আসাদ ফুদাদিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আসাদ ফুদাদিন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআসাদ বদর ফুদাদিন
জন্ম (1985-08-01) ১ আগস্ট ১৯৮৫ (বয়স ৩৬)
রোজ হল, বারবাইস, গায়ানা
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৯৪)
৭ জুন ২০১২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট৫ আগস্ট ২০১২ বনাম নিউজিল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৫ - বর্তমানগায়ানা
২০১৫ - ২০১৭গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স (জার্সি নং ১৫)
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ৮৯ ৫৭ ১৪
রানের সংখ্যা ১২২ ৪,৪৪২ ১২৭০ ২১২
ব্যাটিং গড় ৩০.৫০ ৩১.৯৫ ২৭.০২ ২৬.৫০
১০০/৫০ ০/১ ৬/২১ ১/১০ ০/১
সর্বোচ্চ রান ৫৫ ১৪৫ ১০৩* ৫৪
বল করেছে ৩০ ১,৫৭৮ ২১৬ ১৮
উইকেট ২৩
বোলিং গড় ৩৪.২৬ ৩২.০০ ৩১.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৪/৪২ ২/২৮ ১/৩১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৪/– ৬৮/– ১৬/– ৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৭ অক্টোবর ২০২০

আসাদ বদর ফুদাদিন (ইংরেজি: Assad Fudadin; জন্ম: ১ আগস্ট, ১৯৮৫) বারবাইসের রোজ হল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১০-এর শুরুরদিকে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে গায়ানা ও গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে মিডিয়াম-ফাস্ট বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন আসাদ ফুদাদিন

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

২০০০ সালে কস্টকাটার অনূর্ধ্ব-১৫ ওয়ার্ল্ড চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের অনূর্ধ্ব-১৫ দলের পক্ষে খেলার জন্য মনোনীত হন। চূড়ান্ত খেলায় ৯২ বলে ৫৫ রান তুলে পাকিস্তানকে পরাজিত করতে সবিশেষ ভূমিকা পালন করেন। পরের বছর গায়ানা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের পক্ষে খেলার জন্যে আমন্ত্রণ পান। দুই বছর পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের পক্ষে খেলেন।

২০০৪ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে খেলেন। তিনটি অর্ধ-শতরানের ইনিংস খেলে দলকে চূড়ান্ত খেলায় নিয়ে যান। ২০০৯-১০ মৌসুমে ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর প্রতিযোগিতায় গায়ানার শীর্ষস্থানীয় রান সংগ্রাহক ছিলেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

২০০৪ সাল থেকে আসাদ ফুদাদিনের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান রয়েছে। বামহাতি মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান আসাদ ফুদাদিনের প্রতিভা শুরুতেই চিহ্নিত করা হয়েছিল।

২০০৪ সালে আসাদ ফুদাদিনের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। ২০০৩-০৪ মৌসুমের ক্যারিব বিয়ার কাপে কেনিয়ার বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বি দলের সদস্যরূপে খেলেন তিনি। পরের মৌসুমে একই প্রতিযোগিতায় গায়ানার পক্ষে খেলেন। এরপর, এপ্রিল, ২০০৫ সালে নটিংহ্যামশায়ার ক্রিকেট বোর্ড প্রিমিয়ার লীগে উলাটন ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে এক মৌসুম খেলেন। এরপর, ২০০৬ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিন বছর ইংল্যান্ড ওয়েস্ট প্রিমিয়ার লীগ দ্বিতীয় প্রিমিয়ারে ট্রোব্রিজ ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে খেলেন। ঐ সময়ে ৮৫.৭৭ গড়ে ২,৬৫৯ রান ও ২৬.৫৩ গড়ে ৬০ উইকেট লাভ করেন।[১]

কয়েক বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলার পর ২০১০ সালে সফররত জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে খেলার জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ দলের পক্ষে মনোনীত হন। এরপর, ইংল্যান্ড সফরে যাবার পর নিজ দেশে পাকিস্তান এ দলের মুখোমুখি হন। দূর্দান্ত ক্রীড়ানৈপুণ্য প্রদর্শনের স্বীকৃতিস্বরূপ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড থেকে তাকে চুক্তিতে নিয়ে আসা হয়।

২০১৬ সালের ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লীগের প্রতিযোগিতায় তিনি অনুপস্থিত ছিলেন। ২০১৭ সালের সিপিএলে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্সের পক্ষে খেলেন। এবার তাকে দ্বাদশ রাউন্ডে খসড়া খেলোয়াড়ের তালিকায় থাকতে হয়েছিল।[২]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তিনটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন আসাদ ফুদাদিন। ৭ জুন, ২০১২ তারিখে বার্মিংহামে স্বাগতিক ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২ আগস্ট, ২০১২ তারিখে কিংস্টনে সফরকারী নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি। তাকে কোন ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

মার্চ, ২০১২ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলার জন্যে তাকে দলে রাখা হয়। ২০১২ সালে ইংল্যান্ডে গ্রীষ্মকালীন সফরের লক্ষ্যে তাকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সদস্য করা হয়।[৩] ঐ বছরের মে মাসে ইংল্যান্ড গমন করেন। প্রথম দুই টেস্টে তাকে খেলানো হয়নি। সিরিজের তৃতীয় টেস্টে তার অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হলেও দুই দিন বৃষ্টির কবলে পড়ে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Assad Fudadin statistics on Trowbridge CC website" 
  2. "HERO CPL PLAYER DRAFT 2017 CPL T20"www.cplt20.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-১২ 
  3. "West Indies recall Denesh Ramdin and Marlon Samuels"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। ২৭ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]