সাহিত্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সাহিত্য, বলতে যথাসম্ভব কোন লিখিত বিষয়বস্তুকে বুঝায়। সাহিত্য শিল্পের একটি অংশ বলে বিবেচিত হয়, অথবা এমন কোন লেখনি যেখানে শিল্পের বা বুদ্ধিমত্তার আঁচ পাওয়া যায়, অথবা যা বিশেষ কোন প্রকারে সাধারণ লেখনি থেকে আলাদা৷ মোটকথা ইন্দ্রিয় দ্বারা জাগতিক বা মহাজাগতিক চিন্তা চেতনা, অনুভূতি, সৌন্দর্য্য ও শিল্পের লিখিত বা লেখকের বাস্তব জীবনের অনুভূতি হচ্ছে সাহিত্য। ধরন অনুযায়ী সাহিত্যকে কল্পকাহিনী বা বাস্তব কাহিনী কিংবা পদ্য, গদ্য এই দুইভাগে ভাগ করা যায়। পদ্যের মধ্যে ছড়া, কবিতা ইত্যাদি, গদ্যের মধ্যে প্রবন্ধ, নিবন্ধ, গল্প, উপন্যাস ইত্যাদি শাখা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা যায়। এছাড়াও অনেকে নাটককে আলাদা প্রধান শাখা হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করেন। নাটকের মধ্যে নাটিকা, মঞ্চনাটক ইত্যাদিকে ভুক্ত করা যায়।

প্রধান ধারা[সম্পাদনা]

পদ্য[সম্পাদনা]

পদ্য হল সাহিত্যিক ধারার একটি রূপ, যা কোন অর্থ বা ভাব প্রকাশের জন্য গদ্যছন্দে প্রতীয়মান অর্থ না ব্যবহার করে ভাষার নান্দনিক ও ছন্দবদ্ধ গুণ ব্যবহার করে থাকে।[১] পদ্যে ছন্দোবদ্ধ বাক্য ব্যবহারের কারণে গদ্য থেকে ভিন্ন। গদ্য বাক্য আকারে লেখা হয়, পদ্য ছত্র আকারে লেখা হয়। গদ্যের পদবিন্যাস এর অর্থের মাধ্যমে বুঝা যায়, যেখানে পদ্যের পদবিন্যাস কবিতার দৃশ্যমান বিষয়বস্তুর উপর নির্ভরশীল।[২]

গদ্য[সম্পাদনা]

গদ্য হল ভাষার একটি রূপ, যা সাধারণ পদবিন্যাস ও স্বাভাবিক বক্তৃতার ছন্দে লেখা হয়।[৩][৪] গদ্যের ঐতিহাসিক বিকাশ প্রসঙ্গে রিচার্ড গ্রাফ লিখেন, "প্রাচীন গ্রিসের ক্ষেত্রে সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা যায় যে গদ্য তুলনামূলকভাবে অনেক পরে বিকশিত হয়েছে, এই "আবিষ্কার" ধ্রুপদী যুগের সাথে সম্পর্কিত।"[৫]

নাটক[সম্পাদনা]

নাটক হল এমন এক ধরনের সাহিত্য যার মূল উদ্দেশ্য হল তা পরিবেশন করা।[৬] সাহিত্যের এই ধারায় প্রায়ই সঙ্গীতনৃত্যও যুক্ত হয়, যেমন গীতিনাট্যগীতিমঞ্চমঞ্চনাটক হল নাটকের একটি উপধরন, যেখানে একজন নাট্যকারের লিখিত নাটকীয় কাজকে মঞ্চে পরিবেশন করা হয়ে থাকে। এতে চরিত্রগুলোর সংলাপ বিদ্যমান থাকে এবং এতে পড়ার পরিবর্তে নাটকীয় বা মঞ্চ পরিবেশনা হয়ে থাকে।[৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "কবিতা, ন."অক্সফোর্ড ইংরেজি অভিধান। ওইউপি। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৫, ২০১৮  (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  2. Preminger & Brogan 1993, পৃ. 938–9
  3. Preminger & Brogan 1993, পৃ. 938-9
  4. Alison Booth; Kelly J. Mays। "Glossary: P"LitWeb, the Norton Introduction to Literature Studyspace। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  5. Graff, Richard (২০০৫)। "Prose versus Poetry in Early Greek Theories of Style"। Rhetorica: A Journal of the History of Rhetoric23 (4): 303–35। doi:10.1525/rh.2005.23.4.303জেস্টোর 10.1525/rh.2005.23.4.303  (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  6. Elam, Kier (১৯৮০)। The Semiotics of Theatre and Drama। London and New York: Methuen। পৃষ্ঠা 98। আইএসবিএন 0-416-72060-9 
  7. Cody, Gabrielle H. (২০০৭)। The Columbia Encyclopedia of Modern Drama (Volume 1 সংস্করণ)। New York City: Columbia University Press। পৃষ্ঠা 271। 

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

  • Preminger, Alex; V. F. Brogan, Terry (১৯৯৩)। The New Princeton Encyclopedia of Poetry and Poetics। US: Princeton University Press। আইএসবিএন 0-691-02123-6 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]