শেওড়াফুল–বিষ্ণুপুর ব্রাঞ্চ লাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শেওড়াফুলি—বিষ্ণুপুর ব্রাঞ্চ লাইন
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
শৃঙ্খলাংশবৈদ্যুতিক
অবস্থাকার্যকর
সেবাগ্রহণকারী অঞ্চলপশ্চিমবঙ্গ, ভারত
বিরতিস্থলশেওড়াফুলি
বিষ্ণুপুর
বিরতিস্থলসমূহ১৬+৬
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধনের তারিখ১৮৮৫
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালনাকারীপূর্ব রেল
প্রযুক্তিগত
রেললাইনের মোট দৈর্ঘ্য১২১ কিমি (৭৫ মা)
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ mm (5 ft 6 in) ব্রডগেজ
চালন গতি১০০ কিমি/ঘ (৬২ মা/ঘ) পর্যন্ত

টেমপ্লেট:Sheoraphuli–Bishnupur branch line

শেওড়াফুলি—বিষ্ণুপুর ব্রাঞ্চ লাইন (পূর্বতন শেওড়াফুলি—তারকেশ্বর ব্রাঞ্চ লাইন) হল হাওড়া—বর্ধমান মেন লাইনের্ শেওড়াফুলিবিষ্ণুপুর রেল স্টেশনের মধ্যে সংযোগরক্ষাকারী রেল লাইন। এই ১২১-কিলোমিটার long (৭৫ মা) দীর্ঘ লাইনটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হুগলিবাঁকুড়া জেলার মধ্যে প্রসারিত। শেওড়াফুলি হাওড়া স্টেশন থেকে ২৩ কিলোমিটার (১৪ মা) দূরে অবস্থিত। এটি কলকাতা শহরতলি রেল ব্যবস্থার অংশ। এই লাইনের একাংশ এখন নির্মাণাধীন এবং এর স্টেশনগুলি পর্যায়ক্রমে চালু হচ্ছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৮৫ সালের ১ জানুয়ারি শেওড়াফুলি—তারকেশ্বর ব্রাঞ্চ লাইনটি চালু করে তারকেশ্বর রেল কোম্পানি। ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানি এই পথে রেল চালাত।[১][২][৩] ১৯১৫ সালে তারকেশ্বর রেল কোম্পানিকে অধিগ্রহণ করে নেয় ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানি।[৪]

১৯১৭ সালে হাওড়া-বর্ধমান কর্ড লাইন চালু হয়। এই লাইনটি কামারকুন্ডু রেল স্টেশনে শেওড়াফু্লি—তারকেশ্বর ব্রাঞ্চ লাইনকে ক্রস করে।[৩]

১৮৮৫ সালে বেঙ্গল প্রভিন্সিয়াল রেলওয়ে তারকেশ্বর—মগরা ন্যারোগেজ রেল চালু করে। এই লাইনটি ১৯৫৬ সালে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ২০০৯-১০ সালে রেল বাজেটে তারকেশ্বর—মগরা লাইনটির সংস্কারের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল।[৫]

বৈদ্যুতীকরণ[সম্পাদনা]

১৯৫৭ সালে শেওড়াফুলি—তারকেশ্বর ব্রাঞ্চ লাইনটির প্রথম ৩,০০০ ভোল্ট ডিসি ব্যবস্থায় বৈদ্যুতীকরণ করা হয়। এরপর রেল এসি ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে ১৯৬৭ সালে লাইনটি ২৫ কেভি এসি ব্যবস্থায় রূপান্তরিত করা হয়।[৬] বৈদ্যুতীকরণের পর এই লাইনে ইএমইউ চালু হয়।

তারকেশ্বর—বিষ্ণুপুর সম্প্রসারণ[সম্পাদনা]

১৯৯৯-২০০০ সালে তারকেশ্বর—বিষ্ণুপুর প্রকল্পটির প্রস্তাব পাস হয়। কিন্তু পরবর্তী এক দশকে এই প্রকল্পের কাজ বিশেষ এগোয়নি। ২০০৯ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী হওয়ার পর এই কাজ আবার শুরু হয়।[৭] ২০০৩ সালে পূর্ব রেল এই প্রকল্পের বিস্তারিত রিপোর্ট দিয়েছিল। প্রস্তাবিত সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক লাইনটি তিন ভাগে বিভক্ত ছিল: তারকেশ্বর—আরামবাগ (২৬ কিলোমিটার), আরামবাগ—কোদাবাড়ি (১৬ কিলোমিটার) ও কোদাবাড়ি—বিষ্ণুপুর (৪৪ কিলোমিটার)।[৮]

২০১০ সালের ২৫ এপ্রিল তারকেশ্বর—তালপুকুর সেক্টরে ট্রেন চলাচল শুরু হয়।[৯] ২০১২ সালের ৪ জুন তালপুকুর—আরামবাগ লাইনে ট্রেন চলাচল শুরু হয়।[১০]

লাইন উদ্বোধন করার সময় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, আরামবাগ রেল স্টেশনটি পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্লচন্দ্র সেনের নামে ও মায়াপুর রেল স্টেশনটি রামমোহন রায়ের নামে নামাঙ্কিত হবে।[১১]

ওভারহেড বৈদ্যুতীকরণ না থাকায় রেল প্রথম দিকে ডিজেল-ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট (ডেমু) ট্রেন চালাত।[১০] ২০১২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর তৎকালীন রেলমন্ত্রী মুকুল রায় তারকেশ্বর পর্যন্ত বৈদ্যুতিক লাইন উদ্বোধন করেন।

২০০৯-১০ সালের রেল বাজেটে বিষ্ণুপুর বিষ্ণুপুর—গোকুলনগর সেক্টরের সম্পূর্ণ হওয়ার উল্লেখ আছে।[৫]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "Administration Report on the Railways in India" 1884–85
  2. R. P. Saxena। "Indian Railway History Time line"Irse.bravehost.com। ১৪ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৪ 
  3. "The Chronology of Railway development in Eastern Indian"। railindia। ২০০৮-০৩-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৭ 
  4. "Statistical abstract relating to British India from 1910-11 to 1919-20" London: His Majesty's Stationery Office 1922, which is on a DSAL statistical site at the University of Chicago.
  5. "Mamata's Gift to Bengal"। Express News Service, 4 July 2009। ২০১৩-০১-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৭ 
  6. "Indian Railways History (after independence)"। ২০১১-১০-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৭ 
  7. "Rail projects in jeopardy after Mamata quits UPA II"The Times of India। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  8. "Eastern Railway plans new route"The Times of India। ১৫ জুলাই ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  9. "ER officials gear up to complete project before deadline"The Statesman। ২২ মে ২০১২। ২৪ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  10. "Rly gives nod to Mamata project"The Statesman। ৩ জুন ২০১২। ২৪ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  11. "Mamata Banerjee to set up IT hub at Chinsurah in Hooghly district"SME News, India Mart। ৫ জুন ২০১২। ২৯ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]