
ইনিংসে ৫ উইকেট -/-
ম্যাচে ১০ উইকেট - -/-
সেরা বোলিং ৪/৩২ ৪/৪৬ ২/৩৯ ৬/৫৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/- ৭/- ২/০ ৩২/-
উৎস: ক্রিকইনফো, ২০ মে ২০১৫

শিঙ্গি মাসাকাদজা বা শিঙ্গিরাই উইনস্টন মাসাকাদজা (ইংরেজি: Shingirai Winston Masakadza; জন্ম: ৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৮৬) হারারেতে জন্মগ্রহণকারী জিম্বাবুয়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। তার ডাক নাম শিঙ্গিজিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের বর্তমান সদস্য হ্যামিল্টন মাসাকাদজা তার ভাই।[১] মাঝারি সারির ব্যাটসম্যানপেস বোলার হিসেবে শিঙ্গি ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করে থাকেন। ইস্টার্নসের পক্ষ হয়ে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন ২০০৮ সালে। ২০১০ সালে জাতীয় দলের সদস্য হিসেবে তুলনামূলকভাবে শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ডাক পান। পূর্বে তিনি পেশাদার ফুটবলার ছিলেন। জিম্বাবুয়ের অন্যতম জনপ্রিয় ডায়নামোজের পক্ষ হয়ে ফুটবল খেলতেন তিনি।[২]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

প্রভিডেন্সে অনুষ্ঠিত একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মাধ্যমে তার অভিষেক ঘটে। জিম্বাবুয়ে লড়াই করার মতো ২৫৬/৫ রান তোলে। শিঙ্গিরাইয়ের উপর চূড়ান্ত ওভার করার দায়িত্ব পড়ে। শেষ ওভারে তিনি দুই উইকেট সংগ্রহ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নাটকীয়ভাবে দলকে ২ রানের ব্যবধানে বিজয়লাভে সক্ষমতা দেখান। শিবনারায়ণ চন্দরপল, ডোয়েন স্মিথ এবং সুলেইমান বেন তার শিকারে পরিণত হয়েছিলেন।[৩] এরপর তিনি আগস্ট, ২০১০ সালে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে নামেন।[৪] খেলায় তিনি ৪৬* রানে অপরাজিত থাকলে জিম্বাবুয়ে খেলায় পরাজিত হয়। কিন্তু সিরিজে তারা ২-১ ব্যবধানে জয়ী হয়েছিল। ঐ খেলায় চার্লস কভেন্ট্রি’র পরিবর্তে তিনি মাঠে নেমেছিলেন।

এরপর তিনি ধারাবাহিকভাবে দলের হয়ে খেলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দু’টি টি২০ খেলায় অংশগ্রহণের জন্য ডাক পান। এড রেইন্সফোর্ডের বোলিং বিপর্যয়ের ফলে তিনি দ্বিতীয় খেলায় অন্তর্ভুক্ত হন। ঐ খেলায় ডেভিড মিলার এবং রবিন পিটারসনকে আউট করেন। ঐ খেলায় ডেল স্টেইন, জ্যাক ক্যালিস এবং মরনে মরকেল খেলেননি।[৫] একদিনের সিরিজের প্রথম খেলায় গ্রেইম স্মিথ, কলিন ইনগ্রাম, আলবি মরকেল এবং ডেভিড মিলারের উইকেট লাভ করেছিলেন তিনি।

২০১১ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে জিম্বাবুয়ে দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন মাসাকাদজা।[৬] তিনি একটিমাত্র খেলায় অংশগ্রহণ করেন পাকিস্তানের বিপক্ষে, যাতে তার দল সাত উইকেটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. cricinfo, biography of Hamilton Masakadza, retrieved: 11 May, 2013
  2. http://www.espncricinfo.com/zimbabwe-v-bangladesh-2013/content/current/story/631614.html
  3. "Player Profile: Shingirai Masakadza"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৫-২০ 
  4. http://www.cricinfo.com/zimbabwe/content/story/477629.html
  5. http://www.cricinfo.com/south-africa-v-zimbabwe-2010/engine/current/match/463142.html
  6. "Zim suffer Ervine blow"Independent Online (South Africa)। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১২ 
  7. "Statistics / Statsguru / SW Masakadza / One-Day Internationals"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]