মমিনুল হক ভূঁইয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মমিনুল হক ভূঁইয়া
Mominul Hoque Bhuiyan.Bir Protik.jpg
মৃত্যু১৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৪
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
যে জন্য পরিচিতবীর প্রতীক

মমিনুল হক ভূঁইয়া (জন্ম: অজানা - মৃত্যু: ১৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৪) বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে। [১]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

মমিনুল হক ভূঁইয়ার পৈতৃক বাড়ি কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার কালা সাদাধিয়া (ভূঁইয়া বাড়ি) গ্রামে। তাঁর বাবার নাম সিরাজুল হক ভূঁইয়া। তাঁর স্ত্রীর নাম সুফিয়া খাতুন। তাঁদের ছয় মেয়ে।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৭১ সালে মমিনুল হক ভূঁইয়া চাকরি করতেন বিদ্যুৎ বিভাগে। কুমিল্লা বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ২৫ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ঝাঁপিয়ে পড়েন যুদ্ধে। কুমিল্লার বিভিন্ন স্থানে প্রতিরোধযুদ্ধে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন তিনি। প্রতিরোধযুদ্ধের পর ভারতে যান মমিনুল হক ভূঁইয়া। প্রথমে মুক্তিবাহিনীর ২ নম্বর সেক্টরে সাংগঠনিক নানা কাজে যুক্ত ছিলেন। পরে গেরিলা বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হন। কুমিল্লার দাউদকান্দি এবং নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ, বৈদ্যেরবাজার, সিদ্ধিরগঞ্জসহ আরও কয়েক স্থানে বেশ কয়েকটি গেরিলা অপারেশনে তিনি অংশ নেন। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে কর্মরত ছিলেন তিনি। কুমিল্লায় তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত থাকা অবস্থায় মারা যান।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা[সম্পাদনা]

সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্র আক্রমণ করতে ১৯৭১ সালে শীতের রাতে নিঃশব্দে শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ে সমবেত হন মমিনুল হক ভূঁইয়াসহ একদল মুক্তিযোদ্ধা। তাঁরা সমবেত হয়েছিলেন ঢাকা-চট্টগ্রাম সড়কের বর্তমান কাঁচপুর সেতুর কাছে। তখন সেখানে সেতু ছিল না। তাঁরা সেদিন বিদ্যুৎকেন্দ্রে গেরিলা অপারেশন করলেও মমিনুল হক ভূঁইয়া ও তাঁর সহযোদ্ধারা সেখানে আক্রমণ চালাননি। তাঁদের মূল লক্ষ্য ছিল বিদ্যুৎকেন্দ্রের ট্রান্সফরমার বিস্ফোরকের সাহায্যে ধ্বংস করে সটকে পড়া। তবে আক্রান্ত হলে যুদ্ধের প্রস্তুতিও ছিল তাঁদের। দুঃসাধ্য ছিলো মিশনটি। পাকিস্তানি সেনারা টের পেলে মুক্তিযোদ্ধাদের সব পরিকল্পনাই বানচাল হয়ে যেত। সে জন্য মমিনুল হক ভূঁইয়া ও তাঁর সহযোদ্ধারা সবাই ছিলেন সতর্ক। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানি সেনাদের ফাঁকি দিয়ে তিনি ও তাঁর কয়েকজন সহযোদ্ধা কেন্দ্রের ভেতরে ট্রান্সফরমারের কাছে যেতে সক্ষম হন। বাকি ব্যক্তিরা বাইরে থাকেন তাঁদের নিরাপত্তায়। পিকে চার্জ নিয়ে গিয়েছিলেন তারা। সেগুলো ট্রান্সফরমারের গায়ে লাগিয়ে তাঁরা কর্ডেক্স লাগান। কর্ডের মাঝ বরাবর ছিল ডেটোনেটর। সফলতার সঙ্গেই সব কাজ তাঁরা শেষ করে সংযোগ তারে আগুন দেওয়ার কয়েক মিনিট পর বিদ্যুচ্চমকের মতো এক ঝলক আলো দেখা যায়। আর মূহুর্তেই প্রহরারত পাকিস্তানিদের হতবাক করে দিয়ে একের পর এক ঘটে বিকট বিস্ফোরণ। তারপর চারদিক নিকষ অন্ধকারে ছেয়ে যায়। সেদিন তাঁদের অপারেশনে ধ্বংস হয় সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্রের চারটি ট্রান্সফরমার। এতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের অনেক অংশে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়।

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]