কলিন মানরো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
কলিন মানরো
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামকলিন মানরো
জন্ম (১৯৮৭-০৩-১১) ১১ মার্চ ১৯৮৭ (বয়স ৩১)
ডারবান, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ২৫৮)
১১ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৭৮)
২২ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ ওডিআই১৬ নভেম্বর ২০১৩ বনাম শ্রীলঙ্কা
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৬-বর্তমানঅকল্যান্ড (দল নং ১৮)
২০১৫-বর্তমানমুম্বাই ইন্ডিয়ান্স
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২৭ ৪৫
রানের সংখ্যা ১৫ ১৬৭ ১,৭৩৮ ১,২৪৭
ব্যাটিং গড় ৭.৫০ ২৭.৮৩ ৪৮.২৭ ৩৮.৯৬
১০০/৫০ ০/০ ০/২ ৬/৭ ২/১০
সর্বোচ্চ রান ১৫ ৮৫ ২৬৯* ১৫১
বল করেছে ১০৮ ২,৩১৩ ৪৫৮
উইকেট ৩৪
বোলিং গড় ২০.০০ ৩৩.২০ ৬৭.৮৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ২/৪০ ৪/৩৬ ৩/৪৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/– ০/– ১৩/– ১৮/–
উৎস: CricketArchive; espncricinfo, ২ মার্চ ২০১৪

কলিন মানরো (জন্ম: ১১ মার্চ, ১৯৮৭) দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে জন্মগ্রহণকারী নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। এছাড়াও তিনি ডানহাতে মিডিয়াম-ফাস্ট বোলিংয়ে পারদর্শী। এর পূর্ব তিনি নিউজিল্যান্ডের অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেন। বর্তমানে ঘরোয়া ক্রিকেটে অকল্যান্ড ক্রিকেট দলে খেলছেন।[১]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

টংগাটের মেইডস্টোন প্রাইমারী স্কুলে অধ্যয়ন করেন। পরবর্তীতে নিউজিল্যান্ডে স্থানান্তরিত হন। সেখানে পাকুরাঙ্গা কলেজে পড়াশোনা করেন। ঐ কলেজের প্রথম একাদশ দলের পক্ষে খেলেন। ২০০৬ সালে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকটে বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড দলের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি।

২০১২-১৩ মৌসুমে প্লাঙ্কেট শিল্ড প্রতিযোগিতায় ওয়েলিংটন ফায়ারবার্ডস দলের বিপক্ষ ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ক্রেগ কাচোপা’র সাথে ৩৭৭ রানের জুটি গড়েন। কিন্তু দুই রানের জন্য নতুন রেকর্ড গড়া থেকে বঞ্চিত হন। অকল্যান্ড এইসের পক্ষে ২৭ চার ও ১৪ ছক্কা সহযোগে অপরাজিত ২৬৯ করেন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের অধিকারী হন। এরফলে ১৯৩৬-৩৭ মৌসুমে বিল কারসনের গড়া রেকর্ডের পর দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে আঘাতপ্রাপ্ত জেমস ফ্রাঙ্কলিনের স্থলাভিষিক্ত হন ও নিউজিল্যান্ডের ২৫৮তম টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক ঘটে তার।

আন্তর্জাতিক রেকর্ড[সম্পাদনা]

টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক পুরস্কার[সম্পাদনা]

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ পুরস্কার[সম্পাদনা]

# সিরিজ মৌসুম ম্যাচের অবদান ফলাফল
শ্রীলঙ্কা বনাম নিউজিল্যান্ড নিউজিল্যান্ড ২০১৫/১৬ ৫০* (১৪ বল: ১x৪, ৭x৬)  নিউজিল্যান্ড ৯ উইকেটে জয়ী।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Colin Munro"। Auckland Cricket। সংগ্রহের তারিখ ১ জুলাই ২০১৩ 
  2. "Sri Lanka in New Zealand T20I Series, 2015/16 – New Zealand v Sri Lanka Scorecard"ESPNcricinfo। ১০ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]