২০১৩-১৪ ইংল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দলের অস্ট্রেলিয়া সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৩-১৪ ইংল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দলের অস্ট্রেলিয়া সফর
Flag of Australia.svg
অস্ট্রেলিয়া
Flag of England.svg
ইংল্যান্ড
তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি – ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪
অধিনায়ক জোডি ফিল্ডস শার্লত এডওয়ার্ডস
টেস্ট সিরিজ
ফলাফল ১-ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ড ১–০ এ জয়ী হয়
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ অস্ট্রেলিয়া ২–১ এ জয়ী হয়
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ অস্ট্রেলিয়া ২–১ এ জয়ী হয়
সর্বমোট অ্যাশেজ পয়েন্ট
অস্ট্রেলিয়া ৮, ইংল্যান্ড ১০
২০১৩ (পূর্ববর্তী) (পরবর্তী) ২০১৫

২০১৩-১৪ মৌসুমে ইংল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দল অস্ট্রেলিয়া সফর করে। ২০১৪ সালের ১০ জানুয়ারি থেকে ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ সফরে পূর্ব-নির্ধারিত সময়সূচী অনুযায়ী ১টি টেস্ট, ৩টি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ও ৩টি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের মুখোমুখি হয়। ইংল্যান্ডের মহিলারা তাদের অ্যাশেজ নিজেদের কাছে ধরে রাখতে সক্ষম হয়।

২০১৩ সালে অস্ট্রেলীয় মহিলা দলের ইংল্যান্ড সফরের পাঁচ মাস পর এ সিরিজটি অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৩ সালের মহিলাদের অ্যাশেজের ন্যায় একই পয়েন্ট পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে। পয়েন্ট পদ্ধতিতে টেস্ট ক্রিকেটসহ সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলার ফলাফলও অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

সার-সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

একমাত্র টেস্টটি ১০-১৩ জানুয়ারি পার্থের ওয়াকা গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল ৬১ রানে জয়লাভ করে। একদিনের আন্তর্জাতিকে প্রথম দুইটি খেলা মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ১৯ ও ২৩ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় যাতে উভয় দল জয়লাভ করে। তৃতীয় খেলাটি হোবার্টের বেলেরিভ ওভালে ২৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত খেলায় অস্ট্রেলিয়া জয়ী হয়। পুরুষ দলের পাশাপাশি তিনটি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকের প্রথমটি বেলেরিভ ওভালে অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইংল্যান্ড জয়ী হয় ও ১০-৪ পয়েন্টের ব্যবধানে সিরিজে এগিয়ে যায়। এরফলে দলটি মহিলাদের অ্যাশেজ অক্ষুণ্ন রাখে।[১] অবশিষ্ট দু’টি টি২০ খেলায় ৩১ জানুয়ারি ও ২ ফেব্রুয়ারি মেলবোর্ন ও সিডনি’র স্টেডিয়াম অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়। উভয় খেলায় অস্ট্রেলিয়া জয়ী হয়।

এছাড়াও সফরকারী ইংল্যান্ড দল অস্ট্রেলিয়া এ মহিলা দলের বিপক্ষে অংশগ্রহণ করে। পার্থের ফ্লোরেট পার্কে ৬-৭ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত খেলাটি ড্রয়ে পরিণত হয়। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া চেয়ারম্যান মহিলা একাদশের বিপক্ষেও দলটি অংশগ্রহণ করে। ১৯ জানুয়ারি মেলবোর্নের জাঙ্কশন ওভালে অনুষ্ঠিত খেলায় ইংল্যান্ড দল ২ উইকেটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল।

চূড়ান্ত অবস্থানে অস্ট্রেলিয়া ৮ এবং ইংল্যান্ড ১০ পয়েন্ট লাভ করে।

টেস্ট[সম্পাদনা]

১০-১৩ জানুয়ারি ২০১৪
স্কোরকার্ড
২০১ (৯১.১ ওভার)
অ্যারান ব্রিন্ডল ৬৮ (১২৬)
রেনে ফারেল ৪/৪৩ (১৮.১ ওভার)
২০৭ (৮৮.২ ওভার)
এলিজি পেরি ৭১ (১৭২)
অ্যানিয়া শ্রাবসোল ৪/৫১ (১৯ ওভার)
১৯০ (৭৯ ওভার)
শার্লত এডওয়ার্ডস ৫৬ (৭৬)
এলিজি পেরি ৫/৩৮ (২০ ওভার)
১২৩ (৪৮.১ ওভার)
এলিজি পেরি ৩১ (৫৪)
কেট ক্রস ৩/৩৫ (১৪ ওভার)
ইংল্যান্ড ৬১ রানে বিজয়ী
ওয়াকা গ্রাউন্ড, পার্থ
আম্পায়ার: ইয়ান লকগ্রেগ ডেভিডসন
ম্যাচসেরা: এলিজি পেরি (অস্ট্রেলিয়া)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[সম্পাদনা]

১৯ জানুয়ারি ২০১৪
১০:০০
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
২০৯/৩ (৫০ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২১০/৩ (৫০ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

২৩ জানুয়ারি ২০১৪
১৪:২০
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
২৬৬/৭ (৫০ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২৪০ (৪৬.২ ওভার)
নিকোল বোল্টন ১২৪ (১৫২)
নাতালি সিভার ২/২৩ (৬ ওভার)
সারাহ টেলর ৬৩ (৭৫)
ইরিন অসবর্ন ৩/৪৯ (৮.২ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

২৬ জানুয়ারি ২০১৪
১৩:০০
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৬৮/৪ (৫০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২৬৯/৬ (৪৯.৩ ওভার)
সারাহ টেলর ৬৪ (৫৭)
জেস জোনাসেন ১/৫০ (১০ ওভার)
এলিজি পেরি ৯০* (৯৫)
জেনি গান ৩/৫৬ (১০ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৪ উইকেটে বিজয়ী
বেলেরিভ ওভাল, হোবার্ট
আম্পায়ার: টনি ওয়ার্ডটনি উইল্ডস
সেরা খেলোয়াড়: এলিজি পেরি (অস্ট্রেলিয়া)
  • ইংল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

২৯ জানুয়ারি ২০১৪
১৪:০০
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
১৫০/৩ (২০ ওভার)
 ইংল্যান্ড
১৫১/১ (১৭.৫ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

৩১ জানুয়ারি ২০১৪
১৪:৪৫
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
৯৮/৬ (২০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
৯৯/৩ (১৫.১ ওভার)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

৩য় টি২০আই[সম্পাদনা]

২ ফেব্রৃয়ারি ২০১৪
১৪:৪৫
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
১০১/৮ (২০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
১০২/৩ (১৮.৩ ওভার)
নাতালি সিভার ২৮ (৩৩)
রেনে ফারেল ৪/১৫ (৩ ওভার)
এলিজি ভিলানি ৩৬* (৪৭)
জর্জিয়া এলিজ ১/১২ (৩ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে বিজয়ী
স্টেডিয়াম অস্ট্রেলিয়া, সিডনি
আম্পায়ার: ড্যামিয়েন মিলে (অস্ট্রেলিয়া) ও টনি উইল্ডস (অস্ট্রেলিয়া)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

ফলাফল[সম্পাদনা]

খেলা তারিখ ফলাফল পয়েন্ট সংগ্রহ অগ্রসরমান পয়েন্ট
অস্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ড অস্ট্রেলিয়া ইংল্যান্ড
একমাত্র টেস্ট
টেস্ট ১৩৫ ১০-১৩ জানুয়ারি  ইংল্যান্ড ৬১ রানে বিজয়ী
ওডিআই সিরিজ
ওডিআই ৯০২ ১৯ জানুয়ারি  ইংল্যান্ড ৭ উইকেটে বিজয়ী
ওডিআই ৯০৫ ২৩ জানুয়ারি  অস্ট্রেলিয়া ২৬ রানে বিজয়ী
ওডিআই ৯০৭ ২৬ জানুয়ারি  অস্ট্রেলিয়া ৪ উইকেটে বিজয়ী
টি২০আই সিরিজ
টি২০আই ২৩৪ ২৯ জানুয়ারি  ইংল্যান্ড ৯ উইকেটে বিজয়ী ১০
টি২০আই ২৩৫ ৩১ জানুয়ারি  অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে বিজয়ী ১০
টি২০আই ২৩৬ ২ ফেব্রুয়ারি  অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে বিজয়ী ১০

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

ব্যাটিং[সম্পাদনা]

সর্বাধিক রান[২]
খেলোয়াড়ের নাম খেলা রান গড় সর্বোচ্চ
এলিজি পেরি ২৮৬ ৯৫.৩৩ ৯০*
শার্লত এডওয়ার্ডস ২৮০ ৪০.০০ ৯২*
অ্যারান ব্রিন্ডল ২৪৪ ৬১.০০ ৬৮
অ্যালেক্স ব্ল্যাকওয়েল ২২১ ৪৪.২০ ৮২*
মেগ ল্যানিং ২২১ ৩১.৫৭ ৭৮*

বোলিং[সম্পাদনা]

সর্বোচ্চ উইকেট[৩]
খেলোয়াড়ের নাম খেলা উইকেট রান গড় ইনিংসে সেরা
রেনে ফারেল ১২ ২৫২ ২১.০০ ৭/৭৭
এলিজি পেরি ১২ ৩০৬ ২৫.৫০ ৮/৭৯
অ্যানিয়া শ্রাবসোল ১০ ২৬৮ ২৬.৮০ ৭/৯৯
ইরিন অসবর্ন ২৪৭ ৩০.৮৭ ৩/৪৯
জেনি গান ২২১ ৩১.৫৭ ৩/২৭

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. England retains women's Ashes with nine-wicket Twenty20 win against Australia ABC News (Australia), 29 January 2014.
  2. "Records / Women's Ashes, 2013/14 / All matches / Most runs"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ 02 February 2014  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  3. "Records / Women's Ashes, 2013/14 / All matches / Most wickets"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ 02 February 2014  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)