হাওড়া-এলাহাবাদ-মুম্বাই লাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হাওড়া-এলাহাবাদ-মুম্বাই লাইন
Jabalpur stationboard.JPG
জবলপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন হাওড়া-এলাহাবাদ-মুম্বাই লাইনের একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশন
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
সিস্টেমসম্পুর্ণ বৈদ্যুতিক
অবস্থাসক্রিয়
অঞ্চল
বিরতিস্থলহাওড়া রেলওয়ে স্টেশন
ছত্রপতি শিবাজী টার্মিনাস
ওয়েবসাইট[১]
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন১৮৭০
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালক
ঘাঁটি(গুলি)
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য২০০৪ সালের আগে ২,১৬০ কিমি (১,৩৪২ মা), ২০০৪ সালের পর ২,১৪৬ কিমি (১,৩৩৩ মা)
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রডগেজ
চালন গতিসর্বোচ্চ ১৩০ কিমি/ঘ (৮১ মা/ঘ)
সর্বোচ্চ টিলাসর্বনিম্ন স্থান- হাওড়া রেলওয়ে স্টেশন ৮ মিটার (২৬ ফু) (আনুমানিক), সর্বোচ্চ স্থান- ঠুল গেট ১,৮৪৯ ফুট (৫৬৪ মি) (আনুমানিক)
বিদ্যুতায়নসম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক
পথের মানচিত্র
টেমপ্লেট:Howrah–Allahabad–Mumbai line

হাওড়া-এলাহাবাদ-মুম্বাই লাইনটি আনুষ্ঠানিকভাবে হাওড়া-প্রয়াগরাজ-মুম্বাই লাইন নামে পরিচিত একটি রেললাইন যা এলাহাবাদ হয়ে কলকাতা এবং মুম্বাইকে সংযুক্ত করে। ২,১৬০-কিলোমিটার (১,৩৪০ মা) দীর্ঘ রেললাইন ১৮৭০ সালে রেল চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এই রেললাইনটি ২০০৪ সাল পর্যন্ত ২,১৪৬-কিলোমিটার (১,৩৩৩ মা) দীর্ঘ ছিলো। ২০০৪ সালে ইন্দিরা সাগর বাঁধ নির্মাণের ফলে খান্ডোয়ার কাছে পুরানো সারিবদ্ধতা ডুবে যায় এবং ১৪-কিলোমিটার (৮.৭ মা) দীর্ঘ একটি নতুন প্রান্তিককরণ রিলাইড করা হয়।

বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

আরো বিস্তারিত অধ্যয়নের জন্য পুরো লাইনকে ছোট ছোট ভাগে ভাগ করা হয়েছে:

  1. হাওড়া-বর্ধমান কর্ড
  2. গ্ৰ্যান্ড কর্ড
  3. বর্ধমান-আসানসোল বিভাগ
  4. আসানসোল-গয়া বিভাগ
  5. গয়া-মুঘলসরাই বিভাগ
  6. মুঘলসরাই-এলাহাবাদ বিভাগ
  7. এলাহাবাদ-জবলপুর বিভাগ
  8. জব্বলপুর-ভুসাবল বিভাগ
  9. ভুসাওয়াল-কল্যাণ বিভাগ
  10. কল্যাণ-মুম্বাই সিএসটি বিভাগ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ভারতে প্রথম ট্রেনটি ১৬ এপ্রিল ১৮৫৩ সালে বোম্বে থেকে থানে ভ্রমণ শুরু করে। ১৮৫৪ সালের মে নাগাদ, গ্রেট ইন্ডিয়ান পেনিনসুলা রেলওয়ের বোম্বে-থানে লাইন কল্যাণ পর্যন্ত প্রসারিত করা হয়। এটি ১৮৫৫ সালে পলাশধারী হয়ে খোপোলি পর্যন্ত প্রসারিত হয়। বিশায়াল স্টেশন তৈরি হয় ১৮৬০ সালে এবং পুনের সাথে যুক্ত হয় ১৮৬৩ সালে। পূর্ব ভারতে, হাওড়া-দিল্লি প্রধান লাইনের নির্মাণ সম্পন্ন হয় এবং ১৮৬৫ সালে দিল্লি ও কলকাতার মধ্যে সংযোগ স্থাপন করা হয়। শেষ সংযোগটি ছিল এলাহাবাদে যমুনা সেতুর উপর। ১৮৬৬ সালে ভুসাওয়াল-খান্ডওয়া সেকশন খোলা হয় এবং জিআইপিআর নাগপুরেও তার কার্যক্রম সম্প্রসারিত করে। ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে, যেটি হাওড়া-এলাহাবাদ-দিল্লি লাইন স্থাপন করেছিল, ১৮৬৭ সালের জুন মাসে এলাহাবাদ- জবলপুর শাখা লাইন চালু করে। থুল ঘাটের উপর জিআইপিআর সংযোগ ৭ মার্চ ১৮৭৯ সালে ইটারসি থেকে জবলপুরে পৌঁছেছিল, এলাহাবাদ থেকে ইআইআর ট্র্যাকের সাথে সংযোগ স্থাপন করে এবং মুম্বাই ও কলকাতার মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে।

বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে ১৮৮৭ সালে নাগপুর ছত্তিশগড় রেলওয়েকে আপগ্রেড করার উদ্দেশ্যে এবং তারপর বিলাসপুর হয়ে আসানসোল পর্যন্ত প্রসারিত করার উদ্দেশ্যে গঠিত হয়ে, যাতে এলাহাবাদ হয়ে একটি ছোট হাওড়া-মুম্বাই রুট তৈরি করা হয়। নাগপুর থেকে আসানসোল পর্যন্ত বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে মেইন লাইন, হাওড়া-দিল্লি মেন লাইনে, পণ্য পরিবহনের জন্য ১৮৯১ সালের ফেব্রুয়ারি খোলা হয়। খড়গপুর পশ্চিম এবং দক্ষিণ থেকে যুক্ত হওয়ার পরেই এটি ১৯০০ সালে হাওড়ার সাথে যুক্ত হয়।

এই ট্র্যাকের উদ্বোধনটি ছিল ফরাসি লেখক জুলস ভার্নের আরাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড ইন এইটি ডেজ বইটির অনুপ্রেরণার অংশ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে, ভাইসরয় লর্ড মেয়ো উপসংহারে বলেছিলেন যে "এটি বাঞ্ছনীয় মনে করা হয়েছিল যে, যদি সম্ভব হয়, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, পুরো দেশকে একটি অভিন্ন ব্যবস্থায় লাইনের নেটওয়ার্কে আচ্ছাদিত করা উচিত।"

বিদ্যুতায়ন[সম্পাদনা]

আগস্ট ১৯৭৬ সালে, নতুন দিল্লি-হাওড়া রুট ( গ্র্যান্ড কর্ডের মাধ্যমে), এবং এতে হাওড়া-এলাহাবাদ-মুম্বাই লাইনের হাওড়া-এলাহাবাদ অংশ অন্তর্ভুক্ত ছিল, এটি ছিল দেশের প্রথম ট্রাঙ্ক রুট যা এসি ট্র্যাকশনের মাধ্যমে সম্পূর্ণরূপে বিদ্যুতায়িত করা হয়। ২০১১ সালের রেল বাজেটে ইটারসি - জবলপুর - এলাহাবাদের বিদ্যুতায়নের প্রস্তাব করা হয়।পুরো রুটটি ভাগ করা হয় এবং বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন করা হয়। ২০২০ সালের মার্চ মাসে, কাটনি জং এর মধ্যে শেষ অবশিষ্ট বিদ্যুতায়ন প্রসারিত করা হয়। এবং সাতনাও করা হয়, যার ফলে হাওড়া এলাহাবাদ মুম্বাই রুট সম্পূর্ণ বিদ্যুতায়িত হয়ে যায়।

গতিসীমা[সম্পাদনা]

লাইনটির বেশিরভাগই হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইন এবং হাওড়া–বর্ধমান কর্ড (একই লাইন এলাহাবাদ পর্যন্ত) লাইনটি সাধারণ 'এ' শ্রেণির লাইন হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে, যেখানে ট্রেনগুলি ১৬০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা (৯৯ মা/ঘ) পর্যন্ত চলতে পারে, তবে নির্দিষ্ট কিছু বিভাগে গতি ১২০–১৩০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা (৭৫–৮১ মা/ঘ) । ভুসাওয়াল থেকে মুম্বাই পর্যন্ত লাইনটিও 'এ' শ্রেণী। এলাহাবাদ-ভুসাওয়াল লাইনটি 'বি' শ্রেণীতে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে যেখানে ট্রেন ১৩০ কিলোমিটার/ঘন্টা পর্যন্ত চলতে পারে।

কলকাতা মেল[সম্পাদনা]

ইম্পেরিয়াল ইন্ডিয়ান মেল (এখন ১২৩২১ আপ / ১২৩২২ ডাউন হাওড়া-মুম্বাই মেল জবলপুর হয়ে), এই রুটে চলমান, সম্ভবত ভারতীয় রেলওয়ের প্রথম নামকৃত ট্রেন ছিল। এলাহাবাদ হয়ে মুম্বাই-হাওড়া মেলকে মুম্বাই এবং এলাহাবাদের মধ্যে কলকাতা মেল এবং এলাহাবাদ (বর্তমানে প্রয়াগরাজ) এবং হাওড়ার মধ্যে মুম্বাই মেল (কেউ কেউ এখনও এটিকে এর পুরানো নাম বোম্বে মেল বলে) বলে। এটি এখনও ১৫১ বছর ধরে ২,১৬০-কিলোমিটার long (১,৩৪০ মা) মাইল) দূরত্ব ৩৭ ঘন্টা এবং ৩০ মিনিটে চলে, এর চলমান গড় গতি ৫৭.৬ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা (৩৫.৮ মা/ঘ) ।

লেখার অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

কলকাতা-মুম্বাই সংযোগ, অন্যান্য ঘটনার সাথে, ফরাসি লেখক জুলেস ভার্নকে তার আশি দিনে বিশ্বজুড়ে বইটি লিখতে অনুপ্রাণিত করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]