হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
     হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইন
(New Delhi - Howrah) Rajdhani Express (via Gaya) Route map.png
হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইনের রুটের মানচিত্র
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
অবস্থাচালু
অঞ্চলপশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, বিহার, উত্তরপ্রদেশ এবং দিল্লি
বিরতিস্থলহাওড়া জংশন
নতুন দিল্লি
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন১৯০৬
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালকপূর্ব রেল, পূর্ব মধ্য রেল, উত্তর মধ্য রেল, উত্তর রেল
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য১,৪৪৯ কিমি (৯০০ মা)
ট্র্যাক গেজ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি (১,৬৭৬ মিলিমিটার) ব্রড গেজ
চালন গতি১৬০ কিমি/ঘ অব্দি
সর্বোচ্চ টিলাকোদার্মা ৩৯৮ মিটার (১,৩০৬ ফু)
বিদ্যুতায়ন25 kV 50 Hz AC OHLE during 1960–1966
পথের মানচিত্র
টেমপ্লেট:হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইন

হাওড়া-গয়া-দিল্লি হল একটি রেললাইন যা হাওড়া জংশন এবং দিল্লিকে সংযুক্ত করে ইন্দো-গাঙ্গেয় সমভূমি জুড়ে এবং ছোট নাগপুর মালভূমির উপর দিয়ে লাইনের একটি তুলনামূলকভাবে ছোট অংশ প্রসারিত হয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এটি ১,৪৪৯ কিলোমিটার (৯০০ মা) জুড়ে, পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, বিহার, উত্তরপ্রদেশ এবং দিল্লি-কে সংযুক্ত করেছে। গ্র্যান্ড কর্ড এই লাইনের একটি অংশ এবং অনেকে একে হাওড়া-দিল্লি লাইন হিসাবেও উল্লেখ করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

১,৪৪৯ কিমি (৯০০ মা) দীর্ঘ ট্রাঙ্ক লাইন, মেট্রোগুলির সাথে সংযোগকারী দীর্ঘ এবং ব্যস্ত ট্রাঙ্ক লাইনগুলি আরও ছোট ভাগে ভাগ করা হয়েছে:

  1. হাওড়া–বর্ধমান কর্ড
  2. বর্ধমান-আসানসোল বিভাগ
  3. আসানসোল-গয়া বিভাগ
  4. গয়া-মুঘলসরাই বিভাগ
  5. মুঘলসরাই-কানপুর বিভাগ
  6. কানপুর-দিল্লি বিভাগ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৫১ সালে প্রস্তাবিত হাওড়া-দিল্লি সংযোগের জন্য হাওড়া থেকে সাহেবগঞ্জ পর্যন্ত একটি লাইন নির্মাণ শুরু হয়। প্রথম হাওড়া-দিল্লি লাইন ১৮৬৬ সালে খোলা হয়েছিল, যা পরে সাহেবগঞ্জ লুপ হয়ে ওঠে।[১] রানিগঞ্জ-কিউল সেকশনের সমাপ্তির ফলে, পাটনা হয়ে ছোট হাওড়া-দিল্লি মেইন লাইন ১৮৭১ সালে চালু হয়েছিল।[২] সীতারামপুর-গয়া-মুঘলসরাই গ্র্যান্ড কর্ড ১৯০১ সালে সম্পন্ন হয়েছিল, যা হাওড়া-দিল্লি দূরত্বকে আরও কমিয়েছে। লর্ড মিন্টো, তৎকালীন ভাইসরয় এবং ভারতের গভর্নর জেনারেল ৬ ডিসেম্বর ১৯০৬-এ একটি[৩] অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই লাইনের উদ্বোধন করেন।

বিদ্যুতায়ন[সম্পাদনা]

হাওড়া-বর্ধমান কর্ড ১৯৬৪-৬৬ সালে বিদ্যুতায়িত হয়েছিল। ১৯৬৪-৬৬ সালে বর্ধমান-মানকার-ওয়ারিয়া সেক্টর, ১৯৬০-৬১ সালে ওয়ারিয়া-আসানসোল সেক্টর, ১৯৬১-৬২ সালে আসানসোল থেকে গয়া সেক্টর, ১৯৬২ সালে গয়া-মুঘলসরাই সেক্টর, ১৯৬৪-৬৯ সালে মুঘলসরাই-কানপুর সেক্টর এবং ১৯৬৬-১৯৭৭ সালে কানপুর-নয়াদিল্লি সেক্টর।[৪] হাওড়া-গয়া-দিল্লি রুটটি ছিল ভারতের প্রথম ট্রাঙ্ক রুট যা সম্পূর্ণরূপে বিদ্যুতায়িত (AC ট্র্যাকশন) হয়েছিল।[৫] ১৯৬৫ সালে, আসানসোল-বারেলি প্যাসেঞ্জার ছিল পূর্ব রেলওয়ের প্রথম দূরপাল্লার ট্রেন যেখানে প্রথম এসি লোকো ব্যবহার করা হয়েছিল।[৬]

গতিসীমা[সম্পাদনা]

হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইনের বেশিরভাগই 'এ' শ্রেণির লাইন হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ যেখানে ট্রেনগুলি ১৬০ কিমি/ঘ পর্যন্ত চলতে পারে, কিন্তু কিছু নির্দিষ্ট বিভাগে গতি ১২০-১৩০ কিমি/ঘ পর্যন্ত সীমাবদ্ধ করে দেয়া হয়েছে। হাওড়া রাজধানী (হাওড়া এবং নতুন দিল্লির মধ্যে) গড়ে ৮৫.৮ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিতে ভ্রমণ করে এবং শিয়ালদহ রাজধানী (শিয়ালদহ এবং নয়াদিল্লির মধ্যে) গড়ে ৮৪.৭০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিতে ভ্রমণ করে।[৭][৮]

রাজধানী এক্সপ্রেস প্রথমবার ১৯৬৯ সালে নয়াদিল্লি থেকে হাওড়া পর্যন্ত ছুটেছিল। ১,৪৪৫ কিমি দূরত্ব অতিক্রম করতে এটি ১৭ ঘণ্টা ২০ মিনিট সময় নিয়েছিল;[৯] প্রথম দুরন্ত নন-স্টপ এক্সপ্রেস ১৮ সেপ্টেম্বর ২০০৯ সালে শিয়ালদহ এবং নয়াদিল্লির মধ্যে চালু হয়েছিল।[১০] প্রথম ডাবল ডেকার দ্রুত ট্রেন হাওড়া এবং ধানবাদ এর মধ্যে চলা শুরু করেছিল ১ অক্টোবর ১৯৭০।[১০]

যাত্রী চলাচল[সম্পাদনা]

নতুন দিল্লি, কানপুর সেন্ট্রাল, প্রয়াগরাজ জংশন রেল স্টেশন, মুঘলসারাই, গয়া, ধানবাদ, আসানসোল এবং হাওড়া জংশন, এই লাইনের গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনসমূহ, যা ভারতীয় রেলের প্রথম ১০০ স্টেশনের মধ্যে পড়ে।[১১]

রেলওয়ে পুনর্গঠন[সম্পাদনা]

১৯৫২ সালে, পূর্ব রেল, উত্তর রেল এবং উত্তর পূর্ব রেল গঠিত হয়। পূর্ব রেল গঠিত হয়েছিল ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানির মুঘলসরাইর পূর্বের একটি অংশ এবং বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে নিয়ে। উত্তর রেল গঠিত হয়েছিল ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানির মুঘলসরাইর পশ্চিমের একটি অংশ, যোধপুর রেলওয়ে, বিকানের রেলওয়ে এবং পূর্ব পাঞ্জাব রেলওয়ে নিয়ে। উত্তর পূর্ব রেল গঠিত হয়েছিল আউধ এবং তিরহুত রেলওয়ে, আসাম রেলওয়ে এবং বোম্বে, বরোদা এবং মধ্য ভারত রেলওয়ের একটি অংশ নিয়ে।[১২] পূর্ব মধ্য রেল ১৯৯৬-৯৭ সালে তৈরি করা হয়েছিল।[১৩] উত্তর মধ্য রেল ২০০৩ সালে গঠিত হয়েছিল।[১৪]

সুবর্ণ চতুর্ভুজ[সম্পাদনা]

হাওড়া-গয়া-দিল্লি লাইনটি সোনালী চতুর্ভুজের একটি অংশ। চারটি প্রধান মহানগরকে (নয়া দিল্লি, মুম্বাই, চেন্নাই এবং কলকাতা) সংযোগকারী রুটগুলি তাদের তির্যক সহ, যা সোনালী চতুর্ভুজ নামে পরিচিত, প্রায় অর্ধেক মালবাহী এবং প্রায় অর্ধেক যাত্রী পরিবহন করে, যদিও দৈর্ঘ্যের মাত্র ১৬ শতাংশ গঠন করে।[১৫]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "IR History: Early days I (1832–1869)"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  2. "IR History: Early days II (1870–1899)"। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  3. "IR History: Part III (1900–1947)"। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  4. "History of Electrification"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  5. "IR History:Part V (1970-95)"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  6. "IR History Part IV (1947–1970)"। IRFCA (Indian Railways Fan Club)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০১৪ 
  7. "Permanent Way"Track Classifications। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-১৫ 
  8. "Trivia"Highest speed sections of track। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  9. "Rajdhani Express and Duronto Express Trains"। Make My Trip। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  10. "IR History: Part VII (2000-present"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "irfcavii" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  11. "Indian Railways Passenger Reservation Enquiry"Availability in trains for Top 100 Booking Stations of Indian Railways। IRFCA। ১০ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  12. "Geography – Railway Zones"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  13. "East Central Railway"। ECR। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জানুয়ারি ২০১৪ 
  14. "North Central Railway"। NCR। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  15. "Geography – Railway Zones"Major routes। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪