বাংলাদেশের শিল্পকলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বাংলাদেশী শিল্প হচ্ছে বর্তমান বাংলাদেশে চর্চা হওয়া দৃশ্যকলার একটি রূপ। বাংলাদেশী শিল্পের একটি বহুবর্ষজীবী ইতিহাস রয়েছে যা দুই হাজার বছরেরও বহু পূর্বে উদ্ভূত হয়ে বর্তমান পর্যন্ত চর্চা করা হচ্ছে। সনাতন হিন্দু সভ্যতা থেকেই এর যাত্রা শুরু। মাঝে অনেক নতুন সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের সাথে মিলিত হবার সুযোগ পায়, যার মধ্যে রয়েছে বৌদ্ধ, জৈন এবং ইসলাম। বাংলাদেশী শিল্পের বিভিন্ন রূপের মধ্যে ফটোগ্রাফি, স্থাপত্য, ভাস্কর্য এবং চিত্রকলা সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

উয়ারী-বটেশ্বরের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের সাম্প্রতিক খনন থেকে বোঝা যায় যে বাংলাদেশী শিল্পের ইতিহাস ৪৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের।[১] এই বিষয়ে আরও গবেষণা করা হচ্ছে কারণ এই খননগুলি বাংলাদেশে প্রাথমিক নগর সভ্যতার অস্তিত্ব সম্পর্কে পূর্বের ধারণার সাথে সাংঘর্ষিক। বাংলাদেশের শিল্পকলার আদি বিকাশের সঠিক প্রমাণ মৌর্য যুগকে নির্দেশ করে। বাংলাদেশে বেশ কিছু ভাস্কর্য আবিষ্কৃত হয়েছে যা মৌর্য শিল্পের সমৃদ্ধ ঐতিহ্যকে প্রতিফলিত করে।

৭৫০ থেকে ১১৭৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত পাল শাসনামলে বাংলাদেশী শিল্পের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিকাশ ঘটেছিল। পালরা বাংলাদেশে বৌদ্ধ শিল্পের একটি স্বতন্ত্র রূপ তৈরি করেছিল যা চীনা, জাপানি, পূর্ব এশিয়ান এমনকি তিব্বতি শিল্পকেও প্রভাবিত করেছিল।[২] একাদশ ও দ্বাদশ শতাব্দীতে সেন শাসনামলে বাংলাদেশী শিল্পের এই অগ্রগতি কিছুটা অব্যাহত ছিল।

১১ শতক থেকে বাংলায় মুসলমানদের আগমন শুরু হলে বাংলাদেশী শিল্প ইসলামী শিল্পের প্রভাব প্রত্যক্ষ করেছে। এই প্রভাব শুরু হয়েছিল বাংলার সালতানাত প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে যা বর্তমান বাংলাদেশের অধিকাংশ এলাকা জুড়ে ছিল। মূলত, বাংলাদেশে ইসলামী শিল্পকলার বেশিরভাগই বিকাশ লাভ করে মুঘল শাসনামলে। মুসলিম রাজবংশগুলি প্রধানত স্থাপত্য নির্মানের ক্ষেত্রে অবদান রেখেছিল। সারা বাংলাদেশে অবস্থিত অসংখ্য মসজিদ, মাজার ও মাজারে ইসলামী স্থাপত্যের ব্যাপক প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

ব্রিটিশ শাসনের মাধ্যমে বাংলাদেশের শিল্পকলায় বিবর্তনের একটি নতুন তরঙ্গের সূচনা হয়। ব্রিটিশরা বাংলাদেশের দৃশ্যশিল্পের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে তাদের প্রভাব ফেলেছে। আধুনিক শিল্পকলার প্রবর্তনের মাধ্যমে বাংলাদেশী শিল্পকে শক্তিশালী করা হয়েছে। এই সময়টি মহান শিল্পী জয়নুল আবেদীন সহ বাংলাদেশের অনেক বিখ্যাত শিল্পীর জন্ম দিয়েছে।

ফটোগ্রাফি[সম্পাদনা]

ফটোগ্রাফি হল সমসাময়িক শিল্পের ফর্ম যেখানে বাংলাদেশ সত্যিই তার চিহ্ন তৈরি করেছে। গোলাম কাসেম ড্যাডি, মনজুর আলম বেগ, নওয়াজেশ আহমেদ এবং নাইবুদ্দিন আহমেদের মতো অগ্রগামীরা প্রথম কাজটি করেছিলেন। সাঈদা খানম প্রথম নারী ফটোগ্রাফারদের একজন। আনোয়ার হোসেন ১৯৭০ এর দশকের শেষদিকে শক্তিশালী মানবতাবাদী কাজের মাধ্যমে একটি পরিবর্তন আনেন। ডকুমেন্টারি ফটোগ্রাফি অনুশীলনের পথপ্রদর্শক শহিদুল আলম, যিনি দৃক পিকচার লাইব্রেরি, পাঠশালা, সাউথ এশিয়ান মিডিয়া ইনস্টিটিউট স্থাপন করতে গিয়েছিলেন; এখন বিশ্বের অন্যতম সেরা ফটোগ্রাফির স্কুল হিসেবে বিবেচিত, ছবি মেলা ; ফটোগ্রাফির উচ্চ সম্মানিত দ্বিবার্ষিক উৎসব এবং মেজরিটি ওয়ার্ল্ড এজেন্সি। সমসাময়িক ফটো মিডিয়ায় মোহাম্মদ রকিবুল হাসানের বিরাট অবদান রয়েছে।

তাসলিমা আক্তার এবং জান্নাতুল মাওয়া টেকসই ব্যক্তিগত প্রকল্পে কাজ করার সাথে নারী ফটোগ্রাফাররাও পেশা গ্রহণ করেছেন। যদিও বাংলাদেশি ফটোগ্রাফি বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হলেও বাংলাদেশের মধ্যে এটি পর্যাপ্তভাবে স্বীকৃত হয়নি। এটি চারুকলা অনুষদে (চারুকলা ইনস্টিটিউট) বা চারুকলা বিভাগে (শিল্পকলা একাডেমি) পড়ানো হয় না। এশিয়ান আর্ট বিয়েনালের প্রবেশ বিধি ফটোগ্রাফি বা ভিডিও জমা দেওয়ার অনুমতি দেয় না, যদিও আন্তর্জাতিক শিল্পীরা ফটোগ্রাফি জমা দিয়েছেন এবং তাদের জন্য পুরস্কৃত করা হয়েছে।

বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের সাথে যৌথভাবে ইতালীয় প্রকাশক স্কাইরা প্রকাশিত বাংলাদেশী চারুকলার উপর ৪০টি বইয়ের একটি সেটের মধ্যে শহীদুল আলমের বই আমার যাত্রা সাক্ষী হিসেবে প্রথম। কাজী গিয়াসউদ্দিন, সফিউদ্দিন আহমেদ এবং মহান শিল্পী জয়নুল আবেদীনের বই প্রকাশিত হয়েছে।

আহসান মঞ্জিল, ইন্দো-সারাসেনিক স্থাপত্য দ্বারা প্রভাবিত

স্থাপত্য[সম্পাদনা]

প্রাচীন প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানগুলির অবশিষ্টাংশগুলি এই সত্যের যথেষ্ট সাক্ষ্য বহন করে যে বাংলাদেশে স্থাপত্য শিল্পের চর্চা তার ইতিহাসের খুব প্রাথমিক সময় থেকেই ছিল। বাংলাদেশের পাহাড়পুরে পাল শাসক ধর্মপালের সৃষ্টি সোমপুর মহাবিহার ভারতীয় উপমহাদেশের বৃহত্তম বৌদ্ধ বিহার এবং এটিকে "বিশ্বের দৃষ্টিনন্দন" হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।[৩]

নবরত্ন শৈলীতে নির্মিত দিনাজপুরের কান্তজিউ মন্দিরটি শিল্পের শেষ যুগের পোড়ামাটির অলঙ্করণের অন্যতম সেরা উদাহরণ রয়েছে।[৪]

নবরত্ন শৈলীতে নির্মিত দিনাজপুরের কান্তজিউ মন্দিরটি শিল্পের শেষ যুগের পোড়ামাটির অলঙ্করণের অন্যতম সেরা উদাহরণ রয়েছে।[৫]

বাগেরহাটের ষাট গম্বুজ মসজিদটিকে "পুরো ভারতীয় উপমহাদেশের সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক মুসলিম নিদর্শন" হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। [৬] লালবাগ কেল্লাকে মুঘল স্থাপত্যের অন্যতম নিদর্শন হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ইউরোপীয় স্থাপত্যের প্রভাব দেশের বেশ কয়েকটি ঔপনিবেশিক স্মৃতিস্তম্ভ এবং গীর্জাগুলিতেও লক্ষণীয়। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হল আহসান মঞ্জিল, ঢাকার নবাবদের প্রাক্তন বাসভবন, পরে যাদুঘরে পরিণত হয়।

[৭]

আধুনিক প্রেক্ষাপটে, সমসাময়িক স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য, নান্দনিক শৈল্পিক এবং প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত রূপের প্রতিফলন নিয়ে বাংলাদেশের স্থাপত্য আরও বৈচিত্র্যময় হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশের সূচনা থেকে, অর্থনৈতিক অগ্রগতি স্থাপত্যকে তার ঐতিহ্যবাহী রূপ থেকে সমসাময়িক প্রেক্ষাপটে উন্নীত করেছে। ক্রমবর্ধমান নগরায়ণ এবং আধুনিকীকরণের সাথে, স্থাপত্যের রূপটি আধুনিক হয়ে উঠছে তার ঐতিহ্য ও ঐতিহ্যের বিস্তৃত পরিসরকে জুড়ে।[৮]

ভাস্কর্য[সম্পাদনা]

উত্তর বাংলাদেশের গণেশ ভাস্কর্য নৃত্য, ১১ শতকের সিই

ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যান্য অংশের বিপরীতে, বাংলাদেশে ভাস্কর্য শিল্পের সূচনা হয়েছিল পোড়ামাটির ছাঁচের মাধ্যমে পাথরের ত্রাণের অভাব এবং নরম পলিমাটির প্রাচুর্যের কারণে। এর সময়কাল খ্রিস্টপূর্ব ৩য়/২য় শতাব্দীর।

সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশের ভাস্কর্য শিল্পে উত্তর ও মধ্য ভারতের প্রভাব বাড়তে থাকে এবং পাথরের ভাস্কর্যের প্রচলন শুরু হয়। সাধারণ যুগের প্রথম তিন শতাব্দী থেকে, স্থানীয় ভাস্কররা উত্তর ভারতে বসবাসকারী কুষাণ শৈলীতে কালো পাথরের ভাস্কর্য তৈরি করতে শুরু করে। এই ভাস্কর্যগুলি ছিল সেই সময়ের তিনটি প্রধান ধর্ম, যথা: ব্রাহ্মণ্যবাদ, বৌদ্ধ এবং জৈন ধর্ম অনুসারীদের দ্বারা পূজিত দেবদেবীর ছবি।

খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীতে ব্রোঞ্জের ভাস্কর্যগুলি প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে আত্তীকৃত হতে শুরু করে। এই ধরনের প্রাচীনতম ভাস্কর্যগুলি বৌদ্ধ বিশ্বাসের চিত্র ছিল কিন্তু শিল্পটি পরে হিন্দু শিল্পের সাথেও একীভূত হয়।

আধুনিক সময়ে, ভাস্কর্য শিল্পের প্রেক্ষাপট কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা দ্বারা প্রাধান্য পেয়েছে, প্রধানত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধঅপরাজেয় বাংলা, সাবাশ বাংলাদেশ এই ধারার কিছু উল্লেখযোগ্য উদাহরণ।

লোকশিল্প[সম্পাদনা]

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও গ্রামীণ ও আদিম ধ্যানধারণার মানুষরা লোকশিল্পের বিকাশ ঘটিয়েছে। এ কারণে বাংলাদেশের লোকশিল্পের গঠন ও বিকাশ বিশুদ্ধ ও সরল প্রাণশক্তিতে ভরা এবং গ্রামীণ বাংলাদেশী লোকদের আশা, আকাঙ্খা ও সৌন্দর্যবোধের প্রতীকী উপস্থাপনা। পরিবেশ ও কৃষি কার্যক্রম বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী লোকশিল্পকে সমৃদ্ধ করতে ব্যাপকভাবে সাহায্য করেছে। এটি জমি এবং এর জনগণকে প্রতিফলিত করে ঐতিহ্যগত মোটিফ ব্যবহার করে। লোকশিল্পের বিভিন্ন রূপ এই সাধারণ মোটিফগুলির পুনরাবৃত্তি করে। উদাহরণস্বরূপ, পদ্ম, সূর্য, বৃক্ষ-জীবন, ফুলের লতা ইত্যাদি চিত্রকর্ম, সূচিকর্ম, বয়ন, খোদাই এবং খোদাইয়ে দেখা যায়। অন্যান্য সাধারণ মোটিফ হল মাছ, হাতি, ঘোড়া, ময়ূর, বৃত্ত, ঢেউ, মন্দির, মসজিদ ইত্যাদি। এই মোটিফগুলির অনেকগুলি প্রতীকী অর্থ রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, মাছ উর্বরতা, ধানের সমৃদ্ধির শিক, পদ্মের বিশুদ্ধতার প্রতিনিধিত্ব করে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা এই ভূখণ্ডের শিল্প-সংস্কৃতিকে প্রভাবিত করেছে তা হলো ছয় ঋতু।

বাংলাদেশের লোকশিল্পের নান্দনিক মূল্যের পাশাপাশি তাদের কাজের মানের কারণে গ্রামীণ নারীদের দ্বারা ব্যাপকভাবে অবদান রয়েছে। এর পিছনে একটি মূল কারণ ছিল যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তাদের শিল্প অবাণিজ্যিক ছিল, যেখানে পুরুষদের দ্বারা উৎপাদিত লোকশিল্পের সাথে একটি বাণিজ্যিক মূল্য সংযুক্ত রয়েছে। এইভাবে, কামার, কুমোর, মুচি, চিত্রকর, স্বর্ণকার, পিতল-কামার, তাঁতিরা তাদের উৎপাদিত জিনিস থেকে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে, যদিও ঐতিহ্যগতভাবে, অতীতে, আলপনা শিল্পী বা নকশি কাঁথা সুই মহিলারা তাদের বাড়িতে কাজ করত এবং এর জন্য কোনও আর্থিক প্রতিদান পেত না। আল্পনা এবং নকশি কাঁথা উভয়ই বাংলাদেশের লোকশিল্পের সবচেয়ে আকর্ষণীয় রূপ। মৃৎশিল্প এবং করিদন্ত শিল্পের কিছু জনপ্রিয় রূপ।[৯][১০]

আধুনিক শিল্পকলা[সম্পাদনা]

জয়নুল আবেদিনের মুক্তিযুদ্ধ

বাংলাদেশে আধুনিক শিল্পের আন্দোলনের শিকড় বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে। তখন বাংলাদেশে শিল্পকলার কোনো প্রশিক্ষণ বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল না। ১৯ শতকের শেষের দিকে, ব্রিটিশরা কলকাতায় আর্ট স্কুল স্থাপন শুরু করে, তৎকালীন বাংলার প্রাদেশিক রাজধানী যা স্থানীয় শিল্প অনুরাগীদের শিল্পের একটি বিশেষ রূপ অনুসরণ করতে অনুপ্রাণিত করেছিল। বাংলাদেশ বা তৎকালীন পূর্ব বাংলার শিল্পপ্রেমীরাও এর দ্বারা প্ররোচিত হয়েছিল। এই ঘটনাটি বাংলাদেশে শিল্পকলার অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বের জন্ম দিয়েছে যাদের খ্যাতি শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। জয়নুল আবেদীন ছিলেন এ প্রজন্মের শিল্পী। তাকে বাংলাদেশের শিল্প আন্দোলনের পথিকৃৎ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ভারত বিভাগের পর, কলকাতা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের একটি অংশ হয়ে ওঠে এবং বাংলাদেশের বর্তমান ভৌগোলিক এলাকা পাকিস্তানের পূর্ব পাকিস্তান প্রদেশ গঠন করে। তাই স্থানীয় শিল্পীরা বাংলাদেশে একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের তীব্র প্রয়োজন অনুভব করেন। ১৯৪৮ সালে, জয়নুল আবেদিন, কামরুল হাসান, সাফিউদ্দিন আহমেদ, আনোয়ারুল হক, খাজা শফিকের মতো অন্যান্য নেতৃস্থানীয় স্থানীয় শিল্পীদের সাথে বাংলাদেশের শিল্প ঐতিহ্যকে বিকশিত করার জন্য সরকারি শিল্প ও কারুকলা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেন।

আর্ট ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশের শিল্পীরা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পেশাদারিত্ব অর্জন করতে শুরু করে এবং এর সাথে বাণিজ্যিক মূল্যও যুক্ত করতে শুরু করে। এটি তাদের শ্রোতাদের কাছে তাদের কাজ প্রদর্শনের জন্য শিল্প প্রদর্শনীর আয়োজন করতে প্ররোচিত করেছিল। ১৯৬০ এর দশকের মধ্যে শিল্পীরা বিশ্বের অন্যান্য অংশের শিল্প ঐতিহ্যের সাথে যুক্ত হতে শুরু করে যা তাদের সেই দেশগুলিতে সমসাময়িক শিল্প সম্পর্কে একটি সুন্দর স্পষ্ট ধারণা অর্জন করেছিল। অনেক শিল্পী প্রশিক্ষণের জন্য ইউরোপ এবং জাপানে গিয়েছিলেন এবং নতুন ধারণা এবং সর্বশেষ কৌশল নিয়ে ফিরে এসেছিলেন, তবে তারাও দেশীয় শিল্পের ঐতিহ্যে নিমজ্জিত ছিলেন।[১১]

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ১৯৭৪ সালে স্থাপিত হয় যা পরবর্তীতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উভয় শিল্পীকে সম্পৃক্ত করে নিয়মিত শিল্প প্রদর্শনী ও উৎসব আয়োজন করতে শুরু করে। এই সময়ের মধ্যে, বাংলাদেশী শিল্পও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এবং প্রশংসা পেতে শুরু করে।[১২]

সমসাময়িক শিল্প[সম্পাদনা]

বাংলাদেশেও বেশ কিছু শিল্প আন্দোলনের উদ্ভব হয়েছিল, শিল্পীরা আন্তর্জাতিকভাবে প্রদর্শন করেছিলেন এবং বাংলাদেশের সমসাময়িক শিল্প দৃশ্যে শিল্পীদের কয়েকটি দল গঠিত হয়েছিল। সমসাময়িক সৃষ্টির সাথে জড়িত থাকার জন্য কয়েকটি প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বেশ কয়েকজন শিল্পী দেশ ছেড়ে ইউরোপ, আমেরিকা ও জাপানে আন্তঃবিভাগীয় মিডিয়াতে অনুশীলন করেছেন। বাংলাদেশি জন্মগ্রহণকারী তৈয়বা বেগম লিপি, রুনা ইসলাম, হাসান এম এলাহী, নাঈম মোহাইমেন, ফিরোজ মাহমুদ, রানা বেগম এবং মোহাম্মদ রকিবুল হাসান ভিডিও, ইনস্টলেশন, ফটোগ্রাফি, পাঠ্য, শব্দ, চিত্রকলা এবং শিল্পের অন্যান্য নতুন মিডিয়া সহ বিভিন্ন মিডিয়াতে অনুশীলন করেছেন এবং প্রদর্শনীতে স্বীকৃতি পেয়েছেন। আন্তর্জাতিকভাবে ব্রিটো আর্টস ট্রাস্ট হল প্রথম অলাভজনক শিল্পী পরিচালিত শিল্প সংস্থা যারা সমসাময়িক মিডিয়াতে বেশ কয়েকটি শিল্প অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। ১৯৯০ এর দশকে শিল্পের স্থান এবং শিল্প বিক্রয় বৃদ্ধির মাধ্যমে শিল্পী এবং তাদের শ্রোতাদের মধ্যে বৃহত্তর সংযোগ দেখা যায়।[১৩] সামদানী আর্ট ফাউন্ডেশন ২০১০ এর দশকের গোড়ার দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং ঢাকা আর্ট সামিটের মতো ইভেন্টগুলির মাধ্যমে সমসাময়িক শিল্প ও সংস্কৃতির দৃশ্যপটকে ব্যাপকভাবে পরিবর্তন করেছে যেখানে দক্ষিণ এশিয়ার "শিল্প ও স্থাপত্যের জন্য আন্তর্জাতিক, অ-বাণিজ্যিক গবেষণা এবং প্রদর্শনী প্ল্যাটফর্ম" [১৪] আয়োজন করা হয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. MM Hoque and SS Mostafizur Rahman, Wari-Bateshwar, Banglapedia: The National Encyclopedia of Bangladesh, Asiatic Society of Bangladesh, Dhaka, Retrieved: 11 January 2013
  2. French, JC (১৯২৮)। The art of the Pal empire of Bengal। Oxford University Press। 
  3. French, JC (১৯২৮)। The art of the Pal empire of Bengal। Oxford University Press। 
  4. Journey plus – Dinajpur ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ আগস্ট ২০০৯ তারিখে.
  5. Journey plus – Dinajpur ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৩ আগস্ট ২০০৯ তারিখে.
  6. Shatgumbad Mosque, Banglapedia, accessed 12 January 2013
  7. "Ahsan Manzil"Banglapedia। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  8. "Appealing Architecture – From Ancient Treasures to Contemporary Landmarks"। Bangladesh.com। ৮ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  9. "Folk art of Bangladesh:In the eye of an American"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  10. "Ivory arts"Banglapedia। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  11. "Modern Art"Banglapedia। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  12. "Inauguration of the Pavilion of Bangladesh on 3rd June at Venice"। venicebiennale। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৩ 
  13. Archive, Asia Art। "Bangladeshi Art in the 1990s"aaa.org.hk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  14. "Overview"Dhaka Art Summit (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]