৪১তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
৪১তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয়২০১৬ সালে চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের জন্য
উপস্থাপিততথ্য মন্ত্রণালয়
ঘোষণা৪ এপ্রিল ২০১৮
উপস্থাপন৮ জুলাই ২০১৮
স্থানঢাকা, বাংলাদেশ
অফিসিয়াল ওয়েবসাইটঅফিসিয়াল ওয়েবসাইট
আলোকপাত
জীবনকাল কৃতিত্বববিতাফারুক
শ্রেষ্ঠ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রঅজ্ঞাতনামা
শ্রেষ্ঠ অভিনেতাচঞ্চল চৌধুরী
আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীনুসরাত ইমরোজ তিশাকুসুম শিকদার
অস্তিত্বশঙ্খচিল
সর্বাধিক পুরস্কারআয়নাবাজি (৭)
 < ৪০তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ৪২তম > 

৪১তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য প্রদত্ত পুরস্কার। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে একটি প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে ২০১৮ সালের ৪ এপ্রিল 'জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬' ঘোষণা করা হয়।[১] এই বছর ২৬টি বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান করা হয়। এই বছর সর্বোচ্চ ৭টি পুরস্কার পায় অমিতাভ রেজা চৌধুরী পরিচালিত ‘আয়নাবাজি’। আজীবন সম্মাননা গ্রহণ করেন অভিনেতা ফারুক এবং অভিনেত্রী ববিতা

৮ জুলাই বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।[২] অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন অভিনেত্রী পূর্ণিমা ও অভিনেতা ফেরদৌস।

বিজয়ীদের তালিকা[সম্পাদনা]

মেধা পুরস্কার[সম্পাদনা]

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ফরিদুর রেজা সাগর অজ্ঞাতনামা
শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র এস এম কামরুল আহসান ঘ্রাণ
শ্রেষ্ঠ পরিচালক অমিতাভ রেজা চৌধুরী আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা
কুসুম শিকদার
অস্তিত্ব
শঙ্খচিল
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা আলীরাজ
ফজলুর রহমান বাবু
পুড়ে যায় মন
মেয়েটি এখন কোথায় যাবে
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী তানিয়া আহমেদ কৃষ্ণপক্ষ
শ্রেষ্ঠ খলচরিত্রে অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম অজ্ঞাতনামা
শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী আনুম রহমান খান (সাঁজবাতি) শঙ্খচিল
শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক ইমন সাহা মেয়েটি এখন কোথায় যাবে
শ্রেষ্ঠ সুরকার ইমন সাহা মেয়েটি এখন কোথায় যাবে (গানঃ "বিধিরে ও বিধি বিধি")
শ্রেষ্ঠ গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার মেয়েটি এখন কোথায় যাবে (গানঃ "বিধিরে ও বিধি বিধি")
শ্রেষ্ঠ পুরুষ কণ্ঠশিল্পী ওয়াকিল আহাদ দর্পণ বিসর্জন (গানঃ "অমৃত মেঘের বারি")
শ্রেষ্ঠ নারী কণ্ঠশিল্পী মেহের আফরোজ শাওন কৃষ্ণপক্ষ (গানঃ "যদি মন কাঁদে তুমি চলে এসো")

কারিগরী পুরস্কার[সম্পাদনা]

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার তৌকির আহমেদ অজ্ঞাতনামা
শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার অনম বিশ্বাসগাউসুল আলম শাওন আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা সৈয়দা রুবাইয়াত হোসেন আন্ডার কনস্ট্রাকশন
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক রাশেদ জামান আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ চিত্রসম্পাদক ইকবাল আহসানুল কবির আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক উত্তম গুহ শঙ্খচিল
শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক রিপন নাথ আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজসজ্জা সাত্তার ও ফারজানা সান নিয়তি
আয়নাবাজি
শ্রেষ্ঠ রূপসজ্জা মানিক আন্ডার কনস্ট্রাকশন

বিশেষ পুরস্কার[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬" (PDF)তথ্য মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ সরকার। ৪ এপ্রিল ২০১৮। ৫ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৮ 
  2. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ অনুষ্ঠিত"দৈনিক ইত্তেফাক। ৯ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]