জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম (ফ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম পাকিস্তান
সংক্ষেপেজমিয়ত(ফ)
প্রেসিডেন্টমাওলানা ফজলুর রহমান
প্রতিষ্ঠাতাশাব্বির আহমেদ উসমানি
সিনেট নেতাআবদুল গফুর হায়দারী
প্রতিষ্ঠা১৯৪৫ (1945)
পূর্ববর্তীজমিয়ত উলামায়ে ইসলাম
সদর দপ্তরডেরা ইসমাঈল খান,পাকিস্তান
ছাত্র শাখাজমিয়ত ত্বলাবায়ে ইসলাম
সদস্যপদ  (২০১৯)৩০ লক্ষ
মতাদর্শইসলামবাদ
ধর্মীয় রক্ষণশীলতা
সামাজিক রক্ষণশীলতা
রাজনৈতিক অবস্থানডানপন্থী
জাতীয় অধিভুক্তিমুত্তাহিদা মজলিসে আমেলা
সিনেট
৪ / ১০৪
জাতীয় সংসদ
১৪ / ৩৪২
বেলুচিস্তান সংসদ
১১ / ৬৫
খাইবার পাখতুনখোয়া সংসদ
১৫ / ১৪৫
সিন্ধু সংসদ
০ / ১৬৮
পাঞ্জাব সংসদ
০ / ৩৭১
গিলগিত-বালতিস্তান সংসদ
১ / ৩৩
আজাদ কাশ্মীর সংসদ
০ / ৪৯
নির্বাচনী প্রতীক
Book
দলীয় পতাকা
Flag of the Jamiat Ulema-e Islam.svg
ওয়েবসাইট
www.juipak.org.pk

জমিয়ত উলেমায়ে ইসলাম (ফ) ( উর্দু : (جمیعت علمائے اسلام (ف ইংরেজি : Assembly of Islamic Clerics;[১] পাকিস্তানের একটি সুন্নি দেওবন্দি রাজনৈতিক দল। ১৯৪৫ সালে জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়, ১৯৮৮ সালে একটি দলীয় বিভক্তির ফলস্বরূপ, একটি (ফ) পক্ষ ফজলুর রহমানের পক্ষ নেয়।

জমিয়ত (ফ) ২০১৩ সালের হিসেবে পাকিস্তানের ৫ ম বৃহত্তম দল, জনপ্রিয় ভোট ৩.২%, জাতীয় পরিষদে ২৭২টি সাধারণ আসনের মধ্যে ১৫ টি জিতেছে। এটি দক্ষিণ খাইবার পাখতুনখোয়া এবং বেলুচিস্তানের উত্তরাঞ্চলে পুরোপুুুুুুুুরিভাবে বিস্তৃত। সামিউল হকের নেতৃত্বে জমিয়ত (স) দলটি খাইবার পাখতুনখোয়াতে আঞ্চলিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ তবে জাতীয় পর্যায়ে তার কোন প্রতিনিধিত্ব নেই। ১৯৮০ এর দশকে আফগানিস্তান যুদ্ধে মুজাহিদীন সংগঠনগুলিকে সমর্থন করার জন্য রাষ্ট্রপতি জিয়া-উল-হকের নীতি নিয়ে মতবিরোধের কারণে দু'টি গ্রুপে জমিয়তের বিভাজন হয়েছিল। ২০০৮ সালে জমিয়ত(ন) নামে পরিচিত একটি সাম্প্রতিক দল গঠিত হয়, যা জাতীয় পর্যায়ে অনুপস্থিত ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গঠন[সম্পাদনা]

জমিয়ত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের (দেওবন্দি) মতবাদ অনুসরণ করে। পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া, সিন্ধু এবং বেলুচিস্তানে দেওবন্দিদের ভাল উপস্থিতি রয়েছে। জমিয়তের মূল সংগঠন ১৯১৯ সালে ব্রিটিশ ভারতে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ নামে গঠিত হয়েছিল। । জমিয়ত উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে এবং অখণ্ড ভারতের পক্ষে ছিল এবং ভারতীয় মুসলমানদের জন্য পৃথক ভূমি গঠনের বিরোধিতা করেছিল। ১৯৪৫ সালে নিখিল ভারত মুসলিম লীগ সমর্থন করার জন্য পাকিস্তান গঠনের পক্ষে একটি দল বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এই দলটি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম নামে পরিচিতি লাভ করেছিল। [২]

ঐক্যবদ্ধ জমিয়ত[সম্পাদনা]

জমিয়তের প্রথম সভাপতি শাব্বির আহমেদ উসমানি ১৯৪৭ সালে কেন্দ্রীয় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম গঠনের জন্য দল থেকে বিচ্ছেদ হয়েছিলেন, যেটি ১৯৪৯ এর উদ্দেশ্যমূলক রেজুলেশন পাশের ক্ষেত্রে "ইসলামী" পাকিস্তানে ভবিষ্যত সংবিধানের ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। [৩] ১৯৬২ সালে মুফতী মাহমুদের (১৯১৯-১৯৮০) নেতৃত্বে জমিয়ত রাজনৈতিকভাবে আরও সক্রিয় হয়ে ওঠে। ১৯৬০ এর দশকে মাহমুদের অধীনে দলটি "তীব্র উপস্থিতি গড়ে তুলেছিল" এবং বেলুচিস্তান এবং খাইবার পাখতুনখুয়ারার "তীব্র রক্ষণশীল পল্লীর” মধ্যে সমর্থনের ভিত্তি তৈরি করেছিল। [৪] আইয়ুব খানের আধুনিকীকরণ নীতির বিরুদ্ধে মাহমুদ জমিয়তের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

এছাড়াও ১৯৭০ সালে জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তান এবং বেরলভি দল জমিয়তে উলেমায়ে পাকিস্তানের সাথে নির্বাচনে অংশ নেয়। এটি জাতীয় পরিষদের সাতটি এবং প্রাদেশিক পরিষদে নয়টি আসন জিতেছে এবং পূর্বপশ্চিম ও বেলুচিস্তান প্রাদেশিক সরকারগুলির অংশীদার হয়। [৩] মুফতী মাহমুদ পূর্বপশ্চিম মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন। তাঁর অধীনে প্রাদেশিক সরকার সমস্ত আইন ইসলামের অনুুুকূলে আনার জন্য একটি বোর্ড গঠন করেছিল। বেলুচিস্তানের প্রাদেশিক সরকারকে ভুট্টো বরখাস্ত করার কারণে তিনি ১৯৭৩ সালে পদত্যাগ করেছিলেন।

বিভক্তি[সম্পাদনা]

১৯৮০ এর দশকে, জমিয়ত আফগানিস্তানে সোভিয়েত বিরোধী জিহাদ সহ জেনারেল জিয়া উল হকের কয়েকটি নীতির সমর্থন করেছিল। জিয়ার সময়ে অতিরিক্তভাবে মাদ্রাসাগুলিতে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা এবং আর্থিক সহায়তার ফলে জমিয়তকে হাজার হাজার মাদ্রাসা নির্মাণের অনুমতি দেয়, বিশেষত খাইবার পাখতুনখোয়ায়, যা তালেবান গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছিল। একই সাথে জমিয়ত জামায়াতে ইসলামীর সাথে জিয়ার ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের বিষয়ে অবিশ্বস্ত ছিল এবং জিয়াবিরোধী আন্দোলনের জন্য পিপিপি- ভিত্তিক আন্দোলনে যোগ দেয় (এমআরডি)। [৩]

১৯৮০ এর দশকে মুফতি মাহমুদের মৃত্যুর পরে, জিয়ার শাসনের সাথে এই দ্বৈত সম্পর্কের ফলে, অবশেষে দলে বিভক্ত হয়ে যায় এবং মওলানা ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে জমিয়ত(ফ) এবং সামিয়ুল হকের নেতৃত্বে জমিয়ত(স) নামে দুটি দল গঠিত হয়। [৫]

জমিয়ত নামকরণ[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে জমিয়ত(এস) এর প্রধান মাওলানা সামিউল হক হত্যার পরে,[৬] তার দলের কার্যক্রম ধীরে ধীরে নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়।[৭] মাওলানা ফজলুর রহমান পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের (ইসিপি) কাছে মার্চ, ২০১৮ এ আবেদন করেন যেন তার দল জমিয়ত(ফ) এর নাম জমিয়ত করা হয়।[৮]

মাদ্রাসা[সম্পাদনা]

বছরের পর বছর ধরে জমিয়ত(স) একটি নীতি বজায় রেখেছে যে এটি জমিয়ত(ফ) এর চেয়ে দেশে শরিয়া প্রয়োগের ক্ষেত্রে আরও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। জমিয়ত(স) এর প্রভাব মূলত খাইবার পাখতুনখোয়ার কয়েকটি জেলায় সীমাবদ্ধ যেখানে জমিয়ত(ফ) বেলুচিস্তানকেপিকের পশতুন অঞ্চলগুলিতে প্রাধান্য পেয়েছে।

জমিয়তের উভয় দলেরই মাদ্রাসা ও মসজিদগুলির একটি বৃহৎ নেটওয়ার্ক রয়েছে যা এর ধর্মীয় সক্রিয়তা এবং রাজনীতির মূল ভিত্তি সরবরাহ করে। দু'টি জমিয়ত পাকিস্তানের সমস্ত মাদ্রাসার ৬৫% শতাংশের বেশি চালায়। [৯] পাকিস্তানের জমিয়ত(উভয়) নিয়ন্ত্রিত মাদ্রাসা থেকে প্রায় ৩০,০০০ আফগান শরণার্থী আফগানিস্তানের তালেবান আন্দোলনে যোগ দিয়েছিল। [১]

জমিয়তের কর্মী ও নেতারা বেশিরভাগ মাদ্রাসা থেকে এসেছে, যদিও জমিয়ত(ফ) প্রায়শই মূলধারার শিক্ষাগত প্রার্থী রেখেছিল। জমিয়তের উভয় দলই ভারত-ভিত্তিক অন্যান্য দেওবন্দি দলগুলিকে সমর্থন করেছে, বিশেষত হরকতুল মুজাহিদিন এবং এর শাখা জয়শ-ই-মোহাম্মদ, জমিয়তের মাদ্রাসাগুলি তাদের জন্য নিয়োগের ব্যবস্থা করেছে। তারা আফগানিস্তানের তালিবানের সাথে নিবিড়ভাবে জড়িত। তালেবান আন্দোলনের সূত্রপাত জমিয়তের মাদ্রাসায় হয়েছিল। সামিউল হক দারুল উলুম হক্কানিয়ার প্রধান, যেখানে তালেবান কমান্ডার ও তার সর্বোচ্চ নেতা মোল্লা ওমর স্নাতক(দাওরায়ে হাদীস) পাশ করেন। [১০] মাওলানা সামিউল হক ও তার জমিয়ত(স) প্রকাশ্যে সামরিক তৎপরতা সমর্থন করার, জমিয়ত(ফ) এরকম তৎপরতা সমর্থন না করার এবং বহু দলীয় নির্বাচনী রাজনীতির প্রচারের নীতি রয়েছে।

শান্তি চুক্তি[সম্পাদনা]

জমিয়ত(ফ) পাকিস্তানের উপজাতীয় অঞ্চলে সেনা ও মুজাহিদদের মধ্যে শান্তি চুক্তি করতে ভূমিকা রেখেছে। উদাহরণস্বরূপ, ২০০৪ সালে দক্ষিণ ওয়াজিরিস্তানে জমিয়তের(ফ) দুই জাতীয় সংসদ সদস্য পাকিস্তানি তালেবান নেতৃত্বের সাথে একটি চুক্তি (শাকাই চুক্তি নামে পরিচিত) করেছিলেন এবং ২০০৬ সালের সেপ্টেম্বরে জমিয়ত (ফ) উত্তর ওয়াজিরিস্তানে একইরকম আরেকটি চুক্তিতে সহায়তা করেছিল। "স্থানীয় মুজাহিদদের ক্ষমতার মর্যাদা" বৈধতা দেওয়ার জন্য এই চুক্তিগুলির সমালোচনা করা হয়েছে। তাই এক্ষেত্রে জমিয়ত(ফ) কে জমিয়ত(স) এর চেয়ে সফল বলে ধরা হয়। প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর দ্বিতীয় সরকারে (১৯৯৩-৯৬) জমিয়ত(ফ) এর নেতা ফজলুর রহমানকে বিদেশ বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

২০০২ পরবর্তী[সম্পাদনা]

মজলিসে মুত্তাহিদা আমেলায় জমিয়ত(ফ) বৃহত্তম দল। এটি ২০০২ সালের নির্বাচনে পাকিস্তানের সংসদে ৪১ টি আসন এবং এনডব্লিউএফপিতে ৪৮ টি আসনের মধ্যে ২৯ টি আসন জিতেছিল। এরপরে, ফজলুর রহমান ২০০৪ সালে বিরোধী দলের নেতা হন এবং ২০০৭ অবধি এই পদে বহাল ছিলেন। জমিয়ত(ফ) ক্ষমতাসীন পিপিপি জোটের অংশ ছিল, তবে তার এক সদস্যের (তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী) দুর্নীতির কারণে জোট ত্যাগ করে। জমিয়ত(ফ) সমর্থনের বিনিময়ে পিপিপি-নেতৃত্বাধীন সরকার ২০১০ সালে ইসলামী আইনশাস্ত্রে কোনও আনুষ্ঠানিক একাডেমিক প্রশিক্ষণ ছাড়াই একজন জমিয়ত(ফ) সিনেটর, মওলানা শেরানিকে ২০১০ সালে ইসলামিক আদর্শিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ করেছিলেন। শেরানী প্রায়শই সরকারের আইনসুলভ প্রচেষ্টা, বিশেষত মহিলাদের সাথে সম্পর্কিতদের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন। তিনি ঘরোয়া সহিংসতা সম্পর্কিত প্রস্তাবিত বিলের বিরোধিতা করে বলেছিলেন যে পাকিস্তানের নারীদের অধিকার সংগঠনগুলি উপস্থিত না হওয়া এবং এটি "তৈরি" করা না হওয়া অবধি ঘরোয়া সহিংসতা একটি প্রধান বিষয় নয় এবং এ জাতীয় কোনও আইন "সত্যিকারের ইসলামী সমাজ" গঠনে বাধা সৃষ্টি করে। বর্তমানে, জমিয়ত(ফ) আর জোটের শরিক না হলেও ফজলুর রহমান কাশ্মীর কমিটির সভাপতিত্ব করেছেন এবং সিনেটের স্থায়ী অভ্যন্তরীণ কমিটির সভাপতিত্ব করেছেন আরেক জমিয়ত(ফ) সিনেটর তালহা মাহমুদ আরইয়ান।

জমিয়তের উভয় দলই পাকিস্তানের উপজাতীয় অঞ্চলে আমেরিকান ড্রোন হামলার বিরোধিতা করার জন্য প্রায়শই একটি সাধারণ প্ল্যাটফর্মে একত্রিত হয়ে এটিকে পাকিস্তানের সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন হিসাবে দেখেছে। উদাহরণস্বরূপ, ওসামা বিন লাদেনের হত্যার নেতৃত্বাধীন অ্যাবটাবাদে ২ মে ২০১১ মার্কিন হামলার পরে, জমিয়ত(ফ) এবং জেআইআই (স) পেশোয়ারে একটি বহুদলীয় সম্মেলনে অংশ নিয়েছিল, ড্রোন হামলার নিন্দা জানিয়ে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল আফগানিস্তানে ন্যাটো সৈন্যদের যৌক্তিক সমর্থন শেষ করা।

ঘরোয়া ফ্রন্টে, জমিয়ত(ফ) এর সদস্যরা ব্লাসফেমি আইন পরিবর্তনের সোচ্চার সমালোচক ছিলেন। ২০১০ সালের ডিসেম্বরে তার দল ক্ষমতাসীন জোট ছাড়ার আগ পর্যন্ত ফজলুর রহমান নীরব ছিলেন, তার পরে তিনি নিন্দা আইন সংশোধন করার প্রস্তাবগুলির সমালোচনা করেছিলেন। জমিয়ত(ফ)তার সদস্যদের সাথে "দাঁত ও পেরেক" লড়াই করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গৃহস্থালি সহিংসতা রোধের লক্ষ্যে একটি বিল পাস করারও বিরোধিতা করেছে, কারণ তাদের মতে, এটি পাস হওয়ার ফলে "ইসলামী রাষ্ট্রে পশ্চিমা সংস্কৃতি প্রচার হবে।"

২০০৮ সালে, জমিয়ত(ফ) থেকে জমিয়ত (ন) নামে আরেকটি দল গঠন হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Abbas, Hassan (২০১৪)। The Taliban Revival: Violence and Extremism on the Pakistan-Afghanistan Frontier। Yale University Press। পৃষ্ঠা 67। 
  2. "Jamiat Ulema-e-Islam (JUI)"Islamopedia Online। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  3. International Crisis Group, Islamic Parties in Pakistan, p.11
  4. Burki, Shahid Javed (২০১৫)। Historical Dictionary of Pakistan। Rowman & Littlefield। পৃষ্ঠা 292। 
  5. Report, Recorder (২০২০-০৩-১৭)। "Renaming party: ECP accepts application of JUI-F"Business Recorder (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৭ 
  6. Islam, Saeed; Asif, Muhammad (২০১৮-০২-০৫)। "Exact Solutions of Brinkman Type Fluid Between Side Walls Over an Infinite Plate"dx.doi.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৭ 
  7. Special Correspondent (Daily Jang), "Election Commission accepts JUI(F) plea to get renamed as JUI", Urdu; (Daily Jang, Rawalpindi, 17 March, 2020)pp12
  8. Report, Recorder (২০২০-০৩-১৭)। "Renaming party: ECP accepts application of JUI-F"Business Recorder (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-১৭ 
  9. International Crisis Group, Islamic Parties in Pakistan, p.12
  10. International Crisis Group, Islamic Parties in Pakistan, p.13

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]