তালবিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

তালবিয়া (আরবি: ٱلتَّلبِيَة‎‎, at-Talbīyah) হল একটি ইসলামী প্রার্থনা। হজ্জ বা হজ্বের সময় ইহরাম লাগানোর পর থেকে বারবার তালবিয়া পড়া হয়, যাতে হাজীরা পার্থিব উদ্বেগ থেকে নিজেকে শুদ্ধ ও মুক্ত রাখতে পারে।

আরবি জিলহজ্জ মাসের নবম দিন, হজ্জের সময় আরাফাতের ময়দানে হাজীরা অবস্থান করে ও তালবিয়া বা লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক পাঠ করে।

তালবিয়ার পাঠ্য হল:

لَبَّيْكَ ٱللَّٰهُمَّ لَبَّيْكَ، لَبَّيْكَ لَا شَرِيكَ لَكَ لَبَّيْكَ، إِنَّ ٱلْحَمْدَ وَٱلنِّعْمَةَ لَكَ وَٱلْمُلْكَ لَا شَرِيكَ لَكَ

লিপ্যন্তর: লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়ান্‌নিমাতা লাকা ওয়ালমুল্‌ক লা শারি-কা লাক

অধ্বব: [lab.baj.ka‿ɫ.ɫaː.hum.ma lab.baj.ka, lab.baj.ka laː ʃa.riː.ka la.ka lab.baj.ka, ʔin.na‿l.ħam.da wan.niʕ.ma.ta la.ka wal.mul.ka laː ʃa.riː.ka la.ka]

“আমি হাজির হে আল্লাহ! আমি উপস্থিত, আপনার ডাকে সাড়া দিতে আমি হাজির। আপনার কোন অংশীদার নেই। নিঃসন্দেহে সমস্ত প্রশংসা ও সম্পদরাজি আপনার এবং একচ্ছত্র আধিপত্য আপনার। আপনার কোন অংশীদার নেই।”

তালবিয়ার শিয়া সংস্করণটি হুবহু সুন্নির মত একই, তবে সেখানে অতিরিক্ত "লাব্বাইক" দিয়ে তালবিয়া শেষ হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

লাব্বাইক অভিব্যক্তিটির উৎস সম্পর্কে আরবী ভাষার ব্যাকরণবিদদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। সর্বাধিক প্রচলিত ব্যাখ্যাটি এটিকে মৌখিক বিশেষ্য (মাসদার) লাবব (মানে একটি স্থানে থাকা) + (দ্বৈত)+ ইক (দ্বিতীয় পুরুষ একবচন পুংলিঙ্গ প্রত্যয়) হিসাবে বিশ্লেষণ করে। এখানে দ্বৈত বলতে পুনরাবৃত্তিকে নির্দেশ করা হয়েছে। অতএব, লাব্বাইকার আক্ষরিক অর্থ "আমি বারবার আপনার কথা মানব।" তালবিয়াহ হল লাব্বার মৌখিক বিশেষ্য, যার অর্থ এই প্রার্থনাটি পড়া।[১]

হাদীসে তালবিয়া পড়া সম্পর্কে বলা হয়েছে, “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যখনই কোনো মুসলিম (হজ্জ বা উমরাহ'র জন্য) তালবিয়া পাঠ করে, তখন তার ডান ও বাম দিকে পৃথিবী শেষ সীমা পযর্ন্ত যত পাথর, বৃক্ষ ও মাটির চাকা রয়েছে, সব কিছুই তার সাথে তালবিয়া পাঠ করে।”[২][৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রাইট, ডব্লিউ. (আগস্ট ১৮৯৬)। A grammar of the Arabic language। কেমব্রিজ: কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস। পৃষ্ঠা ২:৭৪। 
  2. আত তিরমিযী, সুনান। তালবিয়ার হাদিস। ১। পৃষ্ঠা ১৭০। 
  3. ইবনু মাজাহ, সুনান। তালবিয়ার হাদিস। ১। পৃষ্ঠা ২০৯।