বরিশাল-৫

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বরিশাল-৫
জাতীয় সংসদ-এর
নির্বাচনী এলাকা
জেলাবরিশাল জেলা
বিভাগবরিশাল বিভাগ
নির্বাচকমণ্ডলী342,228 (2014)
বর্তমান নির্বাচনী এলাকা
সৃষ্ট১৯৭৩

বরিশাল-৫ হল বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ৩০০টি নির্বাচনী এলাকার একটি। এটি বরিশাল জেলায় অবস্থিত জাতীয় সংসদের ১২৩নং আসন।

সীমানা[সম্পাদনা]

বরিশাল-৫ আসনটি বরিশাল জেলার বরিশাল সিটি কর্পোরেশনবরিশাল সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত।[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বরিশাল-৫ নির্বাচনী এলাকা ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম সংসদ নির্বাচনের সময় গঠিত হয়েছিল।

নির্বাচিত সাংসদ[সম্পাদনা]

নির্বাচন সদস্য দল
১৯৭৩ আবদুল মান্নান হাওলাদার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ[৩]
১৯৭৯ সুনিল কুমার গুপ্ত বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল[৪]
১৯৮৬ এম. মতিউর রহমান জাতীয় পার্টি[৫][৬]
১৯৯১ আব্দুর রহমান বিশ্বাস বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
ডিসেম্বর ১৯৯১ উপ-নির্বাচন মজিবুর রহমান সারওয়ার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
১৯৯৬ নাসিম বিশ্বাস বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
১৯৯৮ উপ-নির্বাচন মজিবুর রহমান সারওয়ার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
২০০১ মজিবুর রহমান সারওয়ার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
জানুয়ারি ২০১৪ শওকত হোসেন হিরন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
জুন ২০১৪ উপ-নির্বাচন জেবুন্নেসা আফরোজ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

নির্বাচন[সম্পাদনা]

২০১০-এর দশকে নির্বাচন[সম্পাদনা]

এপ্রিল ২০১৪ সালে শওকত হোসেন হিরণ মারা যান।[৭] উপনির্বাচনে তার স্ত্রী জেবুন্নেছা আফরোজ নির্বাচিত হন৷[৮]

বরিশাল-৫ উপ-নির্বাচন, জুন ২০১৪[৮]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
আওয়ামী লীগ জেবুন্নেসা আফরোজ ১৮৩,৬২৯ ৯৬.১ +৪৯.৩
বিএনএফ সাইফুল ইসলাম লিটন ৬,১৩৬ ৩.২ প্র/না
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ১৭৭,৪৯৩ ৯২.৯ +৯০.২
মোট ১৯১,০২৮ ৫৫.৮ -২৪.১
আওয়ামী লীগ নির্বাচনী এলাকা ধরে রাখে

বিরোধীদলগুলি ২০১৪ সাধারণ নির্বাচন বর্জন করে তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিলে শওকত হোসেন হিরণ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।[৯]

২০০০-এর দশকে নির্বাচন[সম্পাদনা]

সাধারণ নির্বাচন ২০০৮: বরিশাল-৫[১০][১১]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
বিএনপি মজিবুর রহমান সারওয়ার ১০৫,৬৯৪ ৪৫.০ -১৪.৭
আওয়ামী লীগ জাহিদ ফারুক ৯৯,৩৯৩ ৪২.৩ +১৩.৫
ইসলামী আন্দোলন সৈয়দ মোঃ ফয়জুল করিম ২৭,১৫৬ ১১.৬ প্র/না
জাকের পার্টি মিজানুর রহমান বাচ্চু ২,০২৩ ০.৯ প্র/না
ন্যাশনাল পিপলস পার্টি এবিএম মাসুদ করিম ২৫১ ০.১ প্র/না
স্বতন্ত্র মাহবুব উদ্দিন আহমেদ ২২৫ ০.১ প্র/না
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ৬,৩০১ ২.৭ -২৮.১
মোট ২৩৪,৭৪২ ৭৯.৯ +১৬.১
বিএনপি নির্বাচনী এলাকা ধরে রাখে
সাধারণ নির্বাচন ২০০১: বরিশাল-৫[১২]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
বিএনপি মজিবুর রহমান সারওয়ার ১০৮,৪১২ ৫৯.৭
আওয়ামী লীগ শওকত হোসেন হিরণ ৫২,৩৮৫ ২৮.৮
ইসলামী জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সৈয়দ রেজাউল করিম ২০,৫৫৩ ১১.৩
জাসদ এসএম সাইফুর রহমান ২৪৪ ০.১
জেপি (মঞ্জু) শফিকুল ইসলাম শাহ আলম ১৪৩ ০.১
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ৫৬,০২৭ ৩০.৮
মোট ১৮১,৭৩৭ ৬৩.৮
বিএনপি নির্বাচনী এলাকা ধরে রাখে

১৯৯০-এর দশকে নির্বাচন[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালের ১২ মার্চ নাসিম বিশ্বাস মারা যান, উপ-নির্বাচনে বিএনপির মজিবুর রহমান সারওয়ার নির্বাচিত হন।[১৩][১৪]

সাধারণ নির্বাচন জুন ১৯৯৬: বরিশাল-৫[১২]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
বিএনপি নাসিম বিশ্বাস ৭০,৮০৪ ৪৫.৮
আওয়ামী লীগ মাহবুব উদ্দিন আহমেদ ৪২,৯২২ ২৭.৭
জাতীয় পার্টি (এ) শওকত হোসেন হিরণ ৩১,১১১ ২০.১
জামায়াতে ইসলামী মুয়াজ্জামান হোসেন হেল্লা ৪,৬৬৭ ৩.০
ইসলামী ঐক্য জোট সৈয়দ নাশির আহমেদ কাওসার ৪,৬৪৭ ৩.০
জেএসডি মোস্তাফিজুর রহমান ৩৩০ ০.২
ফ্রিডম পার্টি এ. হান্নান চৌধুরী ১৩১ ০.১
স্বতন্ত্র মোঃ হান্নান শেরনিয়াবাদ ৬৯ ০.০
স্বতন্ত্র মোঃ এ মালেক মৃধা ৬৮ ০.০
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ২৭,৮৮২ ১৮.০
মোট ১৫৪,৭৪৯ ৭৩.৭
বিএনপি নির্বাচনী এলাকা ধরে রাখে

অক্টোবর ১৯৯১ সালে আবদুর রহমান বিশ্বাস বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হলে, তার আসনটি শুন্য হয়। ডিসেম্বরের উপ-নির্বাচনে এম. আর. সারওয়ার নির্বাচিত হন।[১৫]

সাধারণ নির্বাচন ১৯৯১: বরিশাল-৫[১২]
দল প্রার্থী ভোট % ±%
বিএনপি আব্দুর রহমান বিশ্বাস ৫২,০৯৫ ৪৩.৭
আওয়ামী লীগ মাহবুব উদ্দিন আহমেদ ২৮,৭০৫ ২৪.১
জাতীয় পার্টি (এ) এম. মতিয়ার রহমান ২২,৮৬৪ ১৯.২
জামায়াতে ইসলামী আবুল হাসনাত মোঃ নুরুল্লাহ ৫,৭০৪ ৪.৮
ইসলামী ঐক্য জোট রশীদ আহমদ ফেরদৌস ৪,১৭৭ ৩.৫
ওয়ার্কার্স পার্টি রাশেদ খান মেনন ১,৭১২ ১.৪
জাকের পার্টি আলাউদ্দিন মিয়া ১,৫৪৪ ১.৩
বাংলাদেশ জনতা পার্টি মোঃ ওবাইদুল ইসলাম ১,৩৮৩ ১.২
স্বতন্ত্র এনায়েত পীর খান ৩৩৬ ০.৩
স্বতন্ত্র তোফায়েল আহমেদ ১৬৫ ০.১
জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি সামছুল আলম ১৩৮ ০.১
জেএসডি সিকদার মোঃ নিজাম ১৩১ ০.১
ফ্রিডম পার্টি কাজী আব্দুল নাঈম ১১৮ ০.১
জাতীয় যুক্তফ্রন্ট এফ এ ফয়সাল ৮৭ ০.১
স্বতন্ত্র খন্দকার এম এ কাশেম ৩৫ ০.০
সংখ্যাগরিষ্ঠতা ২৩,৩৯০ ১৯.৬
মোট ১১৯,১৯৪ ৪৭.৯
জাতীয় পার্টি (এ) থেকে বিএনপি অর্জন করে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জাতীয় সংসদীয় আসনবিন্যাস (২০১৩) গেজেট" (PDF)। নির্বাচন কমিশন বাংলাদেশ। ২৭ জুলাই ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০১৫ 
  2. "জাতীয় সংসদীয় আসনবিন্যাস (২০১৮) গেজেট" (PDF)। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ৩০ এপ্রিল ২০১৮। ৭ মে ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৮ 
  3. "১ম জাতীয় সংসদ সদস্যদের তালিকা" (PDF)বাংলাদেশ সংসদ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  4. "২য় জাতীয় সংসদ সদস্যদের তালিকা" (PDF)বাংলাদেশ সংসদ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  5. "৩য় জাতীয় সংসদ সদস্যদের তালিকা" (PDF)বাংলাদেশ সংসদ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  6. "৪র্থ জাতীয় সংসদ সদস্যদের তালিকা" (PDF)বাংলাদেশ সংসদ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৪ 
  7. "সাংসদ হিরন আর নেই"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৪ 
  8. "বরিশাল উপনির্বাচনে আ.লীগ প্রার্থী জেবুনেচ্ছা নির্বাচিত"প্রথম আলো। ১৬ জুন ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. "একতরফা নির্বাচনে ভোটের আগেই ১৪৮ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে"দৈনিক সংগ্রাম। ঢাকা। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৩। ১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  10. "৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন" (PDF)বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ২৮ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৮ 
  11. "মনোনয়ন জমাদানের তালিকা"বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  12. "Parliament Election Result of 1991,1996,2001 Bangladesh Election Information and Statistics"ভোট মনিটর নেটওয়ার্ক (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৮-১২-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  13. আখতের, মুহাম্মদ ইয়াহিয়া (২০০১)। Electoral Corruption in Bangladesh [বাংলাদেশে নির্বাচনী দুর্নীতি] (ইংরেজি ভাষায়)। আশগেট। পৃষ্ঠা ১৬৭। আইএসবিএন 0-7546-1628-2 
  14. "৭ম জাতীয় সংসদ সদস্যদের তালিকা" (PDF)বাংলাদেশ সংসদ। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০১৮ 
  15. আখতের, মুহাম্মদ ইয়াহিয়া (২০০১)। Electoral Corruption in Bangladesh [বাংলাদেশে নির্বাচনী দুর্নীতি] (ইংরেজি ভাষায়)। আশগেট। পৃষ্ঠা ২৪৩। আইএসবিএন 0-7546-1628-2 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]