শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(শাবিপ্রবি থেকে পুনর্নির্দেশিত)
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শাহজালাল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
250px
বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো
লাতিন: Shahjalal Universitas of Scientia et Technology
নীতিবাক্য অর্জন.চর্চা.সৃষ্টি
ধরন সরকারি
স্থাপিত ২৫শে আগষ্ট, ১৯৮৬
বৃত্তিদান ২৫ মিলিয়ন (ইউএস ডলার)
আচার্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ
উপাচার্য প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দীন আহমেদ
ডীন
অ্যাকাডেমিক কর্মকর্তা
১,৪৬৮
প্রশাসনিক কর্মকর্তা
৫০২
শিক্ষার্থী ৮০২৫ জন
ঠিকানা সিলেট - ৩১১৪, সিলেট, বাংলাদেশ
শিক্ষাঙ্গন শহরে অবস্থিত (আখালিয়া)
৪৯৫ একর
একাডেমিক বিভাগ ২৮
রঙuসমূহ খয়েরি এবং ধূসর
         
ক্রীড়াবিষয়ক ১২
সংক্ষিপ্ত নাম সাস্ট(SUST)/শাবিপ্রবি
অধিভুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
অ্যাসোসিয়েশন অব কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটি
আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় সংস্থা
বিশ্ব ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় সঙ্ঘ
ওয়েবসাইট http://www.sust.edu

বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয মধ্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অন্যতম। এটি (শাবিপ্রবি এবং সাস্ট নামেও পরিচিত), সিলেট, বাংলাদেশ এ অবস্থিত একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। [১][২] বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মাধ্যম ইংরেজী। এটি এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বড় একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।[৩]

শাবিপ্রবি বাংলাদেশের অন্যতম তথ্যপ্রযুক্তি সম্বৃদ্ধ একটি বিশ্ববিদ্যালয়[৪] বিশ্ববিদ্যালয়টি বাংলাদেশে প্রথমবারের মত সমন্বিত সম্মান কোর্স চালু করার পাশাপাশি ১৯৯৬-৯৭ সেশন থেকে স্নাতক কোর্সে সেমিস্টার পদ্ধতির(আমেরিকান সেমিস্টার পদ্ধতি) প্রবর্তন করে।[২] এছাড়া বাংলাদেশের একমাত্র সার্চ ইঞ্জিন "পিপীলিকা" সেটিও এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান যা ২০১৩ সাল থেকে চালু হয়ে এপর্যন্ত সফল ভাবে তথ্য সেবা প্রদান করছে।

বিভিন্ন অলিম্পিয়াড সহ সাহিত্য ও বিজ্ঞান বিষয়ক বিভিন্ন প্রতিযোগিতার সিলেট অঞ্চলের আয়োজন এই বিশ্ববিদ্যালয় করে থাকে।সাস্টের আয়োজিত প্রতিযোগিতাগুলোর মধ্যে রয়েছে জাতীয় হাইস্কুল প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা, জাতীয় মহিলা প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা, Bangladesh Biology Olympiad, Bangladesh Math Olympiad, Bangladesh Science Olympiad, Bangladesh Physics Olympiad, Bangladesh Astronomy Olympiad ইত্যাদি। বিভিন্ন Department এর শিক্ষক ও সিনিয়র শিক্ষার্থীরা মিলে এগুলোর সিলেট অঞ্চলের অাঞ্চলিক প্রতিযোগিতার অায়োজন ও পরিচালনা করে থাকে।

পরিচ্ছেদসমূহ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

'এক কিলো'; শাবিপ্রবির প্রবেশমুখের ১ কিলোমিটার রাস্তা

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, প্রকৌশল শাস্ত্রে বিশেষ অবদান প্রদানকারী ও বাংলাদেশে নেতৃত্ব স্থানীয় এ বিশ্ববিদ্যালয়টি ২৫শে আগষ্ট ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ১৯৯১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি তিনটি বিভাগ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হয়। এর ক্যাম্পাসটি সিলেট শহর হতে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে কুমারগাঁওয়ে অবস্থিত। বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬টি অনুষদের অধীনে ২৮ টি ডিপার্টমেন্ট রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ও দ্বিতীয় সমবর্তন অনুষ্ঠিত হয় যথাক্রমে ২৯ এপ্রিল ১৯৯৮ এবং ৬ ডিসেম্বর ২০০৭ সালে।[৫] এছাড়া সর্বোচ্চ সংখ্যক গবেষনাপত্র সম্পাদনের মাধ্যমে ওয়েবমেট্রিক্স র‌্যাঙ্কিং এ এই বিশ্ববিদ্যালয় খুব ভাল অবস্থান দখল করে আছে।বর্তমানে বাংলাদেশের সবগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েটরাই সবচেয়ে বেশি বিশ্বের অন্যান্য দেশে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার কাজে নিয়োজিত আছেন।

একাডেমিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

একাডেমিক কার্যক্রম বছরে ২টি সেমিস্টারে ক্রেডিট পদ্ধতিতে সম্পন্ন হয়। শতকরা ৭৫ ভাগ নম্বরপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের বৃ্ত্তি প্রদান করা হয়।

ভর্তি কার্যক্রম[সম্পাদনা]

সাস্টে শিক্ষার্থীরা আন্ডারগ্র্যাজুয়েট, গ্র্যাজুয়েট এবং পোস্টগ্র্যাজুয়েট পর্যায়ে ভর্তি হতে পারে। শিক্ষার্থীদের তুখোড় প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা দিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেতে হয়। ভর্তি পরীক্ষায় এক আসনের বিপরীতে প্রায় ৬৪ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।[৬] ভর্তি পরীক্ষা বিভিন্ন স্কুলে ভর্তি কমিটির তত্ত্বাবধায়নে সম্পন্ন হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে প্রথমবারের মত এসএমএস ভিত্তিক স্বয়ংক্রিয় ভর্তি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতি উদ্ভাবন করে। আগ্রহী শিক্ষার্থীরা মোবাইল ফোনের এসএমএস-এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৯ তারিখে এ পদ্ধতির উদ্বোধন করেন।[৭][৮][৯][১০] এই উদ্ভাবনের জন্য, বিশ্ববিদ্যালয় ২০১০ সালে দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর মধ্যে অনুষ্ঠিত একটি প্রতিযোগিতায় Ambillion পুরস্কার,[৩] E-Content এ জাতীয় পুরস্কার এবং ICT for Development Award ২০১০ লাভ করেছে।[১১][১২] বর্তমানে বাংলাদেশে সবগুলো সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কার্যক্রমে এই পদ্ধতি ব্যবহার করছে।

অনুষদ এবং বিভাগসমূহ[সম্পাদনা]

একাডেমিক ভবন বি এর একটি দৃশ্য

সাস্টে ৬ টি অনুষদের অধীনে ২৮ টি বিভাগ রয়েছে। প্রতিষ্ঠাকালীন পরিকল্পনা অনুসারে ৮ টি অনুষদের অধীনে আরো একাধিক বিভাগ খোলার পরিকল্পনা রয়েছে। ইতিমধ্যে সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগ খোলার অনুমোদন পেয়ে গেছে প্রতিষ্ঠানটি।[১৩]

অনুষদসমূহ

কৃষি ও খনিজ বিজ্ঞান অনুষদ[১৪][সম্পাদনা]

  • বনবিদ্যা ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগ (FES)

ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ[সম্পাদনা]

  • কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ (CSE)
  • শিল্প ও উৎপাদন প্রকৌশল বিভাগ (IPE)
  • যন্ত্রকৌশল বিভাগ (MEE)
  • পুর ও পরিবেশ প্রকৌশল বিভাগ (CEE)
  • কেমি কৌশল ও বৃহদাণু বিজ্ঞান বিভাগ (CEP)
  • পেট্রোলিয়াম ও খনিকৌশল বিভাগ (PME)[১৫]
  • খাদ্য প্রকৌশল ও চা প্রযুক্তি বিভাগ (FET)
  • সফটওয়্যার প্রকৌশল (SWE)
  • স্থাপত্য বিভাগ (ARC)

জীব বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

কেন্দ্রীয় মসজিদ
  • জৈব রসায়ন ও আণবিক জীববিদ্যা (BMB)
  • জিন প্রকৌশল ও জৈবপ্রযুক্তি (GEB)[১৬]

ব্যবস্থাপনা এবং ব্যবসা প্রশাসন অনুষদ[সম্পাদনা]

  • ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ (BBA)

ভৌত বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

  • গণিত বিভাগ (MAT)
  • পদার্থ বিভাগ (PHY)
  • রসায়ন বিভাগ (CHE)
  • পরিসংখ্যান বিভাগ (STA)
  • ভূগোল ও পরিবেশ (GEE)
  • সমুদ্রবিজ্ঞান (OCG)

সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

  • অর্থনীতি বিভাগ (ECO)
  • ইংরেজি বিভাগ (ENG)
  • লোকপ্রশাসন বিভাগ (PAD)
  • সমাজকর্ম বিভাগ (SCW)
  • রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ (PSS)
  • সমাজবিজ্ঞান বিভাগ (SOC)
  • বাংলা বিভাগ (BNG)
  • নৃবিজ্ঞান বিভাগ (ANP)

চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

  • এম.এ.জি. ওসমানী মেডিকেল কলেজ
  • জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ
  • নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ
  • সিলেট ওমেন'স মেডিকেল কলেজ
  • দুররে সামাদ রাহমান ওমেন'স রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ

সংশ্লিষ্ট কলেজ[সম্পাদনা]

সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ক্যাম্পাসের একটি দৃশ্য, শাবিপ্রবির সঙ্গে সম্বন্ধযুক্ত একটি কলেজ

সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সংযুক্ত একটি বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কলেজটি ৩ টি বিভাগ নিয়ে গঠিত:

  • কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ(CSE)
  • পুরকৌশল বিভাগ (CE)
  • তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক প্রকৌশল বিভাগ (EEE)

ইন্সটিটিউট[সম্পাদনা]

এটি বাংলাদেশের অন্যতম গবেষনাকারী প্রতিষ্ঠান। পদার্থ ও পরিসংখ্যান শাস্ত্রে গবেষনার পাশা-পাশি এতে রয়েছে কয়েকটি প্রসিদ্ধ ইন্সটিটিউটঃ

  • তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ইন্সটিটিউট
  • স্থাপত্য গবেষণা কেন্দ্র
  • কম্পিউটার প্রকৌশল গবেষণা কেন্দ্র
  • পদার্থবিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র
  • পরিসংখ্যান গবেষণা কেন্দ্র ও প্রযুক্তি ইন্সটিটিউট (চলতি বছরের শুরুর দিকে এটি সফল ভাবে চালু হয়)।

সহযোগি বিশ্ববিদ্যালয়[সম্পাদনা]

সাস্টের সাথে নিম্নোক্ত বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের একাডেমিক সহযোগিতা চুক্তি রয়েছে:

উপাচার্যবৃন্দ[সম্পাদনা]

  1. অধ্যাপক ড. ছদরুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী (১/৬/১৯৮৯ হতে ৩১/৫/১৯৯৩)
  2. অধ্যাপক ড. সৈয়দ মুহিব উদ্দিন আহমেদ (২৬/৬/১৯৯৩ হতে ২৫/৬/১৯৯৭)
  3. অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান (২০/৭/১৯৯৭ হতে ১৯/৭/২০০১)
  4. অধ্যাপক ড. মোঃ সালেহ উদ্দিন (২০/৭/২০০১ হতে ২৫/৭/২০০১)
  5. অধ্যাপক মোঃ শফিকুর রহমান (৩/৩/২০০২ হতে ২৭/৪/২০০৩)
  6. অধ্যাপক ড. মুসলেহ উদ্দিন আহমেদ (২৮/৪/২০০৩ হতে ২২/১০/২০০৬)
  7. অধ্যাপক মোঃ আমিনুল ইসলাম (২৩/১০/২০০৬ হতে ২৪/২/২০০৯)
  8. অধ্যাপক ড. মোঃ সালেহ উদ্দিন (২৬/২/২০০৯ হতে ২৫/২/২০১৩)
    1. অধ্যাপক ড. মোঃ ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস (সংযুক্ত দায়িত্ব, ২০/৩/২০১৩ হতে ২৭/৭/২০১৩)
  9. অধ্যাপক ড. মোঃ আমিনুল হক ভুঁইয়া (২৮/৭/২০১৩ হতে ২৭/৭/২০১৭)
  10. অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ (২০/৮/২০১৭ হতে বর্তমান)

আবাসিক হলসমূহ[সম্পাদনা]

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে পাঁচটি ছাত্রাবাস রয়েছে। এছাড়া শিক্ষকদের জন্য রয়েছে ডরমেটরি এবং আবাসিক সুবিধা। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রাবাস শাহপরান হল। প্রতিটি হলের তত্বাবধানে রয়েছেন একজন প্রভোস্ট। সাধারণত সিনিয়র শিক্ষকদের মধ্য হতে প্রভোস্ট নির্বাচন করা হয়। এটি দেশের সর্বপ্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে শিক্ষার্থী এবং স্টাফদের জন্য বিনামূল্যে সম্পূর্ণ ক্যাম্পাসে ওয়াই ফাই চালু করে।[৩]

সাস্টের পাঁচটি শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল হচ্ছে :

  • শাহপরান ছাত্র হল
  • বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাত্র হল
  • সৈয়দ মুজতবা আলী ছাত্র হল
  • প্রথম ছাত্রী হল
  • বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হল

সংগঠন[সম্পাদনা]

বিজ্ঞান সংগঠন[সম্পাদনা]

  • সাস্ট সায়েন্স অ্যারেনা[১৮]
  • কোপার্নিকাস এস্ট্রোনমিক্যাল মেমোরিয়াল অব সাস্ট (ক্যাম-সাস্ট)[১৯]
  • বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ
  • বিজ্ঞানের জন্য ভালবাসা
  • বাংলাদেশ ওপেন সায়েন্স অর্গানাইজেশন
  • রোবো সাস্ট

পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন[সম্পাদনা]

গ্রিন এক্সপ্লোরার সোসাইটি (পরিবেশ বিষয়ক একমাত্র সংগঠন)

‘মানবতার জন্য শেখো' স্লোগানকে প্রতিপাদ্য করে ২০১২ সালের ১১ জানুয়ারী কিছু সচেতনশিক্ষক-শিক্ষার্থীর হাত ধরেশুরু হয় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র প্রকৃতি ও পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন গ্রিন এক্সপ্লোর সোসাইটির পথচলা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি তৃনমূল পর্যায়ে পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটি।

সংগঠনটি প্রতি সপ্তাহে তাদের নিয়মিত কার্যক্রম ‘পাঠচক্র’ আয়োজন করে ,যেখানে পরিবেশ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে সাধারন শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা হয় ।এছাড়াওপরিবেশগত বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিকে সামনে রেখে‘প্রকৃতি অবলোকন’ এর মতো কার্যক্রমের আয়োজন করে, যেখানে ক্যাম্পাস ছাড়াওসিলেট নগরীরবিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করা হয় ।ক্যাম্পাসে সবুজ ও সুন্দর পরিবেশ বজায় রাখতে এবং সকলের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সংগঠনটি শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং কর্মচারীদেরকে নিয়ে নিয়মিতভাবে ‘গ্রিন সাস্ট ক্যাম্পেইন’ শিরোনামে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি আয়োজন করে থাকে।সবুজ শ্যামল এই বাংলাদেশকে দেখে শেখার তাগিদে সংগঠনটি প্রতি বছরই ঋতুভেদে বিভিন্নস্থান ভ্রমনের আয়োজন করে।এছাড়াও সংগঠনটি সমসাময়িকবিভিন্ন বিষয়কে সামনে রেখে সারাবছরই সেমিনার ও কর্মশালার আয়োজন করে।আর্থ ডে,বিশ্ব পরিবেশ দিবস,বিশ্ব নদী দিবস সহ প্রকৃতি ও পরিবেশ বিষয়ক দিবসগুলোতে সংগঠনটির রয়েছে নিজস্ব কর্মসূচী।ক্যাম্পাস ভিত্তিক সংগঠন হলেও তৃনমূল পর্যায়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে স্কুল-কলেজ পর্যায়ে সংঠনটির কার্যক্রম সারাবছরই চোখে পড়ার মতো। গাছ লাগানো ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছের প্রদর্শন,বইমেলা,রি-সাইক্লিং প্রোডাক্ট প্রদর্শনও কর্মশালা,সেমিনার সহ বিভিন্ন ইভেন্টে সাজানো ‘গ্রিন ফেস্টিভাল’ সংগঠনটির সপ্তাহব্যাপী সর্ববৃহৎ অনুষ্ঠান এবং এটি প্রতি বছরই আয়োজন করা হয়ে থাকে।

‘গবেষণা’, ‘জি রেস্কিউ এন্ড এডভেঞ্চার’ এবং ‘জি-স্টুডিও’ এই তিনটি পরিষদ নিয়ে গ্রিন এক্সপ্লোর সোসাইটি তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে।

ক্যাম্পাসের জীববৈচিত্র্যের উপর সংগঠনটির সুদীর্ঘ ৫ বছরের গবেষণার পরিপেক্ষিতে এবং গবেষণা পরিষদের তত্ত্বাবধানে ‘Biodiversity of SUST’ শিরোনামে গবেষণাপত্র প্রকাশ করে (বর্তমানে সংগঠন এবং শাবিপ্রবির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে) এবং সাম্প্রতিক সময়ে ক্যাম্পাসেএকই  শিরোনামে একটি বোর্ড স্থাপন করে।‘Rhythm of Nature’ সংগঠনটির বাৎসরিক মুখপাত্রযেখানে পরিবেশ সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রবন্ধ প্রকাশ করা হয়।সংগঠনটি ক্যাম্পাসের ১০০টি গাছের পরিচয় নির্নয় করে নামফলক লাগায় এবং প্রক্রিয়াটি চলমান;ক্যাম্পাসের প্রতিটি গাছেই নামফলক লাগানো সংগঠনটির অন্যতম লক্ষ্য।এছাড়াওকাগজের অপচয়রোধে সংগঠনটির ক্যাম্পাসে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। 

বন্যপ্রানী উদ্ধার, আহত বন্যপ্রানীর চিকিৎসা,অবমুক্তকরণ এবং বন্যপ্রানী বিক্রয় রোধে সংগঠনটির ‘জি-রেস্কিউ এন্ড এডভেঞ্চার’ পরিষদ কাজ করে যাচ্ছে।

জি-স্টুডিও পরিষদ প্রকৃতি ও পরিবশগত তথ্যচিত্র নিয়ে কাজ করে থাকে। ইতিমধ্যে বিশ্বের বৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনের উপর‘Story of Survival’,সিলেটে অবস্থিত দেশি-বিদেশি পাখিদের স্বর্গরাজ্য পাখিবাড়ির উপর‘A Mysterious Place of Aves’ সহ বেশ কিছু তথ্যচিত্র নির্মান করেছে।

শুধুমাত্রএইসব কাজের মধ্যেই সংগঠনটি সীমাবদ্ধ নয়। আর্তমানবতার সেবায় তারা বিভিন্ন সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমের পাশাপাশি জাতীয় দিবসগুলোও যথাযথ মর্যাদায় পালন করে থাকে।

সংগঠনটির উদ্যোগে নানা কর্মকান্ড পরিচালিত হলেও এখনো তাদের চুড়ান্ত লক্ষ্যে পৌছাতে পারেনি।এসম্পর্কে সংগঠনটির সভাপতি তারিক আহমেদ অনিক বলেন উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই আমাদের পরিবেশ সংক্রান্ত সচেতনতা কম এবং এই অবস্থা উত্তরণে আমাদেরপ্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

সবুজ হোক প্রকৃতি,চিরায়ত সবুজ ক্যাম্পাস;

পত্র-পল্লবে আবদ্ধ থাকুক আগামী,

এগিয়ে যাক দেশ।

ফেসবুক পেইজঃ https://www.facebook.com/greenexploresociety/

অফিসিয়াল ওয়েবঃ http://greenexploresociety.org/

নাট্য সংগঠন[সম্পাদনা]

থিয়েটার সাস্ট[সম্পাদনা]

২০১৬ সালে মঞ্চায়িত একটি নাটকের দৃশ্য।

১৯৯৭ সালের ৮ ডিসেম্বর “অভিষেক” অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম গ্রুপ থিয়েটার থিয়েটার সাস্ট (ইংরেজি: Theatre SUST) সংগঠিত হয়।[২০] ২০১১ সালে সংগঠনটি সম্মিলিত নাট্য পরিষদ,[২১] সিলেটের সদস্যপদ লাভ করে।[২২] ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ২৯টি নাটকের ১০৯টি প্রদর্শনী সহ ৫টি নাট্যোৎসবের আয়োজন করেছে সংগঠনটি। থিয়েটার সাস্টের শততম মঞ্চায়নে উইলিয়াম শেক্সপিয়রের রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট-এর ছায়া অবলম্বনে রচিত এ নিউ টেস্টামেন্ট অব রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট নাটকের মঞ্চায়ন করা হয়।[২৩] ২০১৭ সাল পর্যন্ত সংগঠনটির ১৭টি কার্যকরী কমিটি গঠিত হয়েছে।[২৪] ইউনিভার্সিটি সেন্টার ভবনের দ্বিতীয় তলায় বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন অনুমদিত এই সংগঠনটির কার্যালয় পরিচালিত হয়।

  • দিক থিয়েটার
  • আজ মুক্তমঞ্চ
  • অঙ্গীকার

স্বেচ্ছাসেবক সংগঠন[সম্পাদনা]

  • কিন
  • সঞ্চালন
  • এসিপি
  • বাংলাদেশ ব্লাড সার্ভিস

অন্যান্য সংগঠন[সম্পাদনা]

  • সাস্ট ক্যারিয়ার ক্লাব
  • সাস্ট সাহিত্য সংসদ
  • চোখ ফিল্ম সোসাইটি
  • শাহজালাল ইউনিভার্সিটি স্পীকার্স ক্লাব
  • ধুমপান ও মাদকবিরোধী সংগঠন
  • ধূমপান ও নিরকোটিন বিরোধী সংগঠন
  • বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর, সাস্ট
  • বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি
  • উদীচী
  • চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র
  • ক্যারিয়ার ডিজাইন সেন্টার
  • কার্টুন ফ্যাক্টরী
  • চোখ ফিল্ম সোসাইটি
  • ধ্রুবতারা
  • এডুকেশন ওয়াচ
  • মাভৈ: আবৃত্তি সংসদ (আবৃত্তি বিষয়ক একমাত্র সংগঠন)
  • নোঙর
  • নিরাপদ সড়ক চাই
  • অন্বেশন
  • প্রমিসিং ইয়থ
  • রিম
  • শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ফটোগ্রাফি অ্যাসেসিয়েশন (সুপা)[২৫]
  • শিকড়
  • সপ্নোত্থান
  • স্টুডেন্ট এইড
  • স্পোর্টস সাস্ট
  • সাস্ট লেখক ক্লাব
  • ইউসাব
  • শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি
  • টুরিস্ট ক্লাব

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ত্ব[সম্পাদনা]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "BANGLAPEDIA: Shahjalal University of Science and Technology"search.com.bd। ১৪ জুন ২০০৭ তারিখে [banglapedia.search.com.bd/HT/S_0272.htm মূল] |url= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "Shahjalal University of Science & Technology"www.sust.edu। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  3. "::: Star Weekend Magazine :::"www.thedailystar.net। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  4. "Shahjalal University of Science & Technology"www.sust.edu। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  5. "Shahjalal University of Science & Technology"www.sust.edu। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  6. BanglaNews24.com। "bangla news and entertainment 24x7 - banglanews24.com"banglanews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  7. "News Details"bssnews.net 
  8. "Priyo.com"Priyo.com 
  9. "বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন - গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার"bangladesh.gov.bd 
  10. "Bangladesh Today report by bd64"। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  11. http://www.eaward.org.bd/index.php?option=com_content&view=article&id=50&Itemid=16
  12. http://www.eaward.org.bd/index.php?option=com_content&view=article&id=96&Itemid=20
  13. http://www.campuslive24.com/campus.141768.live24/
  14. বর্তমানে প্রফেসর ড. মোহাম্মাদ বেলাল উদ্দিন এই অনুষদের ডীন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
  15. বর্তমানে প্রফেসর ড. শফিকুুল ইসলাম বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।
  16. "Shahjalal University of Science & Technology"www.sust.edu। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  17. "Shahjalal University of Science and Technology"lu.se 
  18. "শাবিপ্রবির বিজ্ঞানীরা চাহনিতে স্বপ্ন, চলনে আত্মবিশ্বাস"দৈনিক যায়যায় দিন 
  19. "CAM-SUST -Pursuing The Infinity"cam-sust.org 
  20. "সিলেটে সম্মিলিত নাট্য পরিষদ'র নাট্যোৎসবে 'থিয়েটার সাস্ট'র নাটক"। Sylhetview24.com। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  21. "সিলেটে সম্মিলিত নাট্য পরিষদের অভিষেক"। প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  22. "সম্মিলিত নাট্য পরিষদ, সিলেট -এর সদস্যপদ লাভ"। থিয়েটার সাস্ট। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  23. "থিয়েটার সাস্ট নাটকের সেঞ্চুরি!"। যায়যায়দিন। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জানুয়ারি ২০১৬ 
  24. "নির্বাহী পরিষদ তালিকা"। থিয়েটার সাস্ট। সংগ্রহের তারিখ ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |access-date= (সাহায্য)
  25. http://www.supasust.org/

স্থানাঙ্ক: ২৪°৫৪′৪৩″ উত্তর ৯১°৪৯′৫৬″ পূর্ব / ২৪.৯১২০৫° উত্তর ৯১.৮৩২২২৪° পূর্ব / 24.91205; 91.832224

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]