বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বাংলাদেশ উন্মূক্ত বিশ্ববিদ্যালয়
Bangladesh Open University
বাউবি
বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো.png
ধরন সরকারী, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত অক্টোবর ২১, ১৯৯২
আচার্য বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
উপাচার্য প্রফেসর এম এ মান্নান
শিক্ষার্থী ৬৫০,০০০ (২০১২)
অবস্থান বোর্ড বাজার, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ
প্রোগ্রাম ৪০
অধিভুক্তি Commonwealth of Learning
SAARC Consortium on Open and Distance Learning (SACODiL)
University Grants Commission (UGC)
ওয়েবসাইট http://www.bou.edu.bd/

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (ইংরেজি: Bangladesh Open University) বাংলাদেশের সর্বস্তরের শিক্ষাকে দূরশিক্ষণ পদ্ধতির মাধ্যমে সকল স্তরের জনগনের কাছে পৌছে দেওয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকার অদূরে গাজীপুরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ কর্তৃক প্রণীত আইন অনুযায়ী ১৯৯২ সালের ২০ অক্টোবর বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়-এর জন্ম। বহুমুখি শিক্ষা প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জ্ঞান-বিজ্ঞানের সৃজন, চর্চা ও বিকাশকে অধিকতর গনমুখি ও জীবন-ঘনিষ্ঠ করে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে একটি সুশিক্ষিত ও আত্মনির্ভরশীল জাতি গড়ে তুলতে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ঢাকা শহরের উত্তরে গাজীপুর জেলার বোর্ডবাজারে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল কাম্পাস অবস্তিত। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম সংগঠনের জন্য সারা দেশে রয়েছে ১২টি আঞ্চলিক কেন্দ্র, ৮০টি কো অর্ডিনেটিং আফিস এবং ১০০০টিরও অধিক টিউটোরিয়াল কেন্দ্রের বিশাল নেটওয়ার্ক। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য রয়েছে সাতটি একাডেমিক অনুষদক বা স্কুল এবং ১১টি প্রশাসনিক বিভাগ। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় আইন (১৯৯২) আনুসারে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কর্মকাণ্ড বোর্ড অব গভর্নরস, একাডেমিক কাউন্সিল, স্কুল, পাঠ্যক্রম কমিটি, অর্থ কমিটি প্রভৃতি কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত ও নীতিমালা অনুযায়ী পরিচালিত।

আন্ডার গ্রাজুয়েট কোর্স[সম্পাদনা]

স্কুল অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি[২] কম্পিউটার প্রকৌশল: চার বৎসরের ব্যাচেলর অব সায়েন্স (ডিগ্রী) ইন কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (CSE) স্টাডি সেন্টার: ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট)৤ চালু আছে৤ বর্তমানে পঞ্চম ব্যাঁচের ভর্তি কার্যক্রম চলছে৤ আপকামিং ইলেকট্রনিক্স প্রকৌশল: চার বৎসরের ব্যাচেলর সায়েন্স (ডিগ্রী) ইন ইলেকট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ECE) শীঘ্রই শুরু হবে৤ ফার্মেসী: চার বৎসরের ব্যাচেলর সায়েন্স ‍(ডিগ্রী) ইন ফার্মেসী (B.Pharm) শীঘ্রই শুরু হবে৤

স্কুল অব এগ্রিকালচারাল সায়েন্স কৃষি: চার বৎসরের ব্যাচেলর অব সায়েন্স (অনার্স) ইন এগ্রিকালচার (B.Agri) মৎসবিজ্ঞান: চার বৎসরের ব্যাচেলর অব সায়েন্স (অনার্স) ইন ফিসারিজ (B.Fisheries)

স্কুল বিজনেস এডমিনিসট্রেসন ব্যাবসায় প্রশাসন: চার বৎসরের ব্যাচেলর (ডিগ্রী) অব বিজনেস এডমিনিসট্রেশন (BBA) দুই বৎসরের মাস্টার অব বিজনেস এডমিনিসট্রেশন (MBA) & evening (EMBA)

স্কুল অব ল আইনশাস্ত্র: চার বৎসরের ব্যাচেলর (ডিগ্রী) অব ’ল (LLB) & LLM

স্কুল অব সোসাল সায়েন্স সমাজবিজ্ঞান: চার বৎসরের ব্যাচেলর (অনার্স) অব সোসাল স্টাডিজ ইতিহাস: চার বৎসরের ব্যাচেলর আর্টস (অনার্স) ইন হিস্টোরি রাষ্ট্র বিজ্ঞান: চার বৎসরের ব্যাচেলর অব আর্টস (অনার্স) ইন পলিটিক্যাল স্টাডিজ৤

এছাড়াও আরও একটি স্কুল চালু রয়েছে৤

ক্লাব সমূহ[সম্পাদনা]

অইউ কম্পিউটার ক্লাব (OU Computer Club) অপেন ইউনিভার্সিটি প্রোগ্রামিং ক্লাব (Open University Programming Club) অপেন ইউনিভার্সিটি কম্পিউটার সোসাইটি (Open University Computer Society- OUCS) অপেন ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্ট ইউনিয়ন অব এসএসটি (Open University Students Union of SST-OUSUS)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. https://www.bou.edu.bd/ বাংলাদেশ উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়
  2. http://www.bousst.edu.bd/ স্কুল অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]