সরকারি মাদ্রাসা-ই-আলিয়া, ঢাকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাদ্রাসা-ই-আলিয়া
ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা
১০০px
প্রাক্তন নাম
মাদ্রাসা-ই-আলিয়া, কলকাতা (১৮৭০- ১৯৪৭)
মাদ্রাসা-ই-আলিয়া, ঢাকা (১৯৪৭- বর্তমান)
নীতিবাক্যপড় তোমার প্রভুর নামে যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন
স্থাপিত১৭৮০ খ্রিস্টাব্দ, কলকাতা
১৯৪৭ সালে ঢাকায় স্থানান্তরন
প্রতিষ্ঠাতাজেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস
অধিভুক্তিইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ (২০০৬- ২০১৬)
ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় (২০১৬- বর্তমান)
অধ্যক্ষপ্রফেসর মোহাম্মদ আলমগীর রহমান
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
১৩
অবস্থান
১/২ অরফানেজ রোড, বকশীবাজার , ঢাকা ১২১১[১]
ভাষাআরবী, বাংলা
সংক্ষিপ্ত নামঢাকা আলিয়া
ওয়েবসাইটhttps://www.dhkgovmalia.edu.bd

মাদ্রাসা-ই-আলিয়া ঢাকা বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী আলিয়া মাদ্রাসা যা ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা নামে অধিক খ্যাত। ১৭৮০ সালে বাংলার ফোর্ট উইলিয়ামের গর্ভনর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস কর্তৃক কলকাতায় কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগ হলে আলিয়া মাদ্রাসা কলকাতা থেকে ঢাকায় স্থানান্তরিত হয়। যখন ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়, তখন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ছিলেন খান বাহাদুর মাওলানা জিয়াউল হক, তিনিই এই মাদ্রাসার প্রথম অধ্যক্ষ।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা, ঢাকা দাপ্তরিক ভাবে মাদ্রাসা-ই-আলিয়া নামে পরিচিত। ১৭৮০ সালে বাংলার ফোর্ট উইলিয়ামের গর্ভনর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিসং কর্তৃক কলকাতায় প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৭৮০-১৮৫৪[সম্পাদনা]

১৭৮১ থেকে ১৮১৯ সাল পর্যন্ত আলিয়া মাদ্রাসা বোর্ড অব গভর্নরস’ দ্বারা এবং ১৮১৯ থেকে ১৮৫০ সাল পর্যন্ত ইংরেজ সেক্রেটারি ও মুসলমান সহকারী সেক্রেটারির অধীনে ‘বোর্ড অব গভর্নরস’ দ্বারা পরিচালিত হয়। ১৮৫০ সালে আলিয়া মাদ্রাসায় অধ্যক্ষের পদ সৃষ্টি হলে ড. এ. স্প্রেংগার মাদ্রাসার প্রথম অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন। ১৮৫০ সাল থেকে ১৯২৭ সাল পর্যন্ত ইংরেজ কর্মকর্তাগণ এ পদ অলঙ্কৃত করেন। ১৮২৯ সালে আলিয়া মাদ্রাসায় ইংরেজি বিভাগ খোলা হয়। ১৮৫৯ সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ ৩৪ বছরে এ বিভাগে ১৭৮৭ জন শিক্ষার্থী লেখাপড়া করেন।

১৮৫৪-১৯৪৭[সম্পাদনা]

১৮৫৪ সালে মাদ্রাসায় একটি পৃথক ইনস্টিটিউট হিসেবে ইঙ্গ-ফারসি বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। এখানে ভর্তির সময় শরাফতনামা (উচ্চ বংশে জন্মের সনদপত্র)-র উপর জোর দেওয়া হতো। ইংরেজি এবং ফারসি ভাষায় শিক্ষাদানের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত ইঙ্গ-ফারসি বিভাগের উদ্দেশ্য ছিল শিক্ষার্থীদের এন্ট্রান্স পরীক্ষায় অংশগ্রহণের উপযোগী করে গড়ে তোলা। ইঙ্গ-ফারসি বিভাগ মুসলিম অভিজাতদের মধ্যে তেমন আগ্রহ সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়। ১৮২১ সালে মাদ্রাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের বিরোধিতা সত্ত্বেও মাদ্রাসায় প্রথাগত পরীক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়। ১৮৫৪ সালের শিক্ষাসংক্রান্ত ‘ডেস্পাচ’-এ কলকাতা মাদ্রাসাকে প্রস্তাবিত কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নিয়ে আসার ইঙ্গিত থাকলেও মাদ্রাসাটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে আনা হয়নি। ১৮৬৩ সালে কলকাতা মাদ্রাসায় এফ.এ পর্যায়ের ক্লাস সংযোজিত হয়।

১৯০৭ সালে মাদ্রাসায় তিন বছর মেয়াদি কামিল কোর্স চালু হয়। ১৯২৭ সালে প্রথম মুসলিম ব্যক্তি খাজা কামালউদ্দীন আহমদ অধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরপর থেকে মাদ্রাসাটিতে ইসলামী শিক্ষা বেগবান হয়, এবং এরপর থেকে মাদ্রাসায় মুসলিমদের প্রভাব তৈরি হতে থাকে।

ঢাকায় স্থানান্তর (১৯৪৭)[সম্পাদনা]

১৯৪৭ দেশ ভাগ হয়ে গেলে ভারত ও বাংলাদেশ আলাদা স্বতন্ত্র দেশে পরিণত হয়, ফলে অবধারিত ভাবে মাদ্রাসা-ই আলিয়াকে কলকাতা থেকে ঢাকায় স্থানান্তরিত হয়। এবং নামকরণ করা হয় মাদ্রাসা-ই আলিয়া, ঢাকা। ১৯৬১ সালে মাদ্রাসা ঢাকার লক্ষ্মীবাজার থেকে বখশীবাজারে স্থানান্তরিত হয়, লক্ষ্মীবাজারে ইসলামিক ইন্টারমিডিয়েট কলেজ (বর্তমানে নজরুল কলেজ)-এ মাদ্রাসার কার্যক্রম চলতে থাকে। তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী আতাউর রহমান খান ১৯৫৮ সালের ১১ মার্চ ঢাকার বখশীবাজারে মাদ্রাসার চারতলাবিশিষ্ট নতুন ভবন ও ছাত্রাবাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসার প্রথম অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন খান বাহাদুর মাওলানা জিয়াউল হক

২০০৬ সালে ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের অধিভুক্ত হয়।[২] ২০১৬ সালে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠিত হলে, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থানান্তরিত হয়ে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চলে যায়।

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

সরকারি মাদরাসা-ই-আলিয়া, বকসীবাজার, ঢাকায় অবস্থিত। এই সরকারি মাদরাসার পশ্চিম দিকে "বাংলাদেশে মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড" পূর্বে মাদরাসার ছাত্রদের আবাসিক হল আল্লামা কাশগরী (রহঃ) হল

শিক্ষক-শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

বর্তমানে মাদ্রাসায় প্রায় ১৫০০ শিক্ষার্থী ও ৫০ জন শিক্ষক রয়েছেন। মাদ্রাসাটির রয়েছে সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার, কম্পিউটার ল্যাব, খেলারমাঠ এবং ছাত্রাবাস।

উল্লেখযোগ্য শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

  1. নওয়াব আবদুল লতিফ
  2. সৈয়দ আমীর আলী
  3. মোহাম্মাদ ফখরুদ্দীন (শিক্ষক)

অধ্যক্ষগণের তালিকা[সম্পাদনা]

প্রথম ২৬ জন ছিলেন ইউরোপিয়ান খ্রিষ্টান অধ্যক্ষ। ৩০ জন অধ্যক্ষ দায়িত্ব পালন করার পর কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসা ঢাকায় স্থানান্তরিত হয়, এবং ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা নামে পরিচালিত হতে থাকে।

  1. এ স্প্রেংগার (এম, এ) - (১৮৫০- ১৮৭০)
  2. স্যার উইলিয়াম নাসনলীজ (এল, এল, ডি) - (১৮৭০- ১৮৭০)
  3. জে স্যাটক্লিফ (এম, এ) - (১৮৭০- ১৮৭৩)
  4. এফ ব্রকম্যান (এম, এ) - (১৮৭৩- ১৮৭৮)
  5. এ ই গাফ (এম, এ) - (১৮৭৮- ১৮৮১)
  6. এ এফ আর হোর্নেল (সি, আই, ই), ( পি, এইচ, ডি) - (১৮৮১- ১৮৯০)
  7. এইচ প্রথেরো (এম, এ) - (১৮৯০- ১৮৯০)
  8. এ এফ হোর্নেল - (১৮৯০- ১৮৯২)
  9. এ জে রো - (এম, এ) - (১৮৯২- ১৮৯২)
  10. এ এফ হোর্নেল - (১৮৯২-১৮৯৫)
  11. এ জে রো - (১৮৯৫-১৮৯৭)
  12. এ এফ হোর্নেল - (১৮৯৭- ১৮৯৮)
  13. এফ জে রো - (১৮৯৮- ১৮৯৯)
  14. এফ সি হল - (১৮৯৯- ১৮৯৯)
  15. স্যার অর‍্যাল স্টেইন - (১৮৯৯- ১৯০০)
  16. এইচ এ স্টার্ক - (১৯০০- ১৯০০)
  17. কর্ণেল রেস্কিং - (১৯০০- ১৯০১)
  18. এইচ এ স্টার্ক - (১৯০১- ১৯০৩)
  19. এডওয়ার্ড ভেনিসন - (১৯০৩- ১৯০৩)
  20. এইচ ই স্টেপেল্টন - (১৯০৩-১৯০৪)
  21. ডেনিসন রাস - (১৯০৪-১৯০৭)
  22. মিঃ চিফম্যান - (১৯০৭- ১৯০৮)
  23. এডওয়ার্ড ডেনিসন - (১৯০৮- ১৯১১)
  24. এ এইচ হারলি - (১৯১১- ১৯২৩)
  25. জে এম বুটামলি - (১৯২৩- ১৯২৫)
  26. এ এইচ হারলি - (১৯২৫- ১৯২৭)
  27. খাজা কামালউদ্দীন আহমদ- (১৯২৭-১৯২৮) (প্রথম মুসলিম অধ্যক্ষ) [২]
  28. খান বাহাদুর মোহাম্মদ হেদায়াত হোসাইন (১৯২৮- ১৯৩৪)
  29. খান বাহাদুর মোহাম্মদ মুসা (১৯৩৪- ১৯৪১)
  30. মোহাম্মদ ইউসুফ (১৯৪২- ১৯৪৩)
  31. খান বাহাদুর জিয়াউল হক (১৯৪৩- ১৯৫৪) (ঢাকায় স্থানান্তরিত, ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসার প্রথম অধ্যক্ষ)
  32. মৌলভী শেখ সরাফ উদ্দিন (১৯৫৪- ১৯৫৫)
  33. মৌলভী মকবুল আহমেদ (১৯৫৫- ১৯৫৭)
  34. মাওলানা হাফেজ আব্দুল হাফিজ (১৯৫৭- ১৯৬৪)
  35. মাওলানা আব্দুল লতিফ ফারুকী (১৯৬৪- ১৯৬৯)
  36. সাঈদ এ এল মোহাম্মদ লুতফুল হক (১৯৬৯- ১৯৭১)
  37. মাওলানা মোহাম্মদ জালালুদ্দিন (১৯৭১- ১৯৭৩
  38. মাওলানা মোহাম্মদ ইয়াকুব শরীফ (১৯৭৩- ১৯৭৩)
  39. ড. এ কে এম আইউব আলী (১৯৭৩- ১৯৭৯)
  40. মাওলানা মোহাম্মদ ইয়াকুব শরীফ (১৯৭৯- ১৯৮৩)
  41. মাওলানা আব্দুল মান্নান (১৯৮৩- ১৯৮৪)
  42. প্রফেসর মোহাম্মদ ইউনুস শিকদার (১৯৮৪- ১৯৯৭)
  43. মাওলানা আব্দুল মান্নান (১৯৯৭- ১৯৯৮)
  44. মাওলানা মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন (১৯৯০- ২০০০)
  45. প্রফেসর মোহাম্মদ এস এ আব্দুল্লাহ (২০০০- ২০০১)
  46. প্রফেসর মোহাম্মদ মনসূরুর রহমান (২০০২- ২০০৪)
  47. প্রফেসর মাওলানা নূর মোহাম্মদ (২০০৪- ২০০৫)
  48. হাসিবুর রহমান (ভারপ্রাপ্ত) (২০০৫- ২০০৫)
  49. প্রফেসর মাওলান মোহাম্মদ ইয়াসিন (২০০৫- ২০০৫)
  50. এ কে এম ইসহাক আলী (ভারপ্রাপ্ত) (২০০৫- ২০০৫)
  51. প্রফেসর মোহাম্মদ ইসমাঈল গনী (২০০৫- ২০০৯)
  52. মোহাম্মদ আলমগীর রহমান (ভারপ্রাপ্ত) (২০০৯- ২০০৯)
  53. প্রফেসর মোহাম্ম একে এম ইয়াকুব হোসাইন (২০০৯- ২০১৩)
  54. সিরাজ উদ্দিন আহমাদ (ভারপ্রাপ্ত) (২০১৩- ২০১৩)
  55. প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আলী (ভারপ্রাপ্ত) (২০১৩- ২০১৩)
  56. প্রফেসর সিরাজ উদ্দিন আহমাদ (ভারপ্রাপ্ত) (২০১৩- ২০১৪)
  57. প্রফেসর সিরাজ উদ্দিন আহমাদ (২০১৪-
  58. প্রফেসর মোহাম্মদ আলমগীর রহমান বর্তমান [৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. dhkgovmalia.edu.bd
  2. "আলিয়া মাদ্রাসা - বাংলাপিডিয়া"bn.banglapedia.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২ 
  3. "সরকারি মাদ্রাসা-ই-আলিয়া | GOVT. MADRASAH-E-ALIA"www.dhkgovmalia.edu.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৬-০২