নসিবপুর রেলওয়ে স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Indian Railways Suburban Railway Logo.svg
নসিবপুর
কলকাতা শহরতলি রেল স্টেশন
অবস্থান২ নং জাতীয় সড়ক, পুরুষোত্তমপুর, নসিবপুর, হুগলী জেলা, পশ্চিমবঙ্গ
ভারত
স্থানাঙ্ক২২°৪৮′৫৩″ উত্তর ৮৮°১৩′৪০″ পূর্ব / ২২.৮১৪৮৩৫° উত্তর ৮৮.২২৭৬৯৬° পূর্ব / 22.814835; 88.227696স্থানাঙ্ক: ২২°৪৮′৫৩″ উত্তর ৮৮°১৩′৪০″ পূর্ব / ২২.৮১৪৮৩৫° উত্তর ৮৮.২২৭৬৯৬° পূর্ব / 22.814835; 88.227696
উচ্চতা১৪ মিটার (৪৬ ফু)
মালিকানাধীনভারতীয় রেলওয়ে
পরিচালিতপূর্ব রেলওয়ে
লাইনশেওড়াফুলি-তারকেশ্বর ব্রাঞ্চ লাইন
প্ল্যাটফর্ম
রেলপথ
নির্মাণ
গঠনের ধরনআদর্শ (ভূপৃষ্ঠ স্টেশন)
সাইকেলের সুবিধাহ্যাঁ
অন্য তথ্য
অবস্থাচালু (সক্রিয়)
স্টেশন কোডSIU
বিভাগ হাওড়া
ইতিহাস
চালু১৮৮৫
বৈদ্যুতীকরণ১৯৫৭-৫৮
আগের নামতারকেশ্বর রেলওয়ে কোম্পানি
পরিষেবা
পূর্ববর্তী স্টেশন   কলকাতা শহরতলি রেল   পরবর্তী স্টেশন
পূর্ব লাইন
শেওড়াফুলি-বিষ্ণুপুর ব্রাঞ্চ লাইন
সামনে গোঘাট
অবস্থান
নসিবপুর পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
নসিবপুর
নসিবপুর
নসিবপুরের অবস্থান
নসিবপুর ভারত-এ অবস্থিত
নসিবপুর
নসিবপুর
নসিবপুরের অবস্থান

নসিবপুর রেলওয়ে স্টেশন হল ভারতের পূর্ব রেলওয়ে অঞ্চলের হাওড়া রেলওয়ে বিভাগের শেওড়াফুলি-তারকেশ্বর লাইনের একটি রেলওয়ে স্টেশন। এই স্টেশনটি কলকাতা শহরতলি রেল ব্যবস্থার অন্তর্গত। এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হুগলী জেলার ২ নং জাতীয় সড়কের পাশে নসিবপুরের পুরুষোত্তমপুরে অবস্থিত।[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৮৫ সালের ১ জানুয়ারি তারকেশ্বর রেলওয়ে কোম্পানি শেওড়াফুলি–বিষ্ণুপুর ব্রাঞ্চ লাইনটির সূচনা করে এবং এটি ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানির দ্বারা পরিচালিত হত। ১৯১৫ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ের দ্বারা তারকেশ্বর রেলওয়ে কোম্পানি অধিগৃহীত হয়েছিল।[৩] ১৯৫৭-৫৮ সালের মধ্যে ৩০০০ v DC সিস্টেম দ্বারা রেলওয়েটির বৈদ্যুতীকরণ করা হয়। ১৯৬৭ সালে ২৫ KV AC সিস্টেম দ্বারা নসিবপুর রেলওয়ে স্টেশনটিরও বৈদ্যুতীকরণ করা হয়।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "NSF/Nasibpur"। সংগ্রহের তারিখ জুন ৭, ২০১৯ 
  2. "NASIBPUR (NSF) Railway Station"ndtv.com। সংগ্রহের তারিখ জুন ৭, ২০১৯ 
  3. "The Chronology of Railway Development in Eastern India."। আগস্ট ২, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৭, ২০১৯ 
  4. "EMU local flagged off in remembrance of 60-year heritage"। সংগ্রহের তারিখ জুন ৭, ২০১৯