সিরাজগঞ্জ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সিরাজগঞ্জ
জেলা শহর
সিরাজগঞ্জ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জের অবস্থান, বাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক: ২৪°২৭′ উত্তর ৮৯°৪৫′ পূর্ব / ২৪.৪৫০° উত্তর ৮৯.৭৫০° পূর্ব / 24.450; 89.750স্থানাঙ্ক: ২৪°২৭′ উত্তর ৮৯°৪৫′ পূর্ব / ২৪.৪৫০° উত্তর ৮৯.৭৫০° পূর্ব / 24.450; 89.750
দেশবাংলাদেশ বাংলাদেশ
বিভাগরাজশাহী
জেলা শহরসিরাজগঞ্জ
প্রতিষ্ঠাকাল১৮০৯ খ্রিস্টাব্দ
জেলার মর্যাদা প্রদান১৯৮৪
উচ্চতা১৬ মিটার (৫২ ফুট)
জনসংখ্যা (2012)[১]
 • মোট১,৫৬,০৮০
সময় অঞ্চলবাংলাদেশ মান সময় (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৬৭০০
দেশের টেলিফোন কোড+৮৮০
এলাকার টেলিফোন কোড০৭৫১
ওয়েবসাইটhttp://www.sirajganj.gov.bd/

সিরাজগঞ্জ মধ্য বাংলাদেশে অবস্থিত একটি শহর। এটি যমুনা নদীর পশ্চিম তীরে, এবং ঢাকা শহর হতে প্রায় ১১০ কিলোমিটার (৭০ মাইল) উত্তর পশ্চিমে অবস্থিত।

বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত সিরাজগঞ্জ জেলা 'উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার' হিসেবে সুপরিচিত। যমুনা নদী বিধৌত এ জেলার ভৌগোলিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গন বৈচিত্র্যময়। এ জেলাটি দুর্যোগপ্রবণ এলাকা হিসেবে পরিচিত। জেলার ৯টি উপজেলার মধ্যে ৫টি উপজেলাই যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত। ফলে নদী ভাঙ্গন এ জেলার জনসাধারণের নিত্যসঙ্গী। এছাড়া বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে চলনবিলের অবস্থান। ভৌগোলিক কারণেই বন্যা, খরা, নদী ভাঙ্গনসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে এ জেলার জনসাধারণ জর্জরিত। সব মিলিয়ে দারিদ্র্য, বেকারত্ব এবং বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ এ জেলার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে অন্তরায়।

শহরটি সিরাজগঞ্জ জেলার প্রধান শহর। এখানে ১৫টি ওয়ার্ড এবং ৫২টি মহল্লা রয়েছে। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী এর জনসংখ্যা ২৯,৪৪,০৮০ জন।

নামকরণ[সম্পাদনা]

বেলকুচি থানায় সিরাজউদ্দিন চৌধুরী নামক একজন ভূস্বামী (জমিদার) ছিলেন। তিনি তাঁর নিজ মহালে একটি ‘গঞ্জ’ স্থাপন করেন। তাঁর নামানুসারে এর নামকরণ করা হয় সিরাজগঞ্জ। কিন্তু এটি ততটা প্রসিদ্ধি লাভ করেনি। যমুনা নদীর ভাঙ্গনের ফলে ক্রমে তা নদীগর্ভে বিলীন হয় এবং ক্রমশঃ উত্তর দিকে সরে আসে। সে সময় সিরাজউদ্দিন চৌধুরী ১৮০৯ সালের দিকে খয়রাতি মহল রূপে জমিদারি সেরেস্তায় লিখিত ভূতের দিয়ার মৌজা নিলামে ক্রয় করেন। তিনি এই স্থানটিকে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রধান স্থানরূপে বিশেষ সহায়ক মনে করেন। এমন সময় তাঁর নামে নামকরণকৃত সিরাজগঞ্জ স্থানটি পুনরায় নদীভাঙ্গনে বিলীন হয়। তিনি ভূতের দিয়ার মৌজাকেই নতুনভাবে ‘সিরাজগঞ্জ’ নামে নামকরণ করেন। ফলে ভূতের দিয়ার মৌজাই ‘সিরাজগঞ্জ’ নামে স্থায়ী রূপ লাভ করে।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

সিরাজগঞ্জ জেলার দক্ষিণে পাবনা, উত্তরে বগুড়া, পূর্বে টাঙ্গাইলজামালপুর, পশ্চিমে পাবনা, নাটোরবগুড়া জেলাঅবস্থিত। আয়তন: সিরাজগঞ্জ জেলার মোট আয়তন ২,৪৯৭.৯২ বর্গ কিলোমিটার।

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

অবস্থান: সিরাজগঞ্জ জেলা অক্ষাংশ ২৪০ ০০' পশ্চিম থেকে ২৪০ ৪০' পশ্চিমে ও দ্রাঘিমাংশ ৮৯০ ২০' পূর্ব থেকে ৮৯০ ৫০' পূর্বে অবস্থিত।

উপজেলা সমূহ[সম্পাদনা]

সিরাজগঞ্জ সদর

বেলকুচি

চৌহালি

কামারখন্দ

কাজীপুর

রায়গঞ্জ

শাহজাদপুর

তাড়াশ

উল্লাপাড়া

থানাসমূহ[সম্পাদনা]

১. সিরাজগঞ্জ সদর

২. বেলকুচি

৩. চৌহালি

৪. কামারখন্দ

৫. কাজীপুর

৬. রায়গঞ্জ

৭. শাহজাদপুর

৮. তাড়াশ

৯. উল্লাপাড়া

১০. সলঙ্গা

১১. এনায়েতপুর

১২. বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  1. হযরত মখদুম শাহদৌলার মাজার
  2. কান্ত কবি রজনীকান্ত সেনের পরিত্যক্ত বসত ভিটা
  3. জয়সাগর দিঘি
  4. বঙ্গবন্ধু স্কয়ার
  5. বঙ্গবন্ধু সেতু
  6. সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ
  7. ইকো পার্ক
  8. মুক্তির সোপান
  9. যাদব চক্রবর্তীর বাড়ি
  10. ইলিয়ট ব্রিজ
  11. সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজীর বাড়ি
  12. মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর বাড়ি
  13. ভোলা দেওয়ানের মাজার
  14. ধুবিল কাটার মহল জমিদার বাড়ি
  15. আটঘরিয়া জমিদার বাড়ি
  16. সান্যাল জমিদার বাড়ির শিব দুর্গা মন্দির
  17. মকিমপুর জমিদার বাড়ির মন্দির
  18. স্মৃতিসৌধ
  19. মোজাফফরপুর জমিদার বাড়ি
  20. রবীন্দ্র কাছারি বাড়ি
  21. ক্রসবার ৩
  22. নবরত্ন মন্দির

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

নদনদী[সম্পাদনা]

যমুনা, বড়াল, ইছামতি, করতোয়া, হুরাসাগর, গোহালা, বাঙালি, গুমনী এবং ফুলঝুড়ি এ জেলার প্রধান নদনদী।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১১ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৩ 
  2. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]