আসাদ মাহমুদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আসাদ মাহমুদ
পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৩ আগস্ট ২০১৮
সংসদীয় এলাকাএনএ-৩৭
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মডেরা ইসমাইল খান জেলা, পাকিস্তান
জাতীয়তাপাকিস্তানি
রাজনৈতিক দলমুত্তাহিদা মজলিসে আমল
সম্পর্কমুফতি মাহমুদ (পিতামহ)

মাওলানা লুৎফুর রহমান (চাচা)

আতাউর রহমান (চাচা)[১]
পিতামাতাফজলুর রহমান

আসাদ মাহমুদ (উর্দু: اسد محمود‎‎) একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ, যিনি আগস্ট ২০১৮ সাল থেকে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য। তিনি পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের ধর্মীয় বিষয় ও আন্তঃবিশ্বাস সম্প্রীতি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।[২]

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

আসাদ মাহমুদ ডেরা ইসমাঈল খান জেলার আব্দুল খয়েল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মাওলানা মুফতী ফজলুর রহমান[২]

রাজনৈতিক ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

আসাদ মাহমুদ ২০১৩ সালের পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচনী এলাকা এনএ-৩৭ (ট্যাঙ্ক) থেকে মুত্তাহিদা মজলিসে আমল (এমএমএ) প্রার্থী হিসাবে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।[৩] তিনি ২৮,৫০৪ ভোট পেয়ে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রার্থী হাবিব উল্লাহ খান কুন্ডিকে পরাজিত করেছিলেন।[৪] তার নির্বাচনের পরে এমএমএ তাকে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকারের পদে মনোনীত করে।[৫] ১৫ আগস্ট ২০১৮ সালে তিনি কাসিম সুরীর কাছে অফিস হারিয়েছেন।[৬] তিনি ধর্মীয় বিষয় ও আন্তঃবিশ্বস সম্প্রীতি সম্পর্কিত পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অর্জন[সম্পাদনা]

২০১৪ সালে আসাদ গ্রিন ট্যালেন্টস প্রতিযোগিতা জিতেন। জার্মানির পটসডামের ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট অফ কলয়েডস এবং ইন্টারফেসে ডাঃ টিম ফেলিংগার গ্রুপের সাথে তার গবেষণার সময় তিনি জ্বালানী কোষ এবং ধাতব-বায়ুতে ব্যয়বহুল পিটি-ভিত্তিক উপকরণ প্রতিস্থাপনের জন্য অ-মূল্যবান ধাতব অনুঘটককে সংশ্লেষণের জন্য একটি অভিনব পথ তৈরি করেছিলেন।

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

তার পিতা মাওলানা মুফতী ফজলুর রহমান জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের বর্তমান সভাপতি। ১৯৮৮ সাল থেকে বর্তমান পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য। সাবেক মন্ত্রী ও ২০০৪ থেকে ২০০৭ পর্যন্ত বিরোধীদলীয় নেতা ছিলেন। পিতামহ মুফতি মাহমুদ ছিলেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসে একজন সদস্য এবং জমিয়ত উলামায়ে হিন্দের অন্যতম একজন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও ১৯৭২ থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত খাইবার পাখতুনখোয়ার মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকারী ইসলামিক পণ্ডিত ও রাজনীতিবিদ ছিলেন। তিনি এবং তার পরিবার দেওবন্দী আন্দোলনের অংশ।[৭][৮][৯] চাচা আতাউর রহমান হচ্ছেন একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ। বর্তমানে তিনি সিনেটর হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। পিপিপি সরকারের সময় ২০০৮ থেক ২০১০ সাল পর্যন্ত তিনি ফেডারেল পর্যটন মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি খাইবার পাখতুনখুয়ার জবিআইয়ের(এফ) সহসভাপতি। তিনি জেআইআইয়ের (এফ) পাকিস্তানের আমির মাওলানা ফজল-উর-রেহমানের ভাই এবং তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর দ্বিতীয় পুত্র মাওলানা মুফতি মাহমুদ। মুফতি মাহমুদ ব্রিটিশ ভারতের এবং ১৯৪৭ সালের পূর্বে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের নেতা ছিলেন। আরেক চাচা মাওলানা লুৎফুর রহমান। তিনিও পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Wazir, Hamid Khan (৭ আগস্ট ২০১৮)। "Fazlur Rehman's son to be MMA's nominee for NA deputy speaker"Pakistan Today 
  2. "National Assembly of Pakistan - Profile"na.gov.pk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৬ 
  3. "Party-wise breakdown of NA seats as unofficial final results pour in"। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১৮ 
  4. "NA-37 Result - Election Results 2018 - Tank - NA-37 Candidates - NA-37 Constituency Details - thenews.com.pk"www.thenews.com.pk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১৮ 
  5. "MMA nominates Maulana Asad Mehmood as deputy speaker NA"Geo News। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৮ 
  6. "PTI's Asad Qaiser sworn in as NA speaker amid opposition ruckus"DAWN.COM। ১৫ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ আগস্ট ২০১৮ 
  7. "Profile: Maulana Fazlur Rahman"BBC। ৬ নভেম্বর ২০০২। ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৭ 
  8. Ehtasham Khan (১৮ জুলাই ২০০৩)। "Why did the Pak Maulana visit Deoband?"। Rediff। সংগ্রহের তারিখ ২ নভেম্বর ২০১৯ 
  9. "Maulana Fazlur Rehman"DAWN.COM। ৫ এপ্রিল ২০১৩। ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]