জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া
কওমী মাদরাসা
Jamiaislamiadarululoommadania03.jpg
ধরনস্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত১৯৬৯
প্রতিষ্ঠাতাকাজী মুতাসিম বিল্লাহ
অধ্যক্ষমাহমুদুল হাসান
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ
৮৭
শিক্ষার্থীপ্রায় ৮,০০০
ঠিকানা
৩১২ কুতুবখালী, দক্ষিণ যাত্রাবাড়ি,
, ,
সংক্ষিপ্ত নামযাত্রাবাড়ি মাদরাসা

জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশে ইসলামী শিক্ষা প্রচার-প্রসারে ঐতিহ্যবাহী এ প্রতিষ্ঠানটির অনেক ভূমিকা রয়েছে। এখান থেকে জ্ঞানার্জন করছে প্রতি বছর হাজার হাজার শিক্ষার্থী । এই প্রতিষ্ঠানটি ঢাকা জেলার যাত্রাবাড়ি থানার কুতুবখালীতে অবস্থিত।

প্রতিষ্ঠাকাল ও প্রতিষ্ঠাতা[সম্পাদনা]

স্বাধীনতাপূর্ব ১৯৬৯খ্রিস্টাব্দের প্রথম দিকে অশিক্ষা ও কুশিক্ষায় প্রভাবান্বিত এলাকার মুসলিম সন্তানদের বেহাল দশা দেখে অস্থির ছিলেন জনাব রহম আলী সাহেব। তাদের প্রকৃত শিক্ষা-দীক্ষা ও আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার ব্রত নিয়ে তিনি কাজ শুরু করেন। এ উদ্দেশ্যে তিনি তার নিজস্ব জায়গা এই প্রতিষ্ঠানের নামের ওয়াকফ করে দেন। গড়ে উঠে নূরানী মকতব ও হিফজ বিভাগ। যার প্রথম দায়িত্বশীল ছিলেন হাফেজ আব্দুল কুদ্দুস সাহেব।[১][২]

প্রিন্সিপাল[সম্পাদনা]

মুহিউস সুন্নাহ মাওলানা মাহমূদুল হাসান। [৩][৪]

ভৌগিলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

রাজধানী ঢাকার দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের অন্তর্গত যাত্রাবাড়ি চৌরাস্তা থেকে সামান্য পূর্ব দিকে ওয়াপদা কলোনি সংলগ্ন। পূর্বপাশ: নব নির্মিত যাত্রাবাড়ি-গুলিস্তান ফ্লাইওভারের পূর্বসীমা কুতুবখালি খাল সংলগ্ন পশ্চিম পাড়েই একাধিক বহুতল ভবন বিশিষ্ট জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়ার অবস্থান। [৫][৬][৭]

আদর্শ[সম্পাদনা]

বিশ্ববিখ্যাত মাদারে ইলমী দারুল উলূম দেওবন্দের সিলেবাসভুক্ত আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের আদর্শ ভিত্তিক বৃহত্তর একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। [৮]

লক্ষ্য-উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

  • ইসলামি জ্ঞানভাণ্ডার সংরক্ষণ ও তার ব্যাপক প্রচার প্রসার, যার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালার বিধানাবলী ও সুন্নাতে নববী প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে নিয়মতান্ত্রিক শিক্ষা-দীক্ষার মাধ্যমে দূরদর্শী হক্কানি আলেম সৃষ্টি করা এবং তাদেরকে বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশ,জাতি ও বিশ্বসেবায় নিয়োজিত হওয়ার উপযু্ক্ত করে গড়ে তোলা।
  • বুলেটকৃত তালিকা আইটেম

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের আকিদা-বিশ্বাস অনুযায়ী হাদীস, আসার ও ফিকহে হানাফির সংরক্ষণ এবং দেওবন্দি সিলেবাস মোতাবেক শিক্ষা-দীক্ষার যথাযথ বাস্তবায়ন। [৯]

জামিয়ার শিক্ষাধারা[সম্পাদনা]

জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া গতানুগতিক কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নয়। সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে এ জামিয়া সাজিয়েছে তার পাঠপদ্ধতি ও শিক্ষা সিলেবাস। এখানে শিশু শ্রেণি থেকে দ্বীনি শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদীস(মাস্টার্স) পর্যন্ত শ্রেণি ভিত্তিক পাঠের সুব্যবস্থা রয়েছে। [১০] পাশাপাশি গবেষণামূলক উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের নিমিত্তে বেশ কয়েকটি অনুষদ বিদ্যমান। দাওরায়ে হাদীস সমাপন করার পর মেধাবী তরুণ আলেমদের সেখানে অধ্যয়ন ও গবেষণার বিপুল সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। যেন জাতিকে বহুমুখী যোগ্যতাসম্পন্ন বিচক্ষণ আলেম উপহার দেওয়া যায়। সুবিন্যস্ত সিলেবাসের ভিত্তিতে পর্যায়ক্রমে মৌলিকভাবে পবিত্র কুরআন, তাফসীর, হাদীস, ফিকহ, নাহব-সরফ, বৈষয়িক পর্যায়ে আরবি সাহিত্য, প্রয়োজনীয় বাংলা,ইংরেজি, গণিত, ইতিহাস, ভূগোল, অর্থনীতি, পৌরনীতি, দর্শন, বিজ্ঞান প্রভৃতি সমূদয় বিষয় শিক্ষা দেওয়া হয়। [১১]

জামিয়ার বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

  1. মকতব বিভাগ
  2. হিফজুল কুরআন বিভাগ
  3. কিতাব বিভাগ [৯]
  4. আত-তাখাসসুস ফি উলুমিল কুরআন (তাফসীর ও কুরআন গবেষণা অনুষদ)
  5. আত-তাখাসসুস ফি উলুমিল হাদীস (উচ্চতর হাদীস গবেষণা অনুষদ)
  6. আত-তাখাসসুস ফি ফিকহিল ইসলামি (ফতওয়া ও গবেষণা অনুষদ)
  7. দাওরাতুল লুগাতিল আরাবিয়্যাহ(আরবি ভাষা প্রশিক্ষণ কোর্স)
  8. কেরাতে সাবআ ও কেরাতে হাফস বিভাগ
  9. নূরানী মুয়াল্লিম প্রশিক্ষণ কোর্স
  10. দাওয়াত ও তাবলীগ
  11. রচনা ও প্রকাশনা বিভাগ[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]