লালমোহন

স্থানাঙ্ক: ২২°২০′২৯″ উত্তর ৯০°৪৩′৫৫″ পূর্ব / ২২.৩৪১৩৩৯° উত্তর ৯০.৭৩১৯৫৫° পূর্ব / 22.341339; 90.731955
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লালমোহন
পূর্বনাম: মেহেরগঞ্জ
পৌরশহরউপজেলা সদর
লালমোহন বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
লালমোহন
লালমোহন
বাংলাদেশে লালমোহন শহরের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২০′২৯″ উত্তর ৯০°৪৩′৫৫″ পূর্ব / ২২.৩৪১৩৩৯° উত্তর ৯০.৭৩১৯৫৫° পূর্ব / 22.341339; 90.731955
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগবরিশাল বিভাগ
জেলাভোলা জেলা
উপজেলালালমোহন উপজেলা
উপজেলা সদর১৫ই এপ্রিল ১৯৮৩
পৌরশহর১৯৯০
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকলালমোহন পৌরসভা
 • পৌরমেয়রএমদাদুল ইসলাম তুহিন [১]
আয়তন
 • মোট২১.৬৬ বর্গকিমি (৮.৩৬ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
 • মোট৩৬,০৬৬
 • জনঘনত্ব১,৭০০/বর্গকিমি (৪,৩০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবাংলাদেশ সময় (ইউটিসি+৬)

লালমোহন বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি ছোট শহর। এটি বরিশাল বিভাগের অন্তর্গত ভোলা জেলায় অবস্থিত লালমোহন উপজেলার প্রধান শহর। প্রশাসনিকভাবে শহরটি লালমোহন উপজেলার সদর দফতর। এটি জনসংখ্যার বিচারে ভোলা জেলার তৃতীয় বৃহত্তম শহর।

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

লালমোহন শহরের অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২২°২০′২৯″ উত্তর ৯০°৪৩′৫৫″ পূর্ব / ২২.৩৪১৩৩৯° উত্তর ৯০.৭৩১৯৫৫° পূর্ব / 22.341339; 90.731955। সমুদ্র সমতল থেকে শহরটির গড় উচ্চতা ২ মিটার। শহরটি ভোলা জেলার মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

৭ জানুয়ারী ১৯১৯ সালে লালমোহন থানার কার্যক্রম শুরু হয়। ১৫ এপ্রিল ১৯৮৩ সালে লালমোহন উপজেলা গঠিত হলে লালমোহন শহরকে উপজেলা সদর করা হয়। ১৯৯৮ সালে লালমোহন পৌরসভা গঠিত হলে লালমোহন পৌরশহরের মর্যাদা লাভ করে।[২]

প্রশাসন[সম্পাদনা]

লালমোহন শহরটি লালমোহন পৌরসভা দ্বারা পরিচালিত হয় যা ৯টি ওয়ার্ড এবং ১৮টি মহল্লায় বিভক্ত। ২১.৬৬ বর্গ কি.মি. আয়তনের লালমোহন শহরের ৮.২৯ বর্গ কি.মি. লালমোহন পৌরসভা দ্বারা পরিচালিত হয়।[৩]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১ অনুযায়ী লালমোহন শহরের মোট জনসংখ্যা ৩৬,০৬৬ জন যার মধ্যে ১৭,৯০৫ জন পুরুষ এবং ১৮,১৬১ জন নারী। এ শহরের পুরুষ এবং নারী অনুপাত ৯৯:১০০৷ [৪]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এই শহরের স্বাক্ষরতার হার শতকরা ৫৩.৪ ভাগ।শহরে সরকারী কলেজ ১টি, বেসরকারী কলেজ ২টি, কামিল মাদ্রাসা ১টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৫টি, দাখিল মাদ্রাসা ১টি, কেজি স্কুল ৩টি রয়েছে।

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

লালমোহন স্টেডিয়াম শহরের মধ্যস্থলে অবস্থিত। প্রতি বছর এতে ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, ব্যাডমিন্টনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।[৫]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

শহরের দুটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থান হলো:

  • আক্কেলপুর তুলশি গঙ্গা নদী ও ব্রিজ
  • শহীদ ছমির উদ্দিন শৃতি পার্ক

[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "লালমোহন পৌরসভার মেয়র"। ২৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৬ 
  2. "লালমোহন শহর সম্পর্কে"। ২৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৭ 
  3. "পৌরসভা"। ২৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৭ 
  4. "Urban Centers in Bangladesh"। Population & Housing Census-2011 [আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১] (PDF) (প্রতিবেদন)। জাতীয় প্রতিবেদন (ইংরেজি ভাষায়)। ভলিউম ৫: Urban Area Rport, 2011। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। মার্চ ২০১৪। পৃষ্ঠা ১৭৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৭ 
  5. "খেলাধুলা ও বিনোদন"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৭ 
  6. "পর্যটন"। ২৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-২৭