রামকৃষ্ণ রায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রামকৃষ্ণ রায়

রামকৃষ্ণ রায় (ইংরেজি: Ramkrishna Roy) (৯ জানুয়ারি, ১৯১২ — ২৫ অক্টোবর, ১৯৩৪) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব।[১] গোপন বিপ্লবী দলের সদস্য ছিলেন। ১৯৩০ সালে তিনি জেলাশাসক পেডিকে ছুরি দিয়ে হত্যা করার পরিকল্পনা করেছিলেন, কিন্তু ব্যর্থ হন।[২] ২ সেপ্টেম্বর, ১৯৩৩ তারিখে মেদিনীপুরের জেলাশাসক বার্জকে হত্যা করার ব্যাপারে অংশগ্রহণ করেন। ধরা পড়ে হত্যার অভিযোগে প্রাণদণ্ডে দণ্ডিত হন। মেদিনীপুর জেলে তার ফাঁসি হয়।[৩][৪]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

রামকৃষ্ণ রায়ের জন্ম মেদিনীপুরের চিরিমাতসাইতে। তার পিতার নাম কেনারাম রায়।[৩] মাতার নাম ভবতারিণী দেবী। রামকৃষ্ণ মেদিনীপুর টাউন স্কুলে ১৯২২ সালে তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন। ছোটবেলা থেকে তিনি শরীরচর্চা করতেন। ১৯২৪ সালে মহাত্মা গান্ধী মেদিনীপুরে এলে বালক রামকৃষ্ণ স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীতে যোগ দেন। ১৯২৬ সালে পুরসভার নির্বাচনে বীরেন্দ্রনাথ শাসমলের সাথে ও ১৯২৮ সালে সুভাষচন্দ্রের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ghosha, Amalendu (১৯৭৬)। Biplaba o biplabi। Rabīndra Lāibrerī। 
  2. "সায়ানাইড মাখানো ছুরি হাতে পেডিকে মারতে স্টেশনে"www.anandabazar.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-২৫ 
  3. সুবোধ সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, নভেম্বর ২০১৩, পৃষ্ঠা ৬৫৭-৬৫৮, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-৭৯৫৫-১৩৫-৬
  4. ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, জেলে ত্রিশ বছর, পাক ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম, ধ্রুপদ সাহিত্যাঙ্গন, ঢাকা, ঢাকা বইমেলা ২০০৪, পৃষ্ঠা ২৮২।