ভারতে ধর্মহীনতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ভারতবর্ষে নাস্তিক্যবাদঅজ্ঞাতবাদের দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে যা শ্রমন আন্দোলনের মাধ্যমে বিকাশ লাভ করে। জৈন ধর্ম, বৌদ্ধ ধর্ম এবং হিন্দু ধর্মের মতো বেশিরভাগ ভারতীয় ধর্মের মতবাদে নাস্তিকতাকে গ্রহণযোগ্যতা দেয়া হয়।[১][২] ভারত কয়েকজন উল্লেখযোগ্য নাস্তিক রাজনীতিবিদ ও সমাজ সংস্কারক জন্ম দিয়েছে।[৩] ভারতের ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে, ৯৯.৭৬% ভারতীয় যেকোন একটি ধর্মের অনুসারী হিসেবে চিহ্নিত হয়েছেন, যেখানে ০.২৪% তাদের ধর্মীয় পরিচয় প্রকাশ করেন নি।[৪][৫] ২০১২ সালের উইন-গ্যালাপ গ্লোবাল ইনডেক্স অফ রিলিজিয়ন অ্যান্ড নাস্তিকতার প্রতিবেদনের মতে, ৮১% ভারতীয় ধর্মাবলম্বী, ১৩% ধর্মহীন, ৩% নাস্তিক, এবং ৩% অনিশ্চিত ছিলেন বা কোন প্রতিক্রিয়া দেখায়নি।[৬]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন ভারত[সম্পাদনা]

খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর (প্রাক-বুদ্ধ, প্রাক-মহাবীর) আগে ভারতে বেশ কয়েকটি শ্রমণ আন্দোলন বিদ্যমান ছিল বলে জানা যায়, যা ভারতীয় দর্শনে আস্তিক এবং নাস্তিক উভয় ঐতিহ্যকেই প্রভাবিত করেছিল।[৭][৮] মার্টিন উইল্টশায়ার বলেন যে ভারতবর্ষে প্রত্যেকবুদ্ধ এবং শ্রাবক পর্যায়ের দুটি ধাপে শ্রমণ ঐতিহ্য বিকশিত হয়েছিল যার প্রথমটি ব্যক্তি পর্যায়ে এবং পরবর্তীতে শিষ্যদের আনুগত্য; এবং এভাবে বৌদ্ধজৈন ধর্ম শেষ পর্যন্ত সাম্প্রদায়িক ভিত্তিতে আবির্ভূত হয়েছিল।[৯] উইল্টশায়ার বলেন, তাদের নিজস্ব মতবাদ তৈরি করতে এই ঐতিহ্যগুলি ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠিত ব্রাহ্মণ্যবাদী ধারণাগুলিতে আকৃষ্ট হয়েছিল।[৯]

দার্শনিক মতবাদ[সম্পাদনা]

ভারতীয় দর্শনে, হিন্দু দর্শনের ছয়টি প্রধান গোঁড়া (আস্তিক) মতবাদ রয়েছে- ন্যায়, বৈশিষিক, সাংখ্য, যোগ, মীমাংসা ও বেদান্ত, এবং পাঁচটি বড় প্রচলিত মতের বিরোধী (নাস্তিক) মতবাদ রয়েছে- জৈন, বৌদ্ধ, আজীবিক, অজান এবং চার্বাক দর্শন[১০] চারটি সবচেয়ে প্রচলিত নাস্তিক মতবাদ, যা বেদের মতবাদকে প্রত্যাখ্যান করে সেগুলো হচ্ছে: জৈন ধর্ম, বৌদ্ধধর্ম, চার্বাক এবং আজীবিক[১১]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

ভারত সরকারের আদমশুমারি[সম্পাদনা]

ভারতীয় আদমশুমারি স্পষ্টভাবে নাস্তিকদের গণনা করে না।[৩] ২০১১ সালের ভারতের আদমশুমারিতে, নিবন্ধন ফর্মে উত্তরদাতাকে ধর্মের অধীনে ছয়টি বিকল্পের মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে বলা হয়। "অন্যান্য" বিকল্প অপশনে নাবালক বা উপজাতি ধর্মগুলির পাশাপাশি নাস্তিক এবং অজ্ঞেয়বাদের জন্যও অপশন ছিল।[১২]

বিভিন্ন জরিপ[সম্পাদনা]

বিশ্ব মূল্যবোধ জরিপ (২০০৬)[সম্পাদনা]

২০০৬-এ ডেন্টু কমিউনিকেশন ইনস্টিটিউট ইনক, জাপান গবেষণা কেন্দ্র (২০০৬) দ্বারা পরিচালিত, ওয়ার্ল্ড ভ্যালু সমীক্ষা অনুযায়ী, ৬.৬% ভারতীয় জানিয়েছেন যে তাদের কোনও ধর্ম নেই।[১৩]

বিজ্ঞানীদের ধর্ম প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক জরিপ (২০১৪)[সম্পাদনা]

রাইস ইউনিভার্সিটির ইলাইন হাওয়ার্ড একলুন্ড পরিচালিত সমীক্ষায় দেখা গেছে যে:

ভারত যুক্তরাষ্ট্র
বিজ্ঞানী যারা নিজেদের অধার্মিক হিসাবে চিহ্নিত করেছেন ৬% ৬৫%
বিজ্ঞানী যারা নিয়মিত ধর্মীয় সভায় যোগদান করেন (মাসে একবার বা তারও বেশি) ৩২% ১২%
বিজ্ঞানী যারা কখনও ধর্মীয় সেবায় যোগ দেন না ১৯% ৬৮%
বিজ্ঞানী যারা বিশ্বাস করেন যে অনেক ধর্মের মধ্যে মৌলিক সত্য রয়েছে ৭৩% ৪৯%
বিজ্ঞানী যারা ঈশ্বরে বিশ্বাসী ২৭% ১১%
বিজ্ঞানী যারা কোনো রকম উচ্চতর শক্তিতে বিশ্বাসী ৩৮% ৮%

চলমান সমীক্ষায় যুক্তরাজ্যের ১,৫৮১ জন এবং ভারতের ১,৭৬৩ জন বিজ্ঞানীর উপর জরিপ চালানো হয়।[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Chakravarti, Sitansu (১৯৯১)। Hinduism, a way of life। Motilal Banarsidass Publ.। পৃষ্ঠা 71। আইএসবিএন 978-81-208-0899-7। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৪-০৯ 
  2. Joshi, L.R. (১৯৬৬)। "A New Interpretation of Indian Atheism"। University of Hawai'i Press: 189–206। জেস্টোর 1397540ডিওআই:10.2307/1397540 
  3. Phil Zuckerman (২১ ডিসেম্বর ২০০৯)। "Chapeter 7: Atheism and Secularity in India"Atheism and Secularity। ABC-CLIO। আইএসবিএন 978-0-313-35182-2। সংগ্রহের তারিখ ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  4. "Population by religious community - 2011"2011 Census of India। Office of the Registrar General & Census Commissioner। ২৫ আগস্ট ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০১৫  Percentages are calculated from population figures for individual religions in this word document by dividing them from total population of India.
  5. "All India Religion Census Data 2011"Government of India। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১১ 
  6. "Global Index Of Religion And Atheism" (PDF)। WIN-Gallup। ১৬ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  7. Ray, Reginald A. (১৯৯৪)। Buddhist saints in India : a study in Buddhist values and orientations। New York: Oxford University Press। আইএসবিএন 0195072022ওসিএলসি 24211851 
  8. Nicholson, Andrew J. (ডিসেম্বর ২০১৩)। Unifying Hinduism : philosophy and identity in Indian intellectual history (Paperback সংস্করণ)। New York। আইএসবিএন 9780231149877ওসিএলসি 881368213 
  9. Wiltshire, Martin Gerald. (১৯৯০)। Ascetic figures before and in early Buddhism : the emergence of Gautama as the Buddha। Berlin: Mouton de Gruyter। আইএসবিএন 0899254675ওসিএলসি 22207705 
  10. Masih, Yakub, 1916- (২০০৫)। A Comparative study of religions। New Delhi: Motilal Banarsidass Publishers। আইএসবিএন 9788120808157ওসিএলসি 706614801 
  11. Flood, Gavin D., 1954- (১৯৯৮)। An introduction to Hinduism। Foundation Books) (1st South Asian paperback সংস্করণ)। [Cambridge, UK]: Cambridge University Press। আইএসবিএন 8175960280ওসিএলসি 43575765 
  12. "Indian atheists seek recognition in the land of a million gods"The Times of India। ৩০ জুন ২০১২। ২৪ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  13. "World Values Survey (2006) English source requested" (Japanese ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  14. "Indian scientists significantly more religious than UK scientists"(e)Science News। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৪