শহিদুল আলম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ড. শহিদুল আলম
Shahidul Alam May 2009 Malaysia.jpg
জন্ম১৯৫৫
বাসস্থানঢাকা
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
যেখানের শিক্ষার্থীলন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাআলোকচিত্রশিল্পী, শিক্ষক
পরিচিতির কারণআলোকচিত্রশিল্পী, সাংবাদিক ও সমাজকর্মী, দৃক গ্যালারি, পাঠশালা
অফিসদৃক গ্যালারি
পুরস্কারহিউম্যানিটারিয়ান অ্যাওয়ার্ড, ২০১৮

শিল্পকলা পদক, ২০১৪

লুসি অ্যাওয়ার্ড

ড. শহিদুল আলম (জন্মঃ ১৯৫৫) একজন বাংলাদেশী আলোকচিত্রশিল্পী, সাংবাদিক ও সমাজকর্মী। তিনি দৃক ফটো গ্যালারির প্রতিষ্ঠাতা।[১] তিনি ২০১৮ সালে টাইম ম্যাগজিনের টাইম বর্ষসেরা ব্যক্তিত্ব ২০১৮ হিসেবে নির্বাচিত হন। [২]

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

শহিদুল আলমের জন্ম ঢাকায় ১৯৫৫ সালে। তার বাবার নাম কাজী আবুল মনসুর এবং মায়ের নাম কাজী আনোয়ারা মনসুর। তিনি রসায়ন নিয়ে লেখাপড়া করলে পরে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জৈব রসায়নে পিএইচডি করেন।[৩]

২০১৭ সালে শহিদুল আলম

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৮৯ সালে দৃক ফটো গ্যালারি প্রতিষ্ঠা করেন শহিদুল আলম। ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠা করেন দক্ষিণ এশিয়ার ফটোগ্রাফি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পাঠশালা। তিনি ছবি মেলারও পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।[৪] তিনি নেদার‌ল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওয়ার্ডপ্রেস ফটো প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রথম এশীয় হিসাবে তিনি এ সম্মান অর্জন করেন।[৫]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

  • হিউম্যানিটারিয়ান অ্যাওয়ার্ড, ২০১৮[৬]
  • শিল্পকলা পদক পুরস্কার - ফটোগ্রাফি, ২০১৪[৭][৮][৯]
  • ১৯৮৩: হার্ভে হ্যারিস ট্রফি[১০]
  • ১৯৯৩: মাদার জোন্স পদক[১০]
  • ১৯৯৮: আন্দ্রে ফ্রাঙ্ক ফাউন্ডেশন ও হাওয়ার্ড চ্যাপনিক অ্যাওয়ার্ডস[১০]
  • ২০১৭: চীনের ডালি ইন্টারন্যাশনাল চিত্রপ্রদর্শনীতে আজীবন সম্মাননা[১০]
  • ২০১৮: লুসি ফাউন্ডেশন প্রদত্ত হিউম্যানিটেরিয়ান অ্যাওয়ার্ড[১০]
  • ২০১৯ঃ স্পেশাল প্রেজেন্টেশন অ্যাওয়ার্ড ২০১৯, ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার অফ ফটোগ্রাফি[১১][১২]

কাজ[সম্পাদনা]

  • ১৯৮৯: দৃক ফটো গ্যালারি প্রতিষ্ঠা
  • ১৯৯৮: আলোকচিত্রের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ‘পাঠশালা’ প্রতিষ্ঠা
  • ২০০০: ‘ছবিমেলা’ নামে আন্তর্জাতিক আলোকচিত্র চিত্রপ্রদর্শনীর সূচনা

গোয়েন্দা পুলিশ কর্তৃক আটক[সম্পাদনা]

৫ আগস্ট ২০১৮ তারিখে তিনি আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরার সংবাদে লাইভে ২০১৮-র নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন সম্পর্কে বাংলাদেশ হতে সংবাদ উপস্থাপকের সঙ্গে অনলাইনে ভিডিও কলে কথা বলেন। একই দিন রাত সাড়ে ১০টার সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ধানমন্ডির বাসা থেকে গাড়িতে করে শহিদুল আলমকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।[১৩][১৪] পরিবার ও বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম কর্তৃক অপহরণের অভিযোগ আনার প্রেক্ষিতে পরের দিন গোয়েন্দা পুলিশ স্বীকার করে যে জিজ্ঞাবাদের জন্য তাকে আটক করা হয়েছে[১৫] এবং পরবর্তীতে তাকে তথ্য প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।[১৬][১৭] ৬ আগষ্ট ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন এবং তার সাতদিনের রিমাণ্ড মঞ্জুর করেন। রিমাণ্ড শেষে ১২ আগস্ট তাকে পুনরায় কারাগারে প্রেরণ করা হয়।[১৮]

১৪ আগস্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে জামিন আবেদন করা হলে ১১ সেপ্টেম্বর শুনানির জন্য দিন ধার্য রাখেন। এর পর ১৯ আগস্ট শুনানির তারিখ এগোনোর জন্য আবেদন করা হলে তা গ্রহণ করেননি আদালত। এ অবস্থায় ২৬ আগস্ট শহিদুল আলমের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন চাইলে ওই আদালত শুনানির জন্য তা গ্রহণ করেননি। এ অবস্থায় ২৮ আগষ্ট মঙ্গলবার হাইকোর্টে তার জামিন চেয়ে আবেদন করা হয়। [১৯] ৩ সেপ্টেম্বর আপীলের রায়ের শুনানী ৪ সেপ্টেম্বর করা হবে বলে জানানো হয়। [২০][২১] ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তে জামিনের শুনানীতে উচ্চ আদালতের দুইজন বিচারপতিত একজন বিব্রত বোধ করায় সেই জামিন আবেদনের শুনানী হয় নি।[২২] প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা না দেওয়ার জন্য দুইবার আবেদন করার পর, তা উচ্চ আদালত খারিজ করে, তাকে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা দেওয়ার আদেশ উচ্চ আদালত বহাল রাখে।[২৩] ওই মামলায় ১১ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ শহিদুল আলমের জামিন নাকচ করেন। পরে গত ১৭ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন তিনি। মামলায় শহিদুল আলমের জামিন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৭ অক্টোবর বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল দেন। কেন তাকে জামিন দেওয়া হবে না রুলে তা জানতে চাওয়া হয়। এই রুলের ওপর ১৪ নভেম্বর ২০১৮ শুনানি হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া।[২৪] ১৫ নভেম্বর ২০১৮ তারিখে বহুল বিতর্কিত তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে করা মামলায় বাংলাদেশ হাইকোর্ট তার জামিন প্রশ্নে রুল যথাযথ ঘোষণা করে রায় দেন এবং শহিদুল আলম কারাগার থেকে ছাড়া পান।[২৫] বিবিসি বাংলাকে শহিদুলের আইনজীবি জানান, "মি: আলমের বিপক্ষে পুলিশ যে এফআইআর দাখিল করেছে সেটির সাথে আল-জাজিরাতে তাঁর দেয়া সাক্ষাৎকারের কোন মিল নেই" এই বিষয়টিকে বিবেচনা করে হাইকোর্টে জামিন দেওয়া হয়।[২৬]

দ্য ববস পুরস্কার বিজয়ীদের সাথে শহিদুল আলম)

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

শহিদুল আলমকে গ্রেফতারের পরে বিশ্বজুড়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়। গ্রেফতারের পরপরই নিঃশর্তে শহিদুলের মুক্তির দাবীতে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, আইন ও সালিশ কেন্দ্র, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, রিপোর্টার্স উইথআউট বর্ডার্সের মত দেশী বিদেশী ২৪টি সংস্থা বিবৃতি দেয়।[২৭] ব্রিটিশ আইনপ্রণেতা টিউলিপ সিদ্দিকী,[২৮] বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিতা লেখিকা তসলিমা নাসরিন,[২৯] নোবেল বিজয়ী ভারতীয় অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন,[৩০]ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ সম্মাননা পাওয়া আলোকচ্চিত্রী রঘু রাই,[৩১] ব্রিটিশ টিভি তারকা কনি হক [৩২] তার মুক্তি চান ও শহিদুলকে সমর্থন করেন। শহিদুল আলমের মুক্তির দাবী সংবলিত এক বিবৃতিতে ১১ জন নোবেল বিজয়ী ও ১৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক সই করেন।[৩৩] নোবেল বিজয়ী ব্যক্তিরা ছিলেন আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটু, তাওয়াক্কল কারমান, মাইরিয়াড ম্যাগুইরে, বেটি উইলিয়ামস, অস্কার এরিয়াস, রিচার্ড যে. রবার্টস, হোসে রামোস-হর্তা, জোডি উইলিয়ামস, শিরিন এবাদি, মোহাম্মদ ইউনূস, লেহমাহ বয়ইনোয়াম চমস্কি, অরুন্ধতী রায় সহ পাচঁজন বিশ্ববরেণ্য লেখক তার মুক্তির দাবী করেন।[৩৪] যুক্তরাজ্যের সৃজনশীল অঙ্গনের ৪৯ জন শিল্পবোদ্ধা তার মুক্তির দাবি করেন। তারা একই সঙ্গে ন্যায়বিচার ও তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বিষয়ে স্বচ্ছতার দাবি জানিয়েছেন। শহিদুল আলমের ভাগনি যুক্তরাজ্যে বসবাসরত স্থপতি সোফিয়া করিম চিঠিতে শহিদুল আলমের অধিকার ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধার আহ্বান জানিয়ে তার মুক্তির দাবী করেন। চিঠিতে স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে আছেন লেখক চার্লি ব্রুকার, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নৃত্যশিল্পী ও কোরিওগ্রাফার আকরাম খান সহ প্রখ্যাত বিভিন্ন শিল্পবোদ্ধারা।[৩৫] বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত যুক্তরাজ্যের দুইজন এমপি রুশনারা আলিরূপা হক ও শহিদুল প্রসঙ্গে মত প্রকাশের স্বাধীনতা সমুন্নত রাখার আহ্বান করেন।[৩৬] কারারুদ্ধ হওয়ার ১০০ তম দিনে অরুন্ধতী রায় শহিদুলের উদ্দেশ্যে খোলা চিঠিতে লিখেন, যারা তাকে গ্রেফতার করেছে, তারা শহিদুলের কাজের ক্ষেত্র সম্বন্ধে অজ্ঞাত এবং তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, উভয়েরই ঢাকায় খুব দ্রুত দেখা হবে।[৩৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Safi, Michael (২০১৮-০৮-০৬)। "Photographer charged as police crackdown in Bangladesh intensifies"the Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৯ 
  2. Meixler, Eli (২০১৮-১২-১২)। "Journalism Is Under Threat.' Inside a Bangladeshi Journalist's Dangerous Journey From Photographer to Prisoner"the TIME (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  3. Karim, Elita (২০০৮-০২-০৮)। "Changing the Face of Photography"। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১৫ 
  4. "Chobi-Mela."। United News of Bangladesh (December, 2004)। ৬ ডিসেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৬-০৭ 
  5. Fariha Karim (এপ্রিল ২০০৯), Shahidul Alam, Nafas Art Magazine, সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০১৫ 
  6. "The Lucie Awards | Shahidul Alam"www.lucies.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৯ 
  7. "Shilpakala Padak 2014 conferred"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০২-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৯ 
  8. "Drik, Pathshala founder Shahidul Alam wins Lucie Award"Dhaka Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৬-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৯ 
  9. Sun, The Daily। "Shahidul Alam selected for int'l photography award | daily sun"Daily Sun (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৯ 
  10. "কে এই শহীদুল আলম"www.m.mzamin.com। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৮ 
  11. "Shahidul Alam wins ICP photography award"The dhaka tribune। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০৯ 
  12. "2019 Infinity Award: Special Presentation—Shahidul Alam"icp.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০৯ 
  13. "Mzamin Mobile - ফটোগ্রাফার শহিদুল আলমকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে"www.m.mzamin.com 
  14. "Photographer Shahidul Alam picked up from his home"। ৫ আগস্ট ২০১৮। 
  15. জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক (২০১৮-০৮-০৬)। "শহিদুলকে 'জিজ্ঞাসাবাদ করছে' ডিবি"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ঢাকা: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৬ 
  16. "আলোকচিত্রী শহিদুল আলম ৭ দিনের রিমান্ডে - আদালত - The Daily Ittefaq" 
  17. "শহিদুল আলম সাত দিনের রিমান্ডে"চ্যানেল আই 
  18. "আলোকচিত্রী শহিদুল আলম কারাগারে"প্রথম আলো। মতিউর রহমান। ১২ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৮ 
  19. "আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  20. "শহিদুল আলমের জামিন আবেদনের শুনানি মঙ্গলবার"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  21. "শহিদুলের জামিন আবেদন কাল নিম্ন আদালতে নিষ্পত্তির আদেশ"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  22. "শহিদুল আলমের জামিন শুনানিতে বিব্রত হাইকোর্ট বেঞ্চ"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  23. "শহিদুলকে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা দিতে হাইকোর্টের আদেশ বহাল"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  24. "শহিদুল আলমের জামিন আবেদনের শুনানি বৃহস্পতিবার"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  25. "শহিদুল আলম জামিন পেলেন, মুক্তিতে বাধা নেই"প্রথম আলো। ১৫ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৮ 
  26. "'এতগুলি মানুষ শুধু আমাকে ভালোবাসে না, স্বাধীনতাকে ভালোবাসে - এটাই আশার জায়গা': ফটোগ্রাফার শহিদুল আলম"BBC News বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৮ 
  27. "শহিদুলের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে দেশি-বিদেশি ২৪ সংগঠনের বিবৃতি"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  28. "শহিদুল আলমকে মুক্তি দিতে টিউলিপের আহ্বান"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  29. "শহিদুল আলম আমাকে লুকিয়ে রেখে প্রাণে বাঁচিয়েছিলেন: তসলিমা নাসরিন"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  30. "শহিদুল আলমের সমর্থনে অমর্ত্য সেনের বিবৃতি"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  31. ঘোষ, শুভজ্যোতি (১৩ আগস্ট ২০১৮)। "কেন বাংলাদেশের শহীদুল আলমের পাশে ভারতের রঘু রাই?"BBC News বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৮ 
  32. "শহিদুল আলমের গ্রেফতারে ক্ষুব্ধ ব্রিটিশ টিভি তারকা কনি হক"BBC News বাংলা (ইংরেজি ভাষায়)। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৮ 
  33. "শহিদুল আলম ও শিক্ষার্থীদের মুক্তি চান ১১ নোবেলজয়ী ও ১৭ বিশিষ্টজন"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  34. "শহিদুল আলমের মুক্তি চান অরুন্ধতীসহ পাঁচ বিশ্ববরেণ্য লেখক"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  35. "শহিদুল আলমের মুক্তি চেয়েছেন যুক্তরাজ্যের অর্ধশত শিল্পবোদ্ধা"প্রথম আলো। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  36. "শহিদুল আলমের মুক্তি দাবি রুশনারা আলি ও রুপা হকের | দ্বিতীয় সংস্করণ | The Daily Ittefaq"। ইত্তেফাক। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৮ 
  37. "শহিদুল আলমের কাছে অরুন্ধতী রায়ের খোলা চিঠি"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]