ইন্দো-আর্য অভিপ্রায়ণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ইন্দো-আর্য অভিপ্রায়ণ (Indo-Aryan migration) মডেল[note ১] ইন্দো-আর্য জনগোষ্ঠী ভারতীয় উপমহাদেশের বাইরে থেকে এসেছিল এই তত্ত্বকে ঘিরে দৃশ্যকল্পকে ব্যাখ্যা করে, যেখানে ইন্দো-আর্য জনগোষ্ঠী হচ্ছে সেই আরোপিত জাতিভাষাভিত্তিক গোষ্ঠী যারা ইন্দো-আর্য ভাষায় কথা বলেন। এই ইন্দো-আর্য ভাষাগুলো উত্তর ভারতে প্রাধান্য বিস্তার করেছে। ভারতীয় উপমহাদেশের বাইরে ইন্দো-আর্য উৎপত্তি - এই তত্ত্বের প্রবক্তাগণ সাধারণত এটাই বিবেচনা করেন যে ভারতীয় উপমহাদেশে এবং আনাতোলিয়ায় (প্রাচীন মিতানি) ইন্দো-আর্যগণ মধ্য এশিয়া থেকে এসেছিলেন, হরপ্পা যুগের শেষ সময়ে প্রায় ১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ধীরে ধীরে এই অভিপ্রায়ণ শুরু হয়েছিল, এবং এর ফলে ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তরাঞ্চলে ভাষা-পরিবর্তন ঘটে। ইরানে ইরানীয়গণ ইরানীয় ভাষাসমূহ নিয়ে আসেন, যেগুলো ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহের নিকটাত্মীয়।

ইন্দো-আর্য এবং ইরানীয়দের জন্ম হয়েছিল প্রত্ন-ইন্দো-ইরানীয় সংস্কৃতি থেকে। ২১০০ থেকে ১৮০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে কাস্পিয়ান সাগরের উত্তরে মধ্য এশীয় স্তেপে সিনতাশ্তা সংস্কৃতি হিসেবে প্রোটো-ইন্দো-ইরানীয় সংস্কৃতির বিকাশ ঘটে।[২][৩][৪] সেই অঞ্চলে বর্তমান রাশিয়া এবং কাজাখস্তান অবস্থিত। পরবর্তীতে ১৮০০ থেকে ১৪০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে আরাল সাগরের চারপাশে তা এন্দ্রোনোভো সংস্কৃতি হিসেবে আরও বিকশিত হয়।[৫] এই প্রোটো-ইন্দো-ইরানীয়রা দক্ষিণ দিকে অভিপ্রায়ণ করে ব্যাকট্রিয়া-মারজিয়ানা সংস্কৃতি তৈরি করে যেখান থেকে তারা তাদের বৈশিষ্ট্যপূর্ণ ধর্মীয় বিশ্বাস এবং ধর্মীয় আচার নিয়ে আসে। ১৮০০ থেকে ১৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ইন্দো-আর্যরা ইরানীয়দের থেকে আলাদা হয়ে যায়।[৬] এরপর ইন্দো-আর্যরা আনাতোলিয়া এবং দক্ষিণ এশিয়া (বর্তমান আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তাননেপাল) এর উত্তরাঞ্চলে অভিপ্রায়ণ করে। অন্যদিকে ইরানীয়রা ইরানে অভিপ্রায়ণ করে। এই উভয় গোষ্ঠীই তাদের নিজেদের সাথে ইন্দো-ইরানীয় ভাষা নিয়ে আসে।

অষ্টাদশ শতকে পাশ্চাত্য এবং ভারতীয় ভাষাসমূহের মধ্যে সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়া যায়, এবং এরই উপর ভিত্তি করে ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা পরিবার আবিষ্কৃত হয়। এই আবিষ্কারের পরেই ইন্দো-ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর অভিপ্রায়ণ এর অনুকল্প দাঁড় করানো হয়। এই সাদৃশ্যগুলোর উপর ভিত্তি করে এদের উৎপত্তির একটি একক উৎস্য প্রস্তাব করা হয়, যেখান থেকে এরা তাদের উৎপত্তিগত জন্মভূমি ছেড়ে বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে যায়।

এই ভাষাবিদ্যাগত যুক্তিকে পুরাতাত্ত্বিক নৃতাত্ত্বিক, বংশগতিবিদ্যাসংক্রান্ত, সাহিত্যিক এবং বাস্তুবিদ্যাগত গবেষণাগুলোও সমর্থন করে। বংশগতিবিদ্যা সংক্রান্ত (জেনেটিক) গবেষণাগুলো থেকে প্রতীয়মান হয় যে, এই অভিপ্রায়ণগুলো ভারতীয় জনসংখ্যার বিভিন্ন উপাদানের উৎপত্তি ও বিস্তৃতির জটিল জিনগত রহস্যের একটা অংশের জন্য দায়ী। সাহিত্যিক গবেষণা থেকে বিভিন্ন ভৌগলিকভাবে স্বতন্ত্র ইন্দো-আর্য ঐতিহাসিক সংস্কৃতির সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়া যায়। বাস্তুবিদ্যাগত গবেষণা থেকে পাওয়া যায় যে, খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় সহস্রাব্দে ব্যাপক মরুভূমিকরণের ফলে সেই সব অঞ্চলে জলের অভাব দেখা যায়, এবং ইউরেশীয় স্তেপ ও ভারতীয় উপমহাদেশে বাস্তুসংস্থানিক পরিবর্তন আসে।[web ১] এর ফলে দক্ষিণ মধ্য এশিয়া, আফগানিস্তান, ইরান ও ভারতের তদকালীন নগর সংস্কৃতি ধ্বংস হয়, এবং ব্যাপক পরিসরে অভিপ্রায়ণ ঘটে। তারপর অভিপ্রায়িত জনগোষ্ঠী উত্তর-নগর সংস্কৃতির সাথে সম্মিলিত হয়।[web ১]

প্রায় ১৮০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ইন্দো-আর্য অভিপ্রায়ণ শুরু হয়। ততদিনে যুদ্ধরথের আবিষ্কার হয়ে গিয়েছিল। এই অভিপ্রায়ণের পর লেভান্ত এবং সম্ভবত অন্তঃস্থিত এশিয়ায় ইন্দো-আর্য ভাষার বিস্তার ঘটে। এটি প্রোটো-ইন্দো-ইউরোপীয় বাসভূমি থেকে ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাসমূহের ছড়িয়ে যাবার একটি অংশ ছিল। প্রোটো-ইন্দো-ইউরোপীয় বাসভূমি পন্টিক-কাস্পিয়ান স্তেপে অবস্থিত, যা পূর্ব ইউরোপের তৃণভূমির একটি বিশাল অঞ্চল। প্রোটো-ইন্দো-ইউরোপীয়দের নিজ বাসভূমি থেকে অভিপ্রায়ণ শুরু হয়েছিল খ্রিস্টপূর্ব ৫ম থেকে ৪র্থ সহস্রাব্দে। এবং ইউরেশীয় স্তেপ থেকে ইন্দো-ইউরোপীয় অভিপ্রায়ণ শুরু হয় প্রায় ২০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে।[৭][১]

এই তত্ত্ব অনুসারে, এই ইন্দো-আর্য ভাষাভাষী জনগোষ্ঠী একটি জিনগত বৈচিত্র্যপূর্ণ গোষ্ঠী যারা একই সাংস্কৃতিক নিয়মাবলি ও ভাষার দ্বারা একতাবদ্ধ, এবং এরা "আর্য" (অভিজাত) হিসেবে পরিচিত। এই সংস্কৃতি ও ভাষার বিস্তৃতি ঘটেছিল পৃষ্ঠপোষক-অনুগ্রহপ্রার্থী ব্যবস্থায় (প্যাট্রন ক্লায়েন্ট সিস্টেমে), যার ফলে অন্যান্য গোষ্ঠীর এই সংস্কৃতিতে অভিনিবেশ ও সংস্কৃতায়ন ঘটে। এটা ইন্দো-আর্য জনগোষ্ঠীতে অন্যান্য সংস্কৃতির শক্তিশালী প্রভাবকে ব্যাখ্যা করে, যেখানে সেই সংস্কৃতিগুলোর সাথে ইন্দো-আর্য সংস্কৃতির মিথোস্ক্রিয়া ঘটেছিল।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. The term "invasion", while it was once commonly used in regard to Indo-Aryan migration, is now usually used only by opponents of the Indo-Aryan migration theory.[১] The term "invasion" does not any longer reflect the scholarly understanding of the Indo-Aryan migrations,[১] and is now generally regarded as polemical, distracting and unscholarly.

উপটীকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Witzel 2005, পৃ. 348।
  2. Anthony 2007, পৃ. 408–411।
  3. Anthony 2009, পৃ. 390 (fig. 15.9), 405–411।
  4. Kuz'mina 2007, পৃ. 222।
  5. Anthony 2009, পৃ. 49।
  6. Anthony 2007, পৃ. 408।
  7. Beckwith 2009, পৃ. 33।

উৎস্য[সম্পাদনা]

প্রকাশিত উৎস্য[সম্পাদনা]

  • Allchin, F. Raymond (১৯৯৫), The Archaeology of Early History South Asia: The Emergence of Cities and States, Cambridge University Press 
  • Allentoft; Sikora; ও অন্যান্য (২০১৫), "Population genomics of Bronze Age Eurasia", Nature, 522 (7555): 167–172, doi:10.1038/nature14507, PMID 26062507, বিবকোড:2015Natur.522..167A 
  • Andronov, Mikhail Sergeevich (২০০৩), A Comparative Grammar of the Dravidian Languages, Otto Harrassowitz Verlag, আইএসবিএন 978-3-447-04455-4 
  • Anthony, David; Vinogradov, Nikolai (১৯৯৫), "Birth of the Chariot", Archaeology, 48 (2), পৃষ্ঠা 36–41 
  • Anthony, David W. (২০০৭), The Horse The Wheel And Language. How Bronze-Age Riders From the Eurasian Steppes Shaped The Modern World, Princeton University Press 
  • ArunKumar, GaneshPrasad; ও অন্যান্য (২০১৫), "Genome-wide signatures of male-mediated migration shaping the Indian gene pool", Journal of Human Genetics, 60 (9): 493–9, doi:10.1038/jhg.2015.51, PMID 25994871 
  • Bamshad, Michael; ও অন্যান্য (২০০১), "Genetic Evidence on the Origins of Indian Caste Populations", Genome Research, 11 (6): 994–1004, doi:10.1101/gr.GR-1733RR, PMID 11381027, পিএমসি 311057অবাধে প্রবেশযোগ্য. 
  • Basu (২০০৩), "Ethnic India: A Genomic View, With Special Reference to Peopling and Structure", Genome Research, 13 (10): 2277–2290, doi:10.1101/gr.1413403, PMID 14525929, পিএমসি 403703অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Basu, Analabha; Sarkar-Roya, Neeta; Majumder, Partha P. (৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬), "Genomic reconstruction of the history of extant populations of India reveals five distinct ancestral components and a complex structure", Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America, 113 (6): 1594–1599, doi:10.1073/pnas.1513197113, PMID 26811443, পিএমসি 4760789অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2016PNAS..113.1594B 
  • Beckwith, Christopher I. (১৬ মার্চ ২০০৯), Empires of the Silk Road: A History of Central Eurasia from the Bronze Age to the Present, Princeton University Press, আইএসবিএন 978-1400829941, সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  • Blench, Roger; Spriggs, Matthew, সম্পাদকগণ (১৯৯৭), Archaeology and Language, I: Theoretical and Methodological Orientations, London: Routledge .
  • Bronkhorst, J.; Deshpande, M.M., সম্পাদকগণ (১৯৯৯), Aryan and Non-Aryan in South Asia: Evidence, Interpretation, and Ideology, Department of Sanskrit and Indian Studies, Harvard University, আইএসবিএন 978-1-888789-04-1 
  • Bryant, Edwin (২০০১), The Quest for the Origins of Vedic Culture: The Indo-Aryan Migration Debate, Oxford University Press, আইএসবিএন 978-0-19-513777-4 .
  • Bryant, Edwin F.; Patton, Laurie L., সম্পাদকগণ (২০০৫), The Indo-Aryan Controversy: Evidence and inference in Indian history, London: Routledge, আইএসবিএন 978-0-7007-1463-6 
  • Burrow, T. (১৯৭৩), "The Proto-Indoaryans", The Journal of the Royal Asiatic Society of Great Britain and Ireland, 105 (2): 123–140, doi:10.1017/S0035869X00130837, জেস্টোর 25203451 
  • Cardona, George (২০০২), The Indo-Aryan languages, RoutledgeCurzon, আইএসবিএন 978-0-7007-1130-7 
  • Cavalli-Sforza, Luigi Luca; Menozzi, Paolo; Piazza, Alberto (১৯৯৪), The History and Geography of Human Genes, Princeton University Press 
  • Cavalli-Sforza, Luigi Luca (২০০০), Genes, Peoples, and Languages, New York: North Point Press .
  • Chakrabarti, D.K. (১৯৯২), The Early use of Iron in India, New Delhi: The Oxford University Press 
  • Chakrabarti, D.K (১৯৭৭), "India and West Asia: An Alternative Approach", Man and Environment, 1: 25–38 
  • Chaubey, Gyaneshwar; ও অন্যান্য (২০০৭), "Peopling of South Asia: investigating the caste-tribe continuum in India", BioEssays, 29 (1), পৃষ্ঠা 91–100, CiteSeerX 10.1.1.551.2654অবাধে প্রবেশযোগ্য, doi:10.1002/bies.20525, PMID 17187379 [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  • Cordeaux, Richard; Deepa, Edwin; Vishwanathan, H.; Stoneking, Mark (২০০৪), "Genetic Evidence for the Demic Diffusion of Agriculture to India", Science, 304 (5674): 1125, CiteSeerX 10.1.1.486.6510অবাধে প্রবেশযোগ্য, doi:10.1126/science.1095819, PMID 15155941 
  • Danino, Michel (২০১০), The Lost River – On the trail of the Sarasvati, Penguin Books India 
  • Demkina, T.S. (২০১৭), "Paleoecological crisis in the steppes of the Lower Volga region in the Middle of the Bronze Age (III–II centuries BC)", Eurasian Soil Science, 50 (7): 791–804, doi:10.1134/S1064229317070018, বিবকোড:2017EurSS..50..791D 
  • Dhavalikar, M. K. (১৯৯৫), "Fire Altars or Fire Pits?", V. Shivananda; M. K. Visweswara, Sri Nagabhinandanam, Bangalore 
  • Diakonoff, Igor M.; Kuz'mina, E. E.; Ivantchik, Askold I. (১৯৯৫), "Two Recent Studies of Indo-Iranian Origins", Journal of the American Oriental Society, 115 (3), পৃষ্ঠা 473–477, doi:10.2307/606224, জেস্টোর 606224 .
  • Elst, Koenraad (১৯৯৯), Update on the Aryan Invasion Debate, New Delhi: Aditya Prakashan, আইএসবিএন 978-81-86471-77-7, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা, সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ .
  • Elst, Koenraad (২০০৫), "Linguistic Aspects of the Aryan Non-Invasion Theory", Bryant, Edwin; Patton, Laurie L., The Indo-Aryan Controversy. Evidence and inference in Indian history, Rouetledge * Erdosy, George, সম্পাদক (১৯৯৫), The Indo-Aryans of Ancient South Asia: Language, Material Culture and Ethnicity, Berlin/New York: Walter de Gruyter, আইএসবিএন 978-3-11-014447-5 
  • Esleben, Jorg; Kraenzle, Christina; Kulkarni, Sukanya (২০০৮), Mapping channels between Ganges and Rhein: German-Indian cross-cultural relations, Cambridge Scholars publication, আইএসবিএন 9781847185877 
  • Flood, Gavin D. (১৯৯৬), An Introduction to Hinduism, Cambridge University Press, আইএসবিএন 9780521438780 
  • Flood, Gavin (২০০৮), The Blackwell Companion to Hinduism, John Wiley & Sons 
  • Fortson, Benjamin W. IV (২০০৪), Indo-European Language and Culture: An Introduction, Oxford: Blackwell, আইএসবিএন 978-1-4051-0316-9 
  • Fosse, Lars Martin (২০০৫), "Aryan past and post-colonial present. The polemics and politics of indigenous Aryanism", Bryant, Edwin; Patton, Laurie L., The Indo-Aryan Controversy. Evidence and inference in Indian history, Routledge 
  • Fosse, L.M. (২০১৩), "Aryan past and post-colonial present: the polemics and politics of indigenous Aryanism.", Bryant, Edwin; Patton, Laurie L., The Indo-Aryan Controversy. Evidence and inference in Indian history, Routledge, পৃষ্ঠা 434–467, আইএসবিএন 9781135791025 
  • Gallego Romero, Irene; ও অন্যান্য (২০১১), "Herders of Indian and European Cattle Share their Predominant Allele for Lactase Persistence", Molecular Biology and Evolution, 29 (1): 249–60, doi:10.1093/molbev/msr190, PMID 21836184 
  • Gomez, Luis O. (২০১৩), Buddhism in India. In: Joseph Kitagawa, "The Religious Traditions of Asia: Religion, History, and Culture", Routledge, আইএসবিএন 9781136875908 
  • Gupta, Tania Das (২০০৭), Race and Racialization: Essential Readings, Canadian Scholars' Press, আইএসবিএন 9781551303352 
  • Hiltebeitel, Alf (২০০২), Hinduism. In: Joseph Kitagawa, "The Religious Traditions of Asia: Religion, History, and Culture", Routledge, আইএসবিএন 9781136875977 
  • Hock, Hans (১৯৯১), Principles of Historical Linguistics, Walter de Gruyter 
  • Holloway, Ralph L. (নভেম্বর ২০০২), "Head to head with Boas: Did he err on the plasticity of head form?", Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America, 99 (23): 14622–14623, doi:10.1073/pnas.242622399, PMID 12419854, পিএমসি 137467অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2002PNAS...9914622H. 
  • Jamison, Stephanie W. (২০০৬), "Review of Bryant & Patton 2005" (PDF), Journal of Indo-European Studies, 34: 255–261 
  • Jones, Constance; Ryan, James D. (২০০৬), Encyclopedia of Hinduism, Infobase Publishing, আইএসবিএন 9780816075645 
  • Jones, Eppie R. (২০১৬), "Upper Palaeolithic genomes reveal deep roots of modern Eurasians", Nature Communications, 6: 8912, doi:10.1038/ncomms9912, PMID 26567969, পিএমসি 4660371অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2015NatCo...6E8912J 
  • Kennedy, Kenneth A. R. (২০০০), God-apes and Fossil Men: Paleoanthropology of South Asia, University of Michigan Press, আইএসবিএন 9780472110131 
  • Kivisild; ও অন্যান্য (১৯৯৯), "Deep common ancestry of Indian and western-Eurasian mitochondrial DNA lineages" (PDF), Current Biology, 9 (22): 1331–1334, doi:10.1016/s0960-9822(00)80057-3, PMID 10574762, ৩০ অক্টোবর ২০০৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা 
  • Kivisild, T.; ও অন্যান্য (ফেব্রুয়ারি ২০০৩), "The Genetic Heritage of the Earliest Settlers Persists Both in Indian Tribal and Caste Populations", American Journal of Human Genetics, 72 (2): 313–332, doi:10.1086/346068, PMID 12536373, পিএমসি 379225অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Kochhar, Rajesh (২০০০), The Vedic People: Their History and Geography, Sangam Books 
  • Kuz'mina, E. E. (১৯৯৪), Откуда пришли индоарии? (Whence came the Indo-Aryans), Moscow: Российская академия наук (Russian Academy of Sciences) .
  • Kuz'mina, Elena Efimovna (২০০৭), J. P. Mallory, সম্পাদক, The Origin of the Indo-Iranians, Brill, আইএসবিএন 978-9004160545 
  • Lal, B. B. (১৯৮৪), Frontiers of the Indus Civilization 
  • Lal, B. B. (১৯৯৮), New Light on the Indus Civilization, Delhi: Aryan Books International 
  • Lal, B. B. (২০০২), The Saraswati Flows on: the Continuity of Indian Culture, New Delhi: Aryan Books International 
  • Lal, B. B. (২০০৫), The Homeland of the Aryans. Evidence of Rigvedic Flora and Fauna & Archaeology, New Delhi: Aryan Books International 
  • Larson, Gerald James (২০০৯), "Hinduism", World Religions in America: An Introduction, Westminster John Knox Press, আইএসবিএন 9781611640472 
  • টেমপ্লেট:Cite biorxiv
  • Lehmann, Winfred P. (১৯৯৩), Theoretical Bases of Indo-European Linguistics, London: Routledge 
  • Loewe, Michael; Shaughnessy, Edward L. (১৯৯৯), The Cambridge History of Ancient China: From the Origins of Civilization to 221 BC, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 87–88, আইএসবিএন 978-0-5214-7030-8, সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৩ 
  • Lockard, Craig A. (২০০৭), Societies, Networks, and Transitions. Volume I: to 1500, Cengage Learning, আইএসবিএন 978-0618386123 
  • Majumdar, R. C.; Pusalker, A. D., সম্পাদকগণ (১৯৫১), The History and Culture of the Indian People. Volume I, The Vedic age, Bombay: Bharatiya Vidya Bhavan 
  • Mallory, J.P. (১৯৮৯), In Search of the Indo-Europeans: Language, Archaeology, and Myth, London: Thames & Hudson, আইএসবিএন 978-0-500-27616-7 .
  • Mallory, J. P.; Mair, Victor H. (২০০০), The Tarim Mummies: Ancient China and the Mystery of the Earliest Peoples from the West, London: Thames & Hudson, আইএসবিএন 978-0-500-05101-6 
  • Mallory, J.P. (২০০২), "Archaeological models and Asian Indo-Europeans", Sims-Williams, Nicholas, Indi-Iranian Languages and Peoples, Oxford University Press 
  • Mallory, J.P. (২০১৩), "Twenty-first century clouds over Indo-European homelands" (PDF), Journal of Language Relationship, 9: 145–154 
  • Mallory, J.P.; Adams, D.Q. (১৯৯৭), Encyclopedia of Indo-European Culture, Taylor & Francis 
  • Mascarenhas, Desmond D.; Raina, Anupuma; Aston, Christopher E.; Sanghera, Dharambir K. (২০১৫), "Genetic and Cultural Reconstruction of the Migration of an Ancient Lineage", BioMed Research International, 2015: 1–16, doi:10.1155/2015/651415, PMID 26491681, পিএমসি 4605215অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • McGetchin, Douglas T. (২০১৫), "'Orient' and 'Occident', 'East' and 'West' in the Doscourse of German Orientalists, 1790–1930", Bavaj, Riccardo; Steber, Martina, Germany and 'The West': The History of a Modern Concept, Berghahn Books 
  • Melton, Gordon J.; Baumann, Martin (২০১০), Religions of the World: A Comprehensive Encyclopedia of Beliefs and Practices (6 volumes), ABC-CLIO 
  • Metspalu, Mait; Gallego Romero, Irene; Yunusbayev, Bayazit; Chaubey, Gyaneshwer; Mallick, Chandana Basu; Hudjashov, Georgi; Nelis, Mari; Mägi, Reedik; Metspalu, Ene; Remm, Maido; Pitchappan, Ramasamy; Singh, Lalji; Thangaraj, Kumarasamy; Villems, Richard; Kivisild, Toomas (২০১১), "Shared and Unique Components of Human Population Structure and Genome-Wide Signals of Positive Selection in South Asia", The American Journal of Human Genetics, 89 (6): 731–744, doi:10.1016/j.ajhg.2011.11.010, PMID 22152676, আইএসএসএন 0002-9297, পিএমসি 3234374অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Moorjani, P.; Thangaraj, K.; Patterson, N.; Lipson, M.; Loh, P. R.; Govindaraj, P.; Singh, L. (২০১৩), "Genetic evidence for recent population mixture in India", The American Journal of Human Genetics, 93 (3): 422–438, doi:10.1016/j.ajhg.2013.07.006, PMID 23932107, পিএমসি 3769933অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Muller, Max (১৯৮৮), Biographies of words and the home of the Aryas, Longmans 
  • Narasimhan, Vagheesh M.; Anthony, David; Mallory, James; Reich, David (২০১৮), The Genomic Formation of South and Central Asia, bioRxiv 292581অবাধে প্রবেশযোগ্য, doi:10.1101/292581 
  • Narayanan, Vasudha (২০০৯), Hinduism, The Rosen Publishing Group, আইএসবিএন 9781435856202 
  • Palanichamy, Malliya Gounder (২০১৫), "West Eurasian mtDNA lineages in India: an insight into the spread of the Dravidian language and the origins of the caste system", Human Genetics, 134 (6): 637–647, doi:10.1007/s00439-015-1547-4, PMID 25832481 
  • Pamjav (ডিসেম্বর ২০১২), "Brief communication: New Y-chromosome binary markers improve phylogenetic resolution within haplogroup R1a1", American Journal of Physical Anthropology, 149 (4): 611–615, doi:10.1002/ajpa.22167, PMID 23115110 
  • Pargiter, F.E. (১৯৭৯) [first published 1922], Ancient Indian Historical Tradition, New Delhi: Cosmo 
  • Parpola, Asko (১৯৯৮), "Aryan Languages, Archaeological Cultures, and Sinkiang: Where Did Proto-Iranian Come into Being and How Did It Spread?", Mair, The Bronze Age and Early Iron Age Peoples of Eastern and Central Asia, Washington, D.C.: Institute for the Study of Man, আইএসবিএন 978-0-941694-63-6 
  • Parpola, Asko (১৯৯৯), "The formation of the Aryan branch of Indo-European", Blench, Roger; Spriggs, Matthew, Archaeology and Language, III: Artefacts, languages and texts, London and New York: Routledge .
  • Parpola, Asko (২০০৫), "Study of the Indus script", Transactions of the 50th International Conference of Eastern Studies, Tokyo: The Tôhô Gakkai, পৃষ্ঠা 28–66 
  • Parpola, Asko (২০১৫), The Roots of Hinduism. The Early Aryans and the Indus Civilization, Oxford University Press 
  • Pereltsvaig, Asya; Lewis, Martin W. (২০১৫), The Indo-European Controversy, Cambridge University Press 
  • Poznik (২০১৬), "Punctuated bursts in human male demography inferred from 1,244 worldwide Y-chromosome sequences", Nature Genetics, 48 (6): 593–599, doi:10.1038/ng.3559, PMID 27111036, পিএমসি 4884158অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Rao, S.R. (১৯৯৩), The Aryans in Indus Civilization 
  • Reich, David; Thangaraj, Kumarasamy; Patterson, Nick; Price, Alkes L.; Singh, Lalji (২০০৯), "Reconstructing Indian population history", Nature, 461 (7263): 489–494, doi:10.1038/nature08365, PMID 19779445, আইএসএসএন 0028-0836, পিএমসি 2842210অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2009Natur.461..489R 
  • Renfrew, Colin (১৯৯২), "Archaeology, genetics and linguistic diversity", Man, 27 (3): 445–478, doi:10.2307/2803924, জেস্টোর 2803924 
  • Sahoo, Sanghamitra; ও অন্যান্য (জানুয়ারি ২০০৬), "A prehistory of Indian Y chromosomes: Evaluating demic diffusion scenarios", Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America, 103 (4): 843–848, doi:10.1073/pnas.0507714103, PMID 16415161, পিএমসি 1347984অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2006PNAS..103..843S. 
  • Salmons, Joseph (২০১৫), "Language shift and the Indo-Europanization of Europe", Mailhammer, Robert; Vennemann, Theo; Olsen, Birgit Anette, Origin and Development of European Languages, Museum Tusculanum Press 
  • Samuel, Geoffrey (২০১০), The Origins of Yoga and Tantra, Cambridge University Press 
  • Sapir, Edward (১৯৪৯), Mandelbaum, David G., সম্পাদক, Selected Writings in Language, Culture, and Personality, University of California Press (প্রকাশিত হয় ১৯৮৫), আইএসবিএন 978-0-520-01115-1 .
  • Sengupta, S.; ও অন্যান্য (২০০৬), "Polarity and temporality of high-resolution y-chromosome distributions in India identify both indigenous and exogenous expansions and reveal minor genetic influence of Central Asian pastoralists", American Journal of Human Genetics, 78 (2): 201–221, doi:10.1086/499411, PMID 16400607, পিএমসি 1380230অবাধে প্রবেশযোগ্য, সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০০৭. 
  • Senthil Kumar, A.S. (২০১২), Read Indussian, Amarabharathi Publications & Booksellers 
  • Shaffer, Jim (১৯৮৪), "The Indo-Aryan Invasions: Cultural Myth and Archaeological Reality", J. R. Lukacs, In The Peoples of South Asia, New York: Plenum Press, পৃষ্ঠা 74–90 
  • Sharma, S.; Saha, A.; Rai, E.; Bhat, A.; Bamezai, R. (২০০৫), "Human mtDNA hypervariable regions, HVR I and II, hint at deep common maternal founder and subsequent maternal gene flow in Indian population groups", Journal of Human Genetics, 50 (10): 497–506, doi:10.1007/s10038-005-0284-2, PMID 16205836. 
  • Sharma, Swarkar; ও অন্যান্য (২০০৯), "The Indian origin of paternal haplogroup R1a1 substantiates the autochthonous origin of Brahmins and the caste system" (PDF), Journal of Human Genetics, 54 (1): 47–55, doi:10.1038/jhg.2008.2, PMID 19158816 
  • Silva, Marina; ও অন্যান্য (২০১৭), "A genetic chronology for the Indian Subcontinent points to heavily sex-biased dispersals", BMC Evolutionary Biology, 17 (1): 88, doi:10.1186/s12862-017-0936-9, PMID 28335724, পিএমসি 5364613অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Springer (২০১২), International Journal of Hindu Studies, 16 (3) 
  • Talageri, Shrikant G. (২০০০), The Rigveda: A Historical Analysis, New Delhi: Aditya Prakashan, আইএসবিএন 978-81-7742-010-4, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা, সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০০৭ .
  • Talageri, Shrikant G. (১৯৯৩), Aryan Invasion Theory and Indian Nationalism, আইএসবিএন 978-81-85990-02-6 .
  • Thapar, Romila (১৯৬৬), A History of India: Volume 1 (Paperback), আইএসবিএন 978-0-14-013835-1 
  • Thomason, Sarah Grey; Kaufman, Terrence (১৯৮৮), Language Contact, Creolization, and Genetic Linguistics, University of California Press (প্রকাশিত হয় ১৯৯১), আইএসবিএন 978-0-520-07893-2 .
  • Tikkanen, Bertil (১৯৯৯), "Archaeological-linguistic correlations in the formation of retroflex typologies and correlating areal features in South Asia", Blench, Roger; Spriggs, Matthew, Archaeology and Language, IV: Language Change and Cultural Transformation, London: Routledge, পৃষ্ঠা 138–148 .
  • Trautmann, Thomas R. (১৯৯৭), Aryans and British India, Vistaar 
  • Trautmann, Thomas (২০০৫), The Aryan Debate, Oxford University Press, আইএসবিএন 978-0-19-566908-4 
  • Underhill, Peter A. (২০১০), "Separating the post-Glacial coancestry of European and Asian Y chromosomes within haplogroup R1a", European Journal of Human Genetics, 18 (4): 479–84, doi:10.1038/ejhg.2009.194, PMID 19888303, পিএমসি 2987245অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Underhill, Peter A. (২০১৫), "The phylogenetic and geographic structure of Y-chromosome haplogroup R1a", European Journal of Human Genetics, 23 (1): 124–131, doi:10.1038/ejhg.2014.50, PMID 24667786, পিএমসি 4266736অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  • Walsh, Judith E. (২০১১), A Brief History of India, Facts on File, আইএসবিএন 978-0-8160-8143-1 
  • Wells, R.S. (২০০১), "The Eurasian Heartland: A continental perspective on Y-chromosome diversity", Proceedings of the National Academy of Sciences of the United States of America, 98 (18): 10244–10249, doi:10.1073/pnas.171305098, PMID 11526236, পিএমসি 56946অবাধে প্রবেশযোগ্য, বিবকোড:2001PNAS...9810244W 
  • Wells, Spencer; Read, Mark (২০০২), The Journey of Man: A Genetic Odyssey (illustrated সংস্করণ), Princeton University Press, আইএসবিএন 978-0691115320 
  • Wheeler, Mortimer (১৯৬৭), De Indus-beschaving, Elsevier 
  • Witzel, Michael (১৯৯৫), "Early Sanskritization: Origin and Development of the Kuru state" (PDF), Electronic Journal of Vedic Studies, 1 (4): 1–26, ১১ জুন ২০০৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা 
  • Witzel, Michael (১৯৯৯), "Substrate Languages in Old Indo-Aryan (Ṛgvedic, Middle and Late Vedic)" (PDF), Electronic Journal of Vedic Studies, 5 (1), ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা 
  • Witzel, Michael (২০০১), "Autochthonous Aryans? The Evidence from Old Indian and Iranian Texts" (PDF), Electronic Journal of Vedic Studies, 7 (3): 1–115 
  • Witzel, Michael (২০০৫), "Indocentrism", Bryant, Edwin; Patton, Laurie L., The Indo-Aryan Controversy. Evidence and inference in Indian history, Routledge 
  • Witzel, Michael (২০০৬), "Rama's realm: Indocentric rewritings of early South Asian archaeology and history", Fagan, Garrett G., Archaeological Fantasies: How Pseudoarchaeology Misrepresents the Past and Misleads the Public, London/New York: Routledge, পৃষ্ঠা 203–232, আইএসবিএন 978-0-415-30592-1 .
  • Zimmer, Heinrich (১৯৫১), Philosophies of India, Princeton University Press 

ওয়েব উৎস্য[সম্পাদনা]

  1. Rajesh Kochhar (2017), The Aryan chromosome, The Indian ERxpress

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

সাধারণ
  • Anthony, David W. (২০০৭), The Horse The Wheel And Language. How Bronze-Age Riders From the Eurasian Steppes Shaped The Modern World, Princeton University Press 
  • Parpola, Asko (২০১৫), The Roots of Hinduism. The Early Aryans and the Indus Civilization, Oxford University Press 
ভাষাবিদ্যা
  • Heggarty, Paul. (2013) "Europe and western Asia: Indo‐European linguistic history." in Immanuel Ness and Peter Bellwood, eds., The Encyclopedia of Global Human Migration (2013) ch 19

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সাধারণ

ভাষাবিদ্যা

পুরাতত্ত্ব
বংশগতিবিদ্যা
সচল মানচিত্র

টেমপ্লেট:প্রাচীন ভারত এবং মধ্য এশিয়া

টেমপ্লেট:প্রত্ন-ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা