বেলগাম বিমানবন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
বেলগাম বিমানবন্দর
আইএটিএ: আইএক্সজিআইসিএও: ভিওবিএম
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরন জনসাধারন
অপারেটর ভারতীয় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ
সেবা দেয় বেলাগাভি, কর্ণাটক, ভারত
অবস্থান সামব্রা
এএমএসএল উচ্চতা ২ ফুট / ৭৫৮ মিটার
স্থানাঙ্ক ১৫°৫১′৩৩″ উত্তর ৭৪°৩৭′০৩″ পূর্ব / ১৫.৮৫৯১৭° উত্তর ৭৪.৬১৭৫০° পূর্ব / 15.85917; 74.61750স্থানাঙ্ক: ১৫°৫১′৩৩″ উত্তর ৭৪°৩৭′০৩″ পূর্ব / ১৫.৮৫৯১৭° উত্তর ৭৪.৬১৭৫০° পূর্ব / 15.85917; 74.61750
ওয়েবসাইট www.aai.aero/allAirports/belgaum_generalinfo.jsp
মানচিত্র
IXG ভারত-এ অবস্থিত
IXG
IXG
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
ফুট মি
০৮/২৬ ৮,৪৬০ ২,৩৫০ আস্ফাল্ট

বেলগাম বিমানবন্দর (আইএটিএ: আইএক্সজিআইসিএও: ভিওবিএম) ভারতের কর্ণাটক রাজ্য বেলগাভির একটি বিমানবন্দর। সমবরা গ্রামে তার অবস্থানের কারণে, বেলগাভির ১০ কিলোমিটার (৬.২ মা) পূর্বে অবস্থিত বিমানবন্দরটি সমবরা বিমানবন্দর নামেও পরিচিত। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে বেসামরিক বিমান চলাচলমন্ত্রী অশোক গণপতি রাজু দ্বারা নতুন টার্মিনাল ভবন উদ্বোধন করা হয়।[১] বিমানবন্দরটি ভারতীয় বিমান বাহিনীর ঘাঁটি হিসাবেও অবস্থান করে, যেখানে সেনাবাহিনীতে নতুন সদস্যরা মৌলিক প্রশিক্ষণ লাভ করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রয়েল এয়ার ফোর্স (আরএএফ) দ্বারা ১৯৪২ সালে নির্মিত,[২] বেলগাম বিমানবন্দর উত্তর কর্ণাটকের প্রাচীনতম বিমানবন্দর।[৩] আরএএফ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বিমানবন্দরকে একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করে, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার কমান্ডের সহায়তা প্রদান করে। সিভিল এভিয়েশনের মহাপরিচালক (ডিজিসিএ) ১৯৫৬ সালে বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেন, এরপর ১৯৬২ সালে সিভিল এভিয়েশন মন্ত্রনালয় বিমানবন্দরের পরিচালনা শুরু করে। ১৯৯০-এর দশকে বেলগাম বিমানবন্দরটি পাঁচটি যাত্রীবাহী বিমান সংস্থা কর্তৃক পরিবেশিত ছিল: ইস্ট-ওয়েস্ট এয়ারলাইন্স, গুজরাট এয়ারওয়েজ, ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্স, এনইপিসি এয়ারলাইন্স এবং বায়ুদুত। দশকের শেষ নাগাদ বিমান সংস্থাগুলির সমস্ত উড়ান বন্ধ হয়ে যায়।

বেলগাম বিমানবন্দরে এয়ার ডেকন ব্যাঙ্গালোর থেকে ২০০৩ সালে বাণিজ্যিক উড়ান সেবা প্রদান বন্ধ করে।[৪] এয়ার ডেকান এছাড়াও কিছু সময়ের জন্য কোলহাপুর ও মুম্বাই থেকেও যাত্রা শুরু করে।[৫] এয়ার ডেকান ২০০৮ সালে কিংফিশার এয়ারলাইন্সের সাথে একীভূত হওয়ার পর, কিংফিশার বিমানবন্দরটি থেকে কম যাত্রী হওয়ার জন্য জুন ২০০৯ সালে বেলগাঁও বিমানবন্দরে উড়ান পরিচালনা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।[৬] তবুও, ২০১০ সালে বেলগাঁও বিমানবন্দরের জন্য সম্প্রসারণ পরিকল্পনা চালু করা হয়েছিল, যখন ভারতের বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ (এএআই) এবং কর্ণাটক সরকার একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে। কিংফিশার ২০১১ সালের জানুয়ারিতে মুম্বাই থেকে দৈনিক উড়ান পরিচালনায় ফিরে আসে,[৭] কিন্তু বিমান সংস্থাটি তার নিজস্ব আর্থিক সমস্যাগুলির জন্য নভেম্বর ২০১১ সালে বিমান পরিচালনা বন্ধ করে।[৮] নভেম্বর ২০১২ সালে বেলগামে স্পাইসজেট বেঙ্গালোর থেকে উড়ান পরিচালনা শুরু করে এবং অক্টোবরে ২০১৭ সালের হিসাবে বেলগাম বিমানবন্দরকে উড়ান সেবা প্রদানের একমাত্র বিমান সংস্থা।[৯]

২০১৩ সালে, কেন্দ্রীয় সরকার সম্প্রসারণ প্রকল্প অনুমোদন করেছে।[১০] ১২০ কোটি টাকা ব্যায়ে কাজ ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে শুরু হয়েছিল এবং ২ বছর ছয় মাস ধরে কাজ চলেছিল। সম্প্রসারণ প্রকল্পে রানওয়ে সম্প্রসারণ, একটি নতুন বিচ্ছিন্নতা বে নির্মাণ, ট্যাক্সিওয়ে, তিনটি এ৩২০ বিমানের জন্য প্রান্তিক এবং একটি নতুন ২২.৫ মিটার লম্বা এটিসি টাওয়ার অন্তর্ভুক্ত ছিল। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা এবং এএআই আনুমানিক ১৬ অক্টোবর ২০১৭ সালে নতুন টার্মিনাল, অ্যাপ্রন এবং আঞ্চলিক কার্যালয় চালু করে।[১১]

টার্মিনাল এবং বিমানঘাঁটি[সম্পাদনা]

বিমানবন্দর সম্প্রসারণ প্রকল্পের অংশ হিসেবে ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে একটি নতুন টার্মিনাল উদ্বোধন করা হয়। টার্মিনাল ভবনটি ৩,৬০০ বর্গমিটারে বিস্তৃত এবং ৩০০ জন যাত্রী বহন করার ক্ষমতা রয়েছে। টার্মিনাল ভবনে দুটি ব্যাগ পরিবাহক বেল্ট এবং ছয়টি চেক-ইন কাউন্টারে আছে। এখানে তিনটি এয়ারবাস এ৩২০ বিমান পার্কিং এর জন্য একটি বর্হিবাস বা অ্যাপ্রোন রয়েছে। এআরআর ৭২ এবং অনুরূপ উড়োজাহাজের জন্য পুরানো অ্যাপ্রোনটির দুটি পার্কিং স্ট্যান্ড রয়েছে।[১২][১৩] দুটি অতিরিক্ত অ্যাপ্রোনও রয়েছে, একটি রানওয়েের উত্তর দিকের যেটি একটি বিচ্ছিন্নতা বে এবং দক্ষিণাংশের একটি। এই অ্যাপ্রোনের প্রতিটি একক ট্যাক্সিওয়ে দ্বারা চালিত হয় ০৮/২৬ রানওয়েতে, যার পরিমাপ ১,৮৩০ বাই ৪৫ মিটার (৬,০০৪ ফু × ১৪৮ ফু)। রানওয়েটির ৪৭০-মিটার (১,৫৪০ ফু) সম্প্রসারণ সম্পন্ন হয়েছে এবং ২০১২ সালের জুন মাস পর্যন্ত ডিজিসিএ থেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় ছিল। এর পর রানওয়ে পরিমার্জিত হয়েছিল এবং তারপর রানয়ের প্রসারিত ৪৭০ মিটার (১,৫৪০ ফু) আংশ এয়ারবোস এ৩২১ এর মত বড় বিমানের সুবিধা প্রদানের জন্য।[১৪] ডিজিসিএ প্রথমে ব্যবহারের জন্য রানওয়ে সম্প্রসারণ অনুমোদন করেছিল না; যাইহোক, এটা না হওয়া পর্যন্ত একটি কাছাকাছি সেল টাওয়ার সরিয়ে ফেলা হবে, তবে তা করার সম্ভাবনা কম। উপরন্তু, রানওয়ে পদ্ধতির আলো ব্যবস্থা স্থাপন করা যাবে না যদি না একটি রাস্তা বন্ধ না করা, এবং এয়ার ফোর্স স্টেশনের প্রাচীর আরেকটি বাধা সৃষ্টি করছে।[১৫]

বিমান বাহিনীর ঘাঁটি[সম্পাদনা]

নির্মিত এবং নিয়ন্ত্রণ মূলত রয়েল এয়ার ফোর্স অধীনে, কর্ণাটকের বিশেষ রিজার্ভ পুলিশ ১৯৪৮ সালে এয়ার বেস গ্রহণ। ১৯৬১ সালে অপারেশন বিজয় সময় এয়ার ফোর্স স্টেশনটি ছিল ভারতীও বিমান বাহিনীর প্রধান ভিত্তি। দুই বছর পর জেলহাল্লিতে নং ১ গ্রাউন্ড ট্রেনিং স্কুলকে এই বেসে স্থানান্তর করা হয় এবং ১৯৮০ সালে প্রশাসনিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (এটিআই)-এর নামকরণ করা হয়। ২০০১ সালে, এটিটিআই আর্মেন ট্রেনিং স্কুল (এ.টি.এস) নামে নামকরণ করা হয়। মৌলিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে ঘাঁটিতে বেসিক ফেজ প্রশিক্ষণ (জেবিপিটি) প্রদানের ভিত্তিটি ফাউন্ডেশন চালু করে।[১৬] জেবিপিটি সেনাবাহিনীকে সামরিক মূল্যবোধ শেখান এবং সামরিক জীবনে একটি জীবনযাপনের দিকে দৃষ্টি দেয়ার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।[১৭]

বিমান সংস্থা এবং গন্তব্যস্থল[সম্পাদনা]

বিমান সংস্থা গন্তব্যস্থল
স্পাইসজেট বেঙ্গালুরু

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Upgraded Belagavi airport inaugurated"Business Standard। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  2. Patil, Vijaykumar (১৮ অক্টোবর ২০০২)। "Passenger services from Belgaum Airport soon"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৬ 
  3. "Five towns that are being added to India's airport map"Livemint। ১৬ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৬ 
  4. "Air Deccan services to be launched today"The Hindu। ২৪ আগস্ট ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  5. "Air Deccan to increase flights"Rediff.com। ১৬ এপ্রিল ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  6. "Flights from Belgaum airport will resume soon" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। ১৪ নভেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  7. "Kingfisher Airlines starts daily Belgaum-Mumbai flights"The Hindu। ১১ জানুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  8. "Belgaum airport to resume flights soon"The New Indian Express। ১৫ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  9. Urs, Anil (৯ নভেম্বর ২০১২)। "SpiceJet to begin Bangalore-Belgaum service"The Hindu Business Line। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  10. "Centre gives nod to upgrade Belgaum Airport"Deccan Chronicle। ১৬ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  11. "New terminal commissioned at Belagavi airport"The Times of India। ১৭ অক্টোবর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  12. "Belgaum: Technical Information"Airports Authority of India। ১৬ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  13. "Aerodrome Data: Belgaum Airport (VOBM), effective 23 July 2015" (PDF)Airports Authority of India। ২৭ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  14. Patil, Vijaykumar (১৪ জুন ২০১৫)। "Wait for AAI clearance hampers Belgaum airport expansion"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  15. "Mobile tower, farm lands delay airport expansion"The Times of India। ১৮ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৬ 
  16. Mohan, R. D. (১ অক্টোবর ২০১২)। "ATS Belgaum, Historic Alma Mater"Sainik Samachar। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 
  17. M., Anantha (৬ অক্টোবর ২০১৩)। "IAF to put airmen through new training pattern in January"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]