আসানসোল–পাটনা বিভাগ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আসানসোল–পাটনা বিভাগ
Kiul Junction railway station IMG 20191101 142219-1.jpg
কিউল জংশন, আসানসোল–পাটনা বিভাগের একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশন।
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
অবস্থাচালু
অঞ্চলপশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, বিহার
বিরতিস্থলআসানসোল
পাটনা
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন১৮৭১
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালকপূর্ব রেল, পূর্ব মধ্য রেল
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য৩৩১ কিলোমিটার (২০৬ মাইল)
ট্র্যাক গেজ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি (১,৬৭৬ মিলিমিটার) ব্রডগেজ
চালন গতি১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত
বিদ্যুতায়ন25 kV 50 Hz AC OHLE ১৯৬০-৬১ এবং বাকি অংশ ১৯৯৪-১৯৯৫ থেকে ২০০০-২০০১ বৈদ্যুতিকরণ সম্পন্ন হয়।
পথের মানচিত্র

কিমি
হাওড়া-দিল্লি মূল লাইনের
পাটনা-মুঘলসরাই সেকশন
পর্যন্ত
পাটনা-গয়া লাইন পর্যন্ত
৩৩১
পাটনা জংশন
৩২৯
রাজেন্দ্র নগর টার্মিনাল
এনএইচ ১৯
৩২৫
গুলজারবাগ
৩২২
পাটনা সাহেব
পাটনা ঘাট
৩১৯
দিদারগঞ্জ
৩১৫
বাঁকা ঘাট
পুনপুন নদী
এসএইচ ৪
৩০৯
ফতুহা জংশন
ফতুহা-তিলাইয়া লাইন পর্যন্ত
৩০৭
বুদ্ধদেবচক যাদবনগর
৩০৬
হরদাস বিঘা
৩০১
খসরুপুর
২৯৭
মাঞ্ঝাউলিগ্রাম (হল্ট)
২৯৫
সেলিমপুর
২৯৩
করাউটা
২৯১
টেকা বিঘা (হল্ট)
২৮৬
বখতিয়ারপুর জংশন
বখতিয়ারপুর-তিলাইয়া লাইন পর্যন্ত
২৮০
জয়প্রকাশ মহুলী
২৭৭
আথমলগোলা
২৭৪
আচুয়ারা
২৬৮
বাঢ়
২৬৬
শহরী (হল্ট)
বাঢ় সুপার থার্মাল পাওয়ার স্টেশন
(এনটিপিসি লিমিটেড)
২৬২
রেইলি (হল্ট)
২৬০
লেমুয়াবাদ
২৫৮
পুনারখ
২৫৫
মেমরাখাবাদ
২৫৩
কানহাইপুর
২৪৯
মোর
২৪৭
বারহপুর (হল্ট)
২৪৪
শিবনার (হল্ট)
ভারত ওয়াগন অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং
২৪২
মোকামা জংশন
২৩৮
ঔণ্টা (হল্ট)
এনএইচ ৩১
২৩৭
তাল জংশন
মোকামা-বরাউনি বিভাগ
২৩৪
হাতিদহ জংশন
২৩০
রামপুর ডুমরা
২২৪
বড়হিয়া
২২২
গঙ্গাসরাই
২২০
ডুমরি (হল্ট)
২১৭
ধীরডাড় জোয়াস (হল্ট)
২১৫
মনকাঠা
গয়া-কিউল লাইন পর্যন্ত
২০৯
লক্ষ্মীসরাই জংশন
কিউল নদী
২০৮
কিউল জংশন
সাহেবগঞ্জ লুপ পর্যন্ত
২০৬
মহেশলেটা (হল্ট)
২০৫
লাখোচক (হল্ট)
২০৪
বংশীপুর
২০৩
বলহপুর (হল্ট)
২০১
মননপুর
১৯৮
ভালুই
১৯১
কুন্দর (হল্ট)
এসএইচ ৭২
১৮১
জামুই
১৭৮
চৌরা
১৬৬
গিধাউর
১৬২
দাদপুর
১৫৫
ঝাঝা
১৫১
রজলা
১৪৭
নরগঞ্জো (হল্ট)
১৪২
ঘোরপারন
১৩৬
শিমুলতলা
১৩৩
টেলোয়া বাজার
বিহার
ঝাড়খণ্ড
সীমান্ত
১২৬
লাহাবন
১১৮
তুলসীটাঁড়
দাহোয়া নদী
এনএইচ ৩৩৩
১১১
জসিডি জংশন
জসিডি-দুমকা-রামপুরহাট লাইন পর্যন্ত
১০৪
কুমড়াবাদ রোহিণী
অজয় নদী
৯৯
শঙ্করপুর
৯৩
মথুরাপুর
৮৭
নবপটরা
পথরোল নদী
মধুপুর-গিরিডি-কোডারমা লাইন পর্যন্ত
৮২
মধুপুর জংশন
৭২
জোড়ামৌ
জয়ন্তী নদী
৬৬
মদনকাটা
৫৭
বিদ্যাসাগর
মিহিজাম-মধুপুর রোড
৪৮
কাসীটাঁড়
মিহিজাম-মধুপুর রোড
৩৯
জামতাড়া
মিহিজাম-মধুপুর রোড
মিহিজাম-মধুপুর রোড
৩০
বোদমা
২৫
চিত্তরঞ্জন
ঝাড়খণ্ড
পশ্চিমবঙ্গ
সীমান্ত
আসানসোল-চিত্তরঞ্জন রোড
চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস
২১
রূপনারায়ণপুর
দামাগড়িয়া কয়লাখনি
১৩
সালানপুর
বনজেমাহারী কয়লাখনি
এনএইচ ২
হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইনের
আসানসোল-গয়া বিভাগ
পর্যন্ত
সীতারামপুর
বরাচক
আসানসোল-টাটানগর
-খড়গপুর লাইন
পর্যন্ত
আসানসোল জংশন
বর্ধমান-আসানসোল বিভাগ

আসানসোল–পাটনা বিভাগ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের আসানসোল এবং বিহারের পাটনাকে সংযুক্ত করে একটি রেলপথ। ৩৩১ কিলোমিটার (২০৬ মা) লাইনটি পশ্চিমবঙ্গের প্রান্তিক অঞ্চল, ঝাড়খন্ডের সাঁওতাল পরগণার একটি অংশ এবং বিহারের গাঙ্গেয় সমভূমির মধ্য দিয়ে গেছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

হাওড়া এবং দিল্লির মধ্যে প্রথম রেলপথ ছিল, যা পরে সাহেবগঞ্জ লুপ নামে নামকরণ করা হয় এবং এই রুটে প্রথম ট্রেনটি ১৮৬৪ সালে চালানো হয়। কিউল-পাটনা সেক্টর ১৮৬২ সালের দিকে প্রস্তুত করা হয়। ১৮৭১ সালে রানিগঞ্জ এবং কিউল জংশনকে সংযোগকারী একটি ছোট মেইন লাইন ছিল এবং ১৯০৭ সালে গ্র্যান্ড কর্ড খোলার ফলে হাওড়া থেকে দিল্লির দূরত্ব আরও কমে যায়। [১] [২][৩]

বিদ্যুতায়ন[সম্পাদনা]

আসানসোল-সীতারামপুর সেক্টরটি ১৯৬০-৬১ সালে বিদ্যুতায়িত হয় এবং আসানসোল-পাটনা সেকশনের বাকি অংশটি ১৯৯৪-৯৫ থেকে ২০০০-০১ সময়কালে বিদ্যুতায়িত হয়। সেক্টর ভিত্তিক অগ্রগতি নিম্নরূপ ছিল: সীতারামপুর-চিত্তরঞ্জন ১৯৯৪-৯৫, চিত্তরঞ্জন-জামতারা ১৯৯৫-৯৬, জামতারা-জাসিডিহ ১৯৯৬-৯৭, জাসিডিহ-নারগঞ্জো ১৯৯৭-৯৮, নারগঞ্জ-ঝাঝা ১৯৯৭-৯৮, কিউল–মানকথা ১৯৯৯-২০০০, মানকথা–বারহাইয়া ২০০০-০১, বারহাইয়া–মোকামা ১৯৯৯-২০০০ মোকামা–ফতুহা ১৯৯৮-৯৯, ফতুহা–দানাপুর ১৯৯৯-২০০০।[৪]

গতিসীমা[সম্পাদনা]

পুরো সীতারামপুর-পাটনা-মুঘলসরাই লাইনটিকে "বি ক্লাস" লাইন হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে, যেখানে ট্রেনগুলি ১৩০ কিলোমিটার ঘন্টা পর্যন্ত গতিতে চলতে পারে।[৫]

যাত্রী চলাচল[সম্পাদনা]

পাটনা এবং আসানসোল লাইনে, ভারতীয় রেলওয়ের শীর্ষ শতাধিক বুকিং স্টেশন রয়েছে৷[৬]

শেড এবং ওয়ার্কশপ[সম্পাদনা]

চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস, বিশ্বের বৃহত্তম বৈদ্যুতিক লোকোমোটিভ নির্মাতাদের মধ্যে একটি যা এই লাইনে অবস্থিত। প্রাথমিকভাবে বাষ্পীয় লোকোমোটিভ তৈরির জন্য শুরু হয়, এটি ২৬ জানুয়ারী ১৯৫০ সালে উৎপাদনে যায়, যেদিন ভারত একটি প্রজাতন্ত্র হয়ে ওঠে। এটি এখন এসি এবং ডিসি লোকোমোটিভ এবং আনুষাঙ্গিক যন্ত্র উৎপাদন করে।[৭]

আসানসোল হচ্ছে ভারতীয় রেলওয়ের প্রাচীনতম বৈদ্যুতিক লোকো শেড। এটিতে WAG-৫ এবং WAM-৪ বৈদ্যুতিক লোকোমোটিভ রয়েছে।[৮]

রেলওয়ে পুনর্গঠন[সম্পাদনা]

১৯৫২ সালে, পূর্ব রেলওয়ে, উত্তর রেলওয়ে এবং উত্তর পূর্ব রেলওয়ে গঠিত হয়। পূর্ব রেলওয়ে গঠিত হয় ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানির একটি অংশ নিয়ে, পূর্বে মুঘলসরাই এবং বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে। উত্তর রেলওয়ে মোগলসরাই, যোধপুর রেলওয়ে, বিকানের রেলওয়ে এবং পূর্ব পাঞ্জাব রেলওয়ের পশ্চিমে ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানির একটি অংশ নিয়ে গঠিত হয়। উত্তর পূর্ব রেলওয়ে গঠিত হয় অওধ এবং তিরহুত রেলওয়ে, আসাম রেলওয়ে এবং বোম্বে, বরোদা এবং মধ্য ভারত রেলওয়ের একটি অংশ নিয়ে।[৯] পূর্ব মধ্য রেলওয়ে ১৯৯৬-৯৭ সালে তৈরি করা হয়।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Saxena, R. P.। Indian Railway History Time Line 
  2. "IR History: Early days I (1832–1869)" (ইংরেজি ভাষায়)। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  3. "IR History: Early days II (1870–1899)" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  4. "History of Electrification" (ইংরেজি ভাষায়)। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  5. "Permanent Way"Track Classifications (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  6. "Indian Railways Passenger Reservation Enquiry"Availability in trains for Top 100 Booking Stations of Indian Railways (ইংরেজি ভাষায়)। IRFCA। ১০ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  7. "Chittaranjan Locomotive Works" (ইংরেজি ভাষায়)। Indian Railways। ১৯ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৪ 
  8. "Sheds and Workshops" (ইংরেজি ভাষায়)। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৪ 
  9. "Geography – Railway Zones" (ইংরেজি ভাষায়)। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 
  10. "East Central Railway" (ইংরেজি ভাষায়)। ECR। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]