ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ

স্থানাঙ্ক: ২৩°৫১′৫৩″ উত্তর ৯০°২৩′৩৮″ পূর্ব / ২৩.৮৬৪৭° উত্তর ৯০.৩৯৩৮° পূর্ব / 23.8647; 90.3938
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ
Campus of International Hope School Bangladesh.jpg
ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ, ঢাকা
অবস্থান

স্থানাঙ্ক২৩°৫১′৫৩″ উত্তর ৯০°২৩′৩৮″ পূর্ব / ২৩.৮৬৪৭° উত্তর ৯০.৩৯৩৮° পূর্ব / 23.8647; 90.3938
তথ্য
প্রাক্তন নামইন্টারন্যাশনাল টার্কিশ হোপ স্কুল
ধরনবেসরকারি আন্তর্জাতিক বিদ্যালয়
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৯৬; ২৬ বছর আগে (1996)
প্রতিষ্ঠাতাকাজিম এলদিস
চেয়ারম্যানইয়াসার সাভরান
অধ্যক্ষরোকসানা জারিন
শ্রেণীপ্লে গ্রুপ থেকে ১২
ভর্তি২,০০০ (সব ক্যাম্পাস, ২০১৪)
শিক্ষায়তন০.৮১ হেক্টর (২ একর)
ক্যাম্পাসের ধরনশহুরে
ওয়েবসাইট

ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ (আইএইচএসবি) হল বাংলাদেশের ঢাকার উত্তরায় অবস্থিত একটি ইংরেজি মাধ্যমের বেসরকারি আন্তর্জাতিক বিদ্যালয়। এটি পূর্বে ইন্টারন্যাশনাল টার্কিশ হোপ স্কুল নামে পরিচিত ছিল।

ইতিহাস ও ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

এর প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ কাজিম এলডেস ১৯৯৬ সালে ঢাকায়[১] এটি প্রতিষ্ঠা করেন। তুর্কি স্কুলগুলোর একজন শক্তিশালী সমর্থক তুরস্কের রাষ্ট্রপতি সুলেমান দেমিরেল ১৯৯৭ সালের[২] মার্চ মাসে একটি রাষ্ট্রীয় সফরের সময় আনুষ্ঠানিকভাবে স্কুলটি উদ্বোধন করেন।

স্কুলটি ভাড়া করা প্রাঙ্গনে একটি ক্যাম্পাস হিসাবে অল্প সংখ্যক খুব অল্প সংখ্যক শিক্ষার্থীদের নিয়ে শুরু হয়।[১] এরপর থেকে এটি তিনটি শহরে আটটি ক্যাম্পাসে পরিণত হয়: ঢাকার গুলশানউত্তরা এলাকায় দুটি প্রিস্কুল, দুটি জুনিয়র বিভাগ (গ্রেড ১ – ৫) ও দুটি সিনিয়র বিভাগ (একটি ছেলে, একটি মেয়ে), চট্টগ্রামের একটি শাখা যা প্রিস্কুল থেকে গ্রেড ১০ পর্যন্ত বিস্তৃত, এবং বগুড়ায় একটি প্রিস্কুল ও জুনিয়র বিভাগ। সম্মিলিত তালিকাভুক্তি ২০১৪ সালের[৩] হিসেবে ১,৫০০-এ উন্নীত হয়েছে।

আইএইচএসবি উত্তরা সেক্টর ৪-এ অবস্থিত বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত দুই একর জমিতে জুন ২০০২ সালে একটি উদ্দেশ্য-নির্মিত ক্যাম্পাস নির্মাণ শুরু করে।[৪] ২০০৫ সালের সেপ্টেম্বরে এর নির্মাণ শেষ হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এর সুবিধাগুলোর মধ্যে রয়েছে একটি বিস্তৃত খেলার মাঠ, ফুটবল মাঠ, বাস্কেটবল কোর্ট, কনফারেন্স হল, লাইব্রেরি এবং কম্পিউটার ও বিজ্ঞান ল্যাব। আবাসিকদের জন্য রয়েছে ছেলে ও মেয়েদের হোস্টেল।[৫] ঢাকায় বিদ্যালয়টির ছয়টি শাখা রয়েছে।[৬] ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১০ তারিখে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি আবদুল্লাহ গুল বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস পরিদর্শন করেন।[৭]

২০১৬ সালের তুর্কি অভ্যুত্থান প্রচেষ্টার পর; বাংলাদেশে নিযুক্ত তুর্কি রাষ্ট্রদূত দাবি করেছেন যে বিদ্যালয়টি গুলেন আন্দোলনের সাথে যুক্ত ছিল; যাকে তিনি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বর্ণনা করেছেন। তুর্কি স্কুলের শিক্ষক, বিদ্যালয়ের ৩৩ জন তুর্কি নাগরিককে নিযুক্ত করা হয়েছে বলে দাবি করেছে যে তারা তাদের দূতাবাস দ্বারা পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ও একজন কর্মচারী জানান যে দূতাবাস তার পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত করেছে।[৮] বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এর সাথে ঘটনার কোনো সংযোগ অস্বীকার করে।[৯]

পরে বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করে ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ রাখা হয়।

ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ (আইএইচএসবি) অডিটোরিয়াম

পাঠ্যক্রম[সম্পাদনা]

আইএইচএসবি হলো একটি ইংরেজি মাধ্যমের বিদ্যালয় যেখানে শিশু থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শ্রেণী রয়েছে। বিদ্যালয়টি আন্তর্জাতিক জিসিএসইজিসিই পদ্ধতি অনুসরণ করে ও ছাত্রদের ও-লেভেল এবং এ-লেভেল পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত করে। ছোটবেলা থেকেই ইংরেজি শেখানো হয়।[১০] ব্রিটিশ কাউন্সিল মে ২০১৫ থেকে স্কুলটির সাথে অংশীদারিত্বে রয়েছে, উত্তরা ক্যাম্পাসে ১১ থেকে ১৩ বছর বয়সী শিশুদের ইংরেজি ভাষায় পড়া ও লেখার দক্ষতা শেখানো হয়।[১১][১২] বাংলাদেশী ও বাংলাদেশী বংশদ্ভূত শিক্ষার্থীদের জন্য বাংলা ভাষার ক্লাস বাধ্যতামূলক। মুসলিম শিক্ষার্থীদের জন্য ধর্মীয় অধ্যয়নের ক্লাস বাধ্যতামূলক।[১০]

শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

বিদ্যালয়টিতে প্রায় ২০০০ শিক্ষার্থী রয়েছে। মালয়েশিয়া, কানাডা, ফিলিপাইন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড, সৌদি আরব, সুদান, স্কটল্যান্ড, মিশর, পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, তাইওয়ান, ভারত, শ্রীলঙ্কা ও তুরস্ক সহ বাংলাদেশের বাইরের দেশগুলোর শিক্ষার্থীর পরিমাণ মোট শিক্ষার্থীর ১৭%।[৩]

নিবরাস ইসলাম এই বিদ্যালয়ের একজন প্রাক্তন ছাত্র, যে জুলাই ২০১৬-এর ঢাকা হামলায় অংশ নিয়েছিল, যেখানে ২০ বিদেশী নাগরিক নিহত হয়।[১৩][১৪][১৫][১৬][১৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rahman, Shafiq (২৬ আগস্ট ২০০৫)। "At the Turkish Hope School"Probe News Magazine। Dhaka। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "Turkish educator says Demirel stood with Turkish schools abroad"Cihan News Agency। Istanbul। ১৯ জুন ২০১৫। ৯ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৫ 
  3. "Brief History"International Turkish Hope School - Bangladesh 
  4. "Turkish school enhances cultural ties between Turkey, Bangladesh"Today's Zaman। Istanbul। ১৮ ডিসেম্বর ২০০৮। ১১ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৫ 
  5. "Classroom"International Turkish Hope School - Bangladesh 
  6. "Guardians protest Turkish Hope School's new instalment plan"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৭-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২০ 
  7. "::: Star Campus :::"www.thedailystar.net। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২০ 
  8. "Turkish nationals in Bangladesh living in fear of Erdogan's long arms"Dhaka Tribune। ২০১৭-০৮-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২০ 
  9. "International Turkish Hope School protests Turkish ambassador's remark"Dhaka Tribune। ২০১৭-০৭-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২০ 
  10. "Curriculum"International Turkish Hope School - Bangladesh 
  11. "British Council re-launches e-learning centre at Dhanmondi"bdnews24.com। ২২ জুন ২০১৫। 
  12. "Uttara teaching centre at Int'l Turkish Hope School"British Council Bangladesh 
  13. Quint, The (২০১৬-০৭-০৩)। "Dhaka Attack: Gunmen Include Awami Leader's Son, Affluent Students"TheQuint (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২০ 
  14. "What we know: The Bangladesh bakery attackers"BBC News। ৪ জুলাই ২০১৬। 
  15. "Five terrorists unmasked"Dhaka Tribune। ৫ জুলাই ২০১৬। 
  16. "What went wrong? Bangladesh militant's father seeks answers"DAWN। Reuters। ৬ জুলাই ২০১৬। 
  17. Zaif, Ahmed (৩১ জুলাই ২০১৬)। "What drives affluent youths to militancy?"Prothom Alo 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]