ছররা বিমানবন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পুরুলিয়া বিমানবন্দর
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনসেনাবাহিনী/জনসাধারণ
মালিকভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
পরিচালকভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
সেবা দেয়পুরুলিয়া
অবস্থানছররা, পুরুলিয়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
স্থানাঙ্ক২৩°২১′৫৬″ উত্তর ৮৬°২৬′১২″ পূর্ব / ২৩.৩৬৫৫৬° উত্তর ৮৬.৪৩৬৬৭° পূর্ব / 23.36556; 86.43667স্থানাঙ্ক: ২৩°২১′৫৬″ উত্তর ৮৬°২৬′১২″ পূর্ব / ২৩.৩৬৫৫৬° উত্তর ৮৬.৪৩৬৬৭° পূর্ব / 23.36556; 86.43667
মানচিত্র
RDP পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
RDP
RDP
RDP ভারত-এ অবস্থিত
RDP
RDP
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
মি ফুট
১,০০০ ৩,২৮১ অ্যাস্ফাল্ট
১,০০০ ৩,২৮১ অ্যাস্ফাল্ট

ছররা বিমানবন্দর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের পুরুলিয়া জেলায় অবস্থিত। বিমানবন্দরটি সদর শহর পুরুলিয়া থেকে ৮ কিলোমিটার বা ৫ মাইল উত্তর-পশ্চিম দিকে অবস্থান করছে। এটি বর্তমানে পরিত্যক্ত অবস্থার রয়েছে। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই বিমানবন্দর থেকে ছোট বিমান পরিচালনার পরিকল্পনা গ্রহন করেছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, বিমানবন্দরটি যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর অন্তর্গত বিমান বাহিনীর ৪৪৪ তম বোম্বারমেন্ট গ্রুপের ঘাঁটি ছিল। ছররা মূলত বি-২৪ উড়োজাহাজের জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল। ১৯৪৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর অন্তর্গত বিমানবাহিনী বিমানবন্দরটিকে "এক্সএক্স বোমার কমান্ড অব ইন্ডিয়া"র জন্য বি -২৯ সুপারফর্রেস ঘাঁটি হিসাবে পরিকল্পনা করা হয়েছিল। "অ্যাডভান্স আর্মি এয়ার ফোর্সেস কনফারেন্স" বিমানবন্দরের উন্নয়ন করার জন্য ১৯৪৩ সালের ডিসেম্বরে ভারতে আসেন এবং হাজার হাজার ভারতীয়রা শ্রমিক সুপারফোসার্রেস পরিচালনাগুলির জন্য প্রয়োজনীয় সুবিধার উন্নয়ন করার জন্য কাজ করে।

১১ এপ্রিল ১৯৪৪ সালে "৪৪৪ তম গ্র্যান্ড ব্যান্ড এএএফ", ক্যানসাসে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করার পর দক্ষিণ আটলান্টিকের পরিবহণ রুটের ধরে দীর্ঘ মাসের পরে এসে পৌঁছান ছররা বিমানবন্দরে। এই যাত্রা পথটি মরিসন ফিল্ড, ফ্লোরিডা সফর, তারপর দক্ষিণে ক্যারিবীয় দ্বীপ নাটাল, ব্রাজিলের অন্তর্ভুক্ত। ব্রাজিল থেকে দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগর পার হয়ে পশ্চিম আফ্রিকায় আসে এবং মরোক্কোতে মারাকেশে পুনরায় পুনর্নবীকরণ করা হয়েছিল তারপর দলটি মরক্কো থেকে উত্তর ও পশ্চিমে উড়ে আলজেরিয়া ও মিশরে এসেছিল। ছররাতে পৌঁছানোর জন্য, বিমানটি ও কর্মীদের মাসিক যাত্রা শুরু হয়েছিল। দলটির সহযোগী উপাদানের মধ্যে ছিল ৫ ম, ৬ ম, ৭ ম এবং ৮ ম বোম রক্ষণাবেক্ষণ স্কোয়াড্রন; ১২ তম ছবি ল্যাব এবং ২৫ তম এয়ার সার্ভিস গ্রুপ।

আগমনের পর, বিমানের ইঞ্জিনের আগুনের কারণে বি -০৯৯ এর দলগুলি বসে ছিল বিমানক্ষেত্রে। বিমানের ইঞ্জিনগুলি ১১৫ ডিগ্রী ফারেনহাইটের চেয়ে বেশি তাপমাত্রায় কাজ করার জন্য ডিজাইন করা হয়নি, যা ভারতে সাধারণত কাজের জন্য অতিক্রম করা হতো। ফলে বিমানের ইঞ্জিনগুলিকে এবং কপালের ফ্ল্যাপ পরিবর্তন করা হয়। এই পরিবর্তনগুলির পরে, বি-২৯ বিমান পুনরায় চালু করা হয়েছিল।

ভারত থেকে, ৪৪৪ তম বোমারু দল জাপানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে চীনের বিমানঘাঁটি থেকে যাত্রা করার পরিকল্পনা করেছিল। দক্ষিণ-মধ্য চীনের চেন্ডুর দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত কয়ানগান বিমানবন্দরে (এ -৩), দলটির পরবর্তী ঘাঁটি হিসাবে মনোনীত হয়েছিল।

সম্প্রসারণ[সম্পাদনা]

২০০৩–’‌০৪ সালে তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার বিমানবন্দরটি চালু করার ব্যাপারে উদ্যেগী হলেও তেমন কোনও ফল হয়নি। জানা গেছে, ওই জমি কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিরক্ষা দপ্তরের আওতাধীন। বাঘমুন্ডির বিধায়ক নেপাল মাহাতোর উদ্যোগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের থেকে রাজ্য সরকারের কাছে জমি হস্তান্তর করা হয়েছিল। কিন্তু তারপরও কাজ এগোয়নি। ২০০৮–’‌০৯ বর্ষে ফের একবার বিমানবন্দর তৈরির ব্যাপারে নেওয়া হয়েছিল উদ্যোগ। কিন্তু তখনও তেমন ফল হয়নি। পরে ফের ২০১১–’‌১২ সালে বিমানবন্দর তৈরির ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হলেও মেলেনি সফলতা। [১] ২০১৭ সালে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিমানবন্দরটি চালুর কথা ঘোষনা করেন। এর পর বিমানবন্দরটি পরিদর্শন করে সরকারি পতিনিধি দল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "নতুন বিমানবন্দর ঘোষণা মমতার, উৎসাহী পুরুলিয়া"। আজকাল। ২২ ডিসেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৪ এপ্রিল ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]