হুগলী-চুঁচুড়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(হুগলি-চুঁচুড়া থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হুগলী-চুঁচুড়া
Hooghly-Chinsurah
সদর শহর
হুগলী-চুঁচুড়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
হুগলী-চুঁচুড়া
হুগলী-চুঁচুড়া
স্থানাঙ্ক: ২২°৫৪′ উত্তর ৮৮°২৩′ পূর্ব / ২২.৯০° উত্তর ৮৮.৩৯° পূর্ব / 22.90; 88.39স্থানাঙ্ক: ২২°৫৪′ উত্তর ৮৮°২৩′ পূর্ব / ২২.৯০° উত্তর ৮৮.৩৯° পূর্ব / 22.90; 88.39
দেশভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাহুগলি
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকহুগলী চুঁচুড়া
আয়তন
 • মোট১৭.২৯ বর্গকিমি (৬.৬৮ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১,৭৭,২৫৯
 • জনঘনত্ব১০,০০০/বর্গকিমি (২৭,০০০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • সরকারীবাংলা, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
পিন কোড৭১২১০১ ৭১২১০২ ৭১২১০৩ ৭১২১০৫ ৭১২১০৬
টেলিফোন কোড০৩৩
লোকসভা কেন্দ্রহুগলি
বিধানসভা কেন্দ্রচুঁচুড়া
বিধায়কশ্রী অসিত মজুমদার (তপন)
পৌরপ্রধান (হুগলী-চুঁচুড়া পৌরসভা)শ্রী গৌরীকান্ত মুখোপাধ্যায়
ওয়েবসাইটhooghly.nic.in

হুগলি-চুঁচুড়া ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হুগলী জেলার একটি শহর ও পৌরসভা এলাকা। আসলে এটি হুগলি ও চুঁচুড়া এই দুই শহর যুক্ত করে পৌরসভা তৈরী হয়েছে। কলকাতা থেকে ৩৫ কিমি উত্তরে অবস্থিত। শহরটি বৃহত্তর কলকাতার অন্তর্গত। চুঁচুড়ার থেকে বেশি চুঁচড়ো নামটিই কথ্য ভাষায় চলে। এটি হুগলী জেলার সদর শহর।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

হুগলী শহরটি ছিল পর্তুগিজদের অধিকারে এবং চুঁচুড়া ছিল ওলন্দাজদের দখলে। অষ্টাদশ শতকের শেষ ভাগে ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী দুই-ই দখল করে ও পরে ১৮৬৫ সালে এই দুই প্রশাসনিক অঞ্চলকে একত্রিত করা হয়।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

ভারতের ২০১১ সালের আদম শুমারি অনুসারে হুগলী-চুঁচড়া শহরের জনসংখ্যা হল ১৭৭,২৫৯ জন।[১] এর মধ্যে পুরুষ ৫০.১২% এবং নারী ৪৯.৮৮%।

এখানে সাক্ষরতার হার ৯১.১০%। পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৯৩.৮১% এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৮৮.৩৯%। সারা ভারতের সাক্ষরতার হার ৭৯.৫%, তার চাইতে হুগলী-চুঁচড়া এর সাক্ষরতার হার বেশি।

এই শহরের জনসংখ্যার ৬.২৯% হল ৬ বছর বা তার কম বয়সী।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

চুঁচুড়া ১৮০১ সালে [[হাজি মুহাম্মাদ মহসীন একটি ইমামবারা বানান যা এখন স্থানীয়ভাবে "বড় ইমামবারা" নামে পরিচিত। এ ছাড়া চুঁচুড়া ঘড়ির মোড় , ভাগীরথীর তীরে ষণ্ডেশ্বর শিব মন্দির , ডাচ সমাধিস্থল হল এখানকার অন্যতম দর্শনীয় স্থান। এছাড়া রয়েছে ইংরেজ আমলে তৈরি করা চুঁচুড়া কোট | আর্মেনিয়ান চার্চ,বান্ডেল চার্চ,দয়াময়ী কালীবাড়ি,.।

চুঁচুড়া শহরের একটি মসজিদ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ভারতের ২০১১ সালের আদম শুমারি"। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৭, ২০২০