আসিয়ান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় জাতি সংস্থা
পতাকা Emblem
নীতিবাক্য

"একটি দর্শন, এক পরিচয়, এক সম্প্রদায়"[১]
সদর দপ্তর ইন্দোনেশিয়া জাকার্তা, ইন্দোনেশিয়া
সরকারি ভাষা
সদস্য দেশ
রাষ্ট্রনেতা (বৃন্দ)
 -  মহাসচিব ভিয়েতনাম লে লং মিহ[২]
 -  সম্মেলনের অধ্যক্ষতা  মায়ানমার[৩]
প্রতিষ্ঠাকাল
 -  আসিয়ান ঘোষণা ৮ আগস্ট ১৯৬৭ 
 -  সনদ ১৬ ডিসেম্বর ২০০৮ 
আয়তন
 -  মোট ৪৪,৭৯,২১০.৫ বর্গ কিমি
২৭,৭৮,১২৪.৭ বর্গ মাইল 
জনসংখ্যা
 -  ২০১১ আনুমানিক ৬০২,৬৫৮,০০০ 
 -  ঘনত্ব ১৩৫/বর্গ কিলোমিটার 
২১৬/বর্গ মাইল
জিডিপি (পিপিপি) ২০১১ আনুমানিক
 -  মোট মার্কিন$ ৩.৫৭৪ ত্রিলিয়ন[৪] 
 -  মাথাপিছু মার্কিন$ ৫,৯৩০ 
জিডিপি (নামমাত্র) ২০১৩ আনুমানিক
 -  মোট মার্কিন$ ২.৪০৩ ত্রিলিয়ন 
 -  মাথাপিছু মার্কিন$ ৩,৯০৯ 
মানব উন্নয়ন সূচক (২০১৩) ০.৬৬৯ 
মুদ্রা
সময় স্থান আসিয়ান (ইউটিসি+৯ থেকে +৬ঃ৩০)
ইন্টারনেট টিএলডি
ওয়েবসাইট
কলিং কোড
ক. Address: Jalan Sisingamangaraja No.70A, South Jakarta.
খ. Calculated using UNDP data from member states.

দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় জাতি সংস্থা (Association of Southeast Asian Nations)[৫] (আসিয়ান /ˈɑːsi.ɑːn/ AH-see-ahn,[৬] /ˈɑːzi.ɑːn/ AH-zee-ahn)[৭][৮] দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দশটি রাষ্ট্র নিয়ে গঠিত একটি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংস্থা, যা ১৯৬৭ সালের ৮ আগস্ট ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুরথাইল্যান্ড দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়।[৯] তারপর থেকে, ব্রুনেই, কম্বোডিয়া, লাওস, মিয়ানমার, এবং ভিয়েতনাম সদস্যপদ লাভ করে। এর লক্ষ্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সামাজিক অগ্রগতি, সাংস্কৃতিক বিবর্তন তার সদস্যদের মধ্যে ত্বরান্বিত করা, আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা সুরক্ষা, এবং সদস্য দেশগুলোর মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে পার্থক্য নিয়ে আলোচনা করা।[১০]

আসিয়ান দেশগুলোর মিলিত ভূখন্ড ৪৪.৬ লক্ষ বর্গ কিলোমিটার, যা পৃথিবীর মোট আয়তনের ৩% এবং এর মিলিত জনসংখ্যা প্রায় ৬০ কোটি, যা বিশ্বের জনসংখ্যার ৪.৪%। আসিয়ানের সমুদ্র সীমা তার ভূখন্ডের তুলনায় প্রায় তিন গুণ বড়। ২০১২ সালে, এর মিলিত নামিক জিডিপি মার্কিন$ ২.৩ ট্রিলিয়নের অধিক ছিল।[১১] যদি আসিয়ান একটি একক সত্তা হত, তাহলে এটি বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম অর্থনীতি হিসাবে স্থান হবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারত, জাপান ও জার্মানি পিছনে থেকে।

পরিচ্ছেদসমূহ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মালদ্বীপ নেপাল শ্রীলঙ্কা ভূটান বাংলাদেশ ভারত থাইল্যান্ড মায়ানমার আফগানিস্তান পাকিস্তান কম্বোডিয়া ভিয়েতনাম লাওস তুর্কমেনিস্তান ইরান তাজিকিস্তান উজবেকিস্তান আজারবাইজান তুরস্ক কাজাখস্তান কিরগিজিস্তান গণচীন রাশিয়া ব্রুনাই ইন্দোনেশিয়া মালয়েশিয়া ফিলিপাইন সিঙ্গাপুর কুয়েত বাহরাইন ওমান কাতার সৌদি আরব সংযুক্ত আরব আমিরাত জাপান মঙ্গোলিয়া দক্ষিণ কোরিয়া আর্মেনিয়া জর্জিয়া ইরাক ইসরায়েল জর্দান লেবানন উত্তর কোরিয়া ফিলিস্তিন সিরিয়া তাইওয়ান পূর্ব তিমুর ইয়েমেন বিমসটেক মেক–গঙ্গা সহযোগিতা দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা আসিয়ান অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থা তুর্কীয় পরিষদ সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ এশিয়া সহযোগিতা সংলাপ
বিভিন্ন এশিয়ান আঞ্চলিক সংস্থা মধ্যে সম্পর্ক দেখানো একটি ক্লিকযোগ্য ইউলার ডায়াগ্রাম দেদে

আসিয়ান পূর্বে বিদ্যমান ছিল দক্ষিণপূর্ব এশিয়া এসোসিয়েশন (এএসএ) নামক একটি প্রতিষ্ঠানের দ্বারা, যা ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া এবং থাইল্যান্ড দ্বারা ১৯৬১ সালে গঠিত। গোষ্ঠীটি ৮ আগস্ট ১৯৬৭ সালে উদ্বোধন করা হয়, যখন পাঁচটি দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী – ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর ও থাইল্যান্ড – ব্যাংককে থাই পররাষ্ট্র বিভাগের ভবনে মিলিত হয় এবং আসিয়ান ঘোষণা স্বাক্ষর করে, আরো সাধারণভাবে ব্যাংকক ঘোষণা হিসাবে পরিচিত। পাঁচ পররাষ্ট্র মন্ত্রী – ইন্দোনেশিয়ার আদম মালিক, ফিলিপাইনের নারসিসো রামোস, মালয়েশিয়ার আব্দুল রাজাক, সিঙ্গাপুরের এস. রাজারত্নম, এবং থাইল্যান্ডের থানাত খোমান – সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে গণ্য করা হয়।[১২]

আসিয়ান সৃষ্টির উদ্দেশ্য ছিলো, কমিউনিজমের প্রতি সাধারণ ভয়, ১৯৬০-এর দশকে বহিরাগত ক্ষমতায় কমে যাওয়া আস্থা অবিশ্বাস তার সদস্যদের দূর করে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের বাসনায় শাসক গোষ্ঠী মনোযোগ দিয়ে করতে পারে।

গোষ্ঠীর কলেবর বাড়ে যখন ব্রুনাই দারুসসালাম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৪ সালে এর ৬ষ্ঠ সদস্য হয়, ১ জানুয়ারি স্বাধীনতা পাবার মাত্র এক সপ্তাহ পরে।[১৩]

ক্রমাগত সম্প্রসারণ[সম্পাদনা]

২৮ জুলাই ১৯৯৫ সালে, ভিয়েতনাম সপ্তম সদস্য হয়,[১৪] লাওস ও মায়ানমার (বার্মা) দুই বছর পরে ২৩ জুলাই ১৯৯৭ সালে যোগ দেন।[১৫] কম্বোডিয়া, লাওস ও মায়ানমারের সাথে একসঙ্গে যোগদান করেন, কিন্তু দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সংগ্রাম কারণে বিলম্বিত হয়। দেশটি পরে তার সরকারের স্থিতিশীলতা আসার পরে, ৩০ এপ্রিল ১৯৯৯ সালে যোগদান করেন।[১৫][১৬]

১৯৯০-এর দশকে, জোটটি সদস্যপদ বৃদ্ধি ও অধিকতর সংযুক্তিকরণের তাগিদ অনুভব করে। ১৯৯০-এ, মালয়েশিয়া পূর্ব এশিয়া অর্থনৈতিক ককাস সৃষ্টির প্রস্তাব করে,[১৭] যা আসিয়ান সদস্যদের পাশাপাশি গণচীন, জাপান, এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সমন্বয়ে গঠিত হবে; যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্রমবর্ধমান প্রভাব এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা (এপেক) মধ্যে এবং সামগ্রিকভাবে এশিয়ান অঞ্চলের উপর, তার বিপরীতে ভারসাম্য বজায়ের অভিপ্রায়ে।[১৮][১৯] এই প্রস্তাবটি ব্যর্থ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান থেকে প্রবল বিরোধিতার কারণে।[১৮][২০] এই ব্যর্থতা সত্ত্বেও, সদস্য রাষ্ট্রের অধিকতর সংযুক্তিকরণের জন্য কাজ অব্যাহত এবং আসিয়ান প্লাস থ্রি ১৯৯৭ সালে তৈরি করা হয়েছে।

১৯৯২-এ, সাধারণ কার্যকরী অগ্রাধিকার শুল্ক (সিইপিটি) প্রকল্প তফসিল হিসাবে স্বাক্ষরিত হয় শুল্ক বাড়ানোর জন্য এবং বিশ্বের বাজারে গতি বাড়ানোর জন্য একটি উৎপাদন ভিত্তি হিসাবে অঞ্চলের প্রতিযোগিতার সুবিধা বৃদ্ধি এর একটি লক্ষ্য। এই আইন আসিয়ান মুক্ত বাণিজ্য এলাকা জন্য কাঠামো হিসেবে কাজ করবে।

১৯৯৭ সালের পূর্ব এশীয় আর্থিক সংকটের পর, মালয়েশিয়ার প্রস্তাবের পুনরুজ্জীবন চংগ মাইএ প্রতিষ্ঠিত হয়, চংগ মাই উদ্যোগ হিসাবে পরিচিত, যা আসিয়ান অর্থনীতির পাশাপাশি আসিয়ান প্লাস থ্রি দেশ (চীন, জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়া)-এর মধ্যে আরোও ভালো সংযুক্তিকরণের জন্য আহ্বান জানায়।[২১]

প্রতিটি সদস্য রাষ্ট্রের অর্থনীতির উন্নতি ছাড়াও, জোট এই অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতার উপর মনোনিবেশ করে। ১৫ ডিসেম্বর ১৯৯৫-তে, দক্ষিণপূর্ব এশিয়াকে একটি পারমাণবিক-অস্ত্র-মুক্ত অঞ্চল-এ পরিণত করার অভিপ্রায়ে দক্ষিণপূর্ব এশিয়া পারমাণবিক-অস্ত্র-মুক্ত অঞ্চল চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ১৯৯৭ সালের ২৮ মার্চে চুক্তি কার্যকর হয় একটি বাদে সব সদস্য দেশগুলো এটি অনুমোদন করে। ২১ জুন ২০০১-তে এটা সম্পূর্ণরূপে কার্যকরী হয়ে ওঠে, ফিলিপাইনের অনুমোদনের পর; অঞ্চলের সব পরমাণু অস্ত্র নিষিদ্ধ কার্যকর হয়।[২২]

পূর্ব তিমুর এবং পাপুয়া নিউ গিনি[সম্পাদনা]

পূর্ব তিমুর মার্চ ২০১১ সালে জাকার্তায় সম্মেলনে আসিয়ানের একাদশ সদস্য হতে আবেদন করে একটি চিঠি পেশ করে। ইন্দোনেশিয়া পূর্ব তিমুরের প্রতি উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছে।[২৩][২৪][২৫]

পাপুয়া নিউ গিনি একটি মেলানেশিয় রাষ্ট্র। পাপুয়া নিউ গিনিকে ১৯৭৬ সালে পর্যবেক্ষক মর্যাদা ও ১৯৮১ সালে বিশেষ পর্যবেক্ষক মর্যাদা দেয়া হয়েছিল।[২৬]

পরিবেশ[সম্পাদনা]

বোর্নিও-এর উপর আবছায়ার উপগ্রহ চিত্র, ২০০৬

২১ শতকের এসে, পরিবেশগত সমস্যা বৈশ্বিক আলোচনার বিষ্য হয়ে দাঁড়ায়, ফলে তা আঞ্চলিক ব্যবস্থাও অন্তর্ভুক্ত হয়। এমতাবস্থায় সংগঠনটি পরিবেশগত চুক্তি নিয়ে আলোচনা শুরু করে। এর অন্তর্ভুক্ত ২০০২ সালে ট্রান্স সীমানা আবছায়া দূষণের উপর আসিয়ান চুক্তি-এর মাধ্যমে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার আবছায়া দূষণ নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টায় চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়।[২৭] দুর্ভাগ্যবশত, ২০০৫ মালয়েশিয়ার আবছায়া২০০৬ দক্ষিণপূর্ব এশীয় আবছায়ার প্রাদুর্ভাবের কারণে চুক্তিটি ব্যর্থ হয়। সংগঠনটি দ্বারা প্রবর্তিত অন্যান্য পরিবেশগত চুক্তিসমূহের অন্তর্ভুক্ত পূর্ব এশীয় জ্বালানি নিরাপত্তার উপর সেবু ঘোষণা,[২৮] ২০০৫ সালে আসিয়ান বন্যপ্রাণী কার্যকরীকরণ নেটওয়ার্ক,[২৯] এবং পরিচ্ছন্ন উন্নয়ন এবং জলবায়ু উপর এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অংশীদারিত্ব, উভয়ই জলবায়ু পরিবর্তনের সম্ভাব্য প্রভাবের প্রতিক্রিয়া। জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমান আগ্রহের বিষয়।

২০০৩ সালে দ্বিতীয় বালি ঐক্য মাধ্যমে, আসিয়ান গণতান্ত্রিক শান্তির ধারণা বিশ্বাস করে, যার মানে সব সদস্য দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা আনবে। এছাড়াও, অ-গণতান্ত্রিক সদস্য দেশ সবকিছুতেই সম্মত হয়, যা সব সদস্য দেশ আকুলভাবে কামনা করে।[৩০]

আসিয়ান প্লাস থ্রি[সম্পাদনা]

প্রতিটি দেশের নেতারা এই অঞ্চলটি আরও সংহত করার প্রয়োজন অনুভব করেন। ১৯৯৭ সালের শুরুতে, জোটটি এই লক্ষ্য অর্জনের অভিপ্রায়ে তার কাঠামোর মধ্যে সংগঠন তৈরি করা শুরু করে। আসিয়ান প্লাস থ্রি এর মধ্যে প্রথম ছিল এবং যা চীন, জাপান, এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক উন্নত করতে তৈরি করা হয়েছিল। এর পরে আরোও বৃহত্তর পূর্ব এশিয়া সম্মেলন হয়, যাতে এইসব দেশের সাথে সাথে ভারত, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়াও ছিলো। এই নতুন গোষ্ঠী পূর্ব এশিয়া সম্প্রদায়-এর একটি পূর্বশর্ত হিসেবে কাজ করবে, যার নকশা এখন লুপ্ত ইউরোপীয় সম্প্রদায়-এর মত করে করা হয়েছিলো। আসিয়ান প্রখ্যাত ব্যক্তিদের গোষ্ঠী তৈরি করা হয়েছিল এই নীতির সম্ভাব্য সফলতা ও ব্যর্থতা অধ্যয়ন করা ও এর পাশাপাশি একটি আসিয়ান সনদ খসড়া তৈরির সম্ভাবনার জন্য।

২০০৬ সালে আসিয়ানকে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে পর্যবেক্ষকের মর্যাদা দেওয়া হয়।[৩১] এর প্রতিক্রিয়ায়, সংগঠনটি জাতিসংঘকে "সংলাপ অংশীদার" মর্যাদায় ভূষিত করে।[৩২]

মুক্ত বাণিজ্য[সম্পাদনা]

২০০৭ সাল আসিয়ানের চল্লিশতম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৩০ বছর পূর্তি।[৩৩] ২৬ আগস্ট ২০০৭ তে, আসিয়ান বিবৃতি দেয় যে, এটা ২০১৩ সালের মধ্যে চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড সঙ্গে তাদের সব মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি সম্পন্ন করার লক্ষ্যে কাজ করে যাবে, যা ২০১৫ সালের মধ্যে আসিয়ান অর্থনৈতিক সম্প্রদায় শুরুর সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।[৩৪][৩৫] ২০০৭ সালের নভেম্বরে আসিয়ান সদস্যরা আসিয়ান সনদ স্বাক্ষর করে, যা একটি সংবিধান আসিয়ান সদস্যদের মধ্যে সম্পর্ক পরিচালনা করার এবং একটি আন্তর্জাতিক আইনি সত্তা হিসেবে আসিয়ানকে প্রতিষ্ঠার করার। সেই একই বছরে, পূর্ব এশীয় জ্বালানি নিরাপত্তার উপর সেবু ঘোষণা আসিয়ান এবং ইএএস অন্যান্য সদস্যদের (অস্ট্রেলিয়া, চীন, ভারত, জাপান, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া) দ্বারা, ১৫ জানুয়ারী ২০০৭-এ সেবুতে স্বাক্ষরিত হয়, যা জ্বালানি নিরাপত্তা পক্ষে প্রচলিত জ্বালানি শক্তি বিকল্প খুঁজে বের করার সহায়।

আসিয়ান উপায়[সম্পাদনা]

গুরুতর অভ্যর্থনা[সম্পাদনা]

বৈঠক[সম্পাদনা]

আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলন[সম্পাদনা]

পূর্ব এশিয়া সম্মেলন[সম্পাদনা]

স্মারক সম্মেলন[সম্পাদনা]

আঞ্চলিক ফোরাম[সম্পাদনা]

অন্যান্য বৈঠক[সম্পাদনা]

আরো তিনটি[সম্পাদনা]

এশিয়া ইউরোপ বৈঠক[সম্পাদনা]

আসিয়ান-রাশিয়া সম্মেলন[সম্পাদনা]

আসিয়ান পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের বৈঠক[সম্পাদনা]

অর্থনৈতিক সম্প্রদায়[সম্পাদনা]

সি.ই.পি.টি. থেকে এ.ই.সি.[সম্পাদনা]

সমন্বিত বিনিয়োগ এলাকা[সম্পাদনা]

সেবা বাণিজ্য[সম্পাদনা]

একক এভিয়েশন বাজার[সম্পাদনা]

অন্যান্য দেশের সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি[সম্পাদনা]

আসিয়ান উল্লেখযোগ্য ছয়[সম্পাদনা]

উন্নয়ন ব্যবধান[সম্পাদনা]

সি.এম.আই. থেকে এ.এম.আর.ও.[সম্পাদনা]

প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ[সম্পাদনা]

আন্তঃ-আসিয়ান ভ্রমণ[সম্পাদনা]

আন্তঃ-আসিয়ান বাণিজ্য[সম্পাদনা]

আসিয়ান মূলধনী বাজার ফোরাম[সম্পাদনা]

সনদ[সম্পাদনা]

সাংস্কৃতিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

আসিয়ান প্রচার মাধ্যম সহযোগিতা[সম্পাদনা]

হেরিটেজ পার্ক[সম্পাদনা]

আসিয়ান হেরিটেজ সাইট[সম্পাদনা]

সুর এবং সঙ্গীত[সম্পাদনা]

শিক্ষা ও মানব উন্নয়ন[সম্পাদনা]

বিদ্যালয় তালিকাভুক্তি এবং অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

প্রাথমিক শিক্ষা[সম্পাদনা]

মাধ্যমিক শিক্ষা[সম্পাদনা]

তৃতীয় শিক্ষা[সম্পাদনা]

বিশ্ববিদ্যালয় নেটওয়ার্ক[সম্পাদনা]

সর্বজনীন প্রচেষ্টা[সম্পাদনা]

আর্থিক সম্পদ[সম্পাদনা]

বৃত্তি[সম্পাদনা]

মানব উন্নয়ন নির্ধারক হিসাবে শিক্ষা[সম্পাদনা]

শিক্ষার হার[সম্পাদনা]

ক্রীড়া[সম্পাদনা]

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ান গেমস[সম্পাদনা]

আসিয়ান প্যারা গেমস[সম্পাদনা]

FESPIC গেমস / এশিয়ান প্যারা গেমস[সম্পাদনা]

ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ[সম্পাদনা]

আসিয়ান ২০৩০ ফিফা বিশ্বকাপ বিড[সম্পাদনা]

আসিয়ান প্রতিরক্ষা শিল্প সম্পৃক্ততা[সম্পাদনা]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

আসিয়ান প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

সাহিত্য[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Aseanweb – Asean Motto"। Asean.org। সংগৃহীত ৮ আগস্ট ২০১১ 
  2. "Vietnam’s Minh is new Asean secretary general"Manila Times। ৩ জানুয়ারি ২০১৩। 
  3. "Myanmar's ASEAN chairmanship: A litmus test of progress?"The Mizzima। ৬ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগৃহীত ৫ জানুয়ারি ২০১৪ 
  4. "IMF DataMapper"। Imf.org। ৪ ডিসেম্বর ১৯৯৯। ২৩ জুলাই ২০১১-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ৮ আগস্ট ২০১১ 
  5. "Overview"। ASEAN। ২৬ জানুয়ারি ২০০৯-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি ২০০৯ 
  6. VOA.gov, Search Voice of America
  7. "NLS/BPH: Other Writings, The ABC Book, A Pronunciation Guide"। ৮ মে ২০০৬। ১২ জানুয়ারি ২০০৯-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি ২০০৯ 
  8. Asean.org, ASEAN-10: Meeting the Challenges, by Termsak Chalermpalanupap, Asean.org, ASEAN Secretariat official website. Retrieved 27 June 2008.
  9. Bangkok Declaration. Wikisource. Retrieved 14 March 2007.
  10. Asean.org, Overview, Asean.org, ASEAN Secretariat official website. Retrieved 12 June 2006.
  11. EC.Europa.eu, European Union Relations with ASEAN. Retrieved 29 October 2010.
  12. Bernard Eccleston, Michael Dawson, Deborah J. McNamara (১৯৯৮)। The Asia-Pacific Profile। Routledge (UK)। আইএসবিএন 0-415-17279-9 
  13. "Background Note:Brunei Darussalam/Profile:/Foreign Relations"। United States State Department। ২ মার্চ ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ৬ মার্চ ২০০৭ 
  14. "Vietnam in ASEAN : Toward Cooperation for Mutual Benefits"ASEAN Secretariat। ২০০৭। সংগৃহীত ২৮ আগস্ট ২০০৯ 
  15. ১৫.০ ১৫.১ Carolyn L. Gates, Mya Than (২০০১)। ASEAN Enlargement: impacts and implications। Institute of Southeast Asian Studies। আইএসবিএন 981-230-081-3 
  16. "Statement by the Secretary-General of ASEAN Welcoming the Kingdom of Cambodia as the Tenth Member State of ASEAN : 30 April 1999, ASEAN Secretariat"ASEAN Secretariat। ২০০৮। সংগৃহীত ২৮ আগস্ট ২০০৯ 
  17. East Asia Economic Caucus. ASEAN Secretariat. Retrieved 14 March 2007.
  18. ১৮.০ ১৮.১ Asiaviews.org, Whither East Asia? Retrieved 14 March 2007.
  19. UNT.edu, Asia's Reaction to NAFTA, Nancy J. Hamilton. CRS – Congressional Research Service. Retrieved 14 March 2007.
  20. IHT.com, Japan Straddles Fence on Issue of East Asia Caucus. International Herald Tribune. Retrieved 14 March 2007.
  21. "Regional Financial Cooperation among ASEAN+3"Japanese Ministry of Foreign Affairs। ৯ অক্টোবর ২০০৮-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ২৯ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  22. Bangkok Treaty (in alphabetical order) At UNODA United Nations. Retrieved 4 September 2008.
  23. E.Timor leader pushes for ASEAN membership, date: 1 December 2010.
  24. East Timor Bid to Join ASEAN Wins 'Strong Support', Bangkok Post, date: 31 January 2011.
  25. East Timor to Join ASEAN in Jakarta 2011, Jakarta Globe, date: 1 December 2010.
  26. "ASEAN secretariat"। ASEAN। ২৩ জুলাই ১৯৯৯। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি ২০০৯ 
  27. ASEAN Secretariat. ASEAN Agreement on Transboundary Haze Pollution. Extracted 12 October 2006
  28. East Asian leaders to promote biofuel, Philippine Daily Inquirer, 13 March 2007.
  29. "ASEAN Statement on Launching of the ASEAN Wildlife Enforcement Network (ASEAN-WEN)"। ASEAN। ১ ডিসেম্বর ২০০৫। সংগৃহীত ১২ জানুয়ারি ২০০৯ 
  30. Luard, Tim (৮ অক্টোবর ২০০৩)। "Asean: Changing, but only slowly"। BBC। 
  31. RP resolution for observer status in UN assembly OK’d, Philippine Daily Inquirer, 13 March 2007.
  32. "Philippines to Represent Asean in UN Meetings in Ny, Geneva"। Yahoo! News। ৭ মার্চ ২০০৭। ১২ মার্চ ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ১৩ মার্চ ২০০৭ 
  33. Forss, Pearl (২৭ আগস্ট ২০০৭)। "US and ASEAN seeking to enhance relationship: Dr Balaji"। Channel NewsAsia। ৩০ আগস্ট ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ২৭ আগস্ট ২০০৭ 
  34. "ASEAN to complete free trade agreements by 2013"Forbes। ২৬ আগস্ট ২০০৭। সংগৃহীত ২৭ আগস্ট ২০০৭ 
  35. Ong, Christine (২৭ আগস্ট ২০০৭)। "ASEAN confident of concluding FTAs with partners by 2013"। Channel NewsAsia। ২৯ আগস্ট ২০০৭-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ২৭ আগস্ট ২০০৭ 

আরোও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সংস্থা
শীর্ষ সম্মেলন
আসিয়ান সংস্থা