কলাইকুন্ডা বিমান বাহিনী স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কলাইকুন্ডা বিমান বাহিনী স্টেশন
Roundel of India.svg
MiG-27 from No.18 Squad, Kalaikunda
ভারতীয় বায়ুসেনা মিগ-২৭
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনসেনাবাহিনী
মালিকভারতীয় বায়ুসেনা
পরিচালকভারতীয় বায়ুসেনা
অবস্থানখড়গপুর, ভারত
এএমএসএল উচ্চতা২০০ ফুট / ৬১ মিটার
মানচিত্র
কলাইকুন্ডা বায়ুসেনা ঘাঁটি ভারত-এ অবস্থিত
কলাইকুন্ডা বায়ুসেনা ঘাঁটি
কলাইকুন্ডা বায়ুসেনা ঘাঁটি
কলাইকুন্ডা বায়ুসেনা ঘাঁটির অবস্থান, ভারত
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
ফুট মি
১৭/৩৫ ৯,০০০ ২,৭৪৩
ক্রেডিট কমেট বেল-আটলান্টা বি-২৯ -১৫-এর ছবি, ৭৯৪ তম বোম স্কোয়াড্রন ৪৬৮ তম বোমা উইং, কলিকান্দা এবি, ভারত এর

কলাইকুন্ডা বিমান বাহিনী স্টেশন বা কলাইকুন্ডা এয়ার ফোর্স স্টেশন পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়গপুরের নিকটবর্তী একটি ভারতীয় বিমান বাহিনীর ঘাঁটি।এটি ১৮ নং স্কোয়াড্রন আইএএফ, ফ্লাইং বুলেটের ঘাঁটি ছিল।এই স্কোয়াড্রনটি ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে ভারতে লাইসেন্সকৃত মিকোয়াইন মিগ -২১ এমএল পর্যন্ত নিযুক্ত করে। [১] সু-৩০ এমকেআইএস এর একটি স্কোয়াড্রন এখন এই ঘাঁটিতে রয়েছে। [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বায়ুস ফোর্স ক্লায়কুন্ডা ব্রিটিশ কর্তৃক নির্মিত হয়েছিল।এটি বার্মায় আগমনকারী জাপানিদের বিরুদ্ধে এবং চীনের অংশে অভিযান পরিচালনা করার জন্য ব্যবহার করা হত।

এটি মূলত বি-২৪ স্বাধীনতার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল।সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আর্মি এয়ার ফোর্সেস এক্সএক্স বোমার কমান্ড অব ইন্ডিয়া'র পরিকল্পিত স্থাপনার জন্য এটি বি -২৯ সুপারফোর্রেস বেস নামে অভিহিত করা হয়েছিল।আগরতলা আর্মি এয়ার ফোর্স আন্ডারগ্রাউন্ড ১৯৪৩ সালের ডিসেম্বরে এয়ারফিল্ডের আপগ্রেড করার জন্য ভারতে আসেন এবং হাজার হাজার ভারতীয়রা সুপারফোসার্রেস অপারেশনগুলির জন্য সুবিধাটি আপগ্রেড করার জন্য কাজ করে।ভারতবর্ষে আমেরিকার প্রতিষ্ঠিত এই চারটি বি -২৯ ভিত্তিগুলির মধ্যে একটি।

বর্তমান অবস্থা[সম্পাদনা]

কলাইকুন্ডা বায়ুসেনা ঘাঁটি দেশের প্রতিরক্ষার একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।এখানে বিমানটি কৌশলগত আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ এবং বঙ্গোপসাগরের উপর বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে জড়িত থাকবে।আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের-সেবায় কমান্ডটি এই বিশেষ উদ্দেশ্যে কলাইকুন্ডা অবস্থিত সু-৩০ এমকেআইএস এবং অন্যান্য উন্নত বিমানের স্কোয়াড্রনের দায়িত্বে রেখেছে।২০০৪ সালের সুনামির পরে আন্দামানে সুখোই পরিচালনার পরিকল্পনা নিয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।এখন পর্যন্ত, কলাইকুন্ডা - অন্যান্য বেশ কিছু দায়িত্ব পালন করে - আন্দামানের সাথে একটি সেতু ঘঠন করেছে বায়ুসেনা ঘাঁটিটি। বেসের ভূমিকা বৃদ্ধি পাবে এবং এখানে বিমানটি আন্দামান এবং বঙ্গোপসাগরের আকাশে আটকে রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।ভারতে একটি সম্ভাব্য নাটোর মত জোটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এয়ার প্রতিরক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং অঞ্চলে ভাল সহযোগিতা গড়ে তুলতে বিভিন্ন ভূমিকা পালন করবে। [২]

কলকুন্ডের বিমানবন্দর পশ্চিম মেদিনীপুরের মাওবাদী খামারে সাল এর বনগুলির মধ্যে অবস্থিত।বার্মা ক্যাম্পেইন চলাকালীন অপেক্ষাকৃত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপারভাইজার্রেস বোম্বারদের জন্য সেট আপ করে, এই বছরগুলোতে বছরের পর বছর ধরে এই সুবিধাটি ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে।বৃহৎ এলাকা এই বেসের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বিভিন্ন উপত্যকায় কিন্তু পূর্ব উপকূল বরাবর রয়েছে, সবচেয়ে নিকটতম চেন্নাই। এটি উপকূল বরাবর প্রতিরক্ষার এবং বঙ্গোপসাগরের উপকূল বরাবর পরিচালনার জন্য আমাদের কাজ।আইএএফ-এর সাথে যৌথভাবে অনুশীলন করার জন্য আমরা বিভিন্ন বিদেশী বিমান বাহিনীকে হোস্ট করেছি ।[২]

এটি ক্লাসিক্যাল আমেরিকান শৈলী নির্মিত একটি খুব কম্প্যাক্ট বেস।আমেরিকানরা কলিকান্দা, দুদকুন্ডী ও সালুয়া থেকে ফ্লাইট পরিচালনা করতে থাকে।আজ, সালুয়া এবং দুদকুণ্ডিতে একটি রাডার স্টেশন আছে একটি বায়ু থেকে মাঠ ফায়ারিং পরিসীমা রূপান্তরিত করা হয়েছে।কয়েক বছর ধরে, আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের জন্য ক্লাইকুন্ডা একটি প্রধান স্থানে পরিণত হয়েছে।বেস বঙ্গের বজ্রের কাছাকাছি অবস্থিত যেখানে এয়ার-টু-এয়ার ফায়ারিং ঘটতে পারে, এয়ার কমোডর আর রাধিশ বলছেন, এওসি, এয়ার ফোর্স স্টেশন, কলিকান্দা। [২]

কিন্তু ক্লাইকুন্ডা একটি ব্যায়াম হাবের বাইরেও যায়।মিগ -২৭ জমির আক্রমণ বিমান ও ওসিউ'র মিগ -১২ ফাইন্যান্স যোদ্ধাদের, সু-৩০ এমকেআইএস এর স্কোয়াড্রন এবং আইএএফ এর ফেটে যাওয়া অন্যান্য দ্রুতগতির বৈচিত্র্যগুলিকে নিয়মিত কলিকান্দায় কল করা।সু-৩০ এমকেআইএস একটি স্কোয়াড্রন বেস এখন হয়।[২]

এখন ভারতীয় এয়ার ফোর্স তার বর্তমান সেনা ঘাঁটি-এর রানওয়ে ব্যবহার করার জন্য বেসামরিক বিমান অনুমতি দিতে সম্মত।আইএএফ সূত্রে জানা যায়, পরিকল্পনাটি এগিয়ে চলেছে এবং বেসামরিক টার্মিনালটি শীঘ্রই শুধুমাত্র বঙ্গের সেবা দিতে পারে না, তবে ঝাড়খণ্ড ও উড়িষ্যা রাজ্য সরকার ইতোমধ্যে আমাদের সাথে যোগাযোগের একটি সংস্থাটি নিযুক্ত করেছে।বেসামরিক বিমান আমাদের রানওয়ে ব্যবহার করে এবং তারপর বিদ্যমান সামরিক সুবিধা দক্ষিণে একটি পৃথক টার্মিনালে সরানো হলে আমাদের কোন সমস্যা নেই।যে সমস্ত নির্মাণের প্রয়োজন সেগুলি রানওয়ে থেকে একটি বেসামরিক টার্মিনালে একটি উচ্চ গতির করিডোর হয় যার জন্য জমি পাওয়া যায়।এই করিডরটি এনএইচ 6 (মুম্বাই রোড) এবং দক্ষিণ পূর্ব রেললাইনের খড়গপুর-টাটা বিভাগের রেলপথ অতিক্রম করবে।[২]

ঘাঁটির সুবিধা[সম্পাদনা]

ঘাঁটির সুবিধা মধ্যে রয়েছে, একটি বাজার, ব্যাংক, চলচ্চিত্র অডিটোরিয়াম, হাসপাতাল এবং একটি স্কুল, যেমন, এয়ার ফোর্স স্কুল, কলাইকুন্ডা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "No. 18 Squadron numberplated"। Times Of India। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১৬ 
  2. "Kalaikunda fighters in charge of Andaman and Nicobar Islands defences - The Times of India"। অক্টোবর ৩, ২০১১। সংগ্রহের তারিখ মে ১৮, ২০১২ timesofindia.indiatimes.com