নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(নোবিপ্রবি থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
NSTU( নোবিপ্রবি)
NSTU logo.gif
ধরন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত ২০০৬
আচার্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ
উপাচার্য প্রফেসর ডঃ এম আহিদুজ্জামান
শিক্ষার্থী ৪৫০০ জন
ঠিকানা নোয়াখালী
শিক্ষাঙ্গন ১০১ একর
সংক্ষিপ্ত নাম NSTU (নোবিপ্রবি)
অধিভুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন
ওয়েবসাইট www.nstu.edu.bd

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলায় অবস্থিত একটি সরকারী উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। নোয়াখালী জেলার সোনাপুরে ১০১ একর জায়গা ওপর বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত। এটি বাংলাদেশের ২৭ তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং ৫ম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়; যার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছে ২০০৬ সালে।

অবস্থান[সম্পাদনা]

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নোয়াখালী জেলা শহর থেকে আট কিলোমিটার দক্ষিণে সোনাপুর-সুবর্ণচর সড়কের পশ্চিম পাশে একশ এক একর জায়গা জুড়ে অবস্থিত এবং আরও একশ একর জায়গা অধিগ্রহন প্রক্রিয়াধীন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ তলা বিশিষ্ট প্রশাসনিক ভবন, ৫ তলা ও ১০ তলা বিশিষ্ট দুইটি একাডেমিক ভবন, আলাদাভাবে লাইব্রেরি ভবন এবং অডিটোরিয়াম ভবন রয়েছে । ২০১৮ এর জানুয়ারিতে আরেকটি একাডেমিককাম ল্যাব ভবনের কাজ শুরু হয়েছে যার আয়তন ৪ লক্ষ ৩২ হাজার বর্গফুট যা ২০২০ সালে উদ্বোধন হবে এবং তখন এটিই হবে বাংলাদেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সর্ববৃহৎ একাডেমিক ভবন । বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫টি আবাসিক হল যথাক্রমে ভাষা শহীদ আবদুস সালাম হল, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মালেক উকিল হল, বিবি খাদিজা হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল এবং শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল যার মধ্যে একটি বাংলাদেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বৃহত্তম ছাত্রী হল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০০১ সালে বাংলাদেশের বৃহত্তর ১১টি জেলায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের স্বিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এই সিদ্ধান্তের আলোকে ২০০৩ সালের ২৫ আগস্ট প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-২০০১ কার্যকর হয়। ২০০৫ সালের ২৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ২০০৬ সালের ৬ এপ্রিল তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ২৩ জুন ২০০৬ ইং প্রথম একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হয়। শুরুতে এই বিশ্ববিদ্যালয় ৪টি বিভাগ নিয়ে এর কার্যক্রম আরম্ভ করে। এগুলো হলো: কম্পিউটার বিজ্ঞান ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশল, মৎস্য ও সামুদ্রিক বিজ্ঞান, ফার্মেসী, ফলিত রসায়ন ও রাসায়নিক প্রকৌশল। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৫ টি বিভাগ চালু আছে।

অনুষদ ও ইনস্টিটিউট সমূহ[সম্পাদনা]

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ৫টি অনুষদ ও ২টি ইনস্টিটিউট রয়েছে।

🔈অনুষদ সমূহ[সম্পাদনা]

◾প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ[সম্পাদনা]

অনুষদটির অন্তর্ভুক্ত বিভাগসমূহ:

• কম্পিউটার বিজ্ঞান ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশল বিভাগ: ২০০৬ সালে এই বিভাগটি খোলা হয় এবং ২০১১ সাল থেকে এখানে মাস্টার্স কোর্স চালু হয়। এই বিভাগে প্রোগ্রামিং এন্ড ডাটা স্ট্রাকচার ল্যাব, ডিজিটাল সিগনাল প্রসেসিং এন্ড অপারেটিং সিস্টেম ল্যাব, ইলেক্ট্রিকাল এন্ড ইলেক্ট্রনিকস্ ল্যাব, মাইক্রোওয়েভ ও স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন ল্যাব এবং ডাটা কমিউনিকেশন ল্যাব এই পাঁচটি ল্যাব রয়েছে। একাডেমিক ভবন-১ এর চতুর্থ তলায় এই বিভাগ তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে ।

• তথ্য ও যোগাযোগ প্রকৌশল বিভাগ: ২০১৩ সাল থেকে এই বিভাগটি যাত্রা শুরু করে এবং এই বিভাগ থেকে বি.এস.সি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি প্রদান করা হয় । বর্তমানে এই বিভাগের ডাটা কমিউনিকেশন ল্যাব, ডাটা স্ট্রাকচার ল্যাব এবং ইলেকট্রিক্যাল ল্যাব রয়েছে এবং আরও দুইটি অত্যাধুনিক ল্যাবের কাজ চলছে যেগুলো অচিরেই খুলে দেয়া হবে । ২০১৬-২০১৭ সেশনের ভর্তি প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে নিয়ন্ত্রনের জন্য এই বিভাগের দুইজন শিক্ষার্থী ওয়েবসাইট ডেভলপমেন্টের মাধ্যমে একটি সাইট তৈরি করেছিলেন যাতে একজন শিক্ষার্থী বাংলাদেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে ওই সাইটটির মাধ্যমে পুরো ভর্তি প্রক্রিয়াটি অবলোকন করতে পারবেন যা সব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে । বর্তমানে একাডেমিক ভবন-২ এর অষ্টম তলায় রয়েছে এই বিভাগের অবস্থান এবং রয়েছে ১২ জন সুদক্ষ শিক্ষক নিয়ে গঠিত শিক্ষকমন্ডলী ।

• তড়িৎ ও তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১৭ সাল থেকে যাত্রা শুরু করে।

• ফলিত রসায়ন ও রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগ: এই বিভাগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকালীন চারটি বিভাগের মধ্যে একটি । এই বিভাগের রয়েছে তিনটি অত্যাধুনিক ল্যাব এবং রয়েছে তিনটি মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, প্রশাসনিক ভবন-১ এর দ্বিতীয় তলায় এই বিভাগ নিজস্ব কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে ।

◾বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

বর্তমানে এই অনুষদের অধীনস্থ বিভাগসমূহ:

• মৎস্য ও সামুদ্রিক বিজ্ঞান বিভাগ: ২০০৬ সাল থেকে এই বিভাগের কার্যক্রম চালু আছে এবং ২০১১ সাল থেকে এখানে মাস্টার্স কোর্স চালু হয়। এই বিভাগে বায়োকেমিস্ট্রি ল্যাব, ফিশারিজ ল্যাব, মাইক্রোবায়োলজি ল্যাব, কেমিস্ট্রি ল্যাব ও এনভায়রনমেন্টাল ল্যাব রয়েছে। ২০১৬ সালে দুইটি এবং ২০১৮ সালে দুইটি নতুন অমেরুদন্ডী প্রানীর জাত আবিষ্কার করে বিশ্বে বাংলাদেশের নাম উজ্জ্বল করেছেন প্রফেসর ড.বেলাল হোসেন যিনি বর্তমানে এই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন ।

• ফার্মেসী বিভাগ: ২০০৬ সালে এখানে ফার্মেসী বিভাগ খোলা হয়। ২০১১ সাল থেকে ক্লিনিক্যাল ফার্মেসী এন্ড ফার্মাকোলজী এবং ফার্মাসিউটিকাল টেকনোলজি বিষয়ে এখানে মাস্টার্স কোর্স চালু হয়। এই বিভাগে অর্গানিক ল্যাব, ইনর্গানিক ল্যাব, ফিজিকাল ফার্মেসী ল্যাব, ফিজিওলজি ল্যাব, মাইক্রোবায়োলজি ল্যাব, ফার্মাকোলজি ল্যাব, ফার্মাসিউটিকাল টেকনোলজি ল্যাব, ফার্মাসিউটিকাল এনালাইসিস এন্ড কোয়ালিটি কন্ট্রোল ল্যাব ও ফার্মাসিউটিকস্ ল্যাব রয়েছে। একাডেমিক ভবন-১ এর তৃতীয় তলায় রয়েছে এই বিভাগের অবস্থান ।

• অণুজীববিজ্ঞান বিভাগ: এই বিভাগের যাত্রা শুরু হয় ২০০৬ সালে।এই বিভাগে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী দেয়া হয়। বর্তমানে একাডেমিক ভবন-১ এর পঞ্চম তলায় পর্যাপ্ত ল্যাব সুবিধাসহ বিভাগটির শিক্ষা কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। ্

• ফলিত গণিত বিভাগ: ২০১১ সালে যাত্রা শুরু করে ।

• খাদ্য প্রযুক্তি ও পুষ্টি বিজ্ঞান বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১২ সালে চালু হয়।

• পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১২ সালে চালু হয়।

• জৈব প্রযুক্তি ও জিন প্রকৌশল বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১৩ সালে চালু হয়।

• প্রাণরসায়ন বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১৭ সালে চালু হয়।

• কৃষি বিভাগ: ২০১৩ সালে 'কোস্টাল এগ্রিকালচার' নামে বিভাগটি যাত্রা শুরু করে এবং ২০১৫ সালের শুরুতে 'এগ্রিকালচার' নামে আত্মপ্রকাশ করে।

• পরিসংখ্যান বিভাগ: এই বিভাগটি ২০১৭ সালে চালু হয়।

• সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগ:

◾সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ[সম্পাদনা]

এর অন্তর্ভুক্ত বিভাগসমূহ:

• সামাজিক বিজ্ঞান বিভাগ:

• বাংলা বিভাগ:

• ইংরেজি বিভাগ:

• বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক শিক্ষা বিভাগ:

• অর্থনীতি বিভাগ:

◾ ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ[সম্পাদনা]

নিম্নোক্ত বিভাগগুলোর সমন্বয়ে অনুষদটি গঠিত:

• ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ:

• ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ:

• ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগ:

◾শিক্ষা অনুষদ[সম্পাদনা]

অনুষদটি ১টি বিভাগ নিয়ে গঠিত

•শিক্ষা বিভাগ:

🔈ইনস্টিটিউট সমূহ[সম্পাদনা]

◾তথ্য প্রযুক্তি ইনস্টিটিউট[সম্পাদনা]

এর অধীনে নিম্নোক্ত বিভাগটি রয়েছে:

• সফটওয়্যার প্রকৌশল বিভাগ:

◾ তথ্য বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট[সম্পাদনা]

এর অন্তর্ভুক্ত বিভাগ:

• তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগ:

আবাসিক হল সমূহ[সম্পাদনা]

  • ভাষা শহীদ আব্দুস সালাম হল;
  • জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল;(নির্মাণাধীন)
  • বীর মুক্তিযোধা ও সাবেক স্পিকার জনাব আবদুল মালেক উকিল হল;
  • হযরত বিবি খাদিজা হল;
  • বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল (নির্মানাধীন)।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. nstu.edu.bd

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

.