হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভা
ধরন
ধরন
ইতিহাস
শুরু১৮৬৫; ১৫৬ বছর আগে (1865)
নেতৃত্ব
পৌরপ্রধান
অমিত রায়
উপ-পৌরপ্রধান
পার্থ সাহা
গঠন
আসন৩০
রাজনৈতিক দল
  AITC: ২৯ আসন
  CPI(M): ১ আসন
নির্বাচন
সর্বশেষ নির্বাচন
২০২২[টীকা ১]
পরবর্তী নির্বাচন
২০২৭
ওয়েবসাইট
www.hcm.net.in

হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভা হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হুগলি জেলার অন্তর্গত চুঁচুড়া মহকুমার সদর হুগলি-চুঁচুড়া ও তার পারিপার্শ্বিক এলাকাগুলি (ব্যান্ডেল) পরিচালনাকারী পৌর স্বায়ত্তশাসন সংস্থা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন সপ্তগ্রাম বন্দরনগরীর পতনের পর ১৫৩৭ সালে পর্তুগিজরা হুগলি শহরের পত্তন করেন। পরবর্তীকালে ব্রিটিশরা এই শহরটি দখল করে নেয়। অপরদিকে সপ্তদশ শতাব্দীতে একটি ওলন্দাজ বসতি হিসেবে চুঁচুড়া শহরটি গড়ে উঠেছিল। সুমাত্রায় তাদের অধিকারের বিনিময়ে এটি ব্রিটিশদের হস্তগত হয়।[১] এরপর ১৮৬৫ সালে হুগলি ও চুঁচুড়া শহর দু’টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন পরিচালনা ও রাজস্ব সংগ্রহের উদ্দেশ্যে হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই পৌরসভার প্রথম চেয়ারম্যান ছিলেন ককরেল এবং জি. এস. পার্ক ছিলেন প্রথম ভাইস চেয়ারম্যান।[১]

হাজি মহম্মদ মহসিন, ভূদেব মুখোপাধ্যায়,পন্ডিত রামগতি ন্যায়রত্ন, কাজী নজরুল ইসলাম, জ্যোতিষচন্দ্র ঘোষ, বিজয় মোদক, বিজ্ঞানী উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারী,গোপেশচন্দ্র মল্লিক, শম্ভুনাথ দে, গণিতজ্ঞ নারায়ণচন্দ্র ঘোষ, ক্রীড়াবিদ মনোরঞ্জন পোড়েল, ড. মুরারি মুখোপাধ্যায় প্রমুখ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা এই শহরে বাস করেছেন।

ভূগোল[সম্পাদনা]

হুগলি-চুঁচুড়া পৌর এলাকার আয়তন ১৭.২৯ বর্গ কিলোমিটার এবং ২০১১ সালের জনগণনার প্রতিবেদন অনুযায়ী এই পৌর এলাকার মোট জনসংখ্যা ১৭৭,৮৩৩।[২]

১৯৮৫ সালের হিসেব অনুযায়ী, হুগলি-চুঁচুড়া পৌর এলাকার মোট জনসংখ্যার ২৪.৭২ শতাংশ ছিলেন শ্রমজীবী ও ৭৫.২৮ শতাংশ ছিলেন অ-শ্রমজীবী এবং প্রধান শ্রমজীবীদের ২৫.৪৯ শতাংশ ছিলেন শিল্প শ্রমিক।[৩]

স্বাস্থ্য পরিষেবা[সম্পাদনা]

৫৫০ শয্যাবিশিষ্ট হুগলি জেলা হাসপাতাল, ৯৮ শয্যাবিশিষ্ট চুঁচুড়া পুলিশ হাসপাতাল ও ২৭ শয্যাবিশিষ্ট হুগলি কারা হাসপাতাল হুগলি-চুঁচুড়া পৌর এলাকার মধ্যে অবস্থিত।[৪]

নির্বাচন[সম্পাদনা]

২০২২ সালে পৌর নির্বাচনে হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভায় সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ২৯টি আসন, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) (সিপিআই(এম)) ১টি আসন জয় করে।[৫]

২০১৫ সালের পৌর নির্বাচনে হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভায় সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ২৫টি আসন, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) (সিপিআই(এম)) ৩টি আসন, সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লক ১টি আসন ও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ১টি আসন জয় করে।[৬]

২০১০ সালের পৌর নির্বাচনে হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভায় সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ২৪টি আসন, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) (সিপিআই(এম)) ৩টি আসন, সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লক ২টি আসন ও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ১টি আসন জয় করেছিল।[৭]

২০১০ সালের পৌর নির্বাচন সম্পর্কে দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকায় মন্তব্য করা হয়, "আজকের পৌর নির্বাচনগুলি বিগত কয়েক দশকের তুলনায় ব্যতিক্রমী: ১৯৭০-এর দশক থেকে যে কমিউনিস্টরা পশ্চিমবঙ্গের প্রধান শহরগুলিতে প্রায় কোনওরকম বিরতি ছাড়াই আধিপত্য বজায় রেখেছিল, তাঁরা আজ বিপর্যয়ের সম্মুখীন… এইবার পরাজয় সম্ভবত চূড়ান্ত এবং হয়তো এটি ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি-মার্কসবাদীর (সিপিআইএম) সমাপ্তির সূচনার সংকেত।"[৮]

২০০৫ সালের পৌর নির্বাচনে হুগলি-চুঁচুড়া পৌরসভায় ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী) (সিপিআই(এম)) ১৫টি আসন, বিপ্লবী সমাজতন্ত্রী দল (আরএসপি) ২টি আসন, সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লক ১টি আসন, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ৩টি আসন ও সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস ৯টি আসন জয় করেছিল।[৯] }

ওয়ার্ড[সম্পাদনা]

অঞ্চল মোট ভোটার জাতি জনপ্রতিনিধি রাজনৈতিক দল
ঝাঁপপুকুর, কেওটা কলোনি, পাত্রপুকুর, সাহাগঞ্জ সাধারণ বিপ্লব দাস ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী)
নেতাজিনগর, সাহাগঞ্জ সাধারণ রঞ্জন রাহা তৃণমূল কংগ্রেস
সাহাগঞ্জ, শ্যামসুন্দরপুর, বলাগড়, টায়ারবাগান তফসিলি জাতি অনিন্দিতা রাজবংশী (মন্ডল) তৃণমূল কংগ্রেস
ব্যান্ডেল, মিলন পার্ক সাধারণ সরস্বতী পাল তৃণমূল কংগ্রেস
গান্ধী কলোনি সাধারণ মৌসুমি সাহা তৃণমূল কংগ্রেস
চকবাজার সাধারণ ঝন্টু কুমার বিশ্বাস তৃণমূল কংগ্রেস
রায়বাজার কলোনি, বড়ালগলি, কাপাসডাঙা সাধারণ রীতা দত্ত তৃণমূল কংগ্রেস
কাপাসডাঙা সাধারণ নির্মল চক্রবর্তী তৃণমূল কংগ্রেস
ইমামবাজার রোড, হুগলি সাধারণ সুপর্ণা সেন তৃণমূল কংগ্রেস
১০ চকবাজার তফসিলি জাতি মৌসুমি মাঝি তৃণমূল কংগ্রেস
১১ ঘুটিয়াবাজার সাধারণ মৌসুমী বসু চ্যাটার্জি তৃণমূল কংগ্রেস
১২ ঘুটিয়াবাজার,তামলীপাড়া সাধারণ অরূপ ব্যানার্জী(দুষ্টু) তৃণমূল কংগ্রেস
১৩ শীলবাগান, হুগলি সাধারণ জয়দেব অধিকারী (যদু) তৃণমূল কংগ্রেস
১৪ হুগলি সাধারণ চন্দ্রিমা সরকার (চুমকি) তৃণমূল কংগ্রেস
১৫ পেয়ারা বাগান, কারবালা সাধারণ ইন্দ্রজিৎ দত্ত (বটা) তৃণমূল কংগ্রেস
১৬ ধরমপুর, শ্রীগুরুনগর সাধারণ অর্পিতা সাহা তৃণমূল কংগ্রেস
১৭ চুঁচুড়া তফসিলি জাতি রত্না অধিকারী তৃণমূল কংগ্রেস
১৮ শুঁড়িপাড়া, চুঁচুড়া সাধারণ সুদীপা মিত্র তৃণমূল কংগ্রেস
১৯ তালডাঙা সাধারণ সঞ্জিতা ধর তৃণমূল কংগ্রেস
২০ মোগলটুলি সাধারণ সমীর সরকার তৃণমূল কংগ্রেস
২১ বড়বাজার সাধারণ মিতা চ্যাটার্জী তৃণমূল কংগ্রেস
২২ সত্যপীরতলা, প্রতাপগড় সাধারণ কৃষ্ণকান্ত ঘোষ তৃণমূল কংগ্রেস
২৩ চুঁচুড়া সাধারণ দিব্যেন্দু অধিকারী তৃণমূল কংগ্রেস
২৪ চুঁচুড়া সাধারণ শ্রাবণী দাস তৃণমূল কংগ্রেস
২৫ ঘটকপাড়া,চৌমাথা সাধারণ অমিত রায় তৃণমূল কংগ্রেস
২৬ ষাঁড়েশ্বরতলা, হুগলি তফসিলি জাতি পার্থ সাহা তৃণমূল কংগ্রেস
২৭ হুগলি সাধারণ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় (ফণী) তৃণমূল কংগ্রেস
২৮ কনকশালি সাধারণ দেবযানী দত্ত তৃণমূল কংগ্রেস
২৯ হুগলি সাধারণ গৌরিকান্তা মুখোপাধ্যায় (ভজন) তৃণমূল কংগ্রেস
৩০ বড়ো মিত্রবাগান সাধারণ সৌমিত্র ঘোষ (পিল্টে) তৃণমূল কংগ্রেস


|} এই সারণিতে সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলির সাধারণ ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, এটি পূর্ণাঙ্গ বিবরণ নয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. রীতি অনুযায়ী, ৫ বৎসর অন্তর অর্থাৎ ২০১৫ সালের পর ২০২০ সালে হওয়ার কথা ছিল তবে করোনা মহামারীর কারণে স্থগিত হয়েছিল।

উদ্বৃতি[সম্পাদনা]

  1. "Hooghly Chinsurah Municipality"। Hooghly Chinsurah Municipality। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৭ 
  2. "Hooghly Chinsurah Municipality"Urban Local Body profile। Hooghly Chinsurah Municipality। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৭ 
  3. "Chapter V Industrial set up of the study area" (PDF)Table 16, Page 232, Table 17, Page 233, Table 18, Page 236। Shodhganga। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৭ 
  4. "Health & Family Welfare Department"Health Statistics। Government of West Bengal। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৭ 
  5. মিত্র, শ্রীতমা (২ মার্চ ২০২২)। "হুগলি থেকে নদিয়ায় তৃণমূল শিবিরে উৎসবের মেজাজ, উলুবেড়িয়াতেও সবুজ-দাপট"Hindustantimes বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০২২ 
  6. "Municipal General Election Results"Results of Municipal General Elections 2015। West Bengal State Election Commission। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৭ 
  7. "Municipal General Election Results"Results of Municipal General Elections yearwise। West Bengal State Election Commission। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১৭ 
  8. "India's Communist party faces defeat in West Bengal heartland."The Guardian, International Edition, 30 May 2010। theguardian। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুলাই ২০১৭ 
  9. "Municipal General Elections 2005"District Hooghly। Hooghly district administration। ১৫ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৭