৩৭তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
৩৭তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
পুরস্কার দেওয়া হয় ২০১২ সালে চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের জন্য
পুরস্কার প্রদান করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী
উপস্থাপিত তথ্য মন্ত্রণালয়
ঘোষণা ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪
উপস্থাপন ১০ মে ২০১৪
স্থান ঢাকা, বাংলাদেশ
আয়োজক ফেরদৌস আহমেদমৌসুমী
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট অফিসিয়াল ওয়েবসাইট
আলোকপাত
জীবনকাল কৃতিত্ব খলিল উল্লাহ খান
শ্রেষ্ঠ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উত্তরের সুর
শ্রেষ্ঠ অভিনেতা শাকিব খান
খোদার পরে মা
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী জয়া আহসান
চোরাবালি
সর্বাধিক পুরস্কার ঘেটু পুত্র কমলা (৮)
 < ৩৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ৩৮তম > 

৩৭তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য প্রদত্ত ৩৭তম আয়োজন; যা ২০১৪ সালের ১০ মে তারিখে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দেওয়া হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা[১] পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে তিনি সম্মাননা স্মারক, সার্টিফিকেট, মেডেল এবং অর্থমূল্যের চেক তুলে দেন। এর আগে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে সরকার চলচ্চিত্রশিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের জন্য ২৪টি ক্ষেত্রে বিশিষ্ট শিল্পী ও কুশলীকে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১২’ প্রদানের ঘোষণা করে।[২] ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি বছর এটি দেয়া হচ্ছে। সরকার কর্তৃক নিযুক্ত একটি জাতীয় প্যানেল বিজয়ীদের নির্বাচন করে থাকে।

বিজয়ীদের তালিকা[সম্পাদনা]

মেধা পুরস্কার[সম্পাদনা]

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ফরিদুর রেজা সাগর (ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড) উত্তরের সুর[৩]
শ্রেষ্ঠ পরিচালক হুমায়ুন আহমেদ ঘেটুপুত্র কমলা[৪]
শ্রেষ্ঠ অভিনেতা শাকিব খান খোদার পরে মা
শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী জয়া আহসান চোরাবালি[৫]
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান চোরাবালি
শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী লুসি তৃপ্তি গোমেজ উত্তরের সুর
শ্রেষ্ঠ খলচরিত্রে অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম চোরাবালি
শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী মামুন ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক ইমন সাহা ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ সুরকার ইমন সাহা পিতা
শ্রেষ্ঠ গীতিকার মিল্টন খন্দকার খোদার পরে মা
শ্রেষ্ঠ পুরুষ সঙ্গীত শিল্পী পলাশ খোদার পরে মা
শ্রেষ্ঠ নারী সঙ্গীত শিল্পী রুনা লায়লা তুমি আসবে বলে

কারিগরী পুরস্কার[সম্পাদনা]

পুরস্কারের নাম বিজয়ী চলচ্চিত্র
শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার শাহনেওয়াজ কাকলী উত্তরের সুর[৬]
শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার রেদওয়ান রনি চোরাবালি
শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা হুমায়ুন আহমেদ ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক উত্তম গুহ ও কলন্তর রাজা সূর্য খাঁ
শ্রেষ্ঠ সম্পাদক সলিমুল্লাহ ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক মাহফুজুর রহমান খান ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ শব্দ গ্রাহক রিপন নাথ চোরাবালি
শ্রেষ্ঠ সাজসজ্জা এস.এম মঈনুদ্দিন ঘেটুপুত্র কমলা
শ্রেষ্ঠ মেকআপম্যান খলিলুর রহমান ঘেটুপুত্র কমলা[৭]

বিশেষ পুরস্কার[সম্পাদনা]

উপস্থাপক[সম্পাদনা]

৩৭তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন ফেরদৌস আহমেদমৌসুমী

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১২ পেলেন যারা"ঢাকা টাইমস। ১০ মে ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১৭ 
  2. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা"দৈনিক প্রথম আলো। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১৭ 
  3. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার: ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ডাবল হ্যাটট্রিক"দেশ নিউজ ২৪। ২০১২-০২-০৯। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১, ২০১৫ 
  4. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১২ ঘোষিত, শ্রেষ্ঠ পরিচালক হুমায়ূন আহমেদ"প্রিয় সংবাদ। ২০১৩-০৯-২৬। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১২, ২০১৫ 
  5. "পুরস্কার আমার কাছে বোনাস: জয়া আহসান"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ১২ এপ্রিল ২০১৭ 
  6. মৌটুসী, পাত্রিসিয়া (মার্চ ৩, ২০১৪)। "Not many women behind the camera"প্রিয় সংবাদ। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৫ 
  7. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা"প্রথম আলো। ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৪। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]