আব্দুল হামিদ সোয়াতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শাইখুল হাদিস, মাওলানা, সুফি

আব্দুল হামিদ খান সোয়াতি
عبد الحمید خان سواتی
আরবি ক্যালিগ্রাফিতে আব্দুল হামিদ সোয়াতির নাম
ব্যক্তিগত
জন্ম১৯১৭
মৃত্যু৬ এপ্রিল ২০০৮(2008-04-06) (বয়স ৯০–৯১)
মৃত্যুর কারণগুজরানওয়ালা
সমাধিস্থলকালান গুজরানওয়ালা কবরস্থান
ধর্মইসলাম
জাতীয়তা ব্রিটিশ ভারতীয় (১৯১৭-১৯৪৭)
 পাকিস্তানি (১৯৪৭-২০০৮)
সন্তানমুহাম্মদ ফাইয়াজ খান সোয়াতি
আখ্যাসুন্নি
প্রধান আগ্রহহাদিস
যেখানের শিক্ষার্থীদারুল উলুম দেওবন্দ
সরকারি নাজামিয়া টিব্বি কলেজ
দারুল মুবাল্লিগীন লখনউ
পেশাইসলামি পণ্ডিত
লেখক
ইমাম
প্রভাষক
আত্মীয়সরফরাজ খান সফদার (ভাই)
জাহিদুর রশদি (ভাস্তে)
প্রতিষ্ঠানজামিয়া নুসরাতুল উলুম গুজরানওয়ালা
এর প্রতিষ্ঠাতাজামিয়া নুসরাতুল উলুম গুজরানওয়ালা
মুসলিম নেতা
শিক্ষকহুসাইন আহমদ মাদানি
আব্দুশ শাকুর লখনভি
উত্তরসূরীমুহাম্মদ ফাইয়াজ খান সোয়াতি
শিক্ষার্থী
পেশাইসলামি পণ্ডিত
লেখক
ইমাম
প্রভাষক

আব্দুল হামিদ খান সোয়াতি (১৯১৭ - ৬ এপ্রিল ২০০৮) (উর্দু: عبد الحمید خان سواتی) ছিলেন একজন পাকিস্তানি ইসলামি পণ্ডিত, লেখক, ইমাম, প্রভাষক এবং জামিয়া নুসরাতুল উলুম গুজরানওয়ালার প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ছিলেন মুহাম্মদ সরফরাজ খান সফদারের ছোট ভাই এবং জাহিদুর রাশদির চাচা।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

আব্দুল হামিদ খান সোয়াতি ১৯১৭ সালে মনসেহরা জেলার শিনকিয়ারি থেকে কয়েক মাইল দূরে কুরমাং বালা পাহাড়ের চূড়ায় চিরান ঢাকিতে নূর আহমদ খানের পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে তার মা মারা যান। কিছু দিন পরে তার বাবাও মারা যান এবং তিনি তার ভাই মুহাম্মদ সরফরাজ খান সফদারের সাথে বুফা, মালিকপুর, খাখো, লাহোর, ওয়াডালা সিন্ধওয়ান, জাহানিয়ান মান্ডি, গুজরানওয়ালা এবং অন্যান্য জায়গার বিভিন্ন মাদ্রাসাতে একসাথে পড়াশোনা চালিয়ে যান এবং তারপরে ১৯৪১ সালে দারুল উলুম দেওবন্দে পৌঁছান। সেখানে তারা হুসাইন আহমদ মাদানি এবং অন্যান্য বিখ্যাত পণ্ডিতদের কাছ থেকে শিক্ষালাভ করেন। সোয়াতি সরকারী নিজামিয়া টিব্বি কলেজ এবং দারুল মুবাল্লিগিন লখনউতে আব্দুল শাকুর লখনভির অধীনে পড়াশোনা করেছিলেন।[১] [২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

স্নাতক শেষ করে গুজরানওয়ালায় ফিরে আসার পর তিনি কিছু সময়ের জন্য খায়ালি এবং কৃষ্ণ নগর (ফয়সালাবাদ পাড়া) এর কিছু মসজিদে ধর্মীয় সেবা করেন এবং চক নিয়ানে একটি ক্লিনিক শুরু করেন।১৯৫২ সালে তার শিক্ষক মুফতি আব্দুল ওয়াহিদ এবং অন্যান্য পণ্ডিতদের পরামর্শে, তিনি একটি ধর্মীয় মাদ্রাসা নুসরাতুল উলুম এবং একটি মসজিদ জামিয়া মসজিদ নূর নির্মাণ শুরু করেন। এবং ছিল আহমদ আলী লাহোরি, আবদুল্লাহ দরখাস্তি এবং মুফতি আবদুল ওয়াহিদ এবং তার ভাই মুহাম্মদ সরফরাজ খান সফদার তাকে এই কাজে সাহায্য করেছিল। [৩]

রচনাবলী[সম্পাদনা]

সোয়াতি বেশ কয়েকটি বই লিখেছেন, যেমন;

  • মালিমুল ইরফান ফি দারুসুল কুরআন [৪]
  • খুতবাতে সোয়াতি [৫]
  • মাকালাতে সোয়াতি [৬]
  • আউনুল খাবির [৭]

মৃত্যু এবং উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

৫ এপ্রিল ২০০৮ সালে দীর্ঘ অসুস্থতার পর সোয়াতি মারা যান এবং কালান গুজরানওয়ালা কবরস্থানে সমাহিত হন। তিনি তিন পুত্র রেখে গেছেন, তার উত্তরসূরী মাওলানা হাজী মুহাম্মদ ফাইয়াজ খান সোয়াতি, মাওলানা মুহাম্মদ রিয়াজ খান সোয়াতি এবং মাওলানা মুহাম্মদ আরবাজ খান সোয়াতি। [৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Zahid Ur Rashdi"حضرت مولانا صوفی عبد الحمید سواتیؒ کا سانحہ وفات"। Alsharia.org। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২১ 
  2. محمد اقبال; ڈاکٹر سید عبدالغفار بخاری। "SūfīAbdul Hamīd Swātī's Style & Methodology in "Durūs Al Hadīth"" (PDF)National University of Modern Languages: 1-26। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২১ 
  3. اسماء نور; پروفیسر ڈاکٹر عبدالغفور اعوان। "صوفی عبدالحمید سواتی کی علمی خدمات کا جائزہ" (PDF)। gjmsweb.com/: 336-351। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২১ 
  4. Zahid Ur Rashdi"'دروس الحدیث"। zahidrashdi.org। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২১ 
  5. https://www.worldcat.org/title/khutbat-i-svati/oclc/783516316
  6. https://www.worldcat.org/title/maqalat-i-svati/oclc/789139676
  7. "Aun al Khabir Shrha al Fouz Ul Kabir Fi Usool al Tafsir" 
  8. محمد اقبال; ڈاکٹر سید عبدالغفار بخاری। "SūfīAbdul Hamīd Swātī's Style & Methodology in "Durūs Al Hadīth"" (PDF)National University of Modern Languages: 1-26। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২১ محمد اقبال; ڈاکٹر سید عبدالغفار بخاری. "SūfīAbdul Hamīd Swātī's Style & Methodology in "Durūs Al Hadīth"" (PDF). Al-Basirah. National University of Modern Languages. 5 (2): 1-26. Retrieved 24 June 2021.