এই পাতাটি স্থানান্তর করা থেকে সুরক্ষিত।

খালেদা জিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বেগম খালেদা জিয়া
Khaleda Zia former Prime Minister of Bangladesh cropped.jpg
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১০ অক্টোবর ২০০১ – ২৯ অক্টোবর ২০০৬
রাষ্ট্রপতিশাহাবুদ্দিন আহমেদ
একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী
জমিরুদ্দিন সরকার (ভারপ্রাপ্ত)
ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ
পূর্বসূরীলতিফুর রহমান (তত্বাবধায়ক)
উত্তরসূরীইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ (তত্বাবধায়ক)
কাজের মেয়াদ
২০ মার্চ ১৯৯১ – ৩০ মার্চ ১৯৯৬
রাষ্ট্রপতিশাহাবুদ্দিন আহমেদ (অস্থায়ী)
আবদুর রহমান বিশ্বাস
পূর্বসূরীকাজী জাফর আহমেদ
উত্তরসূরীমুহাম্মদ হাবিবুর রহমান (তত্বাবধায়ক)
জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা
কাজের মেয়াদ
২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ – ৯ জানুয়ারি ২০১৪
পূর্বসূরীশেখ হাসিনা
উত্তরসূরীরওশন এরশাদ
কাজের মেয়াদ
২৩ জুন ১৯৯৬ – ১৫ জুলাই ২০০১
পূর্বসূরীশেখ হাসিনা
উত্তরসূরীশেখ হাসিনা
চেয়ারপার্সন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
কাজের মেয়াদ
৩০ মে ১৯৮১ – বর্তমান
পূর্বসূরীজিয়াউর রহমান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1945-08-15) ১৫ আগস্ট ১৯৪৫ (বয়স ৭৩)
দিনাজপুর, ব্রিটিশ ভারত
(বর্তমানে বাংলাদেশ)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (১৯৮১–বর্তমান)
অন্যান্য রাজনৈতিক দলচার দলীয় জোট (১৯৯৯–২০১২)
বিশ দলীয় জোট (২০১২–বর্তমান)
দাম্পত্য সঙ্গীজিয়াউর রহমান (বি. ১৯৬০১৯৮১)
সন্তানতারেক (পুত্র)
আরাফাত (পুত্র; মৃত)
ধর্মইসলাম

বেগম খালেদা জিয়া (জন্ম: আগস্ট ১৫, ১৯৪৫[১]) একজন বাংলাদেশী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যিনি ১৯৯১-১৯৯৬ সাল এবং ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম ও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর মাঝে দ্বিতীয় মহিলা সরকারপ্রধান (বেনজির ভুট্টোর পর)।[২][৩] তার স্বামী জিয়াউর রহমানের শাসনামলে তিনি ফার্স্ট লেডি ছিলেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) চেয়ারপার্সন ও দলনেত্রী, যা তার স্বামী জিয়াউর রহমান কর্তৃক ১৯৭০ দশকের শেষেরদিকে প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৮২ সালে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বে পরিচালিত সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে ১৯৯০ সালে সামরিক স্বৈরশাসক হিসেবে এরশাদের পতনের পূর্ব পর্যন্ত খালেদা জিয়া গনতন্ত্রের জন্য চলমান আন্দোলনে নেতৃত্বদানের মাধ্যমে সহায়তা করেন। ১৯৯১ এর নির্বাচনে বিএনপি জয়ী হওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। ১৯৯৬-এর স্বল্পস্থায়ী সরকারেও তিনি দায়িত্বপালন করেন,যখন কিনা অন্য দলগুলো উক্ত নির্বাচনকে বর্জন করেছিল। ১৯৯৬ সালের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। খালেদা জিয়ার দল পুনরায় ক্ষমতায় আসে ২০০১ সালে। ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি নিজস্ব ৫টি সংসদীয় আসনের সবগুলোতেই জয়ী হন। ফোর্বস সাময়িকীর বিশ্বের ১০০ ক্ষমতাবান নারী নেতৃত্বের তালিকায় ২০০৪ সালে জিয়ার অবস্থান ১৪তম,[৪] ২০০৫ সালে ২৯তম,[৫] ও ২০০৬ সালে ৩৩তম।[৬]

২০০৬ সালে তার সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর, ২০০৭ সালে নির্ধারিত নির্বাচন রাজনৈতিক সহিংসতা ও অন্তর্দন্দের কারণে বিলম্বিত হয়, ফলশ্রুতিতে তত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক সামরিক পদ্ধতিতে রক্তপাতবিহীন ক্ষমতা অধিগ্রহণ করা হয়। উক্ত সরকারের সময়কালে, খালেদা জিয়া তার দুই সন্তানসহ দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হন।[৭][৮][৯]

গত দুই দশকের অধিকাংশ সময়ে, খালেদা জিয়ার প্রধান প্রতিদ্বন্দী ছিলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা। ১৯৯১ সাল থেকে তারা অনুক্রমিকভাবে প্রধানমন্ত্রী হয়ে আসছেন।[১০]

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে, খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে পাঁচ বছরের কারাবাসের দন্ডপ্রাপ্ত হন। এতে তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন একটি এতিমখানা ট্রাস্ট গঠনের সময় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হন।[১১]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

খালেদা জিয়া, ১৯৭৯ সাল

বেগম খালেদা জিয়ার প্রকৃত নাম খালেদা খানম পুতুল। আগস্ট ১৫, ১৯৪৫ সালে দিনাজপুরে তিনি জন্ম গ্রহণ করেন। তিন বোন এবং দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি তৃতীয়। ভাইয়েরা সবার ছোট। তাঁর পিতামহ হাজী সালামত আলী, মাতামহ জলপাইগুড়ির তোয়াবুর রহমান।[১২] বাবা জনাব ইস্কান্দর মজুমদার এবং মা বেগম তৈয়বা মজুমদার[১৩] দিনাজপুর শহরের মুদিপাড়া। আদি পিতৃ-ভিটা ফেনী জেলার ফুলগাজী উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের মজুমদার বাড়ী। বাবা জনাব ইস্কান্দর মজুমদার ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। ইস্কান্দার মজুমদার ১৯১৯ সালে ফেনী থেকে জলপাইগুড়ি যান। বোনের বাসায় থেকে মেট্রিক পাস করেন ও পরে চা ব্যবসায়ে জড়িত হন। ১৯৩৭ সালে জলপাইগুড়িতে বিয়ে করেন। জল্পাইগুড়ির নয়াবস্তি এলাকায় ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত বসবাস করেন। ১৯৮৪ সালের ১৫ নভেম্বর ইন্তেকাল করেন। মা বেগম তৈয়বা মজুমদার ছিলেন একান্ত ভাবে একজন গৃহিনী। তিনি বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গেই থাকতেন।[১৪] খালেদা জিয়ার স্কুলজীবন শুরু হয় পাঁচ বছর বয়সে দিনাজপুরের মিশন স্কুলে। এরপর দিনাজপুর গার্লস স্কুলে ভর্তি হন। তিনি এই স্কুল থেকেই অষ্টম শ্রেণী পাশ করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তার স্বামী বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি লেফটেন্যান্ট জেনারেল জিয়াউর রহমান বীরউত্তম১৯৬০ সালের আগস্ট মাসে জিয়াউর রহমানের সাথে তার বিয়ে হয়। জিয়াউর রহমানের ডাক নাম কমল। জিয়া তখন ছিলেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একজন ক্যাপ্টেন। ডি এফ আই এর অফিসার হিসাবে তখন দিনাজপুরে কর্মরত ছিলেন। তার এক ভাই মেজর(অবঃ) সাইদ ইস্কান্দার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল থেকে ফেনী-১ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তার দুই ছেলের মধ্যে বড় তারেক রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। তার কনিষ্ঠ ছেলে আরাফাত রহমান কোকো ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি মালায়া হাসপাতালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।[১৫] আরাফাত রহমান একজন ব্যবসায়ী ছাড়াও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও সিটি ক্লাবের সাথে যুক্ত ছিলেন।

স্বামী জিয়াউর রহমানের সাথে খালেদা জিয়া, ১৯৭৯

১৯৬৫ সালে খালেদা জিয়া স্বামীর সাথে পশ্চিম পাকিস্তানে (বর্তমানে পাকিস্তান)যান। ১৯৬৯ সালের মার্চ পর্যন্ত করাচিতে স্বামীর সাথে ছিলেন। এরপর ঢাকায় চলে আসেন। কিছুদিন জয়দেবপুর থাকার পর চট্টগ্রামে স্বামীর পোস্টিং হলে তার সঙ্গে সেখানে এবং চট্টগ্রামের ষোলশহর এলাকায় বসবাস করেন। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে খালেদা জিয়া কিছুদিন আত্মগোপন করে থাকার পর ১৬ মে নৌপথে ঢাকায় চলে আসেন। বড় বোন খুরশিদ জাহানের বাসায় ১৭ জুন পর্যন্ত থাকেন। ২ জুলাই সিদ্ধেশরীতে জনাব এস আব্দুল্লাহর বাসা থেকে পাক সেনারা তাকে দুই ছেলে সহ বন্দী করে। ১৯৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে বন্দী ছিলেন। ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলে তিনি মুক্তি পান। রাজনীতিতে আসার আগ পর্যন্ত বেগম জিয়া একজন সাধারণ গৃহবধু ছিলেন। মূলতঃ দুই পুত্রকে লালন পালন ও ঘরের কাজ করেই সময় কাটাতেন। জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি থাকাকালীনও রাজনীতিতে বেগম জিয়ার উপস্থিতি ছিল না।

রাজনৈতিক পেশাজীবন[সম্পাদনা]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক রাষ্ট্রপতি বিল ক্লিনটন এর সঙ্গে খালেদা জিয়া

১৯৮১ সালের ৩০ মে এক ব্যর্থ সামরিক অভুত্থ্যানে জিয়াউর রহমান নিহত হন। এরপর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের বিভিন্ন স্তরের নেতা কর্মিদের আহ্ববানে তিনি ১৯৮২ সালে ৩ জানুয়ারি বিএনপিতে যোগ দেন। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ সেনাপ্রধান লেফটেনেন্ট জেনারেল এরশাদ বিচারপতি আব্দুস সাত্তারকে ক্ষমতাচ্যুত করেন। বেগম জিয়া এর বিরোধিতা করেন। ১৯৮৩ সালের মার্চ মাসে তিনি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান হন।[১৬] ১৯৮৩ সালের ১ এপ্রিল দলের বর্ধিত সভায় তিনি প্রথম বক্তৃতা করেন। বিচারপতি সাত্তার অসুস্থ হয়ে পড়লে তিনি পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৪ সালের ১০ মে পার্টির চেয়ারপার্সন নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হন। তার নেতৃত্বেই মূলতঃ বিএনপির পূর্ণ বিকাশ হয়।

এরশাদবিরোধী আন্দোলন[সম্পাদনা]

১৯৮৩ সালের বেগম জিয়ার নেতৃত্বে সাত দলীয় ঐক্যজোট গঠিত হয়। একই সময় এরশাদের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু হয়। বেগম জিয়া প্রথমে বিএনপিকে নিয়ে ১৯৮৩ এর সেপ্টেম্বর থেকে ৭ দলীয় ঐক্যজোটের মাধ্যমে এরশাদ বিরোধী আন্দোলন শুরু করেন। একই সময় তার নেতৃত্বে সাত দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন পনের দলের সাথে যৌথভাবে আন্দোলনের কর্মসূচী শুরু করে। ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত পাঁচ দফা আন্দোলন চলতে থাকে। কিন্তু ১৯৮৬ সালের ২১ মার্চ রাতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এরশাদের অধীনে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিধান্ত নিলে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে বাঁধার সৃষ্টি হয়। ১৫ দল ভেঙ্গে ৮ দল ও ৫ দল হয়। ৮ দল নির্বাচনে যায়। এরপর বেগম জিয়ার নেতৃত্বে ৭ দল, পাঁচ দলীয় ঐক্যজোট আন্দোলন চালায় এবং নির্বাচন প্রত্যাখান করে। ১৯৮৭ সাল থেকে খালেদা জিয়া "এরশাদ হটাও" এক দফার আন্দোলন শুরু করেন। এর ফলে এরশাদ সংসদ ভেঙ্গে দেন। পুনরায় শুরু হয় ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। অবশেষে দীর্ঘ আট বছর একটানা নিরলস ও আপোসহীন সংগ্রামের পর ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে বিএনপি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। সেই নির্বাচনে খালেদা জিয়া মোট পাঁচটি আসনে অংশ নিয়ে পাঁচটিতেই জয়লাভ করেন।

প্রধানমন্ত্রিত্বের ১ম মেয়াদকাল[সম্পাদনা]

১৯৯১ সালের ১৯ মার্চ বেগম খালেদা জিয়া পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারে প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হন। তার সরকার দেশে সংসদীয় পদ্ধতির সরকার কায়েম করে। ২ এপ্রিল তিনি সংসদে সরকারের পক্ষে এই বিল উত্থাপন করেন। একই দিন তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ কে স্বপদে ফিরে যাবার ব্যবস্থা করে একাদশ সংশোধনী বিল আনেন। ৬ আগস্ট ১৯৯১ সালের সংসদে সর্বসম্মতিক্রমে দুটি বিল পাশ হয়।

প্রধানমন্ত্রিত্বের ২য় মেয়াদকাল[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়। যা পরবর্তীতে ৯৬ এর একদলীয় নির্বাচন হিসেবে গণ্য হয়। সকল বিরোধীদলের আপত্তির পর ও খালেদা জিয়া ও তার দল এই একক নির্বাচন করেন। আওয়ামী লীগ সহ সব বিরোধী দল এই নির্বাচন বয়কট করে। এই সংসদ মাত্র ১৫ দিন স্থায়ী হয়। খালেদা জিয়া এই সংসদের ও প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। প্রবল গণ আন্দোলন ও বর্হিবিশ্বের চাপে ষষ্ঠ জাতীয় সংসদে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিল পাস হয় এবং খালেদা জিয়া পদত্যাগ করেন।

বিরোধীদলীয় নেতৃত্বের ১ম মেয়াদকাল[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি মোট ১১৬ আসনে জয় লাভ করে, যা সরকার গঠনে যথেষ্ঠ ছিলনা। আওয়ামী লীগ মোট ১৪৭ আসন লাভ করে, তারা জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করে। বিএনপি সপ্তম সংসদে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্ববৃহত্ বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। বেগম খালেদা জিয়া আওয়ামী লীগের পাঁচ বছর শাসনকালে সংসদে বিরোধী দলনেত্রী ছিলেন ।

প্রধানমন্ত্রিত্বের ৩য় মেয়াদকাল[সম্পাদনা]

অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপি জামাতে ইসলামী, ইসলামী ঐক্যজোট ও জাতীয় পার্টির সাথে চারদলীয় ঐক্যজোট গঠন করে। ২০০১ সালের ১ অক্টোবর সংসদ নির্বাচনে চারদলীয় ঐক্যজোট বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে। খালেদা জিয়া এই সংসদেও প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর এই সংসদের মেয়াদ শেষ হয়।

বিরোধীদলীয় নেতৃত্বের ২য় মেয়াদকাল[সম্পাদনা]

২০০৮ সালের ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে চারদলীয় ঐক্যজোট বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়। মহাজোটের প্রায় ২৬০ টি আসনের বিপরীতে চার দলীয় ঐক্যজোট মাত্র ৩২টি আসন লাভ করে।

গ্রেফতার[সম্পাদনা]

১৯৮২ সালের ৩ জানুয়ারি বিএনপির প্রাথমিক সদস্য হিসেবে দলে যোগ দেবার পর থেকে মোট চার বার তিনি গ্রেফতার হন। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯৮৩ সালের ২৮ নভেম্বর, ১৯৮৪ সালের ৩ মে, ১৯৮৭ সালের ১১ নভেম্বর গ্রেফতার হন। [১৭]

সর্বশেষ তিনি ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বর ৩ তারিখে দূর্নীতির অভিযোগে পুত্রসহ গ্রেফতার হন।[১৮]২০০৮ সালের ১১ই সেপ্টেম্বার তিনি হাইকোর্টের নির্দেশে মুক্তিলাভ করেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক গ্রেপ্তার হবার পর দীর্ঘ এক বছর সাত দিন কারাগারে অবস্থানকালে তাঁর বিরুদ্ধে চলতে থাকা কোন মামলারই উল্লেখযোগ্য কোন অগ্রগতি হয়নি এবং চলতে থাকা তদন্তে তাঁর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগই প্রমাণিত হয়নি। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২ কোটি ১০ লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে তার ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড হয়।[১৯] এরপরই তাকে গ্রেফতার করে পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগার কাশিমপুরে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেনানিবাসের বাসা ত্যাগ[সম্পাদনা]

১৩ নভেম্বর ২০১০ বেগম জিয়া তার ২৮ বছরের আবাসস্থল ছেড়ে যান। তিনি অভিযোগ করেন তাকে বলপ্রয়োগে বাসা থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। তবে সরকারি পক্ষ থেকে বলা হয়েছে তিনি স্বেচ্ছায় বাসা ত্যাগ করেছেন।[২০] স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সাল থেকে অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল হিসেবে জিয়াউর রহমানের সাথে শহীদ মইনুল সড়কের ৬ নম্বর বাড়িতে ওঠেন খালেদা জিয়া। ১৯৮১ সালের ৩০ মে রাষ্ট্রপতি জিয়া চট্টগ্রামে এক ব্যর্থ সেনা অভ্যূত্থানে নিহত হলে ১২ জুন তৎকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি আবদুস সাত্তার সেনানিবাসের ওই বাড়িটি খালেদার নামে বরাদ্দ দেন।[২০]

বিদেশ সফর[সম্পাদনা]

২০১২ সালে বেগম খালেদা জিয়া একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিদেশ সফর করেন। আগস্টে তিনি রাজ পরিবারের আমন্ত্রণে সৌদি আরবে যান এবং পবিত্র ওমরাহ পালন করেন।[২১] এই সফরে তিনি সৌদি রাজপুত্রপ্রতিরক্ষা মন্ত্রী সালমান আব্দুল আজিজ আল সৌদের সাথে সাক্ষাত করেন। তাদের বৈঠকে দ্বিদেশীয় সম্পর্ক ও সৌদি আরবে বাংলাদেশের শ্রম বাজারের সংকট উত্তরণের বিষয়ে আলোচনা হয়।[২১]

অক্টোবরে খালেদা জিয়া চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে গণপ্রজাতন্ত্রী চীন সফর করেন। সফরকালে তিনি চীনের রাষ্ট্রীয় ও দলীয় উর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দের সাথে দেখা করেন। চীনের উপ-রাষ্ট্রপতি ও ভবিষ্যত একচ্ছত্র নেতা শি জিনপিঙ্গের সাথে বৈঠকে তিনি বাংলাদেশে চীনের বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও পদ্মা সেতু নির্মাণে বিনিয়োগের ব্যাপারে আলোচনা করেন।[২২][২৩] বৃহত্তর অঞ্চলের ভূরাজনৈতিক বিষয়াবলীও তাদের আলোচনায় উঠে আসে। জিনপিং ছাড়াও খালেদা জিয়া কমিউনিস্ট পার্টির আন্তর্জাতিক বিষয়ক প্রধান ওয়াং জিয়ারুইয়ের সাথে দেখা করেন। উল্লেখ্য এ বছরের মাঝামাঝিতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের সম্ভাব্য মূল অর্থদাতা বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশ সরকারের ঊর্ধ্বতন ব্যাক্তিবর্গের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনলে বিশ্ব ব্যাংককে অনুসরণ করে একাধিক দাতা সংস্থা ঋণ দান থেকে সরে দাঁড়ায় ও প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যায়।[২২][২৪]

বেগম জিয়ার চীন সফর সম্পন্ন হওয়ার একদিন পর তার রাজনৈতিক দল বিএনপি ঘোষণা দেয় যে চীনা নেতৃবৃন্দ দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণের ক্ষেত্রে চীন সরকারের বিনিয়োগের বিষয়ে খালেদা জিয়াকে নিশ্চিত করেছেন।[২৫][২৬]

একই মাসে খালেদা জিয়া ভারত সরকারের আমন্ত্রণে ভারত সফরে যান। সফরের শুরুতে তিনি ভারতের কেন্দ্রীয় বিরোধী দলীয় প্রধানবিজেপি নেত্রী সুষমা স্বরাজের সাথে বৈঠক করেন।[২৭] সফরকালে তার প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়, পররাষ্ট্র মন্ত্রী সালমান খুরশিদ, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশংকর মেননপররাষ্ট্র সচিব রঞ্জন মাথাইয়ের সাথে সাক্ষাতের কথা রয়েছে। খালেদা জিয়ার ভারত সফরের আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে দ্বিদেশীয় সম্পর্ক, সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশি নাগরিক হত্যা, তিস্তা পানি চুক্তি এবং বৃহত্তর অঞ্চলের ভূরাজনীতি ও নিরাপত্তা।[২৮]

পদক ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের ২৪ শে মে নিউ জার্সি স্টেট সিনেটে তাকে ’ফাইটার ফর ডেমোক্রেসি’ পদক প্রদান করে। যুক্তরাষ্ট্রের ষ্টেট সিনেট কর্তৃক কোন বিদেশীকে এ ধরনের সম্মান প্রদানের ঘটনা এটাই ছিল প্রথম।[২৯][৩০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Zia, Begum Khaleda"। Banglapedia। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৫ 
  2. Chronological List of Woman Premier Ministers
  3. "বিশ্বের অদম্য ১০ মুসলিম নারী"। চাঁদপুর নিউজ। জুন ২৭, ২০১৫। 
  4. "#14: Begum Khaleda Zia, Prime Minister of Bangladesh"Forbes 100 Most Powerful Women in the World। ২০০৪। ১৪ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  5. "#29 Khaleda Zia, Prime minister, Bangladesh"The 100 Most Powerful Women। Forbes.com। ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  6. "#33 Khaleda Zia, Prime Minister, Bangladesh"The 100 Most Powerful Women। ৩১ আগস্ট ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  7. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; jazeera নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  8. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; corruption নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; detained নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. Skard, Torild (২০১৪)। "Khaleda Zia"। Women of Power - Half a century of female presidents and prime ministers worldwide। Bristol: Policy Press। আইএসবিএন 978-1-44731-578-0 
  11. "Clashes as Bangladesh ex-PM jailed"BBC News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-১৪ 
  12. Nikhat Ekbal (২০০৯), Great Muslims of undivided India, Kalpaz Publication, Delhi 
  13. "Bogra: Khaleda Zia"bogra.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  14. "Bogra: Khaleda Zia"bogra.org। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  15. http://www.kalerkantho.com/online/national/2015/01/24/179353
  16. Super User। "Bangladesh National Party - BNP - Begum Khaleda Zia"bnpbangladesh.com। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  17. দৈনিক নয়াদিগন্ত, ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৭ (বিশেষ টেলিগ্রাম)
  18. Bangladesh ex-PM Khaleda arrested on graft charge | Reuters
  19. "খালেদা জিয়ার কারাদন্ড" 
  20. "সেনানিবাস আর খালেদার আবাস নয়"। ১৫ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১০  অজানা প্যারামিটার |1= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য); অজানা প্যারামিটার |2= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  21. Khaleda going to Saudi Arabia, BDnews24, ৭ আগস্ট ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  22. CPC, Bangladesh Nationalist Party to further cooperation, Xinhua, ২০১২-১০-১৮, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  23. Khaleda seeks China's help, The Daily Star, ২১ অক্টোবর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  24. Stalled Padma Bridge Project, Daily Sun, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  25. Chinese help for 2nd Padma bridge assured: BNP, The New Nation, ২৩ অক্টোবর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  26. China ready to help build 2nd Padma bridge: BNP, News Today, ২৩ অক্টোবর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  27. ভারতে বিরোধী নেত্রীর সাথে খালেদা জিয়ার বৈঠক, বিবিসি বাংলা, ২৮ অক্টোবর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  28. Khaleda Zia arrives in the capital, meets Sushma, Deccan Herald, ২৮ অক্টোবর ২০১২, সংগ্রহের তারিখ ২০১২-১০-২৯ 
  29. "New Jersey Senate honours Khaleda"The Daily Star। ২৫ মে ২০১১। 
  30. "BNP goes gaga over US honour"। ২৭ মে ২০১১। পৃষ্ঠা 1। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 


পূর্বসূরী:
বিচারপতি লতিফুর রহমান
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী
(প্রথম বার) মার্চ ২০, ১৯৯১ - ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৬
(দ্বিতীয় বার)মার্চ, ১৯৯৬ - এপ্রিল ৩, ১৯৯৬
(তৃতীয় বার)অক্টোবর ১০, ২০০১ - অক্টোবর ২৯, ২০০৬
উত্তরসূরী:
ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ