গান্ধার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গান্ধার
প্রায় ১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ–৫৩৫ খ্রিস্টাব্দ
বৈদিক যুগের পরবর্তী সময়ে গান্ধার এবং অন্যান্য মহাজনপদ
বর্তমানে উত্তর-পশ্চিম পাকিস্তান এবং উত্তর-পূর্বে আফগানিস্তান গান্ধার মহাজনপদের আনুমানিক সীমানা।
রাজধানী পুষ্কলাবতী (বর্তমানে চারসদ্দা) এবং তক্ষশীলা, এবং পরে পেশাওয়ার (পুরুপুরা)
সরকার রাজতন্ত্র
রাষ্ট্রপতি
 -  প্রায় ৭৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ নাগনাজিৎ
 -  প্রায় ৫১৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পুষ্করাশক্তি
ঐতিহাসিক যুগ প্রাচীন যুগ
 -  সংস্থাপিত প্রায় ১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
 -  ভাঙ্গিয়া দেত্তয়া হয়েছে ৫৩৫ খ্রিস্টাব্দ
বর্তমানে অংশ  আফগানিস্তান
 পাকিস্তান
সতর্কীকরণ: "মহাদেশের" জন্য উল্লিখিত মান সম্মত নয়

গান্ধার আফগানিস্তানপাকিস্তানের কাবুলসোয়াত নদীর তীরে অবস্থিত একটি প্রাচীন ইন্দো-আর্য রাজ্য[১] এটি প্রাচীন ভারতের ১৬টি মহাজনপদের মধ্যে একটি।[২][৩] হাখমানেশী যুগে এবং হেলেনীয় সময় কালের রাজ্যটির রাজধানী ছিল চরসদ্দা, কিন্তু পরে ১২৭ খ্রিষ্টাব্দে মহান কুষাণ সম্রাট কণিষ্ক দ্বারা রাজধানী পেশাওয়ার শহরে স্থানান্তরিত হয়েছিল।

ঋগ্বেদের (১৫০০-১২০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ)[৪][৫] সময় থেকে গান্ধারের অস্তিত্ব ছিল, পাশাপাশি জরাথুস্ট্রীয় আবেস্তায় এটি অহুর মজদা দ্বারা নির্মিত পৃথিবীর ষষ্ঠ সবচেয়ে সুন্দর জায়গা ভাক্করুত্তা হিসেবে উল্লেখ করা হয়। খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে হাখমানেশী সাম্রাজ্য গান্ধার রাজ্যকে অধিকৃত করে। ৩২৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মহান আলেকজান্ডার গান্ধার রাজ্য জয় করে; পরবর্তীকালে এটি মৌর্য সাম্রাজ্যের অংশ হয়ে ওঠে এবং তারপর ইন্দো-গ্রিক রাজত্বের অংশ হয়ে ওঠে। ইন্দো-গ্রীক রাজবংশের অধীনে গ্রেকো-বৌদ্ধধর্মের জন্য এই অঞ্চলটি একটি প্রধান কেন্দ্র ছিল এবং পরবর্তী সাম্রাজ্যের অধীনে গান্ধার-বৌদ্ধধর্মের জন্য এই অঞ্চলটি একটি প্রধান কেন্দ্র ছিল। এটি মধ্য এশিয়াপূর্ব এশিয়ায় বৌদ্ধ ধর্মের বিস্তারের কেন্দ্রীয় স্থান ছিল।[৬] এটি ব্যাক্ট্রিয়ান জরাথুস্ট্রবাদ এবং হিন্দুধর্মেরও কেন্দ্র ছিল।[৭] গান্ধার (গেরো-বৌদ্ধ) শিল্প স্থানীয় ঐতিহ্যের জন্য বিখ্যাত। এটি কুষাণ সাম্রাজ্যের অধীনে প্রথম শতাব্দীর থেকে ৫ম শতাব্দীর মধ্যে তার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেন। গান্ধার "এশিয়ার পারাপারের রাস্তা হিসেবে উদিত হয়ে" বাণিজ্য পথকে সংযুক্ত করে এবং বিভিন্ন সভ্যতার সাংস্কৃতিক প্রভাবগুলো গ্রহণ করে; ইসলাম ধর্ম এই অঞ্চলে রাজত্ব করতে শুরু করার পূর্বে ৮ম থেকে ৯ম শতাব্দী পর্যন্ত রাজ্যটি বৌদ্ধ ধর্মে দীক্ষিত হয়েছিল।[৮] ১১তম শতাব্দী পর্যন্ত পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় বৌদ্ধধর্মের প্রভাব স্থির ছিল।[৯]

ফার্সি শব্দটি 'শাহী' ইতিহাসবিদ আল-বুরুনি[১০] ব্যবহার করে রাজকীয় রাজবংশের[১১] উল্লেখ করেছিলেন, যা কাবুল শাহী[১২] থেকে এসেছিল এবং ১০তম ও ১১তম শতাব্দীর ইসলামিক বিজয়গুলোর পূর্বে এই অঞ্চলটিতে শাসন করেছিলেন। ১০০১ খ্রিষ্টাব্দে গাজনির মাহমুদ জয়লাভের পর গান্ধার নামটি অদৃশ্য হয়ে যায়। মুসলিম আমলে, লাহোর থেকে বা কাবুল থেকে অঞ্চলটি পরিচালিত হতো। মুঘল আমলে এটি কাবুল প্রদেশর একটি স্বাধীন জেলা ছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মাতৃ দেবী (উর্বরতা দেবী), সম্ভবত সিন্ধু সভ্যতা থেকে প্রাপ্ত (টেরাকোটা, সার ধেরী, গান্ধার, খ্রিস্টপূর্ব প্রথম শতাব্দী, ভিক্টোরিয়া ও অ্যালবার্ট যাদুঘর

প্রস্তর যুগ[সম্পাদনা]

গান্ধারে পাথরের সরঞ্জাম ও পুড়ে যাওয়া হাড়সহ প্রস্তর যুগের মানুষের বসবাসের প্রমাণ পাওয়া গেছে, যা মর্দানের নিকটবর্তী সাংহো অঞ্চলের গুহাগুলোতে আবিষ্কৃত হয়েছিল। গুহাগুলোর শিল্পকর্ম প্রায় ১৫,০০০ বছরের পুরানো। আরো সাম্প্রতিক খনন কার্যে পাওয়া তথ্য প্রমাণ বর্তমান সময়ের থেকে ৩০,০০০ বছর আগের সময়কালের ইতিহাসকে নির্দেশ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Lendering, Jona। "Gandara"। LIVIUS – Articles on Ancient History। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০১১ 
  2. Higham, Charles (২০১৪), Encyclopedia of Ancient Asian Civilizations, Infobase Publishing, পৃষ্ঠা 209–, আইএসবিএন 978-1-4381-0996-1 
  3. Khoinaijam Rita Devi (১ জানুয়ারি ২০০৭)। History of ancient India: on the basis of Buddhist literature। Akansha Publishing House। আইএসবিএন 978-81-8370-086-3 
  4. "Rigveda 1.126:7, English translation by Ralph TH Griffith" 
  5. Arthur Anthony Macdonell (১৯৯৭)। A History of Sanskrit Literature। Motilal Banarsidass Publishe। পৃষ্ঠা 130–। আইএসবিএন 978-81-208-0095-3 
  6. "UW Press: Ancient Buddhist Scrolls from Gandhara". Retrieved April 2018.
    • Schmidt, Karl J. (1995). An Atlas and Survey of South Asian History, p.120: "In addition to being a center of religion for Buddhists, as well as Hindus, Taxila was a thriving center for art, culture, and learning."
    • Srinivasan, Doris Meth (2008). "Hindu Deities in Gandharan art," in Gandhara, The Buddhist Heritage of Pakistan: Legends, Monasteries, and Paradise, pp.130-143: "Gandhara was not cut off from the heartland of early Hinduism in the Gangetic Valley. The two regions shared cultural and political connections and trade relations and this facilitated the adoption and exchange of religious ideas. [...] It is during the Kushan Era that a flowering of religious imagery occurred. [...] Gandhara often introduced its own idiosyncratic expression upon the Buddhist and Hindu imagery it had initially come in contact with."
    • Blurton, T. Richard (1993). Hindu Art, Harvard University Press: "The earliest figures of Shiva which show him in purely human form come from the area of ancient Gandhara" (p.84) and "Coins from Gandhara of the first century BC show Lakshmi [...] four-armed, on a lotus." (p.176)
  7. Kurt A. Behrendt (2007), The Art of Gandhara in the Metropolitan Museum of Art, pp.4-5,91
  8. Mohiuddin, Yasmeen Niaz (২০০৭)। Pakistan: A Global Studies Handbook (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। আইএসবিএন 9781851098019 
  9. Kalhana Rajatarangini referred to them as simply Shahi and inscriptions refer to them as sahi.(Wink, pg 125)
  10. Al Biruni refers to the subsequent rulers as "Brahman kings"; however, most other references such as Kalahan refer to them as kshatriyas. (Wink, pg 125)
  11. Kabul Shahi

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]