রাঙামাটি জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাঙামাটি জেলা
জেলা
রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু
বাংলাদেশে রাঙামাটি জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৪০′ উত্তর ৯২°১১′ পূর্ব / ২২.৬৬° উত্তর ৯২.১৯° পূর্ব / 22.66; 92.19স্থানাঙ্ক: ২২°৪০′ উত্তর ৯২°১১′ পূর্ব / ২২.৬৬° উত্তর ৯২.১৯° পূর্ব / 22.66; 92.19
দেশ  বাংলাদেশ
বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগ
আয়তন
 • মোট ৬,১১৬.১৩
জনসংখ্যা (2011)
 • মোট ৬,২০,২১৪[১]
স্বাক্ষরতার হার
 • মোট ৩৬.৫%
সময় অঞ্চল বিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইট জেলা প্রশাসনের ওয়েবসাইট

রাঙ্গামাটি জেলা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। বেতবুনিয়া ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র এখানে অবস্থিত।

ভৌগোলিক সীমানা[সম্পাদনা]

রাঙ্গামাটির মোট আয়তন ৬১১৬.৩ বর্গ কি.মি। এ জেলা উত্তরে ভারতের ত্রিপুরা, দক্ষিণে বান্দরবান জেলা পূর্বে ভারতের মিজোরাম প্রদেশ এবং মায়ানমারের চীন প্রদেশ ও পশ্চিমে খাগড়াছড়ি এবং চট্টগ্রাম জেলা দ্বারা পরিবেষ্ঠিত।

প্রধান নদী[সম্পাদনা]

কর্ণফুলি, থেগা, হরিনা, কাসালং, শুভলং, চিঙ্গড়ি, কাপ্তাই।

প্রশাসনিক এলাকাসমূহ[সম্পাদনা]

রাঙ্গামাটি পৌরসভা ৯ টি ওয়ার্ড ও ৩৫ টি মহল্লা নিয়ে গঠিত। শহরের মোট আয়তন ৬৪.৭৫ বর্গ কি.মি। ১৯৮৩ সালে রাঙ্গামাটি একটি পূর্ণাঙ্গ জেলা হিসেবে ঘোষিত হয়। এ জেলায় ১০ টি উপজেলা, ৫০ টি ইউনিয়ন পরিষদ, ১৬২ টি মৌযা ও ১৩৪৭ টি গ্রাম আছে। রাঙামাটি জেলার ১০টি উপজেলা হলো:

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মুসলিম বিজয়ের পূর্বে রাঙামাটি ত্রিপুরা ও আরাকানের রাজাদের যুদ্ধক্ষেত্র ছিল। ১৬৬৬ সালে এই অঞ্চল মুঘলদের দখলে আসে। ১৭৬০-৬১ সালে এটি ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে ইজারা দেওয়া হয়। ১৭৩৭ সালে শের মোস্তা খান নামক একজন গোত্র প্রধান মুঘলদের নিকট এখানে আশ্রয় পান। সেই থেকে চাকমারা ও পরবর্তিতে অন্য আদিবাসীরা এই অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে। অন্য আদিবাসীদের ভিতর বোম, চাক, খুমি, খেয়াং, লুসাই, মো, মুরাং, পাঙ্কু, সান্তাল, মনিপুরিরা প্রধান।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

দুটি সরকারি কলেজ, ১৩ টি বেসরকারি কলেজ, ৬ টি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ৪৫ টি বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ২৯১ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১২০ টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৬১ টি মাদ্রাসা ও ৭ টি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

প্রধান শস্যঃ ধান, পাট, আলু, তুলা, ভুট্টা, সরিষা।

প্রধান ফলঃ আম। কাঁঠাল, কলা, আনারস, লিচু, কালজাম।

শিল্প কারখানাঃ চন্দ্রঘোনা কাগজের কল, রেয়ন কল, প্লাইউড কারখানা, জল-বিদ্যুৎ প্রকল্প, ঘাগড়া বস্ত্র কারখানা।

কুটির শিল্পঃ তাঁত, কামার, কাঠের কাজ, স্বর্ণকার, ঢালাই ইত্যাদি।

প্রধান রপ্তানিঃ কাঁঠাল, আনারস, বনজ পন্য, কাঠ।

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

  1. কাপ্তাই হ্রদ,
  2. রাজা জং বসাক খানের দীঘি ও মসজিদ,
  3. রাজা হরিশ চন্দ্র রায়ের আবাসস্থলের ধবংসাবশেষ, #
  4. ঝুলন্ত সেতু,
  5. বুদ্ধদের প্যাগোডা,
  6. রাজবন বিহার,
  7. শুভলং ঝর্ণা

স্বাস্থ্য কেন্দ্র[সম্পাদনা]

১০ টি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ২৮ টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ৪৮ পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র।

গ্যালারি[সম্পাদনা]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন, ২০১৪)। "এক নজরে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগৃহীত ২৩ জুন, ২০১৪ 

আনুষঙ্গিক নিবন্ধ[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]