শিয়ালদহ–রানাঘাট লাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
     Indian Railways Suburban Railway Logo.svg
শিয়ালদহ–রানাঘাট লাইন
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
ধরনশহরতলি রেল
শৃঙ্খলাংশকলকাতা শহরতলি রেল
অবস্থাসক্রিয়
সেবাগ্রহণকারী অঞ্চলপশ্চিমবঙ্গ
বিরতিস্থলশিয়ালদহ
রানাঘাট জংশন
বিরতিস্থলসমূহ২৫
ওয়েবসাইটপূর্ব রেল
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধনের তারিখ১৮৬২; ১৫৬ বছর আগে (1862)
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালনাকারীপূর্ব রেল
চরিত্রআদর্শ
ঘাঁটি(গুলি)শিয়ালদহ
রানাঘাট জংশন
প্রযুক্তিগত
রেললাইনের মোট দৈর্ঘ্য৭৪ কিমি (৪৬ মা)
ট্র্যাক গেজব্রডগ্রেজ (১৬৭৬ এমএম)
চালন গতি১০০ কিমি/ঘন্টা
পথের মানচিত্র

km
৭৪
রানাঘাট জংশন
km
৬৮
Payradanga
৬২
চাকদহ
Kalyani Simanta
৫৩
60
পালপাড়া
Kalyani Ghoshpara
৫২
58
Simurali
Kalyani Shilpanchal
50
53
Madanpur
48
Kalyani
46
Kanchrapara
46
Kanchrapara
ব্যাণ্ডেল জংশন
42
Halisahar
Hooghly Ghat
ডানকুনি জংশন
22
Garifa
38
নৈহাটি জংশন
36
Kankinara
Belanagar
34
Jagaddal
Rajchandrapur
18
31
Shyamnagar
27
Ichhapur
Bally Halt
16
25
Palta
23
Barrackpore
21
Titagarh
Bally Ghat
15
19
Khardaha
বিবেকানন্দ সেতু
across হুগলী নদী
16
Sodpur
দক্ষিণেশ্বর
14
14
আগরপাড়া
Baranagar Road
12
12
Belgharia
7
দমদম জংশন কলকাতা মেট্রো
পাতিপুকুর
কলকাতা
4
বিধাননগর রোড
শিয়ালদহ উত্তর & শিয়ালদহ মেইন
0
স্যার গুরুদাস ব্যানার্জী হল্ট
শিয়ালদহ দক্ষিণ
0
পার্ক সার্কাস
3
km
km

উৎস: ভারতীয় রেলওয়ে সময় সারনী

শিয়ালদহ–রানাঘাট লাইন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শিয়ালদহ এবং রাণাঘাটকে সংযুক্ত করে। এই রেলপথে কলকাতা রেলওয়ে স্টেশন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, কলকাতা কর্ড লিংক দ্বারা ডানকুনিতে হাওড়া-বর্ধমান কর্ডের সঙ্গে এবং ব্যান্ডেলে হাওড়া-বর্ধমান মেইন লাইন এর সঙ্গে যুক্ত রয়েছে নৈহাটি স্টেশন থেকে। কল্যাণী সীমান্ত স্টেশনের সঙ্গেও রেলপথটি যুক্ত। কলকাতা মেট্রো এবং কলকাতা সার্কুলার রেলওয়েতে এই রেলপথ পরিবর্তনের সুবিধা রয়েছে। এটি কলকাতা শহরতলির রেল ব্যবস্থার অংশ এবং পূর্ব রেলের আধিকারিক অধীন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শিয়ালদহ থেকে রানাঘাট পর্যন্ত পূর্ববাংলা রেলওয়ে প্রধান লাইনটি ১৮৬২ সালে খোলা হয় এবং দুই মাসের মধ্যে বর্তমান বাংলাদেশের কুষ্টিয়ায় প্রসারিত হয়। একই বছর রেলওয়ের কলকাতা টার্মিনাস শিয়ালদহে চালু করা হয়েছিল টিনের ছাদসহ। [১] ১৮৬৪ সালে রেলপথটি গোয়ালন্দ ঘাট পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছিল, যদিও এটি ১৮৭১ সালে খোলা হয়েছিল। [২]

নৈহাটি স্টেশন
দমদম রেলওয়ে স্টেশনের কাছে ব্যস্ত বাজার এলাকা।
রাণাঘাট স্টেশনে নাম বোর্ড

হুগলী নদীর পূর্ব তীরে পরিচালিত ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ের সাথে সংযুক্ত করা হয় নদীর পশ্চিমে পরিচালিত ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়েকে, যখন জুবিলি সেতু দ্বারা ব্যান্ডেল এবং নৈহাটি রেল সংযোগ ১৮৮৭ সালে খোলা হয়। কলকাতা কর্ড রেলওয়ে ১৯৩২ সালে উইলিংডন সেতু দ্বারা দমদম থেকে ডানকুনি পর্যন্ত লাইন নির্মাণ করেছিল। সেতুটিকে পরে বিবেকানন্দ সেতু নামকরণ করা হয়।

ওয়াল্টার গ্লানভিলে পরিকল্পিত শিয়ালদহের আসল স্টেশনটি ১৮৬৯ সালে নির্মিত হয়েছিল। তারপর এটিকে কলকাতা স্টেশন বলা হত। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির পরে এটি পুনরায় শিয়ালদহ স্টেশন নামে অভিহিত করা হয়।

ফিরে দেখা[সম্পাদনা]

নদিয়া জেলার রেলপথ ব্যবস্থার বিশদ বিবরণ রয়েছে প্রায় এক শতাব্দী আগের রাণাঘাট জেলা গেজেটে। জেলাটির একটি অংশ এখন বর্তমান বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত।

"বর্তমানে জেলা (১৯০৯) রেলওয়ের সাথে খুব ভালভাবে পরিসেবা দিয়েছে। পূর্ববাংলা রাজ্য রেলওয়ে প্রায় ১৭০ মাইল, বিস্তৃত গেজ তার সীমানার মধ্যে অবস্থিত। কলকাতা থেকে শিলিগুসড়ি পর্যন্ত প্রধান লাইনটি দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকে প্রায় জেলার মধ্য দিয়ে যায়; পদ্মায় দক্ষিণ সীমান্তে দামঞ্চদিয়ার কঞ্চপাড়া থেকে প্রায় ৯২ মাইল দূরত্বে ২১ টি স্টেশন রয়েছে। রানাঘাট জংশন থেকে লাল গোলা শাখা ররয়েছে! এটি উত্তর-পশ্চিম দিক অগ্রসর হয়; জেলাটির অভ্যন্তরে প্রায় ৪৮ মাইল দৈর্ঘ্য রয়েছে এবং এতে ৮ টি স্টেশন রয়েছে। " [৩]

ট্র্যাক[সম্পাদনা]

শিয়ালদহ-রাণাঘাট রেলপথে বর্তমানে দুটি ট্র্যাক রয়েছে। আশা করা হচ্ছে যে তৃতীয় ট্র্যাকের প্রস্তাব ২০১২ সালে বাজেট প্রস্তাবের অংশ হবে। [৪]

শিয়ালদহ - দমদম - নৈতটি- কল্যাণী - রাণাঘাট - কৃষ্ণনগর ট্র্যাকটি সি-শ্রেনির ট্র্যাক হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে, যা গতির শ্রেণিবিন্যাস নয়, তবে মহানগর এলাকার শহরতলি রেল পরিষেবার জন্য ব্যবহৃত হয়। [৫]

বৈদ্যুতীকরণ[সম্পাদনা]

শিয়ালদহ-রাণাঘাট রেলপথ ১৯৬৩ সালে বৈদ্যুতীকরণ করা হয়েছিল। দমদম-ডানকুনি, দমদম-চিতপুর ইয়ার্ড, এবং ব্যান্ডেল-নৈহাটি বিভাগগুলি ১৯৬৫ সালে বিদ্যুতায়িত হয়। [২] [৬]

যাত্রী[সম্পাদনা]

লাইন-ভিত্তিক বা রুট-ভিত্তিক যাত্রী তথ্য পাওয়া যায় না, তবে শিয়ালদাহ স্টেশনে প্রতিদিন ৭০৪ টি ট্রেনে (EMU স্থানীয়দের সহ) ১.৫ মিলিয়ন যাত্রী চলাচল করে এবং এই যাত্রী সংখ্যার একটি বড় অংশ এই রেলপথটি ব্যবহার করে, কারণ এটি প্রধান লাইন স্টেশন। [৭]

ট্রেন[সম্পাদনা]

শিয়ালদা থেকে গুরুত্বপূর্ণ ট্রেন এই রেলপথটি ব্যবহার করে: মৈত্রী এক্সপ্রেস ঢাকা পর্যন্ত, রাজধানী এক্সপ্রেস নয়া দিল্লি পর্যন্ত, দুরন্ত এক্সপ্রেস নয়া দিল্লি পর্যন্ত, অন্যান্য এক্সপ্রেস উদয়পুর পর্যন্ত , অকাল তক্ষক এক্সপ্রেস অমৃতসর পর্যন্ত, দার্জিলিং মেইল হলদিবাড়ি পর্যন্ত, ভাগীরথী এক্সপ্রেস লালগোলা পর্যন্ত, গৌড় এক্সপ্রেস বেলুরঘাটে পর্যন্ত, এবং উত্তর বঙ্গ এক্সপ্রেস নিউ কোচবিহার পর্যন্ত।

শিয়ালদাহ -পুরি দুুরন্ত এক্সপ্রেসটি ফেব্রুয়ারি ২০১২-এ চালু করা হয়েছিল, যা হাওড়া স্টেশনকে বাদদিয়ে শিয়ালদহ থেকে দক্ষিণ পূর্ব রেল পর্যন্ত প্রথম ট্রেন। এটা এই রেলপথের একটি অংশ উপর সঞ্চালিত হয়। [৮]

স্টেশন[সম্পাদনা]

এই রুটে রেল স্টেশনগুলি হল:

ক্রম ট্রেন স্টেশন
শিয়ালদহ
বিধানানগর রোড
দমদম জংশন
বেলঘড়িয়া
আগারপারা
সোদপুর
খড়দা
টিটাগড়
ব্যারাকপুর
১০ পলতা
১১ ইছাপুর
১২ শ্যামনগরে
১৩ জগদ্দল
১৪ কাকিনারি
১৫ নৈহাটি জংশন
১৬ হালিশহর
১৭ কাঞ্চরাপাড়া ওয়ার্কশপ গেট
১৮ কাঁচড়াপাড়া
১৯ কল্যাণী
২০ মদনপুর
২১ শিমুরালি
২২ পালপাড়া
২৩ চাকদহ
২৪ পায়রাডাঙা
২৫ রানাঘাট জংশন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. R.P. Saxena। "Indian Railway History timeline"IRFCA। ১৪ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  2. "The Chronology of Railway development in Eastern Indian"। railindia। ২০১২-০৮-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  3. J.H.E.Garrett। "Nadia, Bengal District Gazetteers (1910)"IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  4. "Mamata flags off railway project at Ranaghat"। The Statesman, 8 January 2011। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  5. "Permanent Way – Track Classification"IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  6. "History of Electrification"IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  7. "Few Toilets at Howrah, Sealdah"। The Times of India, 28 November 2001। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১০ 
  8. "Puri Duronto to merge railway zones"। The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]