স্যান্ডি ডেনিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্যান্ডি ডেনিস
Sandy Dennis
স্যান্ডি ডেনিস.jpg
জন্ম
সান্ড্রা ডেল ডেনিস

(১৯৩৭-০৪-২৭)২৭ এপ্রিল ১৯৩৭[১]
মৃত্যু২ মার্চ ১৯৯২(1992-03-02) (বয়স ৫৪)
ওয়েস্টপোর্ট, কানেটিকাট, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যুর কারণডিম্বাশয়ের ক্যান্সার
পেশাঅভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৫২–১৯৯১
পুরস্কারএকাডেমি পুরস্কার
টনি পুরস্কার

সান্ড্রা ডেল "স্যান্ডি" ডেনিস (২৭ এপ্রিল ১৯৩৭ - ২ মার্চ ১৯৯২) ছিলেন একজন মার্কিন অভিনেত্রী। অভিনয় জীবনে তিনি একটি একাডেমি পুরস্কার এবং দুটি টনি পুরস্কার অর্জন করেছেন। ১৯৬১ সালে স্প্লেন্ডর ইন দ্য গ্রাস দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে। তিনি হুজ অ্যাফ্রেইড অব ভার্জিনিয়া উল্‌ফ? (১৯৬৬) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

তার অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল দ্য থ্রি সিস্টার্স (১৯৬৬), আপ দ্য ডাউন স্টেয়ারকেস (১৯৬৭), দ্যাট কোল্ড ডে ইন দ্য পার্ক (১৯৬৯), দি আউট-অব-টাউনার্স (১৯৭০), গড টোল্ড মি টু (১৯৭৬), দ্য ফোর সিজন্স (১৯৮১), এবং অ্যানাদার ওম্যান (১৯৮৮)। তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র হল অপরাধ নাট্যধর্মী দি ইন্ডিয়ান রানার (১৯৯১)।

ডেনিস মঞ্চনাটকেও সফল ছিলেন। তিনি কাম ব্যাক টু দ্য ফাইভ অ্যান্ড ডাইম, জিমি ডিন, জিমি ডিন-এর মূল মঞ্চায়নে অভিনয় করেন। তিনি আ থাউজেন্ড ক্লাউনস নাটকে অভিনয়ের জন্য মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ চরিত্রাভিনেত্রী বিভাগে টনি পুরস্কার অর্জন করেন এবং অ্যানি ওয়েনজডে নাটকে অভিনয়ের জন্য মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে টনি পুরস্কার অর্জন করেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ডেনিস ১৯৩৭ সালের ২৭শে এপ্রিল নেব্রাস্কার হ্যাস্টিংসে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা জ্যাক ডেনিস ছিলেন একজন ডাকবিভাগের কেরানি এবং মাতা ইভোন্নে হাডসন ছিলেন একজন সহকারী।[২][৩] তার এক ভাই ছিল, নাম ফ্রাঙ্ক। ডেনিস নেব্রাস্কার কেনেসো ও লিংকনে বেড়ে ওঠেন। তিনি ১৯৫৫ সালে লিংকন হাই স্কুল থেকে পড়াশুনা সমাপ্ত করেন[৪] এবং নেব্রাস্কা ওয়েসলিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। তিনি নেব্রাস্কা বিশ্ববিদ্যালয়ের লিংকন কমিউনিটি থিয়েটার গ্রুপে অভিনয় করতেন। ১৯ বছর বয়সে তিনি নিউ ইয়র্ক সিটিতে চলে যান[৫] এবং সেখানে এইচবি স্টুডিওতে অভিনয় নিয়ে পড়াশোনা করেন।[৬]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ব্রডওয়েতে তারকা খ্যাতি[সম্পাদনা]

ডেনিস হার্ব গার্ডনারের আ থাউজেন্ড ক্লাউনস (১৯৬২-১৯৬৩) নাটকে অভিনয় করে ব্রডওয়েতে খ্যাতি অর্জন করেন। নাটকটি ৪২৮ বার মঞ্চস্থ হয়। এই কাজের জন্য তিনি মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ চরিত্রাভিনেত্রী বিভাগে টনি পুরস্কার অর্জন করেন।[৭] এই সময়ে তিনি নেইকড সিটি ধারাবাহিকের "আইডিলস অব আ রানিং ব্যাক" (১৯৬২) ও "ক্যারিয়ার" (১৯৬৩) পর্বে, দ্য ফিউজিটিভ ধারাবাহিকের "দি আদার সাইড অব দ্য মাউন্টেন" (১৯৬৩) পর্বে, অ্যারেস্ট অ্যান্ড ট্রায়াল ধারাবাহিকের "সামহোয়াট লোয়ার দ্যান দি অ্যাঞ্জেলস" (১৯৬৪) পর্বে, এবং মিস্টার ব্রডওয়ে ধারাবাহিকের "ডোন্ট মেনশন মাই নেম ইন শেবোইগান" পর্বে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেন।

তিনি ব্রডওয়ের হাস্যরসাত্মক অ্যানি ওয়েনজডে নাটকে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেন, যা ৯৮৩ বার মঞ্চস্থ হয়। এই নাটকের জন্য তিনি মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে তার দ্বিতীয় টনি পুরস্কার অর্জন করেন।[৮] ফলে তিনি অ্যান ব্যানক্রফ্‌ট, জো ক্যাডওয়েল, ভায়োলা ডেভিস, কলিন ডিউহার্স্ট, মরিন স্ট্যাপলটন, আইরিন ওর্থঅড্রা ম্যাকডোনাল্ডদের মত মঞ্চনাটকে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী ও চরিত্রাভিনেত্রী বিভাগে পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেত্রীদের একজন।

চলচ্চিত্রে তারকা খ্যাতি[সম্পাদনা]

ডেনিস মাইক নিকোল্‌স পরিচালিত হুজ অ্যাফ্রেইড অব ভার্জিনিয়া উল্‌ফ? (১৯৬৬) চলচ্চিত্রে জর্জ সেগালের স্ত্রী হানি চরিত্রে অভিনয় করেন। চলচ্চিত্রটি ব্যাপক সমাদৃত ও ব্যবসাসফল হয় এবং এই কাজের জন্য ডেনিস শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন[৯] এবং গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।[১০]

চলচ্চিত্রে ডেনিসের প্রথম শ্রেষ্ঠাংশে কাজ ছিল রবার্ট মুলিগান পরিচালিত আপ দ্য ডাউন স্টেয়ারকেস (১৯৬৭)। চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে সফল হয় এবং ডেনিস এই কাজের জন্য মস্কো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব থেকে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার অর্জন করেন।[১১] একই বছর তার অভিনীত দ্য ফক্স চলচ্চিত্রটি এর বিতর্কিত বিষয়বস্তু থাকার পরও বক্স অফিসে সফল হয়। ১৯৬৭ সালে ডেনিস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৮তম শীর্ষ তারকা হিসেবে ভোট পান।[১২]

১৯৬৯ সালে তার অভিনীত আ টাচ অব লাভ এবং দ্যাট কোল্ড ডে ইন দ্য পার্ক বক্স অফিসে ব্যর্থ হয়। তবে নিল সিমন পরিচালিত দি আউট-অব-টাউনার্স (১৯৭০) চলচ্চিত্রটি ব্যবসাসফল হয় এবং তিনি এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য সঙ্গীতধর্মী বা হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. পিটার শেলি (৮ নভেম্বর ২০১৩)। Sandy Dennis: The Life and Films। ম্যাকফারল্যান্ড। আইএসবিএন 978-1-4766-0589-0 
  2. "Sandy Dennis Biography (1937–1992)"ফিল্ম রেফারেন্স (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  3. ফে জুনিয়র, ফ্রান্সিস এক্স (৪ মার্চ ১৯৯২)। "Oscar, Tony winning actress Sandy Dennis dies of cancer at 54"দি আওয়ার (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  4. Lincoln High School (১৯৫৫)। The Links, vol. 39। লিংকন, নেব্রাস্কা: Lincoln High School। পৃষ্ঠা ৩৮। 
  5. "Sandy Dennis"ইয়াহু মুভিজ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ এপ্রিল ২০১৮ 
  6. "HB Studio - Notable Alumni | One of the Original Acting Studios in NYC"এইচবি স্টুডিও (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  7. "1963 Tony Awards"ইনফোপ্লিজ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  8. "'Hello, Dolly!' Wins Half of Theater Wing's 20 Tonys; Osborne's 'Luther' Is Named Season's Best Drama"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২৫ মে ১৯৬৪। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  9. "The 39th Academy Awards | 1967"অস্কার (ইংরেজি ভাষায়)। একাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  10. "Winners & Nominees 1967"গোল্ডেন গ্লোব (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  11. "5th Moscow International Film Festival (1967)"MIFF। ১৬ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  12. 'Star Glitter Is Catching' By Richard L. Coe. The Washington Post, Times Herald (1959–1973) [Washington, D.C] 07 Jan 1968: H1.
  13. "Winners & Nominees 1971"গোল্ডেন গ্লোব। সংগ্রহের তারিখ ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]