মিয়োশি উমেকি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মিয়োশি উমেকি
Sayonara (1957) Press Photo of Miyoshi Umeki.jpg
আনুমানিক ১৯৫৯ সালে উমেকি
জন্ম
উমেকি মিয়োশি (梅木 美代志)

(১৯২৯-০৫-০৮)৮ মে ১৯২৯
মৃত্যুআগস্ট ২৮, ২০০৭(2007-08-28) (বয়স ৭৮)
নাগরিকত্বমার্কিন
পেশাসঙ্গীতশিল্পী, অভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৫৩-১৯৭২
দাম্পত্য সঙ্গীওয়াইন ওপি
(বি. ১৯৫৮; বিচ্ছেদ. ১৯৬৭)

র‍্যান্ডল হুড
(বি. ১৯৬৮; মৃ. ১৯৭৬)
সন্তান
পুরস্কারশ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে একাডেমি পুরস্কার

মিয়োশি উমেকি (৮ মে ১৯২৯ - ২৮ আগস্ট ২০০৭) একজন জাপানি-মার্কিন সঙ্গীতশিল্পী ও অভিনেত্রী।[১] তিনি একটি টনি পুরস্কারগোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার মনোনীত অভিনেত্রী এবং অভিনয়ের জন্য একাডেমি পুরস্কার বিজয়ী প্রথম পূর্ব এশীয়-মার্কিন নারী।[২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

মিয়োশি ১৯২৯ সালের ৮ই মে হোক্কাইদোর ওতারুতে জন্মগ্রহণ। তিনি তার পিতামাতার নয় সন্তানের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ। তার পিতা একটি লোহার ফ্যাক্টরির মালিক ছিলেন।[১] দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর উমেকি জাপানে ন্যান্সি উমেকি নাম ধারণ করে একটি নাইটক্লাবে গায়িকা হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন।[৩] তিনি ঐতিহ্যবাহী কাবুকি মঞ্চ ও মার্কিন পপ সঙ্গীত থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন।[১] পরবর্তীকালে তিনি দ্য মার্ভ গ্রিফিন শো-তে তিনি দর্শকদের তার শৈশবের প্রিয় মার্কিন সঙ্গীতশিল্পী বিলি একস্টিনের অভিনয় করে দেখান।

পুরস্কার ও মনোনয়ন[সম্পাদনা]

বছর পুরস্কার বিভাগ চলচ্চিত্র ফলাফল
১৯৫৮ একাডেমি পুরস্কার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী সায়োনারা বিজয়ী
১৯৫৮ গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী - চলচ্চিত্র মনোনীত
১৯৬২ শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী - সঙ্গীতধর্মী বা হাস্যরসাত্মক ফ্লাওয়ার ড্রাম সং মনোনীত
১৯৭০ শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী - টেলিভিশন দ্য কোর্টশিপ অব এডিস ফাদার মনোনীত
১৯৫৯ টনি পুরস্কার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী - সঙ্গীতনাট্য ফ্লাওয়ার ড্রাম সং মনোনীত

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বার্নস্টেইন, অ্যাডাম (৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭)। "Miyoshi Umeki; Recorded American Pop Standards, Won Oscar for 'Sayonara'"দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২২ 
  2. "Oscar winner Miyoshi Umeki dies at 78"ইউএসএ টুডেঅ্যাসোসিয়েটেড প্রেস। ৫ সেপ্টেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২২ 
  3. লাভিয়েতেস, স্টুয়ার্ট (৬ সেপ্টেম্বর ২০০৭)। "Miyoshi Umeki, 78, Actress Who Won an Oscar in '57, Dies"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস। পৃষ্ঠা B7। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]