কাকোরি বিপ্লব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
Photo of German made Mauser pistol. Four Mausers were used by the conspirators.

কাকোরি বিপ্লব বা কাকোরি ষড়যন্ত্র বা কাকোরি ট্রেন ডাকাতি (ইংরেজি: Kakori Revolution বা Kakori Conspiracy বা Kakori train robbery বা Kakori Case), হচ্ছে একটি ট্রেন ডাকাতি যেটি লক্ষ্ণৌ-এর আলমনগর এবং কাকোরির মাঝে ১৯২৫ সালের ৯ আগস্ট সংঘটিত হয়েছিল। এই ঘটনাটি ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে অনুশীলন সমিতির বিপ্লবীরা হিন্দুস্তান রিপাবলিকান আর্মির সহায়তায় ঘটিয়েছিলেন।

ঘটনার শুরু[সম্পাদনা]

অনুশীলন সমিতির বিপ্লবীরা বুঝেছিলেন যে অহিংসার নরম কথার মাধ্যমে ভারতের স্বাধীনতা আসবে না এবং তাই তারা ভারতে বসবাসকারী ব্রিটিশদের ভেতরে ভীতির সঞ্চারের জন্য বোমা, রিভলভার এবং অন্যান্য অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহার করতে চাইলেন। যদিও ব্রিটিশ রাজ অনেক বড় এবং খুব অল্প কয়েকজন ভারতে রাজনৈতিক বিভক্তি এবং প্রশিক্ষণবিহীন সেনাবাহিনীর জন্য ভারত জয় করেছিলো। কংগ্রেসের তথাকথিত নেতাদের দ্বারা অসহযোগ আন্দোলনের প্রত্যাহার সারা দেশের বিপ্লবীদেরকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলো। কিন্তু নতুন শুরু হওয়া বিপ্লবী আন্দোলনের প্রয়োজন থেকেই অর্থের দরকার ছিলো। একদিন শাহজাহানপুর থেকে লখনৌতে ট্রেন ভ্রমণের সময় পণ্ডিত রামপ্রসাদ বিসমিল খেয়াল করলেন যে প্রত্যেক স্টেশন মাস্টার তার কেবিনে গার্ডের মাধ্যমে টাকার ব্যাগ আনছেন। সেই টাকার ব্যাগটি লখনৌ জংশনের সুপারেন্টেন্ডেন্টের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বিসমিল সিদ্ধান্ত নিলেন সরকারি অর্থ লুট করার এবং সেই টাকা সেই সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবহার করার যারা প্রতিনিয়ত ভারতকে ৩০০ বছরের অধিককাল ধরে লুট করছে। এটির মাধ্যমে শুরু হলও কাকোরী ট্রেন ডাকাতি।

তাঁদের কার্যক্রম চালানো এবং অস্ত্রশস্ত্র কেনার উদ্দেশ্যে, বিপ্লবীরা ৮ আগস্ট ১৯২৫ তারিখে শাহজাহানপুরে একটি সভায় বসেন। অনেক কথাবার্তার পর এটি সিদ্ধান্ত হয় যে তারা সরণপুর লখনৌ চলাচলকারী ৮-ডাউন প্যাসেঞ্জার ট্রেন বহনকারী সরকারি কোষাগার লুট করবেন। ৯ আগস্ট ১৯২৫ তারিখে আসফাকউল্লা খান এবং অন্য আটজন বিসমিলের নেতৃত্বে ট্রেন লুট করেন। অন্যরা হলেন বারানসি থেকে রাজেন্দ্র লাহিড়ী, বাংলা থেকে শচীন্দ্র নাথ বকসি, উন্নাও থেকে চন্দ্রশেখর আজাদ, কলকাতা থেকে কেশব চক্রবর্তী, রাইবেরেলি থেকে বনওয়ারী লাল, ইটাওয়া থেকে মুকুন্দি লাল, বেনারস থেকে মন্মথ নাথ গুপ্ত এবং শাহজাহানপুর থেকে মুরারি লাল।

মামলার রায়ে সাজা[সম্পাদনা]

১৯২৬ সানে কাকোরি বিপ্লব সংঘটিত হয় এবং এটির বিরুদ্ধে ব্রিটিশ সরকার কাকোরি ষড়যন্ত্র মামলা শুরু করে। এই মামলায় পণ্ডিত রামপ্রসাদ বিসমিল, রাজেন্দ্র লাহিড়ী, ঠাকুর রৌশন সিং, আসফাকউল্লা খানের ফাঁসি হয়। শচীন্দ্রনাথ সান্যালের যাবজ্জীবন দ্বীপান্তর হয়। মন্মথ গুপ্তের ১৩ বছর এবং যোগেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, গোবিন্দচরণ কর, শচীন্দ্রনাথ বক্সি, মুকিন্দীলাল, রাজকুমার সিং, রামকৃষ্ণ ক্ষেত্রীর ১০ বছর সাজা হয়। এছাড়াও বিষ্ণু শরণ দুব্লিশ, সুরেশচন্দ্র ভট্টাচার্যের ৭ বছর, ভূপেন্দ্রনাথ সান্যাল, রাম দুলারী ত্রিবেদী, প্রেমকিষণ খান্না, বনোয়ারী লাল এবং পরমেশ কুমারের পাঁচ বছরের জেল হয়। এঁরা সকলেই এই অনুশীলন সমিতির সভ্য ছিলেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, জেলে ত্রিশ বছর, ধ্রুপদ সাহিত্যাঙ্গন, ঢাকা, ঢাকা বইমেলা ২০০৪, পৃষ্ঠা ১৮৪।

অতিরিক্ত পাঠ[সম্পাদনা]

  • Gupta, Amit Kumar (সেপ্টে–অক্টো ১৯৯৭)। "Defying Death: Nationalist Revolutionism in India, 1897–1938"। Social Scientist25 (9/10): 3–27। জেস্টোর 3517678  (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)