শাড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ঐতিহ্যগত মহারাষ্ট্রীয় শাড়িতে নারী
উমারিয়ায় আদিবাসী নারী
মাইশোর মধ্যে শাড়ি পরিহিত নারী
রাজা রবি বার্মার চিত্রাংকনে বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী ভাজের শাড়ী পরিহিতা রমনীকে দেখানো হয়েছে।

শাড়ি বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশের মহিলাদের ঐতিহ্যবাহী ও নিত্যনৈমিত্তিক পরিধেয় বস্ত্র।[১] শাড়ি অনেক লম্বা ও সেলাইবিহীন কাপড় দিয়ে তৈরি হয়। সাধারণত‍ঃ একটি শাড়ি চার থেকে নয় মিটার (প্রায় ১২ হাত বা ১৮ ফুট) দীর্ঘ কাপড় দিয়ে তৈরি হয়। বিভিন্নভাবে ভাজ করে শাড়ি পরা হয়ে থাকে। সবচেয়ে সাধারণ ভাজ হচ্ছে কোমরে জড়িয়ে একপ্রান্ত কাঁধের উপর দিয়ে ঝুলিয়ে দেয়া, যাকে আঁচল বলা হয়।[১] শাড়ি সাধারণত পেটিকোটের (উত্তর ভারতে লেহেঙ্গা/ঘাগড়া এবং বাংলাদেশসহ পূর্ব ভারতে সায়া নামেও পরিচিত) উপরে পরা হয়ে থাকে। উপরের অংশের পোষাক হিসেবে ব্লাউজ (ভারতে চোলি নামেও পরিচিত) ব্যবহার করা হয়। ভারত ও বাংলাদেশের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সাধারণত‍ঃ শাড়ি অনুষ্ঠানের সবচেয়ে উপযোগী পোষাক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সেনাবাহিনীতে নারী সেনারা শাড়ী পড়লে কোমরে শার্ট বেধে রাখেন।

বিভিন্ন ধরনের শাড়ী[সম্পাদনা]

শাড়ি পরিহিতা নারী- ১৮৪৭

যদিও বিমানবালাদের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে শাড়ী বলতে আধুনিক ঘরানার শাড়ীকেই জনপ্রিয় করা হয়েছে, তবে উপমহাদেশের প্রতিটি অঞ্চলেই নিজস্ব ধরনের শাড়ির তৈরি ও জনপ্রিয় হয়েছে। নিচে কিছু পরিচিত ও জনপ্রিয় শাড়ির নাম দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশী শাড়ি[সম্পাদনা]

কাঁথা কাজের শাড়ী

ভারতীয় শাড়ি[সম্পাদনা]

উত্তরাঞ্চলীয় শাড়ি:

পূর্বাঞ্চলীয় শাড়ি:

মধ্যাঞ্চলীয় শাড়ি:

দক্ষিণাঞ্চলীয় শাড়ি:

নেপালী শাড়ী[সম্পাদনা]

নেপালীয় নারীরা বিভিন্নভাবে শাড়ী পরেন। এর মধ্যে হাকু পাতাসি উল্লেখযোগ্য। এটি লাল পেড়ে কালো শাড়ী।

পাকিস্তানী শাড়ী[সম্পাদনা]

পাকিস্তানে প্রতিদিনের ব্যবহার্য শাড়ীর স্থান সালোয়ার কামিজ প্রায় সম্পূর্ণ দখল করে নিয়েছে। তবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এখনও শাড়ী পরা হয়ে থাকে। সাধারণতঃ মোহাজির নামে পরিচিত ভারতীয় অভিবাসী পাকিস্তানীরা শাড়ীর ব্যবহার টিকিয়ে রেখেছে, যা প্রধানতঃ করাচীতেই চোখে পড়ে।

শ্রীলঙ্কার শাড়ী[সম্পাদনা]

শ্রীলঙ্কায় বিভিন্নভাবে শাড়ী পরা হলেও ভারতীয় ধরণেই শাড়ী বেশি পরা হয়ে থাকে, যা সাধারণভাবে কানাড়ীয় ধরণ (অথবা সিংহলিজ ভাষায়'ওসারিয়া' নামে পরিচিত)। ক্যান্ডির পাহাড়ী এলাকায় ক্যান্ডীয় ধরন চালু রয়েছে।

চিত্র[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ Alkazi, Roshan (1983) "Ancient Indian costume", Art Heritage; Ghurye (1951) "Indian costume", Popular book depot (Bombay); Boulanger, Chantal; (1997)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]