ফ্রান্স জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফ্রান্স
দলের লোগো
ডাকনামLes Bleus (নীল)
L'Équipe Tricolore (তিন রঙা দল)
অ্যাসোসিয়েশনফেদেরাশন ফ্রঁসে দা ফুটবল
কনফেডারেশনউয়েফা (ইউরোপ)
প্রধান কোচদিদিয়ে দেশঁ
অধিনায়কউগো লরিস
সর্বাধিক ম্যাচলিলিয়ান থুরাম (১৪২)
শীর্ষ গোলদাতাথিয়েরি অঁরি (৫১)
মাঠস্তাদ দ্য ফ্রান্স
ফিফা কোডFRA
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমানঅপরিবর্তিত (৭ই জুন ২০১৮)
সর্বোচ্চ(মে ২০০১-মে ২০০২)
সর্বনিম্ন২৭ (সেপ্টেম্বর ২০১০)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমানবৃদ্ধি 2 (৯ই জুলাই ২০১৮)
সর্বোচ্চ(জুলাই ২০০৭)
সর্বনিম্ন৪০ (মার্চ-জুলাই ১৯৩০)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 বেলজিয়াম ৩-৩  ফ্রান্স
(ব্রাসেলস, বেলজিয়াম; ১ মে, ১৯০৪)
বৃহত্তম জয়
 ফ্রান্স ১০-০  আজারবাইজান
(অক্সঁ, ফ্রান্স; ৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫)
বৃহত্তম পরাজয়
 ডেনমার্ক ১৭-১  ফ্রান্স
(লন্ডন, ইংল্যান্ড; ২২ অক্টোবর, ১৯০৮)
বিশ্বকাপ
অংশগ্রহণ১৫ (১৯৩০-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যবিজয়ী ১৯৯৮, ২০১৮ বিশ্বকাপ
ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপ
অংশগ্রহণ৯ (১৯৬০-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যবিজয়ী ১৯৮৪, ২০০০
কনফেডারেশন্স কাপ
অংশগ্রহণ২ (২০০১-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যবিজয়ী ২০০১, ২০০৩

ফ্রান্স জাতীয় ফুটবল দল আন্তর্জাতিক ফুটবলে ফ্রান্সের প্রতিনিধিত্ব করে। দলটির নিয়ন্ত্রক সংস্থা হচ্ছে ফরাসি ফুটবল ফেডারেশনউয়েফার সদস্য হিসেবে ফ্রান্স বিভিন্ন ফুটবল প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

১৯৩০ সালে ফ্রান্স প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নেয়। সর্বপ্রথম অনুষ্ঠিত এই বিশ্বকাপে ফ্রান্স ছিলো অংশ নেওয়া চারটি ইউরোপীয় দলের একটি। ১৯৯৮ সালে দলটি প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ শিরোপা জয় করে। সেবারের বিশ্বকাপের আয়োজক দেশও ছিলো ফ্রান্স। ফাইনালে তারা ব্রাজিলকে ৩-০ গোলে পরাজিত করে। ফ্রান্স ও ইংল্যান্ড হচ্ছে ইউরোপে একবার করে বিশ্বকাপ শিরোপা জয় করা দল। এছাড়া ফ্রান্স দুইবার উয়েফা ইউরোপীয়ান ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ জয় করেছেন। প্রথমটি ছিলো ১৯৮৪ সালে। সেবার ব্যলন ডি’অর জেতা ফরাসি ফুটবলার মিশেল প্লাতিনি ফ্রান্সের এই জয়ে ভূমিকা রাখেন। আর এর পরেরটি ফ্রান্স জেতে তিনবার ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হওয়া জিনেদিন জিদানের নৈপুণ্যে। পরবর্তীতে ফ্রান্স ফিফা কনফেডারেশন্স কাপও জয়লাভ করে। এর ফলে ফ্রান্স দ্বিতীয় দল হিসেবে ফিফা আয়োজিত তিনটি সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ ও মর্যাদাপূর্ণ ফুটবল প্রতিযোগীতার শিরোপা অর্জনকারী দল হিসেবে আবির্ভূত হয়। এই তিনটি প্রতিযোগিতা হচ্ছে ফিফা বিশ্বকাপ, ফিফা কনফেডারেশন্স কাপ, ও গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক ফুটবল। ফ্রান্স ছাড়া আরে যে দলটি এই তিনটি শিরোপা জয় করার গৌরব অর্জন করেছে, সেটি হচ্ছে আর্জেন্টিনা

বর্তমানে ফ্রান্সের সাথে ইতালির একটি প্রতিদ্বন্দীতাপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রয়েছে। ১৯১০ সালে এই দুই দল প্রথম মুখোমুখি হয়। পরবর্তীতে এই প্রতিদ্বন্দীতা অনেকটা ধামাচাপা পড়ে গেলেও ২০০৬ সালের ফিফা বিশ্বকাপের ফাইনালে জিদান ও ইতালীয় ফুটবলার মার্কো মাতেরাজ্জির মধ্যকার বিরোধ ও অপ্রীতিকর ঘটনা, এবং ফলশ্রুতিতে লাল কার্ড পেয়ে জিদানের মাঠ ত্যাগের মাধ্যমে এই প্রতিদ্বন্দীতা আবার তীব্র রূপ নেয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]