শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জাতীয় চলচ্চিত্র শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী পুরস্কার
Tania Ahmed.jpg
বর্তমান বিজয়ী: তানিয়া আহমেদ
পুরস্কার দেওয়া হয়বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য
অবস্থানঢাকা
দেশবাংলাদেশ
পুরস্কার দাতাবাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি
প্রথম পুরস্কার প্রদান১৯৭৬ (১৯৭৫-এর চলচ্চিত্রের জন্য)
শেষ পুরস্কার প্রদান২০১৮ (২০১৬-এর চলচ্চিত্রের জন্য)
বর্তমানে যার দ্বারা গৃহীততানিয়া আহমেদ (কৃষ্ণপক্ষ-এর জন্য)
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবাসাইট

শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীদের জন্য সর্বাপেক্ষা সম্মানীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার; যা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের অংশ হিসাবে ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি বছর দেওয়া হয়।[১] আনোয়ারা সর্বাধিক সাতবার এই পুরস্কার লাভ করেন। রওশন জামিল, মেহবুবা মাহনূর চাঁদনী, চম্পা, নিপুণ আক্তার, ও ববিতা দুইবার করে এই পুরস্কার লাভ করেন। শাবানা ১৯৭৭ সালের জননী চলচ্চিত্রের জন্য এই পুরস্কার পেলেও তিনি তা প্রত্যাখান করেন।

বিজয়ী অভিনেতা[সম্পাদনা]

রোজী সামাদ ১৯৭৫ সালের লাঠিয়াল চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রথমবার এই পুরস্কার লাভ করেন।
পারভীন সুলতানা দিতি ১৯৮৭ সালের স্বামী স্ত্রী চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।
তমালিকা কর্মকার ২০০০ সালের কিত্তনখোলা চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।
ববিতা হাছন রাজাকে আপন কে পর (২০১১) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য দুইবার এই পুরস্কার লাভ করেন।
চম্পা শাস্তি (২০০৫) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য এই পুরস্কার লাভ করেন।

১৯৭০-এর দশক[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী অভিনেত্রী চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৭৫ রোজী সামাদ লাঠিয়াল কাদের লাঠিয়ালের স্ত্রী [২]
১৯৭৬ রওশন জামিল নয়নমনি নানী [৩]
১৯৭৭ শাবানা* জননী
১৯৭৮ আনোয়ারা গোলাপী এখন ট্রেনে ময়না [৪]
১৯৭৯ আনোয়ারা সুন্দরী বিন্দিয়া [৩]

১৯৮০-এর দশক[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী অভিনেত্রী চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৮০ রোজিনা কসাই [৩]
১৯৮১ পুরস্কার দেওয়া হয় নি
১৯৮২ আয়শা আখতার রজনীগন্ধা তপনের মা
১৯৮৩ সুবর্ণা মুস্তাফা নতুন বউ
১৯৮৪ আনোয়ারা সখিনার যুদ্ধ
১৯৮৫ রেহানা জলি মা ও ছেলে মমতা
১৯৮৬ জিনাত শুভদা ললনা
১৯৮৭ পারভীন সুলতানা দিতি স্বামী স্ত্রী সাবিনা
১৯৮৮ সুবর্ণা শিরিন বিরাজ বৌ
১৯৮৯ খালেদা আক্তার কল্পনা জিনের বাদশা রতনের চাচী

১৯৯০-এর দশক[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী অভিনেত্রী চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
১৯৯০ আনোয়ারা মরণের পরে ডাক্তার আপা [৫]
১৯৯১ নূতন স্ত্রীর পাওনা ঈভা [৬]
১৯৯২ আনোয়ারা রাধা কৃষ্ণ [৫]
১৯৯৩ আনোয়ারা বাংলার বধূ
১৯৯৪ আনোয়ারা অন্তরে অন্তরে দাদী
১৯৯৫ শান্তা ইসলাম অন্য জীবন [৩]
১৯৯৬ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীর জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
১৯৯৭ রোকেয়া প্রাচী দুখাই বুলি
১৯৯৮ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীর জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি
১৯৯৯ শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীর জন্য পুরস্কার দেওয়া হয়নি

২০০০-এর দশক[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী অভিনেত্রী চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
২০০০ তমালিকা কর্মকার কিত্তনখোলা [৩]
২০০১ মেহবুবা মাহনূর চাঁদনী লালসালু জমিলা [৭]
২০০২ ববিতা হাছন রাজা [৩]
২০০৩ ইয়াসমিন বিলকিস সাথী বীর সৈনিক মেহনাজ
২০০৪ মেহবুবা মাহনূর চাঁদনী জয়যাত্রা মরিয়ম [৮]
২০০৫ চম্পা শাস্তি রাধা দেবী
২০০৬ ডলি জহুর ঘানি রোকেয়া
২০০৭ নিপুণ আক্তার সাজঘর [৯]
২০০৮ চম্পা
দিলারা জামান
চন্দ্রগ্রহণ পাগলী
কালী মাসি
[১০]
২০০৯ নিপুণ আক্তার চাঁদের মত বউ প্রিয়া [১১]

২০১০-এর দশক[সম্পাদনা]

বছর বিজয়ী অভিনেত্রী চলচ্চিত্র ভূমিকা সূত্র
২০১০ রুমানা খান ভালোবাসলেই ঘর বাঁধা যায় না অজান্তা [১২]
২০১১ ববিতা কে আপন কে পর [১৩]
২০১২ লুসি তৃপ্তি গোমেজ উত্তরের সুর আম্বিয়া [১৪]
২০১৩ অপর্ণা ঘোষ মৃত্তিকা মায়া ফাহমিদা [১৫][১৬]
২০১৪ চিত্রলেখা গুহ ৭১ এর মা জননী হাশেমের মা [১৭][১৮]
২০১৫ তমা মির্জা নদীজন ছায়া [১৯]
২০১৬ তানিয়া আহমেদ কৃষ্ণপক্ষ জেবা [২০]

* পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছেন।

পুরস্কারের পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

একাধিকবার বিজয়ী[সম্পাদনা]

সংখ্যা অভিনেতা
আনোয়ারা
রওশন জামিল
মেহবুবা মাহনূর চাঁদনী
চম্পা
নিপুণ আক্তার
ববিতা

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রাশেদ শাওন। "চার দশকে আমাদের সেরা চলচ্চিত্রগুলো"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ২৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৪, ২০১২ 
  2. "লাঠিয়াল"দৈনিক সমকাল। ১৫ আগস্ট ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তদের নামের তালিকা (১৯৭৫-২০১২)"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  4. লিয়াকত হোসেন খোকন (৫ আগস্ট ২০১০)। "কিংবদন্তি : বাংলার আলেয়া আনোয়ারা"দৈনিক আমার দেশ। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  5. মিঠু হালদার (২৮ জানুয়ারি ২০১৬)। "আপন আলোয় আনোয়ারা"প্রিয় নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  6. অভি মঈনুদ্দীন (২১ মে ২০১৩)। "নূতন এখনও নতুন"দৈনিক আমার দেশ। ২১ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  7. নিষাদ চৌধুরী (৭ মে ২০১৩)। "চাঁদনীর তিন পৃথিবী"দৈনিক আমার দেশ। ১৪ জুলাই ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  8. "National Film Awards for the last fours years announced" [চার বছরের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা]। দ্য ডেইলি স্টার। ঢাকা, বাংলাদেশ। ১ সেপ্টেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  9. নাদিয়া সারওয়াত (২৫ অক্টোবর ২০০৮)। "National Film Awards generate enthusiasm"দ্য ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  10. মেঘলা রহমান বৃষ্টি (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১০)। "অভিনয়ে সেরা রিয়াজ ও পপি"দৈনিক কালের কণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  11. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০০৯"বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর.কম। ঢাকা, বাংলাদেশ। ২৪ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  12. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০"দৈনিক আমার দেশ। ২৩ মার্চ ২০১২। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  13. নিষাদ চৌধুরী (১২ মার্চ ২০১২)। "সেরা আসর বসছে আজ : জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১১"দৈনিক আমার দেশ। ৪ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  14. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১২ ঘোষণা"দৈনিক যুগান্তর। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  15. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৩"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  16. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে 'মৃত্তিকা মায়া'র জয়জয়কার"বিডিনিউজ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ১০ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  17. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৪"বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ 
  18. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪ ঘোষণা"দৈনিক জনকণ্ঠ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৬ 
  19. "২০১৫ সালের 'জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার' ঘোষণা"দৈনিক জনকণ্ঠ। ঢাকা, বাংলাদেশ। ১৯ মে ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  20. মানজুর, মাহমুদ (৫ এপ্রিল ২০১৮)। "শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র 'অজ্ঞাতনামা', সর্বাধিক 'আয়নাবাজি' | banglatribune.com"বাংলা ট্রিবিউন। সংগ্রহের তারিখ ২৩ এপ্রিল ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]